সারা খুলনা অঞ্চলের সব খবরা-খবর

43
বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ
Spread the love

আজিজুল হাসান দুলুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

খবর বিজ্ঞপ্তি।।

খুলনা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ও সাবেক ছাত্রনেতা আজিজুল হাসান দুলুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ (১৯ সেপ্টেম্বর)। ২০২২ সালের এই দিনের বেলা সাড়ে ১১ টায় ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। প্রয়াত বিএনপির নেতা আজিজুল হাসান দুলুর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে খুলনা মহানগর বিএনপি। বিএনপির মিডিয়া সেল জানিয়েছেন, আজ বেলা ১১টায় খুলনা মহানগর বিএনপি কার্যালয়ে মরহুম আজিজুল হাসান দুলুর রাজনৈতিক জীবনের উপর আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। কর্মসুচিতে বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের সকল নেতা কর্মিদের যথাসময়ে উপস্থিত থাকার আহবান জানিয়েছেন খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা ও সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন।

উল্লেখ্য, গতবছর ২০ আগস্ট সকালে দুলু অসুস্থ অনুভব করলে প্রথমে নগরীর ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে খুলনা সিটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্মরত চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে হৃদরোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তাৎক্ষণিক তাকে রিং পরানো হয়। এরপর অবস্থার অবনতি হলে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন আবস্থায় ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি ১ মেয়ে, স্ত্রীসহ অসংখ্য নেতাকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

#

 

 

২৬ সেপ্টেম্বর খুলনা বিভাগীয় রোড মার্চ

খুলনা মহানগর বিএনপি প্রস্তুতি সভা আজ

।। খবর বিজ্ঞপ্তি।।

ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় এক দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ২৬ শে সেপ্টেম্বর খুলনা বিভাগীয় রোড মার্চ সফল করার লক্ষ্যে আজ ১৯ সেপ্টেম্বর  মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় দলীয় কার্যালয়ে মহানগর বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের যৌথ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় মহানগর বিএনপির আহবায়ক কমিটির সকল নেতৃবৃন্দ, থানা বিএনপির আহবায়ক, সদস্য সচিব, সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ (পাঁচ জন) এবং সকল ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক বৃন্দকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার আহবান জানিয়েছেন খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা ও সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন।

 

 

বিএনপি নেতা মোল্লা ফরিদ আহমেদ’র স্ত্রীর সুস্থতা কামনা

।। খবর বিজ্ঞপ্তি।।

খুলনা মহানগর বিএনপির সদস্য ও সদর থানা বিএনপির সদস্য সচিব মোল্লা ফরিদ আহমেদ এর স্ত্রী ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ায় তার আশু সুস্থতা কামনা করেছেন খুলনা বিএনপি নেতৃবৃন্দ। সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) প্রদত্ত বিবৃতিদাতারা হলেন, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক রকিবুল ইসলাম বকুল, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, খুলনা মহানগর আহবায়ক এড. শফিকুল আলম মনা, জেলা বিএনপির আহবায়ক আমীর এজাজ খান, মহানগর সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন, জেলা বিএনপির আহবায়ক মনিরুল হাসান বাপ্পি প্রমূখ। অনুরূপ বিবৃতি দিয়েছেন সদর থানা বিএনপির আহবায়ক কে এম হুমায়ুন কবীর (ভিপি হুমায়ুন), মিডিয়া সেলের আহবায়ক এহতেশামুল হক শাওন ও সদস্য সচিব মিজানুর রহমান মিলটন প্রমূখ।

 

 

ডেঙ্গুতে নতুন ৩০৮৪ রোগী হাসপাতালে ভর্তি, ১৭ জনের প্রাণহানি

ঢাকা অফিস

চলতি মাসে ডেঙ্গুতে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুতই বাড়ছে। একদিনে আরও ১৭ জনের প্রাণহানি হয়েছে। দেশে এ পর্যন্ত ৮৩৯ জন মারা গেছেন ডেঙ্গুতে। গত মাসের তুলনায় মৃত্যুর হারও বেশি চলতি মাসে। গত মাসে গড়ে দৈনিক ১১ জন করে মারা গেছেন ডেঙ্গুতে। সেখানে এ মাসে গড়ে প্রতিদিন ১৩ জনের বেশি প্রাণ হারাচ্ছেন। দিন যত যাচ্ছে, ডেঙ্গুতে মৃত্যুর মিছিল ততই দীর্ঘ হচ্ছে। ঢাকার বাইরেই ডেঙ্গুর দাপট বেশি। রাজধানীর চেয়ে দ্বিগুণের বেশি রোগী শনাক্ত হচ্ছে গ্রামে। দেশে ইতিমধ্যে ডেঙ্গু রোগী মৃত্যু ও শনাক্তে পুরনো রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে।

ডেঙ্গুতে একদিনে ৩ হাজার ৮৪ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। চলতি বছরের এ পর্যন্ত ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৬৮ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানীতে ৭৪ হাজার ১২৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ৯৬ হাজার ৬৪১ জন। মৃত ৮৩৯ জনের মধ্যে নারী ৪৮৩ জন এবং পুরুষ ৩৫৬ জন। মোট মৃত্যুর মধ্যে ঢাকার বাইরে মারা গেছেন ২৬৫ জন এবং রাজধানীতে ৫৭৪ জন।

আজ সারা দেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

 

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩ হাজার ৮৪ জনের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ৮৯৪ জন এবং ঢাকার বাইরে ২ হাজার ১৯০ জন। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন ৩ হাজার ৮৪ জনসহ বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৩২ জনে। ঢাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৩ হাজার ৮৬১ জন এবং ঢাকার বাইরে ৬ হাজার ১৭১ জন। চলতি বছরের এ পর্যন্ত ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৬৮ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। ভর্তি রোগীর মধ্যে পুরুষ আক্রান্ত ১ লাখ  ৪ হাজার ৪৮৪ জন এবং নারী ৬৬ হাজার ২৮৪ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লাখ ৫৯ হাজার ৮৯৭ জন।

 

অধিদপ্তরের তথ্য মতে, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৫৬৬ জন এবং মারা গেছেন ৬ জন, ফেব্রুয়ারিতে আক্রান্ত ১৬৬ জন এবং মারা গেছেন ৩ জন, মার্চে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১১১ জন এবং এপ্রিলে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৪৩ জন এবং মারা গেছেন ২ জন। মে মাসে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১ হাজার ৩৬ জন এবং মারা গেছেন ২ জন। জুন মাসে ৫ হাজার ৯৫৬ জন এবং মারা গেছেন ৩৪ জন। জুলাইতে শনাক্ত ৪৩ হাজার ৮৫৪ জন এবং মারা গেছেন ২০৪ জন। আগস্টে ৭১ হাজার ৯৭৬ জন শনাক্ত এবং প্রাণহানি ৩৪২ জন। সেপ্টেম্বরের ১৮ দিনে শনাক্ত রোগী ৪৬ হাজার ৯৬০ জন এবং মারা গেছেন ২৪৬ জন। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেশি হবে। কারণ অনেক ডেঙ্গু রোগী বাসায় থেকে চিকিৎসা নেন, তাদের হিসাব স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের খাতায় নেই।

 

রূপসায় দু’দিনব্যাপী কৃষক প্রশিক্ষণের উদ্বোধন

রূপসা প্রতিনিধি

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে কৃষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ১৮ সেপ্টেম্বর’২৩ বেলা ১১ টায় দু’দিনব্যাপী এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনাবাদি পতিত জমি ও বসতবাড়ীর আঙ্গিনায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান স্থাপন প্রকল্পের আওতায় এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন খুলনাঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোহন কুমার ঘোষ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ী খুলনা’র  কৃষিবিদ উপপরিচালক কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন সভায় সভাপতিত্ব করেন।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি বলেন, বর্তমান কৃষি বান্ধব সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে বহুবিধ কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছেন। কৃষিতে ভর্তূকিসহ কৃষকদের মাঝে আর্থিক প্রনোদনা প্রদান করেছেন।

তিনি আরো বলেন, কৃষকই হচ্ছে এদেশের হৃদস্পন্দন। তাছাড়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা কোনো এক টুকরো জমিও অনাবাদী রাখা যাবে না। তারই আলোকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এলক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। যার সফল রুপদান করছে বাংলার কৃষাণ-কৃষাণী।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. ফরিদুজ্জামান। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের ৩০ জন কৃষাণ – কৃষাণী অংশ গ্রহন করেন। এ সময় কৃষকদের মাঝে বিভিন্ন প্রকারের সবজি বীজ ও ফলের চারা বিতরণ করা হয়।

 

সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের বিরুদ্ধ অপপ্রচারের প্রতিবাদ

