সারা খুলনা অঞ্চল ও আশপাশের সব খবরা খবর

30
কালিগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ
Spread the love

খুলনা জেলা পুলিশ সুপারকে খুলনা জেলা কৃষক লীগের ধন্যবাদ জ্ঞাপন
খবর বিজ্ঞপ্তি
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা কৃষকরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে গত ১৫ জুন গণভবনে তিন মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৫ জুলাই খুলনা জেলা কৃষক লীগের উদ্যোগে কয়রা ও পাইকগাছা উপজেলা কৃষক লীগের যৌথ ব্যবস্থাপনায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। কর্মসূচি স্ষ্ঠুুভাবে সফল করতে প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করে খুলনা জেলা পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় কয়রা ও পাইকগাছা থানা পুলিশের সরব উপস্থিতিতে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্য দিয়ে এ কর্মসূচি সফলভাবে পালন করা হয়। কর্মসূচি স্বার্থক ও সফলভাবে পালিত হওয়ায় কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ’র পক্ষ থেকে খুলনা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইদুর রহমান-পিপিএম কে খুলনা জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা মানিকউজ্জামান অশোক এর নেতৃত্বে গত ৯ জুলাই পুলিশ সুপার কার্যলয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশপত্র প্রদান করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা কৃষক লীগের দপ্তর সম্পাদক আল মাহমুদ প্রিন্স, সদস্য শেখ মোঃ শামসুদ্দোহা বাঙ্গালী।

যুবদলের কেন্দ্রের নবগঠিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে খুলনায় শুভেচ্ছা মিছিল
খবর বিজ্ঞপ্তি
যুবদলের কেন্দ্রীয় সংসদের নবগঠিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে গতকাল বুধবার (১০ জুলাই) বিকেলে বিশাল শুভেচ্ছা মিছিল করেছে খুলনা জেলা যুবদল। আগামীর রাষ্ট্রনায়ক তারেক রহমানের নেতৃত্বে ফ্যাসিষ্ট শেখ হাসিনা সরকার পতন আন্দোলনে নতুন নেতৃত্ব বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে দেশের মানুষের ভোটাধিকার নিশ্চিত করে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা করবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন নেতৃবৃন্দ।
শুভেচ্ছা মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবদলের সভাপতি এসএম শামীম কবির, সহ-সভাপতি আইয়ুব হোসেন মোল্লা, যুগ্ম-সম্পাদক নাজিমুজ্জামান জনি, ইয়ারুল ইসলাম রিপন, মমিনুর রহমান সাগর, হাবিবুর রহমান বেলাল, শফিকুল ইসলাম বাচ্চু, মোহাম্মদ পির আলী, সেলিম চৌধুরী, মোঃ জুয়েল আকোন, বাহাদুর মুন্সি, আমিনুল ইসলাম বুলবুল, মোঃ রুবেল মীর, মোঃ নাজমুল হুদা মিন্টু, মোঃ মিজানুর রহমান, এসএম বোরহান উদ্দিন, মোঃ সোহাগ গোলদার, মোঃ মনিরুল ইসলাম, মোঃ সাইদুল ইসলাম, আজিজ মেম্বার, তিতাস মোড়ল, সফিক গাজী, মোঃ লিটন, রনি লস্কর, মোঃ মাসুম বিল্লাহ, মোঃ আলমগীর, মোঃ সফিক, খাজা মোড়ল, হিরোন চৌধুরী ও মোঃ সেলিম প্রমুখ।।

কোটা প্রথা বাতিলের দাবীতে রূপসা ব্রীজের উপর আন্দোলন

রূপসা প্রতিনিধি
সারাদেশে কোটা আন্দোলনের সমর্থনে অবশেষে রূপসা ব্রীজে বুধবার বিকাল ৬ টা থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সহ,খুলনা মহানগর এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করে। রূপসা থানা অফিসার ইনচার্জ এ প্রতিনিধিকে জানান বিকাল ৬ টা থেকে তাদের আন্দোলন শুরু হয়। আন্দোলনে প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থী রূপসা ব্রিজের উপর বসে স্লোগান দিতে থাকে৷ এ ঘটনায় ব্রিজের দু পাশে শত শত যানবাহন এবং হাজার হাজার যাত্রী আটকে পড়ে। পূর্ব রূপসা ব্রিজ সংলগ্ন থেকে কুদির বটতলা পর্যন্ত প্রায় ৪ কিঃ মি এবং পশ্চিম রূপসা ব্রিজ এলাকা হতে লবনচোরা থানা পর্যন্ত তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়।

রূপসায় ১১ বছরের শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু
রূপসা প্রতিনিধি
খুলনার রূপসায় সীমান্ত মন্ডল (১১) নামে এক শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (৯ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার শ্রীফলতলা ইউনিয়নের ভবানীপুরে এ ঘটনা ঘটে। সে ওই এলাকার সুকুমার মন্ডলের ছেলে। ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র সীমান্ত মন্ডল গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে দাবি পরিবারের। তবে শিশু শিক্ষার্থীর এ মৃত্যু রহস্যজনক বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির বাবা স্থানীয় একটি ইটভাটায় দিনমজুরের কাজ করে। মঙ্গলবার রাতে বাবার কাছে নতুন স্যান্ডেলের জন্য সীমান্ত মন্ডল বায়না করতে থাকে। বাবা পড়ে কিনে দিবে বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। কিছু সময় পর সে মায়ের কাছে স্যান্ডেলের জন্য বাইনা করতে থাকে। বিষয়টি নিয়ে তাকে ঝগড়া করে তার মা পাশের রান্নাঘরে চলে যায়। রান্না শেষে ঘরে ঢুকে দেখেন ঘরের আড়ার সাথে গলায় শাড়ি প্যাঁচানো অবস্থায় ঝুলছে সীমান্ত। পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে উদ্ধার করে রূপসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক বলেন, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

কালিগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ
জিএম সাগর হোসেন
সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলায় এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রায় ৬ লাখ টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি উপজেলায় একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা হিসেবে আলোচিত হচ্ছে। এমনই এক ঘটনা কালিগঞ্জ উপজেলার সরকারী কালিগঞ্জ পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোপাল কুমার গাইন এর বিরুদ্ধে। উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের কর্মকর্তা মোঃ নাজিম উদ্দিন এর কাছ থেকে প্রাপ্ত সেবা খাতের বাজেট থেকে প্রাপ্ত অর্থনৈতিক কোড ৩২৬৫১০৬ ঘেটে অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখা যায় চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের পোষাক বাবদ ২০ হাজার টাকা ২০২৩ -২৪ অর্থ বছরের প্রদান করা হয়নি। কেন তাদের অনুদান পায়নি বিষয়টি প্রধান শিক্ষককের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি তাদের বলেছি কিন্তু তারা সময় পাচ্ছেনা। একই নথির অর্থনৈতিক কোড ৪১১২৩০৬ এর বিপরীতে নিয়ম ছাড়াই গবেষণা যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামাদি বাবদ ১লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ৩২৫৬১০২ কোড রাসায়নিক দ্রব্যাদি বাবদ ৩৫ হাজার টাকা, ৩২৫৮১০৫ কোড অন্যান্য যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম (মেরামত বাবদ) ৩৫ হাজার টাকা, ৪১১২৩১২ কোড শিক্ষা ও শিক্ষা উপকরণ বাবদ ৩৫ হাজার টাকা খরচ করা হয়েছে। এব্যাপারে গোপাল কুমার গাইন বলেন যে, আমাদের এই মালামাল গুলো আগামীকাল ১১ জুলাই আসবে তখন আমরা হিসেব দেখাবো। মালামাল ক্রয় এর ক্ষেত্রে কোন নিয়ম মানা হয়নি। রেজুলেশন করা হয়নি, বিজ্ঞানাগারের মালামাল ক্রয়ের ক্ষেত্রে কোন নিয়ম মানা হয়নি। কোটেশন নেওয়া হয়নি, দরপত্র আহব্বান করা হয়নি। উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস থেকে ১১ ও ১৫ জুন ২০২৪ তারিখে ছাড় করানো ৫ লক্ষ ৫১হাজার ৫৫২ টাকা কোথায় তার অস্তিত্ব খুঁজতে গেলে অনেকে বলেন যে, টাকাটি তার ব্যক্তিগত একাউন্টে জমা করে আত্মসাৎ এর পায়তারা চালানোকালে চাওর হয়ে উঠে। বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় হলে গত ৯ জুলাই মঙ্গলবার তড়িঘড়ি করে ধুরন্দর প্রধান শিক্ষক গোপাল কুমার গাইন সাতক্ষীরা জেলা সদর থেকে উচ্চ মুল্যে কিছু বই ও ক্রীড়া সামগ্রী ক্রয় করে অফিসে রেখেছে। ঐ স্কুলের জনৈক্য সিনিঃ শিক্ষকসহ একাধিক শিক্ষক ও কমিটির সদস্য এ প্রতিনিধিকে জানান, ভারপ্রাপ্ত হেড স্যার সকলের কাছে তথ্য গোপন করে সেবাখাতের লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যাক্তি একাউন্টে নিয়ে আত্মসাৎ এর চেষ্টা করলে আমরা জানতে পেরে প্রতিবাদ জানাই। এসময়ে গত ৯ জুলাই তিনি তড়িঘড়ি করে শিক্ষকদের নিয়ে মিটিং ডেকে দোষ স্বীকার করে। অবশেষে নিয়ম মোতাবেক সেবাখাতের মালামাল ক্রয় শুরু করেছেন।

ইসলামী আন্দোলন খুলনা জেলার মাসিক বৈঠক অনুষ্ঠিত
খবর বিজ্ঞপ্তি
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা জেলা শাখা এর আওতাধীন সকল উপজেলার ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের সকল সাংগঠনিক কার্যক্রমকে আরো বেগমান ও গতিশীল করার নির্দেশনা দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা অধ্যাপক মোহাঃ আব্দুল্লাহ ইমরান। তিনি বুধবার বিকাল ৪ টায় জেলা কার্যলয়ে জেলার নিয়মিত মাসিক বৈঠকে সভাপতিত্বের বক্তব্যে এনির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন।
জেলা শাখার সেক্রেটার হাফেজ মোহাঃ আসাদুল্লাহ আল গালীবের পরিচালনায় অনুুষ্ঠিত মাসিক সভায় অন্যন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলার সহ সভাপতি মাওলানা মোহাঃ মুজিবুর রহমান আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম , মোঃ রেজাউল করিম মাওলানা আব্দুস সাত্তার, হাফেজ মাওলানা মুফতি আশরাফুল ইসলাম, মোহাঃ মুহিব্বুল্লাহ, মাওলানা মোহাঃ হারুনুর রশিদ , মাওলানা মোহাঃ এনামুল হাসান সাঈদ মোঃ হায়দার আলী, শেখ ওলিয়ার রহমান, শেখ রওশন আলী, মোঃ প্রমুখ।

রূপসায় ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন
রূপসা প্রতিনিধি
রূপসায় উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ১০ জুলাই সকালে কৃষি অফিস চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসাবে মেলার উদ্বোধন করেন খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী। রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার কোহিনুর জাহানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন রূপসা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সারমিন সুলতানা রুনা। সভায় স্বাগত বক্তৃতা করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: জাহাঙ্গীর আলম। প্রকল্প উপস্থাপন করেন ক্লাইমেট প্রযুক্তির মাধ্যমে খুলনা কৃষি অঞ্চলের জলবায়ু পরিবর্তন অভিযোজন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কৃষিবিদ শেখ ফজলুল হক মনি। বক্তৃতা করেন কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসেন,রূপসা থানা অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) ইমদাদুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী এসএম ওয়াহিদুজ্জামান, সমাজসেবা কর্মকর্তা জেসিয়া জামান,খুলনা জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য ফ,ম আ, সালাম,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক সরদার আবুল কাশেম ডাবলু,সহ-সভাপতি আরিফুর রহমান মোল্যা,সৈয়দ মোর্শেদুল আলম বাবু,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শ্যামল কুমার দাস,জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মোঃ মোতালেব হোসেন,উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাক আকতার ফারুক,শ্রম বিষয়ক সম্পাদক গাজী মোঃ আলী জিন্নাহ,সদস্য শেখ জমির শেখ,আমজাদ হোসেন,ঘাটভোগ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোল্যা ওয়াহিদুজ্জামান মিজান,নৈহাটী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ কামাল হোসেন বুলবুল।

