সারা খুলনা অঞ্চলের খবর

14
Spread the love

শোককে শক্তিতে পরিণত করে শত্রুর বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর মাস আগস্ট: সিটি মেয়র

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, আগস্ট মাস জাতীয় শোকের মাস। শোককে শক্তিতে পরিণত করে শত্রুর বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর মাস আগস্ট। তিনি আরো বলেন, মহানমুক্তিযুদ্ধের পরে বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ঘর ঘোছানোর কাজে যখন আত্মনিয়োগ করে ঠিক তখনই আমাদের প্রিয় নেতাকে ৭৫-এর ১৫ আগস্ট স্বপরিবারে হত্যা করে শত্রুপক্ষরা। বাঙালিকে মাথা উঁচু করে দাড়াতে দিবেনা বলেই শত্রুরা তারা সেদিন শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, হত্যা করেছিলো বাঙালির রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্রকেও। বাঙালির হারিয়ে যাওয়া গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করেছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্র আর উন্নয়ন একই সিড়িতে সমান্তরাল ভাবে চলছে। আগামী প্রজন্মের স্বার্থে এই ধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা। সভা পরিচালনা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাবেক দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। এসময়ে অন্যান্যোর মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা মল্লিক আবিদ হোসেন কবীর, এ্যাড. আইয়ূব আলী শেখ, কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, এ্যাড. খন্দকার মজিবর রহমান, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন খান, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু, কাউন্সিলর ফকির মো. সাইফুল ইসলাম, তসলিম আহমেদ আশা, কাউন্সিলর শামছুজ্জামান মিয়া স্বপন, রনজিত কুমার ঘোষ, মো. সফিকুর রহমান পলাশ, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল, শেখ আবিদ উল্লাহ, মো. নুর ইসলাম, শেখ জাহিদ হোসেন, চ. ম. মুজিবর রহমান, জাহিদুল হক, চৌধুরী মিনহাজ উজ জামান সজল, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, ফেরদৌস হোসেন লাবু, এ্যাড. শেখ ফারুক হোসেন, জিয়াউল ইসলাম মন্টু, হাসান ইফতেখার চালু, ইউসুফ আলী খান, জাকির হোসেন হাওলাদার, মো. মোতালেব মিয়া, সরদার আব্দুল হালিম, শেখ মো. রুহুল আমিন, এমরানুল হক বাবু, ওয়াহিদুজ্জামান পলাশ, ফয়েজুল ইসলাম টিটো, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, আলহাজ্ব শেখ এশারুল হক, মো. শিহাব উদ্দিন, মো. নজরুল ইসলাম। করোনা মহামারীর কারনে জাতীয় শোকের মাসে সীমিত আকারে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। ১লা আগস্ট ঈদুল আযহার নামাজে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হবে। ৫ আগস্ট শেখ কামালের এবং ৮ আগস্ট শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে কোরান খতম, দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা, ১১ আগস্ট এস এম এ রবের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে বিকালে দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে সকালে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করণ, কালোপতাকা উত্তোলন, কালোব্যাজ ধারণ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করা হবে। সকল ইউনিট অফিসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার করা হবে। একই সাথে প্রত্যেক ওয়ার্ডের মসজিদে মসজিদে কোরান খতম, দোয়া মাহফিল এবং বিকাল ৫টায় দলীয় কার্যালয়ে স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলা দিবসে বিকালে দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা দিবস উপলক্ষে বিকালে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে॥ ২৪ আগস্ট নারী নেত্রী আইভি রহমানের মৃত্যু দিবসে বিকালে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল, ২৫ আগস্ট মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এ্যাড. মঞ্জুরুল ইমামের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিকালে দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল এবং সকালে ১৬নং ওয়ার্ডের উদ্যোগে মুন্সি বাড়ি মসজিদে দোয়া মাহফিল ও কবর জিয়ারত অনুষ্ঠিত হবে। ৬ সেপ্টেম্বর কামরুল ইসলাম কুটুর মৃত্যু দিবসে বিকালে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। একই সাথে ২৯নং ওয়ার্ড নিজস্ব উদ্যোগে কর্মসূচি গ্রহণ করবে।

শ্রীশ্রীজন্মাষ্টমী উপলক্ষে বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদের বিশেষ সভার সিদ্ধান্ত

