কোমলমতি শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ দখল করে চলছে ঝিনাইদহে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাজ

9
Spread the love


ঝিনাইদহ প্রতিনিধি।।
ঝিনাইদহ সদর উপজেলার খড়াশুনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ এটি। স্কুল মাঠ ভাড়া দিয়ে সড়কের নির্মাণ সামগ্রী রাখার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খেলার মাঠে সড়ক সংস্কারের নির্মাণ সামগ্রী রাখা হয়েছে। মাঠের একটি বড় অংশজুড়ে ফেলে রাখা হয়েছে পাথর। মাঠজুড়ে ছড়িয়ে আছে পাথরের কুচি। মাঠের ভেতর রয়েছে ভারী-ভারী যন্ত্র। মাঠের মধ্যে ওঠা-নামা করছে পাথরবোঝাই ট্রাক ও ভারী যন্ত্র। মাঠটির পশ্চিম পাশে রাস্তার সাথে পাথর-বালু মিশ্রণের জন্য প্লান্ট মেশিন বসানো আছে। বিকট শব্দে চলছে সেটি।

রাস্তার সাথে মাটি খুঁড়ে পিচ (বিটুমিন) গলানোর চুলা স্থাপন করা হয়েছে। নির্মাণসামগ্রীর ধুলাবালি এবং বিটুমিন গলানোর কাজে ব্যবহৃত টায়ার পোড়ানোর তীব্র কালো ধোঁয়ায় যেন ওই এলাকা আচ্ছন্ন হয়ে আছে। এতে করে মাঠের চরম ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীসহ শিশু-কিশোরদের খেলাধুলা বন্ধ হয়ে গেছে। এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে স্থানীয় বাসিন্দা ও বিদ্যালয়ের শিশু কিশোর শিক্ষার্থীরা পড়েছে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে। জানা যায়, কালীগঞ্জ উপজেলার জামাল ইউনিয়নের তৈলকুপ স্কুল মাঠের সামনের রাস্তার কাজ চলছে। যা খড়াশুনি থেকে ৪/৫ কিলোমিটার দুরের পথ
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন তাদেরকে না জানিয়ে এগুলো করা হচ্ছে। শুক্রবার রাতের আধারে এটি ফেলা হয়েছে। তারা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে মৌখিকভাবে জানিয়েছেন।


মাঠ সংলগ্ন খড়াশুনি গ্রামের বাসিন্দা মেহেদী হাসান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, খেলার মাঠে নির্মাণ সামগ্রী রাখাসহ পরিবেশ দূষণকারী টায়ার পুড়িয়ে বিটুমিন গরম করার সময় দুর্গন্ধে এলাকায় থাকা দায়। প্রতিবাদ করেও কোনো কাজ হয়নি। আশপাশের এলাকার ভেতরে ছেলেমেয়েদের একটি মাত্র খেলাধুলার মাঠ এটা। সেটাও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক টাকার বিনিময়ে ভাড়া দিয়েছেন বলে শুনেছি। খেলার মাঠ বন্ধ থাকায়, শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করতে পারছে না। স্কুল মাঠ দখল করে সড়কের নির্মাণ সামগ্রী রাখার প্রতিবাদ জানিয়েছেন অনেকে। তারা প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য নওশের আলী, ফরিদ হোসেন মানিক স্থানীয় হযরত আলী বিশ্বাস ও দোকানদার রিপন বিশ্বাস এ ঘটনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এ বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এই প্রতিবেদককে সংবাদ না ছাপানোর জন্য বলা হয়।


নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম রিপন জানান, বিষয়টি আমি অবগত আছি। তাদেরকে একাধিকবার বলাও পরেও তারা কোন গুরুত্ব না দেওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার খালেকুজ্জামান জানান, বিষয়টি প্রধান শিক্ষক আমাকে জানিয়েছেন। আমি ছুটিতে থাকায় ব্যবস্থা নিতে পারছি না। অফিসে এসে বিষয়টি দেখব।