বিএনপি জামায়াতের অগ্নি সন্ত্রাস বাংলাদেশের উন্নয়ন ব্যহত করতে পারবে না: সালাম মূর্শেদ
রূপসা প্রতিনিধি
খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী বলেছেন বিএনপি জামায়াতের অগ্নি সন্ত্রাস বাংলাদেশের উন্নয়ন ব্যহত করতে পারবে না। জননেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ একটি রোল মডেলে পরিনত হতে যাচ্ছে। দেশের এ উন্নয়ন ব্যহত করতে বিএনপি-জামায়াত নানাবিধ চক্রান্তে লিপ্ত আছে। তাদের এ হীন চক্রান্তকে মোকাবেলার জন্য আওয়ামিলীগের নেতাকর্মীকে একত্রিত থাকতে হবে। তিনি বলেন বিএনপির অবস্থা বর্তমানে যা হয়েছে কিছুদিন পরে বিএনপিকে আর খুঁজে পাওয়া যাবে না।বিএনপির অবাঞ্ছিত নানামুখী কর্মকাণ্ডের জন্য বাংলাদেশের আপামর জনসাধারণ তাদেরকে বয়কট করেছে।

তিনি ১০ জুলাই বিকালে ঘাটভোগ ইউনিয়নের ডোবা বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য একথা বলেন।

ঘাটভোগ ইউনিয়ন নির্বাচন পরিচালনা কমিটি আয়োজিত এ কর্মী সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন রূপসা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সারমিন সুলতানা রুনা,খুলনা জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য ফ,ম আ: সালাম,উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা সরদার আবুল কাশেম ডাবলু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ মোর্শেদুল আলম বাবু,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শ্যামল কুমার দাস,জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মোঃ মোতালেব হোসেন,ঘাটভোগ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোল্যা ওয়াহিদুজ্জামান মিজান, ছাগলাদহ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম দীন ইসলাম।

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক মুনীর হোসেন মোল্যার সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব,রূপসা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শক্তিপদ বসুর পরিচালনায় বক্তৃতা করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাক আকতার ফারুক,শ্রম বিষয়ক সম্পাদক গাজী মোঃ আলী জিন্নাহ,আওয়ামীলীগ নেতা অধ্যাপক আল মামুন সরকার,মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্রনাথ বিশ্বাস, আওয়ামীলীগ নেতা বিনয় কৃষ্ণ হালদার,ফরিদ শেখ,রূপসা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি রুহুল আমিন রবি,সাধারন সম্পাদক রাজীব দাস, ইউপি সদস্য আনিছুর রহমান মিঠু,ওয়াহিদুজ্জামান মিন্টু,সমর কুমার মন্ডল,আজিজুল ইসলাম নন্দু, দিবাংশু মালাকার মনি,সুকুমার বৈরাগী,স্বপ্না রানী পাল,বিনোদিনী পাল,আইরিন আক্তার,ব্রজেন দাস, রিনা পারভিন,মহানন্দ বিশ্বাস,চন্ডীবর মালি,হারুন মোল্যা,কামরুজ্জমান সোহেল,সরদার জসীম উদ্দীন, শফিকুর রহমান ইমন,জালাল শেখ,আঃ জব্বার হাওলাদার,এ্যাডঃ বিশ্বজিত তরফদার,জ্যাকি ইসলাম সজল,ইমলাক মল্লিক,রুবেল শেখ,সিদ্দিক চৌধূরী, সোহেল পারভেজ,মিঠু মুন্সী,রবিউল ইসলাম, খায়রুজ্জামান সজল,মুসা মোল্যা সবুজ,মেহেদী হাসান, মামুন নীরব,ইরান মোল্যা,সরিফুল ইসলাম সোহাগ,হীরা খাতুন,শহিদুল ইসলাম বাবু,দাউদ শেখ,মঈন উদ্দীন,নুর ইসলাম সরদার,আরিফুল ইসলাম কাজল,নাজমুল হুদা অঞ্জন,হুমায়ূন কবীর,রাসেল শেখ,সাজ্জাদুর রহমান সাজু,মাসুম,স্মৃতি বিশ্বাস,মলিনা মজুমদার,বেল্লাল,আল মামুন,দিলীপ প্রমূখ।

খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্টের উদ্যোগে পাইকগাছা উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় ‘রেমালে’ ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ
খবর বিজ্ঞপ্তি
বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি খুলনা জেলা ইউনিটের পক্ষ থেকে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমালে’ ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে বুধবার পাইকগাছা উপজেলার গড়ইখালী ইউনিয়নে খাদ্যসামগ্রী, তারপলিন ও বিশুদ্ধ পানি বিতরণ করা হয়েছে।
গড়ইখালী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সেক্রেটারী বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু। খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের ভাইস-চেয়ারম্যান জোবায়ের আহমেদ খান জবা’র সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন গড়ইখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জি এম আব্দুস ছালাম (কেরু)। সূচনা বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট লেভেল কর্মকর্তা মোঃ তরিকুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ২শ’ পরিবারের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী,তারপলিন ও বিশুদ্ধ পানি বিতরণ করা হয়।
খুলনা জেলা যুব রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সাবেক যুব প্রধান মোস্তাকিম বিল্লাহ মুহিতের নেতৃত্বে জেলা রেড ক্রিসেন্টে ইউনিটের যুব সদস্যরা ত্রাণ বিতরণকালে সহযোগিতা করেন।

দর্শনায় মটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মৃত্যু,১জখম ১
দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি
চুয়াডাঙ্গার দর্শনার বড়শলুয়ায় মাঝরাতে মধ্যপ অবস্থায় মটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুলের দপ্তরীর মৃত্যু, বন্ধু রাজশাহী মেডিকেলে ভর্তি রয়েছে।
বুধবার (১০ জুলাই) রাত দেড়টায় দর্শনা থানার তিতুদহর বলদিয়া গ্রামের শান্তি বিশ্বাসের ছেলে স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী হাদিউর রহমান(২৫) ও তার বন্ধু একই ইউনিয়নের বড়শলুয়া দাসপাড়ার আব্দুল জলিলের ছেলে জনি(২৫) মটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে বড়শলুয়া নিউ মডেল ডিগ্রি কলেজের সামনে
বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা লাগে। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাদিউর রহমানকে মৃত ঘোষণা করেন। স্থানীয়রা ধারণা করছেন, দুই বন্ধু মদ্যপ অবস্থায় দ্রুতগতিতে মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল। তাদের মুখে মদের গন্ধ ছিল।সেই কারণে হয়ত নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা লেগেছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. হাসানুজ্জামান জানান, পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আমরা হাদিউর রহমানকে মৃত অবস্থায় পেয়েছি। হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। আহত জনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।
দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা জানান, মধ্যরাতে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কায় একজন নিহত হয়েছেন। লাশ বর্তমানে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