খবর বিজ্ঞপ্তি

আগামী ১১ আগস্ট ২০২০ তারিখ মঙ্গলবার অনুষ্টিতব্য পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব তিথি শ্রীশ্রীজন্মাষ্টমী উৎসব পালন উপলক্ষে বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ, খুলনা মহানগর শাখার শ্রীশ্রীসত্যনারায়ণ মিলনায়তনে শুক্রবার বেলা ১২টায় সংগঠনের সভাপতি শ্যামল হালদারের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কু-ুর সঞ্চালনায় এক বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় খুলনায় বর্তমান মহামারী করোনা পরিস্থিতির কারণে স্বাস্থ্যবিধিসম্মতভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে শ্রীশ্রীজন্মাষ্টমী অনুষ্ঠান যথারীতি ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য পরিবেশে মহানগর আওতাধীন সকল মন্দিরে পালনের সিদ্ধান্ত হয়। তবে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে সকল প্রকার সমাবেশ, শোভাযাত্রা/মিছিল থেকে বিরত থাকা এবং শ্রীশ্রীজন্মাষ্টমীর সংশ্লিষ্ট আনুষঙ্গিক আচার-অনুষ্ঠান পালনে মন্দিরাঙ্গণে সীমাবদ্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়। কোনো অবস্থাতেই জনসমাবেশের কারণে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কিত নির্দেশনা যাতে উপেক্ষিত না হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকার ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মহানগর আওতাধীন সকল মন্দির কমিটিকে অনুরোধ করা হয়। অপর এক প্রস্তাবে আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ধর্মীয় রীতি অনুসরণ করে পূজার অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নেয়া যাবে। তবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তীতে নির্দেশনা দেয়া হবে। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেনÑবাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ, খুলনা মহানগর শাখার সাবেক সভাপতি পোপী কিষাণ মুন্ধড়া, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয় সম্পাদক শ্যামল সিংহ রায়, খুলনা মহানগর পূজা উদ্যাপন পরিষদের প্রকৌঃ পরিমল দাস, কোষাধ্যক্ষ রতন কুমার নাথ, খুলনা সদর থানা সভাপতি বিকাশ কুমার সাহা, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব সাহা লব, বিশিষ্ট ধর্মানুরাগী ও সমাজসেবক শরৎ কুমার মুন্ধড়া, বাবলু বিশ্বাস, গৌরাঙ্গ সাহা, এড. অলোকানন্দা দাস, সোনাডাঙ্গা থানা পূজা পরিষদ সভাপতি বিপ্লব মিশ্র, সাধারণ সম্পাদক রামচন্দ্র পোদ্দার, যুব ঐক্য পরিষদ খুলনা মহানগর বিশ্বজিৎ দে মিঠু, লবণচরা থানা পূজা পরিষদ সভাপতি ডাঃ শেখর চন্দ্র পাল, হরিণটানা থানা সভাপতি মনোজ কান্তি রায়, খালিশপুর থানা সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার দত্ত, দৌলতপুর থানা সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ অধিকারী, খানজাহান আলী থানা সভাপতি দুলাল সরকার, আড়ংঘাটা থানা আহ্বায়ক আশিষ কবিরাজ, পূজা পরিষদ খুলনা মহানগর সম্পাদকম-লীর সদস্য উজ্জ্বল ব্যানার্জী, প্রমিলা রায়, ভবেশ সাহা, মানিক শীল, রবীন দাস, রাজ কুমার শীল, বিধান রায়, ভোলানাথ দত্ত, লিটন চক্রবর্ত্তী প্রমুখ।

বসতবাড়ির সীমানা নির্ধারণকে কেন্দ্র করে দাকোপে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫জন গুরুতর আহত

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপে বসত বাড়ির সীমানা নির্ধারণকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫জন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় উপজেলার কৈলাশগঞ্জ ইউনিয়নের ধোপাদী এলাকায়। ভূক্তভোগী সমিরণ ওরফে শুভজিত গাইন জানায়, দীর্ঘদিন যাবৎ তার বাবা কৃষ্ণপদ গাইন, বাবুরাম গাইন, সুভাষ গাইনের সাথে প্রতিবেশি রমাকান্ত গাইন, তারাপদ গাইনের বসত বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। যা খুলনার সহকারী জজ আদালতে দেওয়ানী মামলা বিচারাধীন। তিনি বলেন ঘটনার দিন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশ অমান্য করে আমিনের অনুপস্থিতিতে প্রতিপক্ষ রমাকান্ত গং নিজেদের ইচ্ছামত বসত বাড়ির আগের সীমানা লংঘন করে সীমানা পিলার দেয়। পরবর্তীতে গ্রাম পুলিশের উপস্থিতিতে তারা ওই পিলার তুলতে গেলে রমাকান্ত গং দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বহিরাগত লোকজন নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় তিনিসহ সমারেশ গাইন, বিলাশ গাইন, মনিকা গাইন ও মালতি গাইন গুরুতর আহত হয়। পরে তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এঘটনায় তিনি বাদি হয়ে প্রতিপক্ষের প্রশান্ত গাইন, স্বপন বৈদ্য, তাপস গাইন, মিহির গাইন, তারাপদ গাইন, রমাকান্ত গাইনসহ ১০/১২জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানান। এছাড়া রাতে আবার বাড়ির মহিলাদের উপর তারা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করেছেন বলেও জানান। প্রশান্ত গাইন জানান কয়েকদিন আগে বাড়ির সীমানা পরিমাপ করে চিহ্ন দিয়ে রাখা হয়। ঘটনার দিন তারা সেখানে পিলার পুতে রাখে। পরে বাবুরাম গংরা পিলার তুলে দিতে গেলে তারা বাধা দিলে তাদের মারপিট করে আহত করে। এঘটনায় তার কাকা তারাপদসহ ৩জন আহত হয়েছে বলে তিনি জানান।

