কংগ্রেসের বকেয়া ৩৫০০ কোটি রুপি কর দিতে হচ্ছে না

3
Spread the love

অনলাইন ডেস্ক।।

জাতীয় নির্বাচনের আগে ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসকে আপাতত স্বস্তিতে রাখল আয়কর দপ্তর। সোমবার সুপ্রিম কোর্টকে দপ্তর জানায়, ভোটের আগে তারা কংগ্রেসের ৩ হাজার ৫০০ কোটি রুপি ‘বকেয়া আয়কর’ নিয়ে কোনো ব্যবস্থা নেবে না। খবর আনন্দবাজার ও এনডিটিভির

কোর্টে আয়কর দপ্তরের পক্ষে কেন্দ্রের সলিসিটর জেনারেল (এসজি) তুষার মেটা জানান, ৩ হাজার ৫০০ কোটি রুপি আয়কর উদ্ধার করতে লোকসভা ভোটের আগে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে চায় না দপ্তর। এর ফলে ভোটের সময় বিরোধী দলগুলোকে কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না বলেও জানান তিনি।

সলিসিটর জেনারেল জানান, ২০২৪ সালে তাদের (কংগ্রেস) ২০ শতাংশ আয়কর দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। তার পর ১৩৫ কোটি টাকা উদ্ধার হয়। পরে ১ হাজার ৭০০ কোটি টাকা চাওয়া হয়। এখন গোটা বিষয়টি নির্বাচনের পরবর্তী সময়ের জন্য বাকি রয়ে গেছে।
‘বকেয়া আয়কর’ বাবদ ৩ হাজার ৫৬৭ কোটি রুপি চাওয়া হয়েছে, এমনটা জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় কংগ্রেস। নির্বাচনের আগে আয়কর দপ্তরকে ব্যবহার করে ক্ষমতাসীন বিজেপির বিরুদ্ধে ‘কর সন্ত্রাস’ চালানোর অভিযোগ করেছিল দলটি। কংগ্রেসের আরও অভিযোগ ছিল, ভোটের আগে প্রচারে বাধা দেওয়ার জন্যই অর্থনৈতিকভাবে তাদের পঙ্গু করার চেষ্টা করছে সরকার।

এদিকে, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আগামী দুই সপ্তাহ তিহার জেলে থাকতে হবে। দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউয়ের বিশেষ আদালত গতকাল এই আদেশ দেয়।

তিহার কারাগারে নিয়ে যাওয়ার আগে কেজরিওয়ালের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী সুনীতা ও দিল্লি সরকারের দুই মন্ত্রী আতিশী ও সৌরভ ভরদ্বাজকে দেখা করার অনুমতি দেন আদালত।

আবগারি (মদ) নীতি মামলায় ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) গত ২১ মার্চ কেজরিওয়ালকে গ্রেপ্তার করে। সেই থেকে তিনি ইডির হেফাজতেই রয়েছেন।

হেফাজতে রাখার মেয়াদ বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে আদালতে ইডি বলেছে, তদন্তে কেজরিওয়াল সহযোগিতা করছেন না। তিনি এখনও তাঁর মোবাইল ফোনের পাসওয়ার্ড ইডিকে দেননি।

এমন বাস্তবতায় লোকসভা ভোট শুরু হচ্ছে আগামী ১৯ এপ্রিল থেকে। ফলে অনেকটা স্পষ্ট যে, প্রথম দফার ভোটে কেজরিওয়ালের প্রচারের সম্ভাবনা ক্ষীণ।