রামপালের বড়দিয়ার রাস্তাটি মেরামত করলেন সাইফুজ্জামান
রামপাল (বাগেরহাট) সংবাদদাতা
রামপালের বড়দিয়া গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কটি অবশেষে সংস্কার করা হয়েছে। ব্যাবসায়ী ঠিকাদার শেখ সাইফুজ্জামান আর্থিক সহযোগীতা করে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কটি সংস্কার করা হয়েছে।
জানা গেছে, রামপালে ঘূর্ণি ঝড় রেমালে ও দাউদখালী নদীর ভাঙ্গনে বড়দিয়া গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র পথটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্বাস মিললেও ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাটি মেরামত বা সংস্কারের উদ্দ্যোগ নেওয়া হয়নি। এতে ওই গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছিল। ওই গ্রামে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সদস্যরা আত্মকর্ম সংস্থানের জন্যে পোল্ট্রি ফার্ম ও গরু ছাগলের ফার্ম গড়ে তুলেছেন। তাদের উৎপাদিত মুরগী বাইরে বিক্রির জন্যে ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করেন। সড়কটি বড়দিয়া হয়ে উপজেলা সদর ও জেলা শহরে যোগাযোগর এক মাত্র মাধ্যম। সাইফুজ্জামানের সহায়তায় সড়কটি সংস্কার হওয়ায় স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী ও হাসপাতালগামী রোগীরা চলাচল করতে পারছেন। সাইফুজ্জামান জানান, সরকারের সহায়তা আসতে আরো সময় লেগে যাবে। রেমালের আঘাতে এক কিলোমিটারের ও বেশী ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাটি দাউদখালী নদীর তীব্র ভাঙ্গনে বিলিন হতে চলেছে। চেষ্টা করছি মানুষের ভোগানি লাঘবের জন্যে, যাতে আশু চলাচলের উপযোগী করা সম্ভব হয়। সড়কটি দ্রুত সংস্কারের জন্যে তিনি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি কামনা করেছেন।#

শ্যামনগরে সিসিডিবি এর এনগেজ প্রকল্পে নারী সদস্যদের নেতৃত্ব উন্নয়ন ও সংগঠন ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ
শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি
সিসিডিবি একটি উন্নয়নমুলক বেসরকারি সংস্থা। সংস্থাটি মানুষের উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করছে। সিসিডিবি-এনগেজ প্রকল্প নারীদের নেতৃত্ব উন্নয়নের লক্ষ্যে বুড়িগোয়ালিনী ও মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নে কাজ করছে।

সেই লক্ষ্যে ৯ ও ১০ জুলাই মঙ্গলবার ও বুধবার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জে সিসিডিবি-এনগেজ প্রকল্প অফিসে প্রকল্পের নারী সদস্যদের ২ দিন ব্যাপী নেতৃত্ব উন্নয়ন ও সংগঠন ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। ১০ জুলাই বিকাল ৪ টায় উক্ত প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

উক্ত প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের পরিষদের ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড এর মহিলা ইউপি সদস্য নিপা চক্রবর্তী, উপস্থিত ছিলেন এনগেজ প্রকল্পের প্রোগ্রাম অফিসার নিলীমা রাণী, প্রকল্পের অন্যান্য কর্মীবৃন্দ ও এনগেজ প্রকল্পের নারী সদস্যরা ।

প্রধান অতিথি বলেন, নারীদেরকে নেতৃত্ব দিতে হবে। নারী নেতৃত্বের মাধ্যমে নারীদেরকে এগিয়ে নিতে হবে। সমাজে যারা পিছিয়ে আছে তাদেরকে সহযোগিতা করতে হবে। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারীদের নেতৃত্বের বিকাশ ঘটবে, তারা সংগঠন পরিচালনার জন্য দক্ষ হবে। নারীদের এমন ব্যতিক্রমী প্রশিক্ষণ আয়োজন করার জন্য সিসিডিবি এর এনগেজ প্রকল্পকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

অংশগ্রহণকারী অর্পণা মল্লিক বলেন, ২ দিন ব্যাপী নেতৃত্ব উন্নয়ন ও সংগঠন ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণে আমি নারী নেতৃত্ব উন্নয়ন, নেতার গুনাবলী ও সংগঠন ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনেক কিছু শিখেছি। নারীদের জন্য এই ধরনের প্রশিক্ষণ আয়োজন করার জন্য সিসিডিবি এর এনগেজ প্রকল্পকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস
তথ্য বিবরণী
‘অন্তর্ভুক্তিমূলক উপাত্ত ব্যবহার করি, সাম্যের ভিত্তিতে সহনশীল ভবিষ্যৎ গড়ি’-এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ ১১ জুলাই খুলনায় বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালন করা হবে। দিবসটি উপলক্ষ্যে বয়রায় পরিবার পরিকল্পনা ভবনের সম্মেলনকক্ষে সকাল ১১টায় আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হবে। এসকল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিভাগীয় কমিশনার মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফ।

সর্বজনীন পেনশন স্কিম বাতিলের দাবি
খুবিতে শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সর্বাত্মক কর্মবিরতি অব্যাহত

