খুলনায় সড়কের পাশে ময়লার ভাগাড়, ভোগান্তিতে পথচারী

16
Spread the love


স্টাফ রিপোর্টার।।


খুলনার মুজগুন্নি মহাসড়কের পাশে বিশাল মাঠে অস্থায়ীভাবে ফেলা হচ্ছে ময়লা। খোলা জায়গায় ময়লা ফেলে রাখার কারণে ভোগান্তিতে পড়েছে পথচারীরা। সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে রাস্তার পাশে একটি অস্থায়ী কনটেইনার থাকলেও সেখানে ময়লা না ফেলে ফাঁকা মাঠেই ময়লা ফেলা হচ্ছে। নগরীর ৬নং ওয়ার্ডে এ ময়লা ফেলা হলেও কাউন্সিলরের পক্ষ থেকে তেমন কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

এ ময়লার ভাগাড়ের বিপরীত পাশেই রয়েছে নির্বাচন অফিস। অদূরে রয়েছে বিজিবি সেক্টর কমান্ডের কার্যালয়। এছাড়া এ সড়ক দিয়ে খুলনার বিশেষায়িত শেখ আবু নাসের হাসপাতাল, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, নৌবাহিনী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খুলনা পাবলিক কলেজ, আয়কর অফিস, পুলিশ লাইনসহ জনগুরুত্বপূর্ণ অনেক কার্যালয় রয়েছে। যার কারণে প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত। ৬নং ওয়ার্ডের গৃহস্থালির যাবতীয় ময়লা-আবর্জনা, ড্রেন ও নর্দমার পরিষ্কার করা ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে এটি বিশাল ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। দাবদাহের কারণে ভাগাড়ের ময়লা-আবর্জনা পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এতে আশপাশের পরিবেশ দূষিত হচ্ছে, ছড়াচ্ছে রোগ-জীবাণু। ভাগাড়ের কারণে পথচারী ছাড়াও আশপাশের বাজার ও আবাসিক বাড়িগুলোর মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে আসা গ্রাহক বাবু অভিযোগ করেন, ময়লার দুর্গন্ধে অফিসে টেকা যায় না। খোলা জায়গায় ময়লা ফেলে রাখার কারণে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভাগাড়ের পাশের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বলেন, আমরা অনেকবার এখান থেকে ভাগাড় সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলেছি কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি কর্ণপাত করে না। এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক মাহফুজুর রহমান বলেন, মেয়েকে স্কুলে নিয়ে যাওয়া-আসার পথে দুর্গন্ধে বমি চলে আসে। মুখে মাস্ক পরে চলাচল করতে হয়।

কেসিসির ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ শামসুদ্দিন আহম্মেদ প্রিন্স বলেন, নতুন রাস্তা মোড়ে পাবলিক টয়লেটের পাশে নির্দিষ্ট জায়গায় একটি এসটিএস করার কথা আছে। সেটা তৈরি হলে দুর্ভোগ কমে যাবে।

খুলনা সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা আনিসুর রহমান বলেন, প্রতিদিন প্রায় ৮০০ টন বর্জ্য হয় কর্পোরেশনে। এগুলো অপসারণের জন্য ৭৬০ জন কর্মরত আছে। নগরীর বিভিন্ন স্থানে ৯টি এসটিএসসহ অস্থায়ী কনটেইনার রয়েছে। আমরা প্রতিদিনের ময়লা প্রতিদিন সংগ্রহ করে নগরীর বাইরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।