নিজস্ব প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার দেবহাটার পারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নাম্বার ওয়ার্ড সদস্য নোড়া চক গ্রামের মৃত আকরাম গাজীর পুত্র ইসমাইল হোসেনের নাম ব্যবহার করে পুলিশের মাননীয় আইজিপি, কাছে সাতক্ষীরা জেলার সম্মানিত পুলিশ সুপার কাজী মনিরুজ্জামানসহ প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে চিঠি, ইমেইল ইত্যাদি প্রেরণ করে। উক্ত দরখাস্তের বিষয়ে ইউপি সদস্য ইসমাইলের কোন সম্পৃক্ততা নেই বলে একটি পত্রের মাধ্যমে তিনি জানান। পত্রে তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি আমি অবহিত হয়েছে যে, আমার নাম ব্যবহার করে সাতক্ষীরা জেলার সম্মানিত পুলিশ সুপার কাজী মনিরুজ্জামান পিপিএম মহোদয়ের সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য বিভ্রান্তিকার তথ্য প্রদান করেছে যা মোটেও সত্য নয়। মূলত উনি জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, খলিশাখিলর ভূমিদস্যু ও মাদক চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করায় দেবহাটা উপজেলার খলিশাখালি ঘের এলাকার এক শ্রেণীর অসাধু, মাদক ব্যবসায়ি ও অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত ব্যক্তি এমন কাজ করছে বলে আমার ধারণা। পুলিশ সুপার মহোদয় সাতক্ষীরা জেলার যোগদানের পরে ভূমি দখলকারী, মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীরা ণীত সন্ত্রস্ত  হয়ে পড়েছে, এজন্য এ ধরনের জঘন্য কাজে তারা লিপ্ত। আমার নামে এমন বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো ও পুলিশ সুপার মহোদয়ের সুনাম ক্ষুন্ন করায় তীব্র প্রতিবাদ জানায় ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছে।

 

 

দাকোপে যথাযথ মর্যাদায় শ্রী শ্রী বিশ্বকর্মা পূজা অনুষ্ঠিত

বাজুয়া (দাকোপ) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপ উপজেলায় যথাযথ মর্যাদায় ভাবগাম্ভীর্যের সাথে ঘটনা করে শ্রী শ্রী বিশ্বকর্মা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ ই সেপ্টেম্বর সোমবার সকল থেকে বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, ব্যাক্তি মালিক, ইঞ্জিন চালিত মোটরসাইকেল সমিতি, পৃথক পৃথক ভাবে ঘটনা করে বিশ্বকর্মা পূজা হয়েছে। এ পূজা দেখতে আসা স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায়। চালনা বাজার স্বর্ণগয়না ব্যবসায়ীর দোকান, লোহাপট্টি এলাকায়, ডাকবাংলো মোড়ে মোটরসাইকেল সমিতি, পোদ্দার গঞ্জ ইঞ্জিন ভ্যান, মোটর সাইকেল, বাজুয়া চড়ার বাঁধ, হরিণ টানা ইঞ্জিন চালিত মোটরসাইকেল সমিতির, পূজা মন্ডবে দর্শনাথীদের উপচে পড়া ভীড়। দিন ব্যাপী এ পূজায় দর্শনাথীরা একটি মন্ডপে পূজা শেষ হলেই অন্য একটি মন্ডপে পূজায় অংশ গ্রহণ করতে দেখা যায়। প্রত্যেকটি পূজা মন্ডপে ব্যাপক বাদ্য যন্ত্র বাজতে দেখা যায় এবং অঞ্জলীও দিতে দেখা যায়। পূজা শেষ দর্শনার্থীদের মধ্যে আখ, লেবু, চিড়ামুড়ি মিষ্টি সহ খিচুড়ি প্রসাদ বিতরণ করা হয়েছে। ছোট ছোট ছেলে- মেয়েরা পলিথিনের প্যাকেট হাতে নিয়ে সারাদিন এ দোকান থেকে অন্য দোকানে  ঘুরে ঘুরে প্রসাদ নিতে দেখা যায়। তাদের মাঝে সারাদিন বিশাল আনন্দ লক্ষ করা  যায়।

 

দাকোপের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিরুপ প্রতিক্রিয়া পুনরায় কমিটি গঠনের দাবি

বাজুয়া (দাকোপ) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপের বাজুয়ায় বাংলাদেশ যাত্রা শিল্প উন্নয়ন পরিষদের দাকোপ উপজেলা শাখার সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে শিল্পী গোষ্ঠীর মনে। বেশির ভাগ শিল্পীর দাবি পুনরায় আবার কমিটি গঠন করা হোক। তারা জানায় সন্মেলনের দিন ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার সারাদিন  আবহাওয়া ভালো ছিলো না প্রচুর বৃষ্টি হয়েছিলো তাই আমন্ত্রিত যাত্রা শিল্পী ৪ শত জনের মধ্যে ১০০-১২০ জনের মতো উপস্থিত ছিলো। এর মধ্যে সম্মেলন শেষ হলো সারাদিন প্রকৃতি বিরূপ ছিল তারপর ও শেষ করা হয়েছে। যদিও কেন্দ্রীয় কমিটির সকলের উপস্থিতি ছিল, কিন্তু রাষ্ট্রীয় কারনে আমন্ত্রিত প্রধান অতিথি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও মহিলা এমপি এ্যাডঃ গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার ও আমন্ত্রিত মান্যবর অতিথি বাজুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মানস কুমার রায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। এজন্য তারা দু:খ প্রকাশ করেছেন। তাই এলাকার যাত্রা পাগল শিল্প গোষ্ঠীর দাবি পুনরায় তারিখ ঘোষণা করে সকলের উপস্থিতিতে ভোটের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হোক। কেননা অল্প সংখ্যক শিল্পীর উপস্থিতিতে এই কমিটি মেনে নেওয়া হবে না প্রয়োজনে আমরা কমিটি বাতিলের জন্য ঢাকায় গিয়ে আন্দোলন করবো। দাকোপ উপজেলা শাখার সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ যাত্রা শিল্প উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি বজরুল আলম দুলাল, সাধারণ সম্পাদক আতিকুর বাবু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি  ওয়াসিম আসগার, এস এম শফি,পারুল আক্তার, পায়েল দাস আরও অনেকে।সভাপতিত্ব করেন দাকোপ উপজেলা শাখার আহবায়ক সুশান্ত ঘোষ অঞ্জন এবং সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন সদস্য সচিব আগষ্টিন সরকার দেবু। সম্মেলনে   সভাপতি অমর রায় ও সম্পাদক নিমাই মন্ডলের নাম ঘোষণা করে ৪১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি নবগঠিত সভাপতি ও সম্পাদককে। তবে কমিটির সভাপতি ও সম্পাদকের নাম ঘোষণা করার সাথে সাথে কমিটি নিয়ে বিতর্ক দেখা দেয়। তাই হঠ্রোগোলের মধ্যে দিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ঐ কমিটির অনুমোদন না দিয়ে মঞ্চ ত্যাগ করেন।পরবর্তী অধিবেশনে কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জনান।

 

অভয়নগরে মেসার্স সাহা ফার্মেসীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১৭ হাজার টাকা  জরিমানা

তামিম আহমেদ মনির।।

যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া বাজারে মেসার্স সাহা ফার্মেসীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে নগদ ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়েছে। সোমবার (১৮সেপ্টেম্বর) দুপুরে নওয়াপাড়া বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) থান্দার কামরুজ্জামান। ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাথে ছিলেন ঔষধ প্রসাশনের সহকারী পরিচালক মহেশ্বর কুমার মন্ডল, নওয়াপাড়া পৌরসভার সেনেটারী ইনস্পেক্টর মোঃ আকরাম হোসেন, অভয়নগর থানার এসআই রিয়াজ হোসেন ও পুলিশ সদস্যসহ স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ। এসময় নওয়াপাড়া বাজার নূরবাগ এলাকায় সাহা ফার্মেসীতে অভিযান চলাকালে

রেজিষ্টার বিহীন, লাইসেন্স বিহীন, ও মেয়াদ উত্তীর্ণ  ঔষধ রাখার অপরাধে ফার্মেসী মালিক সঞ্জীব কুমার সাহাকে ১৫হাজার টাকা ও ঔষধ স্যাম্পল বিক্রেতা জাহাঙ্গীর হাসানকে ২হাজার টাকা মোট ১৭ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ড্রাগ এন্ড কেমিস্ট সমিতির অভয়নগর উপজেলা শাখার সভাপতি সাজ্জাতুর রহমান শান্তি, সাধারণ সম্পাদক শ্রী বিশ্বজিৎ সিংহ। এবিষয়ে অভয়নগর উপজেলা সহকারী কমিশনার থান্দার কামরুজ্জামান বলেন, আমাদের ঔষধ ফার্মেসী গুলোর অনিয়মের বিষয়ে অভিযান চলছে পর্যায় ক্রমে উপজেলার সকল ঔষধ  ফার্মেসীর অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যহত থাকবে।

 

খুবির বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ৮ মেধাবী শিক্ষার্থীকে ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড প্রদান

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলভুক্ত ৮টি ডিসিপ্লিনের ৮ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠান ১৮ সেপ্টেম্বর (সোমবার) বিকাল ৩টায় ড. সত্যেন্দ্রনাথ বসু একাডেমিক ভবনের ইউআরপি ডিসিপ্লিনের লেকচার থিয়েটারে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের হাতে ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র তুলে দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।

এসময় তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পরপরই শিক্ষার্থীরা বিসিএস এর পেছনে ছুটতে শুরু করে। যা শিক্ষার মুখ্য উদ্দেশ্য নয়। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় এক ধরনের ব্যাধি ঢুকে গেছে। এই ব্যাধি থেকে বের হয়ে আসতে হবে। এজন্য নিজেদের পছন্দের বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করা উচিত।