খবর বিজ্ঞপ্তি
সর্বজনীন পেনশন সংক্রান্ত বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, সুপার গ্রেডে অন্তর্ভুক্তিকরণ ও স্বতন্ত্র বেতন স্কেল বাস্তবায়নের দাবিতে ১০ জুলাই (বুধবার) খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের সর্বাত্মক কর্মবিরতির দশম দিন অতিবাহিত হয়েছে। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন ও দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির আহ্বানে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সমিতির আয়োজনে এ কর্মবিরতি অব্যাহত রয়েছে।
সর্বাত্মক কর্মবিরতির কারণে সকল ডিসিপ্লিনের ক্লাস, অনলাইন, সান্ধ্যকালীন ক্লাস, প্রফেশনাল কোর্সের ক্লাস, মিডটার্ম, ফাইনাল ও ভর্তি পরীক্ষাসহ সকল ধরনের পরীক্ষা ও দাপ্তরিক কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। বৈষম্যমূলক ও মর্যাদাহানিকর প্রত্যয় স্কিম থেকে শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি প্রত্যাহার, স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তন, সুপার গ্রেড এ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তির দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ সর্বাত্মক কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে।
এদিকে সর্বাত্মক কর্মবিরতি চলাকালে দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত শিক্ষকরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. এস এম ফিরোজের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রকিবুল হাসান সিদ্দিকীর সঞ্চালনায় অবস্থান কর্মসূচিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের শিক্ষকরা বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন।
অপরদিকে সর্বজনীন পেনশন বিধিমালা-২০২৩ এর প্রত্যয় স্কিম থেকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রত্যাহার এবং নিয়োগ, পদোন্নতি ও পদোন্নয়নের ক্ষেত্রে ইউজিসি কর্তৃক সুপারিশকৃত অভিন্ন নীতিমালায় বাংলাদেশ আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের ১২ দফা অন্তর্ভুক্তির দাবিতে টানা চতুর্থ দিন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। কর্মবিরতি চলাকালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরিষদের সভাপতি উপ-রেজিস্ট্রার দীপক চন্দ্র মন্ডলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক উপ-রেজিস্ট্রার মো. শহিদুল আলম হাওলাদারের সঞ্চালনায় অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়।
অবস্থান কর্মসূচিতে আরও বক্তব্য রাখেন উপ-রেজিস্ট্রার মিজানুর রহমান মিজু, উপ-রেজিস্ট্রার তানভীর হোসেন বাবু, সহকারী পরিচালক বিমান সাহা, সহকারী রেজিস্ট্রার শেখ সোহরাব হোসেন, সেকশন অফিসার ব্রজেন্দ্রনাথ মন্ডল, সেকশন অফিসার পার্থ কুমার রায়, কর্মচারীদের পক্ষে অমিতাভ ঘোষ। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ফল ব্যবসায়ীকে ডেকে নিলেন নারী, এরপর ঘটলো হৃদয়বিদারক ঘটনা
যশোর অফিস
যশোরে ডেকে নিয়ে বালিতে মুখ চেপে আকিকুল ইসলাম নামে এক ফল ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।
মঙ্গলবার (৯ জুলাই) গভীর রাতে শহরের মুজিব সড়কে মডেল মসজিদের পাশের এক গলি থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত আকিকুল ইসলাম যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পায়রা গ্রামের মতিয়ার রহমানের ছেলে। তার দুই মেয়ে এবং একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। নিহতের ভাই তরিকুল ইসলাম জানান, আকিকুলের ঝিকরগাছা বাসস্ট্যান্ডে একটি ফলের দোকান আছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার পরে তিনি ঝিকরগাছা এলাকায় ছিলেন। গভীর রাতে খবর পান তার ভাইকে কেউ শ্বাসরোধে করে হত্যা করেছে। পরে মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

তিনি আরো বলেন, পুলিশের কাছে জানতে পেরেছি, এক নারী মোবাইলে কল করে তাকে ডেকে নেন। এরপর বালির মধ্যে মুখ চেপে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে।

যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, রাতেই মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে কী কারণে, কারা তাকে হত্যা করেছে—তা জানা যায়নি। এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে মাঠে কাজ করছে পুলিশের একাধিক টিম।

পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্ত্রীকে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন
সাতক্ষীরা অফিস
সাতক্ষীরায় পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনায় স্বামী রবিউল ইসলামকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ২ মাসের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১০ জুলাই) সাতক্ষীরার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৩য় আদালতের বিচারক রাখিবুল ইসলাম এই আদেশ দেন।

সাজাপ্রাপ্ত রবিউল ইসলাম জেলার দেবহাটা উপজেলার বেজোর আটি গ্রামের মনোহর গাজীর ছেলে।

মামলার নথি সূত্রে জানা যায়, দেবহাটা উপজেলার বেজোর আটি গ্রামের মনোহর গাজীর ছেলে রবিউল ইসলাম ২০১২ সালের ৬ নভেম্বর রাতে পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় তার স্ত্রী দুই সন্তানের জননী ফাতেমা খাতুন ওরফে ফেলীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এ ঘটনার পরদিন ভিকটিমের বাবা নওয়াপাড়া গ্রামের আনছার আলী বাদী হয়ে দেবহাটা থানায় জামাতা রবিউল ইসলাম ও তার পরকীয়া প্রেমিকা রহিমা খাতুনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলা তদন্ত শেষে রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন তদন্ত কর্মকর্তা।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি শেখ আব্দুস সামাদ জানান, ১৪ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য প্রদান করেছেন। একই সঙ্গে আসামি পক্ষে ভিকটিমের ২ সন্তান সাফাই সাক্ষ্য দিয়েছে।

আসামি রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ২ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

১৭৩ কোটি টাকার চোরাচালান পণ্য উদ্ধার বিজিবির
ঢাকা অফিস
গত জুন মাসে সারাদেশে বিশেষ করে সীমান্তবর্তী এলাকায় চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১৭২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা মূল্যের অস্ত্র, গুলি, মাদকদ্রব্য ও অন্যান্য নিষিদ্ধ দ্রব্য জব্দ করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা।
বুধবার বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলামের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ অভিযানে ৩ কেজি ৮৯১ গ্রাম সোনা, ১৬ কেজি ২০ গ্রাম রুপা, ১ লাখ ৬৮ হাজার ৩০টি কসমেটিকস সামগ্রী, ৩ হাজার ৫০১ পিস ইমিটেশন জুয়েলারি, ১৭ হাজার ৫১৮টি শাড়ি, ১২ হাজার ৪৪৪টি থ্রিপিস,শার্টপিস, বিছানার চাদর, কম্বল, ১ হাজার ২২২ ঘনফুট কাঠ, ৩ হাজার ৩৯৭ কেজি চা পাতা, ১০ হাজার ৬০০ কেজি কয়লা, ১২০ ঘনফুট পাথর, তিনটি কষ্টিপাথরের মূর্তি, ১১টি ট্রাক, ৮টি পিকআপ ভ্যান, ৬টি প্রাইভেট ও মাইক্রোবাস, ১টি কাভার্ড ভ্যান, ১টি বাস, ৩টি ট্রাক্টর, ৩১টি সিএনজি-হিউম্যান হলার, ৪৩টি মোটরসাইকেল ও ৩২টি বাইসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

