পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েত ভোটে মৃত্যুর রেকর্ড

11
Spread the love

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

সহিংসতা, বোমা, গুলি, রেকর্ড মৃত্যুর মধ্য দিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েত নির্বাচন শেষ হয়েছে। মৃত্যুর পরিসংখ্যানে আগের সব নির্বাচনকেই কার্যত ছাপিয়ে গেছে এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচন।

২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে সহিংসতায় ২৩ জনের মৃত্যু হয়। আর চলতি পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৩০ জনের। এর মধ্যে আজ শনিবার ভোটের দিন ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে যেমন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মী, সমর্থকরা রয়েছে। তেমনি এক পঞ্চায়েত প্রার্থী ও ভোটের লাইনে দাঁড়ানো ভোটারও রয়েছে। আর পঞ্চায়েতে ভোট গ্রহণের আগেই রাজ্যে ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিন সকাল ৭টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়, চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। কিন্তু তার অনেক আগে থেকেই বিভিন্ন জেলায় শুরু হয় সহিংসতা। আসতে থেকে একের পর এক মৃত্যুর খবর। এর পাশাপাশি জাল ভোট, ভোটারকে ভয় দেখানো, নির্দলীয় প্রার্থী ও তার সঙ্গীদের লক্ষ্য করে বন্দুক উঁচিয়ে ধাওয়া করা, ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেওয়া, ব্যালট বাক্সে অগ্নিসংযোগ করাসহ রাস্তা অবরোধের একাধিক অভিযোগ উঠেছে।

 

সবচেয়ে বেশি সহিংসতা ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে রাজ্যটির মুর্শিদাবাদ জেলায়। এই জেলায় সর্বাধিক পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া কোচবিহার ও পূর্ব বর্ধমান জেলায় দুজন করে এবং পূর্ব বর্ধমান, মালদা, নদীয়া, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় একজন করে মৃত্যু হয়।
এছাড়া নদীয়ার শান্তিপুর ব্লকের গয়েশপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ভোলা ডাঙ্গা ৮ ও ৯ নম্বর বুথে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে তৃণমূলের সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় হাসপাতালে ভর্তি প্রায় ২০ জন। ওই জেলারই চাকদা ব্লকের ঘেটুগাছি গ্রাম পঞ্চায়েতের ২৫১, ২৫২, ২৫৩ নম্বর বুথে ব্যালট বাক্সে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের দিকে। হুগলী জেলার আরামবাগের আরাণ্ডি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের সাতমাথা ২৭৩ বুথের নির্দলীয় প্রার্থী জাহানারা বেগমের এজেন্ট কায়মুদ্দিন মল্লিককে গুলি করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পশ্চিম মেদিনীপুরে কোলাঘাট থানার বড়গাছিয়া ননীবালা বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় তালা মেরে ভোট বন্ধ করাসহ একাধিক অভিযোগ সামনে এসেছে।

ভোটের দিন সকালেই মুর্শিদাবাদ জেলার সামসেরগঞ্জের শুলিতলা এলাকায় ১৬ নম্বর বুথে সানাউল শেখ নামে এক তৃণমূল কর্মীকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। তার চিকিৎসা চলছে অনুপনগর ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে।
উত্তর ২৪ পরগণা জেলার মোহনপুর পঞ্চায়েতের ১৪ নম্বরের স্বতন্ত্র প্রার্থী অভিজিৎ দাসকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে ভয় দেখানোর অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

মোহনপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৪ নম্বর বুথে নির্দল প্রার্থী অরিজিৎ দাসের এজেন্টরা বসেছিল। সে সময় কিছু লোক সেখানে এসে পরপর চারটি বোমা ছোড়ে। একই জেলার অশোকনগর সোলেমানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭৩ নম্বর বুথের ভোটকেন্দ্রে বোমাবাজি হয়। ভোটের ব্যালট বাক্স লুট করে নিয়ে যাওয়া হয় গ্রিল ভেঙে। পড়ে তিনটা ব্যালট বাক্সই পানিতে ফেলে দেওয়া হয়। ফলে ভোট পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। আতঙ্কের পরিবেশ ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

সহিংসতার মাত্রা এমন জায়গায় পৌঁছায়, যে এক প্রিসাইডিং অফিসারকে কেঁদে ফেলতে দেখা যায়। ঘটনাটি বীরভূম জেলার ময়ূরেশ্বরের ২ নম্বর ব্লকের ১০ নম্বর বুথের।

রাজ্যজুড়ে সহিংসতার ঘটনার প্রতিবাদে এদিন দুপুরে কলকাতায় রাজ্য নির্বাচন কমিশনে বিক্ষোভ জানায় বিজেপি। কমিশনের অফিসের ভেতরে ঢুকে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা।

অন্যদিকে সহিংসতার ঘটনার প্রতিবাদে ‘কালীঘাট চলো’ (মুখ্যমন্ত্রী বাসভবন) ডাক দিয়েছেন রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা ও বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী। তার হাতে দলীয় পতাকা থাকুক বা না থাকুক, গণতন্ত্র রক্ষার স্বার্থে লড়াই চলবে।

 

এদিকে রাজ্যজুড়ে একের পর এক ভোট সহিংসতার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। শনিবার ভোটের দিন উত্তর ২৪ পরগনা, নদীয়াসহ বিভিন্ন জেলা ঘুরে দেখেন রাজ্যপাল।

ভোট সহিংসতা নিয়ে রাজ্যপাল বলেন, ‘আমি আশা করি গোটা রাজ্যে যেন শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়। কিন্তু বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ অভিযোগ জানিয়েছে প্রিসাইডিং অফিসার সহায়তা করছে না, দুর্বৃত্তরা ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে, চারিদিকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। সাধারণ মানুষের মনে মৃত্যু ভয় ঢুকেছে।’

পঞ্চায়েত নির্বাচন শান্তিতে করার দায়িত্ব যার কাঁধে, সেই রাজ্য নির্বাচন কমিশনার রাজীব সিনহা পুরো দায় নিজের ঘাড় থেকে ঝেড়ে ফেললেন। সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি বলেন, ফিল্ড থেকে আমাদের কাছে এখন পর্যন্ত যা রিপোর্ট এসেছে তাতে ১২০০ থেকে ১৩০০ অভিযোগ এসেছে। এর মধ্যে ৬০০ অভিযোগের সমাধান করতে পেরেছি। তাতে দেখা যাচ্ছে তিন-চারটি জেলা থেকে বেশি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে।

তিনি আরও বলেন, যেসব জেলায় সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটছে, সেখানকার স্থানীয় প্রশাসনের দায়িত্ব এই সন্ত্রাস আটকানোর। আমার দায়িত্ব হলো ব্যবস্থাপনা করা। আমরা সব ধরনের ব্যবস্থাপনা করেছি।