তিনি আরও বলেন, সফলতা মানুষকে আরও বড় সফলতার জন্য উদ্বুদ্ধ করে। যেকোনো পুরস্কার প্রাপ্তিই আত্মতৃপ্তি দেয়। শিক্ষার্থীদের একাডেমিক রেজাল্টের মাধ্যমে তাদের উৎসাহিত করার জন্য এই ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড প্রদানের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশিরভাগ স্কুলে ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড প্রচলন হয়েছে। বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুল এবার প্রথমবারের মতো ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড প্রচলন করেছে। তিনি ভবিষ্যতে ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানটি আরও বড় পরিসরে আয়োজন করার পরামর্শ দেন, যাতে করে এই স্কুলের সকল শিক্ষার্থী সেখানে উপস্থিত থাকতে পারে এবং এ থেকে অনুপ্রাণিত হয়।

ডিনস্ অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্তির এই অনুপ্রেরণা নিয়ে শিক্ষার্থীরা ভবিষ্যৎ জীবন আলোকিত করতে পারেন এবং তাদের কাছ থেকে দেশ ও জাতি আলোকিত হবেন বলে উপাচার্য আশাবাদ ব্যক্ত করেন। শিক্ষক হিসেবে এটাই সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. কামরুল হাসান তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান লিমন। আরও বক্তব্য রাখেন সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রাক্তন ডিন প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন গণিত ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. মুন্নুজাহান আরা। অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে অনুভূতি ব্যক্ত করেন পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের হাসান মাহমুদ রাফি। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের প্রফেসর সেহরীশ খান।

ডিনস্ অ্যাওয়ার্ড পাওয়া শিক্ষার্থীরা হলেন- স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের আয়েশা আখতার (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৮৮), কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের মো. আবিদ আফসান হামিদ (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৮৫), নগর ও গ্রামীণ পরিকল্পনা ডিসিপ্লিনের সুমাইয়া নাজ (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৮০), ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের মাহমুদুল হাসান আবিদ (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৮১), গণিত ডিসিপ্লিনের পুলক কুণ্ডু (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৯৯), পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের হাসান মাহমুদ রাফি (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৯৮), রসায়ন ডিসিপ্লিনের ইভানা সুলতানা (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৯১) এবং পরিসংখ্যান ডিসিপ্লিনের আবু জাফর (প্রাপ্ত সিজিপিএ ৩.৮৮)।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন স্কুলের ডিন, সংশ্লিষ্ট স্কুলভুক্ত ডিসিপ্লিনসমূহের প্রধানবৃন্দ, শিক্ষকবৃন্দ, অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (স.) পালন উপলক্ষে সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (স.) পালন উপলক্ষে এক সভা সোমবার বেলা ১১টায় নগর ভবনের জিআইজেড মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। কেসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্মসচিব) লস্কার তাজুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

 

সভায় পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (স.) যথাযথ মর্যাদায় পালন উপলক্ষে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে নগর ভবনে শিশুদের ক্বিরাত, হামদ ও নাত প্রতিযোগিতা এবং প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, মহানবী (স.) এর জীবনাদর্শের ওপর আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

 

সভায় অন্যান্যের মধ্যে খুলনা মহানগর ইমাম পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাওলানা রফিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা গোলাম কিবরিয়া, কেসিসি শিক্ষক সমিতির সভাপতি মাওলানা নাসির উদ্দিন কাশেমী, সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা আহসান হাবীব, কেসিসি’র সচিব মো: আজমুল হক, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা সানজিদা বেগম, প্রধান প্রকৌশলী মশিউজ্জামান খান, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো: আব্দুল আজিজ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা প্রকৌশলী মো: আনিসুর রহমান, চীফ প্লানিং অফিসার আবির উল জব্বার, বাজেট কাম একাউন্টস অফিসার মো: মনিরুজ্জামান, মাওলনা মো: ইব্রাহিম ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মো: মোস্তাক আহমেদ, রাজস্ব কর্মকর্তা মো: অহিদুজ্জামান খান, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কর্মকর্তা এসকেএম তাছাদুজ্জামান, বাজার সুপার আব্দুল মাজেদ মোল্লা প্রমুখ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

 

 

ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত অন্যান্য রোগ প্রতিরোধ কমিটির সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগর পর্যায়ে ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত অন্যান্য রোগ প্রতিরোধ কমিটির এক সভা সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় নগর ভবনের শহীদ আলতাফ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। কেসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্মসচিব) লস্কার তাজুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমিটির সভাপতি সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। উল্লেখ্য, স্থানীয় সরকার বিভাগের নির্দেশনা অনুযায়ী মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধকল্পে সম্প্রতি এ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সিটি মেয়র বলেন, মশক নিধন কার্যক্রম অব্যাহত ও জোরদারের মাধ্যমে ডেঙ্গু রোগ প্রতিরোধ করতে হবে। নগরীর বিভিন্ন স্থানে ঝোপ ঝাড় থাকলে তা দ্রুত পরিস্কার করাসহ বর্জ্য ও পানি অপসারণ করার নির্দেশ দেন। সিটি মেয়র মহানগর এলাকায় ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত রোগ বিস্তার রোধে মশক প্রজননের স্থানে সকাল-বিকাল মশক নিধন ঔষধ স্প্রে করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সভায় সিটি মেয়র খুলনাকে পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে কঞ্জারভেন্সি বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে প্রতিমাসে সভা আহবান করা হবে বলে উল্লেখ করেন।  তিনি কেসিসিকে সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, যে কোন মূল্যে আমরা খুলনাকে সুন্দর, পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যকর নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

 

কেসিসি’র নবনির্বাচিত কাউন্সিলর মোঃ জাকির হোসেন বিপ্লব, কমিটির সদস্য খুলনার সিভিল সার্জন ডা. মোঃ সবিজুর রহমান, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. হিমেল ঘোষ, খুলনা মেডিকেল কলেজের প্রভাষক ডা. সুরোজিত কুমার বাইন, কেসিসি’র প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা সানজিদা বেগম, প্রধান প্রকৌশলী মশিউজ্জামান খান, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও কমিটির সদস্য সচিব ডা. স্বপন কুমার হালদার, সদস্য প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা প্রকৌশলী মোঃ আনিসুর রহমান, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শরীফ শাম্মীউল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রূপান্তর-এর নির্বাহী পরিচালক স্বপন কুমার গুহ, কেসিসি’র সহকারী কঞ্জারভেন্সী অফিসার মোঃ আব্দুর রকীব, নূরুন্নাহার এ্যানি, মোল্লা মারুফ রশীদ, মোঃ জিয়াউর রহমান সহ কঞ্জারভেন্সী পরিদর্শকগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

 

সভায় জানানো হয়, ডেঙ্গু আক্রান্ত অনেক রোগী বিভিন্ন জেলা থেকে খুলনা মহানগরীতে প্রতিনিয়ত চিকিৎসা নিতে আসছেন এবং অনেকেই খুলনার ঠিকানা ব্যবহার করেন। প্রকৃত পে তারা খুলনা মহানগরী এলাকা থেকে আক্রান্ত কোন ডেঙ্গু রোগী নয়। এ জন্য ডেঙ্গু রোগীর সঠিক ঠিকানা লেখার বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানানো হয়।

 

 

জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস ৩ দিন ব্যাপী আয়োজিত সমাপনী আজ

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস-২০২৩ পালন উপলক্ষে ৩ দিন ব্যাপী আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার সমাপনী আজ মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় নগরীর শহীদ হাদিস পার্কে অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা সিটি কর্পোরেশন ও খুলনা ওয়াসা যৌথভাবে এ অনুষ্ঠান মালার আয়োজন করে।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, এমপি এবং সভাপতিত্ব করবেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। স্বাগত বক্তৃতা করবেন কেসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্মসচিব) লস্কার তাজুল ইসলাম। খুলনার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং গণমাধ্যম কর্মীগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন।

 

সাতক্ষীরায় আদালতের রায়-ডিক্রী জারিকে অমান্য করে জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ 

 