উদ্ধার করা অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে- তিনটি পিস্তল, একটি বন্দুক, দুটি ম্যাগজিন ও ১৩ রাউন্ড গুলি।

চোরাচালান সামগ্রীর মধ্যে আরো রয়েছে- ৭ লাখ ৭৬ হাজার ৪৭৬টি ইয়াবা ট্যাবলেট, ৮ কেজি ৯৭৭ গ্রাম ক্রিস্টাল মেথ, ১৪ হাজার ৮৮৯ কেজি হেরোইন, ১২ হাজার ৫৩২ বোতল ফেনসিডিল, ১২ হাজার ৮৮৫ কেজি কোকেন, ২০ হাজার ৫৭ বোতল বিদেশি মদ, ৮৩১ ক্যান বিয়ার, ১ হাজার ১২৪ কেজি গাঁজা, ৫১ হাজার ৬৩৯টি ইনজেকশন, ১ হাজার ৭৬৩টি এসকাফ সিরাপ, ৪০০০ এনেগ্রা/সেনেগ্রা ট্যাবলেট, ৩৮৫ বোতল এমকেডিল/কফিডিল, ১০ লাখ ৪৮ হাজার ৫১৯ বিভিন্ন ধরনের ওষুধ, ৭ বোতল এলএসডি এবং ১ লাখ ৫৯ হাজার ২৬০টি অন্যান্য ট্যাবলেট।

এ সময় অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ১৩৪ জন চোরাকারবারি, ১৫৬ জন বাংলাদেশি, ৪ জন ভারতীয় ও ৩০৬ জন মিয়ানমারের নাগরিকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানান শরিফুল ইসলাম।

প্রেমকাননে শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের রথযাত্রা উৎসবের ৪র্থ দিন উদযাপিত
খবর বিজ্ঞপ্তি
প্রেমকানন অঙ্গণে শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের রথযাত্রা উৎসব আনন্দঘন পরিবেশে অসংখ্য ভক্ত-সমাগমে বুধবার ৪র্থ দিন বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদ্যাপিত হয়। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, খুলনা মহানগর ও জেলা শাখার সার্বিক পরিচালনায় এবং শ্রীশ্রীসত্যনারায়ণ মন্দির, টুটপাড়া গাছতলা মন্দির ও ইসকন খুলনা’র আয়োজনে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে ছিল ঊষা কীর্ত্তন, মধ্যাহ্নে ভোগরাগ, সন্ধ্যারতি, শ্রীমদ্ভাগবত পাঠ, নামকীর্তন, শীতলাবাড়ী গীতা স্কুল কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। ভাগবত পাঠ করেন ইসকন খুলনার ইউথ ফোরাম পরিচালক তিতুষ্ণু গৌরদাস ব্রহ্মচারী। দৌলতপুর থানা পূজা পরিষদের সভাপতি তিলক কুমার গোস্বামীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ অধিকারীর সঞ্চালনায় রাত সাড়ে ৮টায় ধর্মীয় আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবক ও ধর্মানুরাগী গৌতম লস্কর। সম্মানীত অতিথি ছিলেন ধর্মানুরাগী মুকেশ রাম। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদ খুলনা জেলা সভাপতি রাজ কুমার হেলা, মহানগর সভাপতি কুমার লাল, সাধারণ সম্পাদক সুশীল দাস, হরিজন নেতা সজল দাস, বাবু দাস, শাওন দাস, কাতিক দাস, মহানগর পূজা পরিষদ নেতা শঙ্কর কুমার পোদ্দার, তাপস সাহা, তরুণ রায় শিবু, ভোলানাথ দত্ত, মিন্টু সাহা, কমলেশ সাহা, সনজীব দাস, গৌরাঙ্গ সাহা, সাধন কুমার ঘোষ, সুজিত মজুমদার, দেবদাস মণ্ডল, সাংবাদিক বিমল সাহা, কমল কৃষ্ণ দাস, বোধন বিশ্বাস, বাসুদেব কর্মকার, শক্তিপদ দাস শর্মা, অধ্যক্ষ সমরেশ মণ্ডল, এড. কমলেশ কুমার সানা, প্রকৌশলী গণেশ চন্দ্র সিংহ, প্রকৌশলী নারায়ণ চন্দ্র সরকার, স্বপন কুমার রায়, শ্যামল কুমার সাহা, জগদীশ দাস, কার্তিক সাহা, অসিত চক্রবর্ত্তী, সরজিৎ কর্মকার, বিজন দত্ত, দেবাশিষ দাস, সঞ্জয় সরকার, অসিত বিশ্বাস, গোবিন্দ কুণ্ডু, অশোক কুমার দাস, সুনীল কুমার কুণ্ডু, প্রশান্ত ঘোষ, সুমন বিশ্বাস, আনন্দ চন্দ্র পাল প্রমুখ। পরিশেষে ভক্তবৃন্দের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
অপরদিকে আগামীকাল ইসকন খুলনা’র পরিচালনায় বৈদিক গীতিনাট্য অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া আগামী ১৯ জুলাই পর্যন্ত প্রেমকাননে রথযাত্রার অনুষ্ঠানাদি ও মেলা চলবে।

৫৬ জন ভবন মালিকের মাঝে নকশা বিতরণ করলেন কেডিএ’র চেয়ারম্যান
খবর বিজ্ঞপ্তি
খুলনাকে সুশৃঙ্খল, আধুনিক ও পরিবেশ বান্ধব মহানগরী গড়তে বিল্ডিং কোড ও আইন মেনে ঘরবাড়ি নির্মাণে সচেতনা সৃষ্টির ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কেডিএ) এর চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম মিরাজুল ইসলাম। কেডিএর আওতাভুক্ত এলাকায় যেকোন ধরনের ভবন নির্মানের জমির মালিক ও প্রতিষ্ঠানগুলি যেন বিদ্যমান আইন সম্পর্কে অবগত হয়ে বাড়ি নির্মাণ করে সেজন্য সচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ শুরু করেছে কেডিএ কর্তৃপক্ষ। বুধবার বেলা ১১টায় কেডিএর কমিউনিটি সেন্টারে কেডিএ থেকে এনওসি এবং বিল্ডিংয়ের নকশার অনুমোদনপ্রাপ্ত ৫৬জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদেরকে নিয়ে এ সচেতনতামূলক মতবিনিময় সভায় তিনি এ তাগিদ দেন। কেডিএর অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় কেডিএ চেয়ারম্যান পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টশনের মাধ্যমে বিদ্যমান সরকারী ও কেডিএর আইন ও বিল্ডিং কোড অনুযায়ী করনীয় বিষয়ে নকশার অনুমোদনপ্রাপ্ত ব্যক্তিদেরকে বিস্তারিত অবহিত করেন। এ সময় তিনি জমির পরিমানের সাথে চারদিকে খোলা জায়গা, রাস্তা থেকে ভবনের দুরত্ব ও সরু রাস্তার জন্য কিভাবে ও কত পরিমান জমি ছাড় দিয়ে ভবন করতে হবে সে বিষয়ে আইন ও বিল্ডিং কোড নীতিমালা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, নগরীতে কোন ধরনের ভবন নির্মান করতে হলে অবশ্যই ২০ ফুট রাস্তা অবশ্যই থাকতে হবে। ২০ ফুটের কম রাস্তা থাকলে সেখানে এনওসি এবং নকশার অনুমোদন দেয়া হবে না। এক্ষেত্রে ২০ ফুটের রাস্তা থাকলে রাস্তার সীমানা থেকে ৫ ফুট দুরত্বে, ১২ ফুট রাস্তা থাকলে রাস্তার সীমানা থেকে ৯ ফুট দুরত্বে এবং ৮ ফুট রাস্তা থাকলে ১১ ফুট দুরত্বে ভবন নির্মান করতে হবে। এর কোনরূপ ব্যাত্যয় ঘটানো যাবে না। একই সাথে নকশা বর্হিভূতভাবে ভবন নির্মান করলে তার জন্য আইনগত ব্যবস্থা, নির্মান বন্ধ করা, জরিমানা, নকশা বাতিল ও নির্মিত ভবন ভেঙ্গে দেয়াসহ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের হুশিয়ারী দেন। তিনি নকশা বর্হিভুতভাবে ভবন নির্মান না করতে এবং নগরীকে ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সুশৃঙ্খল ও পরিবেশ বান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সহযোগীতার আহবান জানান। মত বিনিময় সভায় নকশা অনুযায়ী ভবন করার জন্য ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় আইন দ্বারা বাড়ি মালিকদের বুঝালেন কেডিএ’র চেয়ারম্যান। মতবিনিময় শেষে ৫৬জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হাতে ভবন নির্মানের অনুমোদিত নকশা হস্তান্তর করেন। সভায় কেডিএর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারিরা উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভায় আরো জানানো হয়, কেডিএর আইন ও বিল্ডিং কোড মেনে সুশৃঙ্খল নগরী গড়তে ভবন নির্মানের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই কেসিসির কাউন্সিলরবৃন্দ, ইমাম পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের সাথে মতবিনিময় করেছেন চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম. মিরাজুল ইসলাম।

দিঘলিয়ার সারোয়ার খান কলেজের প্রশংসনীয় উদ্যোগ
পরিবেশ রক্ষা ও পাখির অভয়ারণ্য সৃষ্টিতে ক্যাম্পাসে রোপণ করা হচ্ছে শতাধিক গাছ …

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিঘলিয়া (খুলনা)
চলতি বর্ষা মৌসুমে দিঘলিয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী আলহাজ্ব সারোয়ার খান কলেজে শতাধিক ফলজ বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। গত ৭ জুলাই ক্যাম্পাসে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলতাফ হোসেন। এসময় ২৫ টি নারকেল চারা কলেজ ক্যাম্পাসে রোপণ করা হয় ।
গতকাল ১০ জুলাই কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে ক্যাম্পাসে ২৫টি কাঁঠাল চারা সহ অন্যান্য ফলজ বৃক্ষ রোপন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সদস্য এম সিদ্দিক-উজ-জামান, সরকারি সেনহাটী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সদস্য শেখ মোঃ ফরহাদ হোসেন, কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মনিরুল হক বাবুল, প্রভাষক রেজাউল ইসলাম, প্রভাষক হাবিবুর রহমান, প্রভাষক ওমর আলী প্রমুখ।
কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলতাফ হোসেন জানান, কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও বিশিষ্ট প্রকৌশলী শেখ মুনির আহমেদের নির্দেশনায় চলতি বছর শতাধিক বৃক্ষ রোপণের কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে । বিগত বছরও কলেজে অনুরূপ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। তিনি বলেন, শুধু বৃক্ষ রোপণ নয় সেগুলো সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি এ গাছগুলোতে যাতে পাখিরা নির্বিঘ্নে বসবাস করতে পারে তার ব্যবস্থা করা হবে। এ গাছগুলো হবে পাখির অভয়ারণ্য।

খুলনা জেলা পুলিশ সুপারকে খুলনা জেলা কৃষক লীগের ধন্যবাদ জ্ঞাপন
খবর বিজ্ঞপ্তি
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা কৃষকরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে গত ১৫ জুন গণভবনে তিন মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন।
এরই ধারাবাহিকতায় গত ৫ জুলাই খুলনা জেলা কৃষক লীগের উদ্যোগে কয়রা ও পাইকগাছা উপজেলা কৃষক লীগের যৌথ ব্যবস্থাপনায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। কর্মসূচি স্ষ্ঠুুভাবে সফল করতে প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করে খুলনা জেলা পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় কয়রা ও পাইকগাছা থানা পুলিশের সরব উপস্থিতিতে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্য দিয়ে এ কর্মসূচি সফলভাবে পালন করা হয়। কর্মসূচি স্বার্থক ও সফলভাবে পালিত হওয়ায় কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ’র পক্ষ থেকে খুলনা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইদুর রহমান-পিপিএম কে খুলনা জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা মানিকউজ্জামান অশোক এর নেতৃত্বে গত ৯ জুলাই পুলিশ সুপার কার্যলয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশপত্র প্রদান করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা কৃষক লীগের দপ্তর সম্পাদক আল মাহমুদ প্রিন্স, সদস্য শেখ মোঃ শামসুদ্দোহা বাঙ্গালী।