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা

আদালতের নির্দেশে জমির দখল বুঝিয়ে দেওয়ার পরও জমির ঘেরা বেড়া ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ব্রক্ষ্মরাজপুরের মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামে ঘটেছে। তথ্যানুসন্ধান ও ভুক্তভোগী সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাটিয়াডাঙ্গা গ্রাামের মৃত মাকছুদ আলীর ছেলে শাহ আলম জানান, সাতক্ষীরা জেলার ধুলিহর মোৗজায় এনএ ২৮৬০ খতিয়ান, ডিপি ৩০৬৫ খতিয়ানের ৩৬১৬, ৩৬১৭, ৩৬১৮ দাগে ৫২ শতক জমি একই এলাকার নৈমুদ্দীন সরদারের ছেলে আলীমুদ্দীন সরদার জবর দখলের পায়তারা করে। এর প্রতিকার চেয়ে শাহ আলম আদালতে দেঃ ২২৩/০৯ নং মামলা দায়ের করেন যা তার পক্ষে রায় যায়। পরবর্তীতে ১১২/২০১২ নং আপীল শুনানী শেষেও রায় শাহ আলমের পক্ষে যায়। শাহ আলম নিজ জমি বুঝে পাওয়ার জন্য আদালতে ২/২৩ জারি মামলা করলে জমি দখলের জন্য আদেশ জারি করে আদালত। আদালতে নির্দেশনা মোতাবেক সাতক্ষীরা জজ কোর্টের নাজির মোহাম্মদ আলী ০৯ আগস্ট’ ২০২৩ তারিখে সকাল ১০টায় ঢুলি শ্রী খগেন দাশকে নিয়ে ঢোল পিটিয়ে জমিতে লাল পতাকা টানিয়ে জমি শাহ আলমকে বুঝিয়ে দেন। জমি বুঝে পেয়ে শাহ আলম তার জমির সীমানায় আরসিসি পিলার দিয়ে সীমানা চিহ্নিত করে রাখেন। শাহ আলম অভিযোগ করে বলেন, ‘কিন্তু আলিমুদ্দীন সরদার ও তার ছেলে মাহফুজ, মৃত জয়নুদ্দীন গাজীর ছেলে জিয়াদ আলী, মৃত আঃ রাজ্জাকের ছেলে মুকুল, লুৎফর রহমানের ছেলে দুলি, আঃ লতিফ, আঃ রহিম সহ একই এলাকার মৃত   আব্দুল কাদেরর ছেলে মিজানুর রহমান, হাবিবুর রহমান, বিল্লাল হোসেন, ইকবাল হোসেন, সিরাজুল ইসলাম তাদের সাথে সন্ত্রাসী বাহিনী সাথে নিয়ে আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে মহামান্য আদালতের নির্দেশিত পতাকা ও সীমানা পিলারগুলো বার বার রাতের আঁধারে ভাংচুর করে আবারও জমি বেদখলে চেষ্টা চালাচ্ছে।অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আলিমুদ্দীন সরদার জানান, ‘শাহ আলম অবৈধ ভাবে আমার জমি দখল করে আছে। সে আমাদের হয়রানি করছে।’ আদালত শাহ আলমকে জমির দখল বুঝিয়ে দেয়ার বিষয়টি তিনি স্বীকার করলেও আলিমুদ্দীন তার দাবিতে অনড়।’ সীমানা পিলার সহ ঘেরা বেড়া ভাংচুরের ঘটনা তিনি অস্বীকার করেন। তবে তিনি এও স্বীকার করেন যে, মাটিয়াডাঙ্গা এলাকায় শুধুমাত্র শাহ আলম ও আলীমুদ্দীনেরই জমি জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ আছে। মাটিয়াডাঙ্গা এলাকার আক্তার হোসেন আলীমুদ্দীনের পক্ষে কথা বললেও তিনি স্বীকার করেন ‘যে আদালতের নির্দেশে ঢোল পিটিয়ে জমির দখল শাহ আলমকে বুঝিয়ে দেয়া হয়। আদালত কর্তৃক জমি বুঝিয়ে দেওয়ার সময় উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শী সৈয়দ জয়নুল আবেদিন জানান, ‘শাহ আলমের কোর্টের আদেশ মতে রায় হয়েছে। মাটিয়াডাঙ্গায় ৯ আগস্ট সাতক্ষীরা জজ কোর্টের নাজির সহ নিয়ম অনুসারে ঢোল পিটিয়ে জমিতে লাল পতাকা টানিয়ে দেয়া হয়। এসময় বাদী-বিবাদীসহ উপস্থিত গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের কাছ থেকে নিয়ম অনুসারে দখল হয়েছে মর্মে সহি-স্বাক্ষর নেওয়া হয়।ভুক্তভোগী শাহ আলম জানান, ‘আদালতের মাধ্যমে জমির দখল বুঝে পেলেও হয়রানি কমেনি। রাতের আঁধারে আমার জমির ঘেরা-বেড়া, সীমানা পিলার ভাংচুর করছে আলিমুদ্দীন ও তার সহযোগীরা। এছাড়াও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার নামে অপ-প্রচার চালাচ্ছে। আমি ঢাকায় ব্যবসা করি। গ্রামের বাড়িতে না থাকার সুযোগে তারা প্রতিনিয়ত আমাকে হয়রানি করে যাচ্ছে। আমি এর প্রতিকার চাই।এ ঘটনায় সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো মহিদুল ইসলাম এর সাথে  মুঠোফোনে আলাপ কালে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, এ বিষয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

 

চুয়াডাঙ্গা জেলার শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক  সামসুন্নাহার নির্বাচিত

দামুড়হুদা( চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি

দামুড়হুদার  রুদ্রনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সামসুন্নাহার জেলার শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক  সামসুন্নাহার নির্বাচিত হয়েছেন।

২০১৯ সালের  উপজেলা শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক ২০২২সালে কাব স্কাউটস এ উডব্যাজ অর্জন করেছে।২০২১ শিক্ষকদের সবচেয়ে বড়ো প্লাটফর্ম শিক্ষক বাতায়নে চুয়াডাঙ্গা জেলার মধ্যে তিনি  প্রথম মহিলা এ্যাম্বাসেডর নির্বাচিত হন।জাতীয় দিবসে তার নেতৃত্বে প্রতিবার কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লেতে পুরস্কার অর্জন করে এ বিদ্যালয়টি।

৪ টি উপজেলার সহকারীদের শিক্ষকের সাথে প্রতিযোগিতা করে জেলার মধ্যে শ্রেষ্ট শিক্ষক নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছেন দর্শনা পৌর মেয়র আতিয়ার রহমান হাবু,রুদ্রনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ারা খাতুন,দর্শনা প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, সহ সভাপতি মাহমুদ হাসান রনি,রুদ্রনগর সরকারি বিদ্যালয়ে শিক্ষক বৃন্দ সহ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীবৃন্দ।

 

 

 

চুয়াডাঙ্গা -২, দামুড়হুদা ও জীবননগর নির্বাচনী এলাকার ভোটকেন্দ্র ও ভোটার তালিকা প্রকাশ

মাহমুদ হাসান রনি দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা)

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে চুয়াডাঙ্গা -২ নির্বাচনী এলাকার ভোটকেন্দ্র ও ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। রবিবার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সদস্য সচিব মোঃ মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, চুয়াডাঙ্গা -২ নির্বাচনী আসন দামুড়হুদা, জীবননগর ও সদর উপজেলা (আংশিক) নিয়ে গঠিত। এ নির্বাচনী এলাকায় দর্শনা ও জীবননগর দুটি পৌরসভাসহ ১৯ টি ইউনিয়ন  নিয়ে গঠিত।মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৭৩টি।মোট ভোট কক্ষের সংখ্যা ১হাজার ৯৫টি।এর মধ্যে স্থায়ী ভোট কেন্দ্র ১ হাজার ৫৮ টি আর অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র ৩৭টি। এ নির্বাচনী এলাকায় মোট ভোটারের সংখ্যা ৫লাখ ৬৫ হাজার ৭শ১০ জন।এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ১শ ৫১ জন।অপর দিকে মহিলা ভোটার ২লাখ ৩১হাজার  ৫শ৫৯ জন।  জেলা ভোট কেন্দ্র স্থাপন  কমিটির দায়িত্ব প্রাপ্তরা হলেন,চুয়াডাঙ্গা জেলা ভোট কেন্দ্র স্থাপন কমিটির আহবায়ক

জেলা প্রশাসক ড. কিসিঞ্জার চাকমা, সদস্য হিসেবে আছেন  যথাক্রমে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ তবিবুর রহমান ও জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আতাউর রহমান।

 

আ’লীগ নেতা শাহজাদার উপর সন্ত্রাসী হামলায় নেতৃবৃন্দের নিন্দা

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যান বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহজাদাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে নগরীর গোবরচাকা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী  বায়েজিদসহ তার সহযোগীরা। গত শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাত ৯টায় নগরীর ২৫নং ওয়ার্ডের ইসলাম কমিশনারের মোড়ে পূর্ব থেকে ওত পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা হামলা করে। এবং পিস্তল উঁচিয়ে গুলি করতে গেলে আশেপাশে থাকা লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এসময়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে।

আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাহজাদার উপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, যারা এ ধরণের ন্যাক্কারজনক সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।

বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক, বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র ও খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি  ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ, মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

২০ বছর পালিয়ে থাকা আসামি গ্রেপ্তার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি বাবলু লষ্করকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ থানার ঢিলাবাড়ি এলাকা থেকে র‌্যাব ও পুলিশ যৌথ অভিযানে তাকে গ্রেপ্তার করে। তিনি ঝিনাইদহে সদর উপজেলার বদনপুর গ্রামের ছাত্তার লষ্করের ছেলে।

 

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি আক্তারুজ্জামান লিটন জানান, প্রায় ২০ বছর আগের একটি মামলায় ২০২১ সালের অক্টোবর মাসের ১৭ তারিখ ঝিনাইদহ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক বাবলু লষ্করকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। মামলার ৭ ধারায় তাকে দণ্ডিত করা হয়।

 