কালভার্ট নয় যেন মরণ ভাঁদ,ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন
শামীম খান জনী,মহেশপুর(ঝিনাইদহ),
ঝিনাইদহের মহেশপুর শহরের ব্যস্ততম ও জনগুরুত্বপূর্ণ সড়ক গুলোর মধ্যে মহেশপুর-যশোর হাইওয়ে সড়কটি প্রধান। শহরের হুদোর মোড়-বেলেমাঠ বাজারের মাঝমাঝি স্থানের কালভার্ট ভেঙ্গে দীর্ঘ দিন যাবত রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লেও প্রশাসনের কোন দৃষ্টি নেই। ফলে ঝুঁকি নিয়েই চলছে যানবাহন। এই সড়কে একটু ভুলে ঝড়তে পারে তরতাজা প্রাণ। ফলে রাস্তাটি মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।
সরজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় কালভার্টটির দুই পাশে ধসে গিয়ে বড় বড় দুটি গর্ত হয়েছে। মাঝখানেও ভেঙ্গে যাওয়ায় প্লেনসিট দিয়ে কোনরকম যাতায়াতের ব্যবস্থা করে দিয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কালভার্টটির মাঝখান দিয়েই বাস, ট্রাকসহ ভারি যানবাহন চলাচল করছে।
এলাকাবাসী জানায়, প্রায় ৭ মাস ধরে কালভার্টটি ভেঙ্গে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে রয়েছে। বিশেষ করে সন্ধ্যার পরে অপরিচিত লোকজন ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলের সময় দূর্ঘটনার শিকারও হচ্ছেন। প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ জেলা ও উপজেলা সদরে চলাচল করাসহ স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্যও সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও সকল কাজেই এ উপজেলার মানুষকে যশোরের উপর নির্ভর করতে হয়। সামান্য অসুস্থ্য হলে এলাকার মানুষকে পাঠানো হয় যশোর হাসপাতালে। এই সড়কটিই যশোরের সাথে যোগাযোগের সহজতর একমাত্র মাধ্যম। প্রশাসনের এমন গাফিলতিতে কালভার্টটি সংস্কার না হওয়ায় মানুষের মনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
স্থানীয় এক পথচারী হারুন-আর রশিদ বলেন, কিছুদিন আগে ভাঙ্গা ওই কালভার্টে মোটরসাইকেল ও অটোভ্যান পরে গিয়ে দুইজন ব্যক্তি গুরুতর ভাবে আহত হন। উপায় না পেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই আমাদের চলাচল করতে হয়। দ্রুত এর সমাধান না করলে আরো বড় দূরঘটনা ঘটতে পারে।
আরেক পথচারী ফারুক হোসেন বলেন,গত ৭ মাসের অধিক এ কালভার্টটি দুই পাশ ধসে গিয়ে দুটি বড় বড় গর্ত হয়ে রয়েছে। মাঝখনও ভেঙ্গে যাওয়ায় প্লেনসিট দিয়ে চলচলের কোন রকম ব্যবস্থা করে দিয়েছে।এগুলো দেখার যেন কেউ নেই। আমিসহ হাজার হাজার মানুষকে এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয়। অনেক সময় মনেই থাকেনা কালভার্টটি ধসে গেছে। কালভার্টি যেন এখন একটি মৃত্যুমরণ ফাঁদ। চলাচলে খুব ঝুঁকিপূর্ণ মনে হলেও প্রয়োজনের তাগিদে বাধ্য হয়ে যাতায়াত করতে হয়।
কয়েকজন ট্রাক ড্রাইভার জহিরুল ইসলাম ও মামুন, অটো ভ্যান চালক মনিরুল, ট্রলি চালক সোহেল বলেন, কালভার্ট ভেঙ্গে যাওয়ায় চলাচল অনেকটা জীবনের ঝুঁকিপূর্ণ হয়েছে। বর্তমানে এটি নাজুক অবস্থায় থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেও হাজার হাজার গাড়ি চালকদের ঝুঁকি নিয়ে যেতে হচ্ছে। তাছাড়া কলেজ, স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে ভাঙ্গা কালভার্টের উপর দিয়ে যানবাহনে যাতায়াত করছে। অনেক দিন ধরে ভাঙা থাকায় কালভার্টের ধসে যাওয়া অংশটি ধীরে ধীরে বড় হয়ে যাচ্ছে। ফলে দিন দিন ঝুঁকি আরো বাড়ছে।
উপজেলা প্রকৌশলী সৈয়দ শাহারিয়ার আকাশ জানান, রাস্তাটি সড়ক ও জনপদ বিভাগের যে কারনে তাদের কিছুই করার নেই।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) ইয়াসমিন মনিরা জানান, বিষয়টি সড়ক ও জনপদ বিভাগকে জানানো হয়েছে। খুব দ্রুতই কালভার্টটি সংস্কার করা হবে।

বেনাপোল সীমান্তে ২ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ, আটক ১
বেনাপোল প্রতিনিধি
বেনাপোলের পুটখালী সীমান্তের বারোপোতা বাজারের তিন রাস্তার মোড় থেকে ভারতে পাচারের সময় ১৮ টি স্বর্ণের বারসহ লিমন হোসেন (৩০) নামে এক পাচারকারীকে আটক করেছে বিজিবি।
বুধবার (১০ জুলাই) ভোর রাতে এ স্বর্ণের চালানসহ তাকে আটক করা হয়। আটক লিমন হোসেন বেনাপোল পোর্ট থানার পুটখালী গ্রামের শাহ আলমের ছেলে।
বিজিবি জানায়, ভোর রাতে গোপন সংবাদে জানতে পারেন স্বর্ণের একটি বড় চালান ভারতে পাচার হবে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে খুলনা ২১ বিজিবির পুটখালী ক্যাম্পের একটি দল বারোপোতা বাজারে গোপনে অবস্থান করেন। এসময় এক যুবক মোটরসাইকেল যোগে সীমান্তে দিকে আসলে বিজিবি তার মোটরসাইকেল গতিরোধ করে। পরে তার দেহ তল্লাশি করে ১৮টি স্বর্ণের বার পাওয়া যায় এবং মোটরসাইকেলটি জব্দ করে।
জব্দ করা স্বর্ণের বাজার মূল্য প্রায় দুই কোটি ১৫ লাখ টাকা।
খুলনা ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল খুরশিদ আনোয়ার (পিএসসি) জানান, আটক পাচারকারীর বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। এবং স্বর্ণের বারগুলো যশোর ট্রেজারিতে জমা দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।