রায় ঘোষণার পর থেকেই পলাতক ছিলেন বাবলু। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে র‌্যাব ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালায়। গ্রেপ্তারর পর বাবলুকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

 

বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

বেনাপোল প্রতিনিধি।।

ভারতে বিশ্বকর্মা পূজায় বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে বেনাপোল কাস্টমস হাউজ ও বন্দরে মালামাল উঠানামাসহ খালাস প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী পারাপার স্বাভাবিক রয়েছে।

 

বনগাঁ মহকুমা পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষ পাল বলেন, শ্রমিকরা যাতে বিশ্বকর্মা পূজায় যোগ দিতে পারেন সেজন্য পণ্য পরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে। বিষয়টি চিঠি দিয়ে পেট্রাপোল বন্দর ও কাস্টমসকে জানানো হয়েছে।

 

বেনাপোল চেকপোস্ট কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা মো. আজিজ খান বলেন, বিশ্বকর্মা পূজা উপলক্ষে ভারতে শ্রমিকদের ছুটি দিয়েছে। তাই বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। বেনাপোল কাস্টম হাউসে পণ্য শুল্কায়ন, পরীক্ষণ ও খালাস কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে।

 

বেনাপোল স্থল বন্দরের পরিচালক (ট্রাফিক) আব্দুল জলিল বলেন, বেনাপোল স্থল বন্দরে পণ্য লোড-আনলোড কার্যক্রম চালু রয়েছে। পাসপোর্টধারী যাত্রীরা যাওয়া-আসা করতে পারছেন।

 

 

সুদের ফাঁদে কেউ লাশ কেউবা হারাচ্ছেন ভিটা

কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি

সিরাজুল ইসলাম নামে এক কাঠমিস্ত্রির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার কুমারখালীর কয়া ইউনিয়নের কয়া গ্রামের কারিগরপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। স্বজনদের অভিযোগ, হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করছেন দুই সুদের কারবারি।

 

সিরাজুলের মেয়ে লাবণী খাতুনের ভাষ্য, পশ্চিম কয়া গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে বিপুল হোসেন ও পিকলু হোসেন সুদের কারবারি। সাদা কাগজে সই দিয়ে তাদের কাছ থেকে দুই বছরের জন্য ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা নিয়েছিলেন তার বাবা সিরাজুল ইসলাম (৫০)। কিন্তু ছয় মাসের মধ্যে টাকা পরিশোধের জন্য চাপ দেন সুদের কারবারিরা। টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় শনিবার বিকেলে বিপুল ও পিকলু লোকজন নিয়ে তাদের ছোট ঘরটি ভেঙে ফেলেন। এর পর রোববার সকালে নতুন ঘরের খুঁটি পুঁততে শুরু করেন। বাধা দিতে গেলে তাঁর বাবাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে গেছেন সুদের কারবারিরা। তাঁর দাবি, বাড়িতে শুধু তাঁর মা আর বাবা থাকেন। ঘটনার সময় মা আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন।

 

সিরাজুলের ভাই নজরুল ইসলাম বলেন, তাঁর বাড়ি একটু দূরে। সুদে টাকা দিতে না পারায় গত শনিবার বিকেল থেকে তাঁর ভাইয়ের বাড়িতে ভাঙচুর চলছিল। রোববার সকালে জমি দখলের কাজ শুরু হয়। জমি দখলে বাধা দেওয়ায় তাঁর ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। থানায় মামলা করবেন তারা।

 

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিপুল হোসেন ও পিকলু হোসেন দীর্ঘদিন ধরে সুদের কারবার করে আসছেন। সুদের ফাঁদে ফেলে অনেকের জমি দখল ও মারধর করে আসছেন। সম্প্রতি কয়া গ্রামের মৃত লিটনের স্ত্রী ভানু খাতুনের বসতভিটার বায়নানামা করে বেড়া দেওয়া হয়েছে।

 

ভানু খাতুন জানান, পিকলুর কাছ থেকে দুই বছর আগে সুদে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন তাঁর ছেলে নয়ন। সেই টাকা সুদে-আসলে এখন ৩ লাখ হয়েছে। টাকা পরিশোধ করতে না পারায় প্রায় চার মাস আগে তাঁর ছেলেকে ধরে নিয়ে বায়নানামায় সই করে নিয়েছেন। এর পর তাঁর বসতভিটা লোহার তার দিয়ে বেড়া দিয়ে রেখেছেন। তাদের উচ্ছেদের জন্য নিয়মিত ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন সুদের কারবারিরা।

 

কাঠমিস্ত্রি সিরাজুল ইসলামের লাশ উদ্ধারের ঘটনার পর থেকেই গা-ঢাকা দিয়েছেন অভিযুক্ত বিপুল হোসেন। তাঁর ফোনটিও বন্ধ পাওয়া গেছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তাঁর ভাই পিকলু হোসেন। তাঁর দাবি, তারা কোনো সুদে ব্যবসা করেন না। বায়নানামা করে জমি কিনে ঘরনির্মাণ করছিলেন। কাউকে হত্যা করেননি তারা। তবে তাঁর ভাই বিপুলের একটি এনজিও রয়েছে।

 

কয়া ইউপির ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মেজবার রহমান বলেন, সুদে টাকা দেওয়ার পর জমি দখল ও জমি লিখে নেওয়ার বিষয়ে বিপুল ও পিকলুর বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ পেয়েছেন তিনি। সালিশও করেছেন। কিন্তু তিনি ঝামেলায় জড়াবেন না বলে প্রতিবাদ করতে পারেননি। তবে দুই ভাইয়ের সুদের কারবারের আড়ালে জমি দখল ও মানুষ হত্যা নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন।

 

থানার ওসি আকিবুল ইসলাম বলেন, একজনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে সঠিক কারণ জানা যাবে। স্বজনদের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগের তদন্ত চলছে।

 

 

ডিম-আলুসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে ২৪ বিশিষ্ট নাগরিকের উদ্বেগ

ঢাকা অফিস

দেশের বাজারে ডিম–আলুসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং মূল্যস্ফীতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ২৪ বিশিষ্ট নাগরিক। তারা বলেছেন, খাদ্যপণ্যের দাম অসহনীয় অবস্থায় চলে গেছে।

 

সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তারা এই উদ্বেগের কথা বলেন।

 

বিবৃতিদাতারা বলেন, ‘আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ করছি যে প্রায় এক বছর ধরে খাদ্যপণ্যসহ সার্বিক মূল্যস্ফীতি অসহনীয় পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। সরকারী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য অনুযায়ী, আগস্ট মাসে খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে ১২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। আর সার্বিক মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ৯ শতাংশ। এ পরিস্থিতিতে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের পক্ষে জীবন ধারণ কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ডিম ও মাংসের মূল্যবৃদ্ধির ফলে আমিষ–জাতীয় খাদ্যাভাব পুষ্টির ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।’

 

বিবৃতিতে বলা হয়, সরকারি ভাষ্য অনুযায়ী রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ এ পরিস্থিতির জন্য দায়ী এবং ব্যবসায়ীদের মতে, ডলার–সংকটের ফলে সমস্যা ঘনীভূত হয়েছে। বহু দেশে যুদ্ধের কারণে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছিল এবং অধিকাংশ দেশে তা সত্ত্বেও মুদ্রানীতি, ব্যয় সংকোচন ও বাজার ব্যবস্থায় কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। আমরা লক্ষ করছি যে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত মূল্যস্ফীতি কমাতে সক্ষম হয়নি। বস্তুতপক্ষে, উৎপাদন ও বাজার ব্যবস্থাপনায় সরকার কার্যকর ব্যবস্থাপনায় সমর্থ হচ্ছে না। অভিযোগ রয়েছে যে উৎপাদন, পাইকারি ও খুচরা বাজারে সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে এবং তারাই বাজারমূল্য নিয়ন্ত্রণ করছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, এমনকি  গৃহীত পদক্ষেপও বাস্তবায়নে সমর্থ হচ্ছে না।

 

তারা বলেন, ‘এ পরিস্থিতি কোনো অবস্থায় কাম্য নয়। আমরা একান্তভাবে প্রত্যাশা করি, সরকার প্রয়োজনে সামাজিক শক্তির সহায়তায় এই দুর্বিষহ পরিস্থিতি উত্তরণে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে বিশেষ করে মাংস, ডাল, পেঁয়াজ, ডিম, আলুসহ পণ্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে নামিয়ে আনবে। জনদুর্ভোগ নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে।’

 

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন সুলতানা কামাল, রাশেদা কে চৌধূরী, অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, রামেন্দু মজুমদার, ডা. সারওয়ার আলী, ট্রাস্টি নুর মোহাম্মদ তালুকদার, অধ্যাপক এম এম আকাশ, খুশী কবির, রানা দাশগুপ্ত, রোবায়েত ফেরদৌস, জোবায়দা নাসরিন, সেলু বাসিত, আর এম দেবনাথ, অসিত বরন রায়, আব্দুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী, সালেহ আহমেদ, এ কে আজাদ, পারভেজ হাসেম, জহিরুল ইসলাম জহির, জাহাঙ্গীর আলম, অলক দাস গুপ্ত, আবদুল ওয়াহেদ, আব্দুর রাজ্জাক ও সাধারণ সম্পাদক, গৌতম শীল।

 

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ গণমাধ্যমে এ বিবৃতিটি পাঠান।

 

অভিযুক্তই শিশু ধর্ষণকারীর গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছিল

যশোর প্রতিনিধি

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কলামনখালী গ্রামে প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া (৭) শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় সামিরুল (২২) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে যশোরের র‌্যাব-৬।

 

রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কালিয়া উপজেলার বারইহাটি এলাকা থেকে সামিরুলকে গ্রেফতার করা হয়। সে কালিয়া উপজেলার কলামনখালি গ্রামের আহমদ আলীর ছেলে।

 

সন্ধ্যায় পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-৬ যশোরের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন।

 

 

তিনি জানান, গত ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টার দিকে ভুক্তভোগী ওই শিশু তার মাকে খুঁজতে বাড়ি থেকে বের হয়। পথে শিশুটিকে একা পেয়ে তার মুখ চেপে ধরে পাশের একটি বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে সামিরুল। শিশুর কান্না ও চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে ফেলে ধর্ষণকারী পালিয়ে যায়।

 

স্থানীয়রা শিশুর স্বজনদের খবর দেয় এবং তাকে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

 

পরে র‌্যাব-৬ ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং শিশুর তথ্য অনুযায়ী রবিবার একটি টিম বারইহাটি এলাকায় অভিযান চালিয়ে সামিরুলকে গ্রেফতার করে।

 

কোম্পানি কমান্ডার জানান, জিজ্ঞাসাবাদে সামিরুল অপরাধ স্বীকার করে জানায় যে সে একাই ঘটিয়েছে। সে ভেবেছিল শিশুটি তাকে শনাক্ত করতে পারবে না। তাই স্থানীয়দের সঙ্গে মিশে সে-ও ধর্ষণকারীর গ্রেফতার ও শাস্তি দাবি করে আসছিল।

 

আইনি ব্যবস্থা নিতে গ্রেফতার সামিরুলকে কালিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয় বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

 

দেবহাটায় সিটিজেন অ্যাকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের ইন্টারফেইস মিটিং

দেবহাটা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার দেবহাটায় সোস্যাল সেফটিনেটের আওতায় ইউনিয়ন পরিষদের মাতৃত্বকালীন ভাতার ১২ টি মনিটরিং স্ট্যান্ডার্ড এর উপর সিটিজেন ভয়েজ অ্যাকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের ইন্টারফেইস মিটিং অনুষ্ঠিত হয়েছে।  সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দেবহাটা সরকারী পাইলট হাইস্কুল ফুটবল মাঠে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের  সহযোগীতায় ও বাস্তবায়নকারী সংস্থা সুশীলনের পরিচালনায় দেবহাটা এরিয়া প্রোগ্রাম কর্তৃক এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় দেবহাটা উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার নাসরিন জাহানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুজিবর রহমান।

বক্তব্য দেন পারুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক বাবু, দেবহাটা সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন বকুল, সুশীলনের সহকারী পরিচালক শেখ মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ।

সভায় দেবহাটা প্রেসক্লাবের  সভাপতি মীর খায়রুল আলম, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান শাওন, অনিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক মেহের আলী, সুশীলনের প্রোগ্রাম ম্যানেজার টিপু সুলতান, সুশীলনের সিডিও নীলকান্ত, মোমেনা খাতুন, জোসনা বালা, গ্রাম উন্নয়ন কমিটি, শিশু ফোরাম, ধর্মীয় নেতা, সরকারি-বেসরকারি প্রতিনিধিরা উপস্থিত থেকে অংশ নেন।

এসময় সোস্যাল সেফটিনেটের আওতায় ইউনিয়ন পরিষদের মাতৃৃত্বকালীন ভাতার ১২ টি মনিটরিং স্ট্যান্ডার্ড এর উপর পুরুষ, নারী, বালক ও বালিকা- ৪ টি দল স্কোরকার্ডের মাধ্যমে সিভিএ ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্যবৃন্দ উপস্থাপন করেন। স্কোরকার্ড অনুযায়ী প্রায় সমগ্র স্ট্যান্ডার্ডের ভাল ফলাফল পরিলক্ষিত হয় কিন্তু সাধারন জনগনের মতামতের ভিত্তিতে মাতৃৃত্বকালীন ভাতার পরিমান বৃদ্ধি, সংখ্যা বৃদ্ধি ও প্রচারণা বাড়ানোর ক্ষেত্রে একটি কর্মপরিকল্পনা তৈরী করা হয়। সভার প্রধান অতিথি ও সভাপতি উল্লেখ করেন, প্রচারণার কার্য্যক্রম চলমান আছে এবং বাকি ২ টি জাতীয় পর্যায়ে উপস্থাপনের ব্যাপারে সুপারিশ করেন।

সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আজিজপুর গ্রাম উন্নয়ন কমিটি সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ শাহ আলম ও দাঁদপুর শিশু ফোরাম সভাপতি হালিমাতুস সাদিয়া।

 

মহেশপুরে প্রধান মন্ত্রীর আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি,

ঝিনাইদহের মহেশপুরে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক অনুদানের ১০ লাখ টাকার চেক বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যলয়ে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন ঝিনাইদহ ৩ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড.শফিকুল আজম খান চঞ্চল। এসময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মীর সুলতানুজ্জামান লিটনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন,মহেশপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়জদ্দীন হামীদ,কোটচাঁদপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলী,মহেশপুর পৌর আ,লীগের সভাপতি শ্রী অমল কুমার কুন্ডু,সাধারণ সম্পাদক শেখ এমদাদুল হক বুলু। এছাড়াও ১২টি ইউনিয়ন আ,লীগের সভাপতি-সম্পাদক,ইউপি চেয়ারম্যান,আ,লীগের বিভিন্ন অংঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে মহেশপুর-কোটচাঁদপুর উপজেলার ২৩ জনকে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক অনুদানের ১০ লাখ টাকা চেক প্রদান করা হয়।

 

 

কয়রায় এডভোকেসি ও নেতৃত্ব বিষয়ক বিষয়ক প্রশিক্ষণ

কয়রা(খুলনা) প্রতিনিধি

কয়রায় দিনব্যাপী এডভোকেসি ও নেতৃত্ব বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মহারাজপুর ইউনিয়নে  অন্তাবুনিয়া গ্রামে এসডিএফ অফিসে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ডরপ ইভল্প প্রকল্পের আয়োজনে হেলভেটাস বাংলাদেশ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন এর অর্থায়নে বিভিন্ন ইউনিয়নে ২৪ জন নারী ও পুরুষ সদস্যদের নিয়ে নেতৃত্ব ও এাডভোকেসি বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সুশীল সমাজের দক্ষতা উন্নয়নে কয়রায় ৪ টি ইউনিয়নে সিএসও  স্থানীয় সিদ্ধান্ত গ্রহনে নেটওয়ার্কিং এর উপর গুরুত্ব, ইস্যুভিত্তিক এডভোকেসির বিভিন্ন কৌশল সম্পার্কে জানা এবং কার্যকারী ভূমিকা রাখা, নেতৃত্ব ও নারী নেতৃত্বের চ্যালেঞ্জ এবং তা উত্তরনের উপায়, বার্তা তৈরি ও কার্যকর যোগাযোগ বিষয় দক্ষতা অর্জন করা এ এডভোকেসি সভায় সকলে গুরুত্বারোপ করেন। এসময় ফিল্ড ফ্যাসিলিটেটর মোঃ হারুন অর রশীদের সহযোগিতায় প্রশিক্ষণ পরিচালনা করেন, ডরপ ইভল্প প্রকল্পের প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর প্রতিভা বিকাশ সরকার।

 

ফকিরহাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক

লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

ফকিরহাট প্রতিনিধি।

বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা রোববার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০০১ সালে সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন এমপির জনসভায় বোমা হামলার প্রতিবাদে “সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরোধী দিবস” পালনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক এই বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক শেখ ইমরুল হাসান এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি স্বপন দাশ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মল্লিক আবুল কালাম আজাদ (সাহেব)। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য শেখ মঈন উদ্দীন এর সঞ্চালনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শেখ আব্দুর রাজ্জাক, শেখ মুস্তাহিদ সুজা, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবীর কুমার মিত্র, সমরেশ রায় চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. হিটলার গোলদার, কোষাধ্যক্ষ শেখ সরোয়ার হোসেন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক জীবন কৃষ্ণ ঘোষ, দপ্তর সম্পাদক নির্মল কুমার ঘোষ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এসএম জুলফিকার জুয়েল, সহ-দপ্তর সম্পাদক আবুল আহসান টিটু, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ মনিরুল ইসলাম মনি, সাধারণ সম্পাদক মো. সুমন মল্লিক, শ্রমিক লীগের সভাপতি শেখ সিরাজুল ইসলাম, ছাত্রলীগের আহবায়ক জয়ন্ত কুমার দাশ, যুগ্ম আহবায়ক শেখ শরীফ সহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর বিকাল ৫টায় ফকিরহাট বিশ্ব রোডে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্তৃক আয়োজিত ২২তম সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরোধী দিবসে মানব বন্ধন কর্মসূচীর পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। ##

 

বৃহত্তর আমরা খুলনাবাসীর সদস্য মহিউদ্দিনের ভাইয়ের মৃত্যুতে শোক

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহত্তর আমরা খুলনাবাসীর সাবেক সহ সভাপতি জিএম মহিউদ্দিনের ছোট ভাই জি এম সালেহ আহমেদ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না—-রাজিউন)। ১৭ সেপ্টেম্বর  রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

জিএম মহিউদ্দিনের ভাইয়ের মৃত্যুতে গভীর শোক, সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেছেন বৃহত্তর আমরা খুলনাবাসীর নেতৃবৃন্দরা। নেতৃবৃন্দরা হলেন সংগঠণের সভাপতি ডা. মো. নাসির উদ্দিন, মাজেদা খাতুন, ডা. সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, ডা. আব্দুস সালাম, জি এম মহিউদ্দিন, এড. কাজি আমিনুল ইসলাম মিঠু, মো. কামরুল ইসলাম কামু, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, মুন্সি আহমেদ হোসেন, সাধারন সম্পাদক এস এম মাহাবুবুর রহমান খোকন, শেখ মোহাম্মাদ আলি, এম এ জলিল, মো. কামরুল ইসলাম ভুট্রো, কাওসারি জাহান মঞ্জু, নাজমুল তারেক তুষার, সাংগাঠনিক সম্পাদক মো. শাকিল আহমেদ রাজা, মো. আব্দুর রাজ্জাক, কারি শরীফ মিজানুর রহমান, শেখ শহিদুল ইসলাম, কবিতা আহমেদ, মো. আরিফ আহমেদ, মো. জিসান রহমান. তাহেরুল আলম, মো. শফিকুল ইসলাম অভি, রেজাউল ইসলাম রাজা, আশরাফুল ইসলাম, শিক্ষক আব্দুল মান্নান, রোকনুজ্জামান বাবলু, আব্দুল মান্নান (মুন্নাফ), জয়নাল আবেদিন, সাইফুল্লাহ বাবু, মো. হালিম মোড়ল, মো. জাভেদ আক্তার, মিকাইল হোসেন, আবু বক্কার, মো. আজমল হোসেন প্রমুখ।

 

শিরোমনিতে  ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযান ২ টি প্রতিষ্ঠানকে  জরিমানা

 

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর খুলনা জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা গতকাল বেলা ১২ টায় নগরীর খানজাহান আলী থানার শিরোমনি বাজারে অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় খাবার এর মোড়কে উৎপাদনের তারিখ না থাকায় সুমন ষ্টোরকে ৫ হাজার ও ফিজিশিয়ান স্যাম্পল বিক্রয় এর অপরাধে ইমরান ফার্মেসিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য ও আদায় করেন। পরে সরকার নির্ধারিত মুল্যের চেয়ে বেশি দামে আলু বিক্রয় বিক্রয় বন্ধে শিরোমনি বিসিক শিল্প এলাকার দৌলতপুর আইস  কোল্ড ষ্টোরো গিয়ে কোন কোন আড়ৎদার তাদের হিমাগারে  আলু রাখে তাদের নাম ঠিকানা দেন। অভিযানের নেতৃত্ব দেন ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর খুলনা জেলা  কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক  ওয়ালিদ বিন হাবিব, খুলনা জেলা সিনিয়ার  কৃষি বিপনন কর্মকর্তা শাহারিয়ার আকুজ্ঞী এ সময় সহযোগিতা করেন ক্যাব সদস্যবৃন্দ।

 

 

সাতক্ষীরা- ৪ আসনে জনপ্রিয়তার শীর্ষে আতাউল হক দোলন

সাগর হোসেন।।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে। ইতিমধ্যে সমগ্র দেশে এ নির্বাচনকে ঘিরে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা, বাক-বিতন্ডা,হৈ-চৈ বা তর্ক-বিতর্কের শোরগোল পড়ে গেছে। সাতক্ষীরা -৪ সংসদীয় আসন এর বাইরে নয়। দেশের দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের সুন্দরবন বেষ্টিত উপকূলীয় এলাকা শ্যামনগর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও কালিগঞ্জ উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮ টি ইউনিয়ন অর্থ্যাৎ ২০ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ আসনটি। ভৌগোলিক ও প্রাকৃতিক কারণে খুলনা বিভাগের এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ আসন । তাই দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে অত্র আসনে সকল রাজনৈতিক দলের প্রার্থীগণ জোরেশোরে  প্রচার প্রচারণায় নেমে পড়েছে । তারমধ্যে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ঃ বর্তমান এমপি ও শ্যামনগর  উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম জগলুল হায়দার, শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলন, জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা ও সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আতাউর রহমান, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী এবং প্রবাসী ইটালী শাখা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিউল্যাহ রনি । বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক এমপি ও কেন্দ্রীয় সদস্য কাজী আলাউদ্দীন এবং জেলা বিএনপি আহবায়ক এ্যডঃ ইফতেখার হোসেন অপরদিকে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী সাবেক এমপি এইচ এম গোলাম রেজা এবং জামায়াত ইসলামীর একক প্রার্থী সাবেক এমপি গাজি নজরুল ইসলাম । আওয়ামীলীগের প্রার্থীগণ গণসংযোগ,মিছিল- মিটিং,সভা-সমাবেশ ও ব্যনার-ফেস্টুনে ভরে ফেলেছে পুরো এলাকা অন্যদিকে বিএনপি জামায়াতের প্রার্থীরা কেয়ারটেকার সরকারের দাবিতে রয়েছে রাজপথে।

সকল প্রার্থীগণের মধ্যে শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন দুর্নীতিমুক্ত,সদালপী ও ক্লিন ইমেজ থাকার কারণে সাধারণ ভোটারদের মাঝে তার জনপ্রিয়তা বেশি দেখা যাচ্ছে। তার পিতা এই আসনের সাবেক এমপি ও বর্তমান জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফজলুল হক বঙ্গবন্ধুর সহচর ছিলেন। সেই হিসেবে আতাউল হক দোলন জন্মগতভাবে আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান হওয়ায় ছাত্র রাজনীতি ও যুব রাজনীতির পথ মাড়িয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নৌকার টিকিটে ২০১৮ সালে বিপুল ভোটে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেখান থেকে তিনি সমানতালে দল এবং সাধারণ মানুষের সেবায় দিন রাত নিয়োজিত আছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবন ও দুর্গম এলাকা হওয়া সত্বেও সাধারণ মানুষের যেকোন বিপদে – আপদে তিনি খবর পাওয়া মাত্রই বিপদাপন্ন মানুষের পাশে ছুটে যান। এলাকার ২০ টি ইউনিয়ন ঘুরে ঘুরে আমাদের প্রতিনিধির পাঠানো তথ্য অনুযায়ী বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক, সাংস্কৃতিক,ধর্মীয় এবং দাতব্য কার্যক্রমের মাধ্যমে এ আসনের জনগণের মাঝে দল,মত, ধর্ম ও বর্ণ  নির্বিশেষে তিনি একটি আস্থার জায়গা অর্জন করেছেন। সে হিসেবে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন পেলে তুমুল জনপ্রিয়তার কারণে তার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

 

 

 

 

 

মহানগর আ’লীগের বর্ধিত সভা বৃহস্পতিবার

খবর বিজ্ঞপ্তি

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বর্ধিত সভার আহবান করেছে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ। আগামী ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে এ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, থানা, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এবং মহানগর পর্যায়ের সকল সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নির্বাচিত দলীয় সকল কাউন্সিলরকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য সাংগঠনিক নির্দেশক্রমে বিশেষ আহ্বান জানিয়েছে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক ও  সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা।

 

যুব মহিলা লীগের মতবিনিময় সভায় সিটি মেয়র

স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে নারীদের সামনের এগিয়ে আসতে হবে

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত সুদুর প্রসারী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন এবং স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে নারীদের সামনের এগিয়ে আসতে হবে। সেজন্য জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও বিজয়ী করতে হবে। সে লক্ষে যুব মহিলা লীগের প্রত্যেকটি নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধভাবে ভোটারদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে শেখ হাসিনা সরকারের ব্যাপক উন্নয়নের কথা বলতে হবে।

গতকাল সোমবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে মহানগর ও জেলা যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শেখ ফারুক হাসান হিটলু।

জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি এ্যাড. সেলিনা আক্তার পিয়ার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারা খাতুন শিউলির পরিচালনায় এসময়ে উপস্থিত ছিলেন যুব মহিলা লীগ নেত্রী এ্যাড. শিউলি আক্তার লিপি, কানিজ ফাতেমা বেবী, আফরোজা জেসমিন বিথী, রওশন আরা রিমা, মৌসুমী আক্তার বর্ণা, আরবিনা শিকদার, শামিমা আক্তার মিমি, রাবেয়া, শাহিনা, রাশিদা, সাবিহা, রুবি প্রমূখ।

সভা শেষে যুব মহিলা লীগ নেত্রী মির্জা রাফিয়া আক্তার কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় তিনি মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক ও সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

 

 

জেলা যুবলীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচির তারিখ পরিবর্তন

খবর বিজ্ঞপ্তি।।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ গত ১০ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে আরও গতিশীল ও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৪ টায় দলীয় কার্যালয়ে বিশেষ সভা ও প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ এবং নবায়ন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার কারণে স্থগিত করা হয়েছে। সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রমের তারিখ পরবর্তীতে জানানো হবে।

 

 

স্ট্যাম্প-কোর্ট ফি’র তীব্র সংকট, সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে সিন্ডিকেট

ঢাকা অফিস।।

সুপ্রিমকোর্টসহ সারাদেশের অধস্তন আদালতসমূহে জুডিশিয়াল, নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প কার্টিজ পেপার, কোর্ট ফি ও ফলিও’র তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। কোর্ট ফি, স্ট্যাম্প স্বল্পতার সুযোগ কাজে লাগিয়ে অধিক দাম হাঁকাচ্ছেন কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট। উপায় না পেয়ে বাধ্য হয়ে বেশি দামে কোর্ট ফি-স্ট্যাম্প কিনতে হচ্ছে ভুক্তভোগীদের। উচ্চ দামে জুডিশিয়াল, নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি কিনতে হওয়ায় ভুক্তভোগী বিচারপ্রার্থীদের মামলার খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এতে মামলার বিচারপ্রার্থী ও আইনজীবীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। ভুক্তভোগী বিচারপ্রার্থী ও আইনজীবীরা বলছেন, আদালত প্রাঙ্গনে অনেক ভেন্ডারের কাছে কোর্ট ফি স্ট্যাম্প পাওয়া যাচ্ছে না তবে বেশী টাকা দিলে ঠিকই মেলে। এভাবে বেশি দামে কোর্ট ফি, স্ট্যাম্প বিক্রয় করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একদল সিন্ডিকেট। দেশের আদালতসমূহে স্ট্যাম্পের সরবরাহ কমে যাওয়ায় সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও কোর্ট ফি আদালতে দাখিল করতে না পারায় মামলার কার্যক্রম বিলম্বিত হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা জজ কোর্টের আইনজীবী মাহবুবুর রহমান বলেন, কোর্ট ফি স্ট্যাম্পের সংকটে বেশি দামে কিনতে বাধ্য হচ্ছে বিচারপ্রার্থীরা। তিনি আরও বলেন, ‘১০ টাকার কোর্ট ফি ১৩ টাকা কিনতে হচ্ছে। ১শ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ১শ’ ২৫ থেকে ১শ’ ৩০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। কোনো কোনো স্থানে ১৫০ টাকাও বিক্রি হচ্ছে শোনা যায়। পাঁচশ টাকার জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ৭শত থেকে ৮শত টাকা কিনতে হচ্ছে। ক্ষতিপূরণ মোকদ্দমা, পারিবারিক মোকদ্দমা, সাকসেশন মোকদ্দমায় ব্যাংকে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে টাকা জমা দিয়ে কোর্ট ফি কিনতে হয়। কিন্তু ট্রেজারিতে টাকা জমা দিয়েও কোর্ট ফি মিলছে না। এতে করে মামলার কার্যক্রম বিলম্ব হচ্ছে।’

ঢাকা জজ কোর্টের স্ট্যাম্প ভেন্ডার লক্ষ্মীনাথ বলেন, ‘ব্যাংকে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে টাকা জমা দিয়ে আড়াই মাসেও কোর্ট ফি পাওয়া যাচ্ছে না। গত ২১ জুলাই ট্রেজারির চালানের মাধ্যমে স্ট্যাম্প কেনার জন্য টাকা জমা দেয়। কিন্তু ওই চালান পেতে পেতে গত ১০ সেপ্টেম্বর হাতে পেলাম। আমাদের ক্ষুদ্র ব্যবসা। দীর্ঘদিন টাকা জমা থাকলে কীভাবে চলবে ব্যবসা। আমরা বিভিন্ন জায়গা থেকে বেশি থাকে কিনেছি, এ জন্য একটু বেশি দামে বিক্রয় করতে বাধ্য হচ্ছি।’

ঢাকা জজ কোর্টের স্ট্যাম্প ভেন্ডার মহাসিন মিয়া বলেন, ‘কোর্ট ফি, স্ট্যাম্পের দীর্ঘদিন ধরে সংকট চলছে। এখানে কোনো প্রকার সিন্ডিকেট নেই। গ্রাহকদের চাহিদা মেটানোর জন্য বেশি দামে স্ট্যাম্প কিনতে হচ্ছে। সেই ক্ষেত্রে বিক্রয়ের সময় দাম বেশি মনে হচ্ছে। আমাদের সেই আগের মতোই ৫/১০ টাকা লাভ থাকে।’ তিনি আরও বলেন, ‘কোর্টি ফি, স্ট্যাম্প সরবরাহ বেশি হলে দাম আগের মতো হয়ে যাবে। আমরা কম টাকায় কিনতে পারলে বেশি দাম বিক্রয় করব কেন।’ বাংলাদেশ স্ট্যাম্প ভেন্ডর সমিতির মহাসচিব নজরুল ইসলাম বলেন, ‘কাগজের পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় নাকি স্ট্যাম্প ছাপানো সম্ভব হচ্ছে না। বিদেশ থেকে কাগজ আনার পর এটি গাজীপুর সিকিউরিটি প্রিন্টিং প্রেসে ছাপা হয়। বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মাধ্যমে তা সারাদেশের ট্রেজারিতে পাঠানো হয়। ভেন্ডাররা ব্যাংকে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করে চালান ট্রেজারিতে জমা দিলে ট্রেজারি শাখা ভেন্ডরদের স্ট্যাম্প সরবরাহ করে। আশা করি, কিছুদিনের মধ্যে এর সমাধান আসবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকার আদালতে একটি একশ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ১২০ থেকে ১৩০ টাকা ও ১০ টাকার স্ট্যাম্প ১৩ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ঢাকার বাইরে এ সংকট আরও তীব্র। কোন কোন স্থানে এটি একশ টাকার স্ট্যাম্প দেড়শ টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে বলে শোনা যায়।’

 

এদিকে কোর্ট ফি,স্ট্যাম্পের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে গভর্নরকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার (বিচার) এস কে.এম. তোফায়েল হাসান বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বরাবর এ চিঠি দেন।

 

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, রাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গের মধ্যে বিচার বিভাগ অন্যতম বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগ এবং দেশের ৬৪টি জেলার অধস্তন আদালতে প্রতি কার্যদিবসে বিচারপ্রার্থী জনগণের পক্ষে মামলা দায়েরসহ অন্যান্য দরখাস্ত দাখিলের সময় জুডিসিয়াল ও নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি সংযুক্ত করতে হয়। আদালতে দাখিলকৃত স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি’র মাধ্যমে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব পেয়ে থাকে। জুডিসিয়াল ও নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্প জালিয়াতির কারণে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হতে বঞ্চিত হচ্ছে।

 

নকল স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি শনাক্তকরণের নির্মিত্ত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ, সিকিউরিটি প্রিন্টিং কর্পোরেশন বাংলাদেশ লিমিটেড (এসপিসিবিএল), ডিপার্টমেন্ট অব কারেন্সি ম্যানেজমেন্ট ও পেমেন্ট সিস্টেম ডিপার্টমেন্ট, বাংলাদেশ ব্যাংক এর সমন্বয়ে কিছু স্বল্পমেয়াদী ও কিছু দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল।

 

তারই ধারাবাহিকতায় ও ঈউ টঠ খঊউ ভষধংয ষরমযঃ (টঠ-৩৬৫হস) ডিভাইস ব্যবহার করে নকল স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি সনাক্তকরণের নিমিত্ত বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট অধস্তন আদালতের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা এবং জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি/সম্পাদকগণ-কে প্রশিক্ষণ প্রদান করে এবং অধস্তন আদালতে ও ঈউ টঠ খঊউ ভষধংয ষরমযঃ (টঠ-৩৬৫হস) ডিভাইস বিতরণ করে।

 

চিঠিতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের গোচরীভূত হয়েছে যে, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট এবং দেশের ৬৪টি জেলায় স্ট্যাম্প, কার্টিজ পেপার, কোর্ট ফি ও ফলিও এর সংকট বিরাজ করছে। বিচারপ্রার্থীদের বাধ্য হয়ে কয়েক গুণ বেশি দামে ভেন্ডারদের কাছ থেকে এ সব কিনতে হচ্ছে। ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

 

ভেন্ডারদের অভিযোগ, ট্রেজারিতে স্ট্যাম্প, কার্টিজ পেপার, কোর্ট ফি ও ফলিও এর চরম সংকট থাকায় ট্রেজারি শাখা থেকে চাহিদামতো স্ট্যাম্প, কার্টিজ পেপার, কোর্ট ফি ও ফলিও এর সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে না।

 

চিঠিতে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টসহ অধস্তন সব আদালত ও ট্রাইব্যুনালে স্ট্যাম্প, কার্টিজ পেপার, কোর্ট ফি ও ফলিও এর স্বাভাবিক সরবরাহ নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার করতে গভর্নরকে অনুরোধ করা হয়।