এব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিহির কুমার মন্ডল বলেন নিষেধ করার পরও রমাকান্তরা পিলার পুতে একটা ঝগড়া করে মারামারি করেছে। রেকর্ডে সবার সমান অংশ থাকলে কোন পক্ষের বেশি পাওয়ার সুযোগ নেই। কিন্তু বেশি বুঝলে যা হয় তাই হয়েছে। এখন উভয় পক্ষকে নিয়ে তিনি বসে একটা মিমাংসা করবেন বলে জানান।

বটিয়াঘাটায় সুরখালী ইউনিয়ন যুবলীগের বৃক্ষরোপন কর্মসূচী উদ্বোধন

খবর বিজ্ঞপ্তি

মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত দেশব্যাপী বৃক্ষরোপন কর্মসূচী বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে আজ বটিয়াঘাটার সুরখালী ইউনিয়ন যুবলীগের আয়োজনে উত্তর কল্যানশ্রী সরঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে  প্রাঙ্গনে বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মুসফিকুর রহমান সাগর। ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) বিপ্লব শেখ এর সভাপতিত্বে বৃক্ষরোপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বটিয়াঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি আকরাম হোসেন শেখ, ইউনিয়ন আঃলীগ সাধারন সম্পাদক রবীন্দ্রনাথ সরকার, আওয়ামী লীগ নেতা নূরুল ইসলাম গোলদার, হাসান আলী গাজী যুবলীগ নেতা জিয়াউর রহমান জিয়া, মিন্টু শেখ, শফিকুল ইসলাম,  আনোয়ার হোসেন, সরোয়ার হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা হামীম সরদার, সৈকত শেখ, রাজন শেখ, নুর ইসলাম গোলদার,  মশিউর মোল্লা, আবু জহর শেখ, সাফায়েত হোসেন, রনি শেখ, হৃদয় মোল্লা, সুজন শেখ, আলমগির হুসাইন, জাহাদুল শেখ, আবু বক্কার প্রমুখ।

দায়িত্বরত এলাকায় নৌবাহিনীর ত্রাণ সহায়তা ও টহল অব্যাহত

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা, ২৪ জুলাই ২০২০ শুক্রবার  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক মাস্ক ব্যবহার সংক্রান্ত পরিপত্র আদেশ বাস্তবায়ন করতে বরগুনা ও মংলায় নিয়মিত টহল পরিচালনা করছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। নৌবাহিনী কন্টিনজেন্ট মোংলা উপজেলার বাঁশতলা, খানজাহানহাট, দিগরাজ বাজার, বুড়িরডাঙ্গা, আপাবাড়ি, চালনা পোর্ট ফাজিল মাদ্রাসা ও ফেরিঘাট এলাকায় নিয়মিত সচেতনতামূলক টহল প্রদান করে। উপজেলাসমূহের বিভিন্ন স্থানে কোভিড-১৯ প্রতিরোধমূলক লিফলেট বিতরণ করে। এছাড়া মোংলা উপজেলার চালনা পোর্ট ফাজিল মাদ্রাসা এবং মংলা পোর্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১১০০ অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণে স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা প্রদান করে। সাধারণ জনগণকে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চতকরণ, গণপরিবহন ব্যবহারের ক্ষেত্রে মাস্ক ব্যবহার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়ে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে মোতায়েনকৃত নৌ কন্টিনজেন্ট বরগুনা সচেতনতামূলক টহল পরিচালনা করে। উপজেলাসমূহের বিভিন্ন এলাকায় কোভিড-১৯ প্রতিরোধ সর্ম্পকিত ১৫০টি লিফলেট বিতরণ করে। নৌ কন্টিনজেন্ট দু’টি জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কার্যক্রমে সহায়তা প্রদানসহ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সর্ম্পকিত বিভিন্ন ব্যানার স্থাপন, অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ এবং জনসচেতনতামূলক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

বৃষ্টি পানি সংরক্ষনের জন্য শরনখোলায় ট্যাংকি বিতরন করেছে জেজেএস

শরণখোলা প্রতিনিধিঃ

জলবায়ু পরিবর্তন ও অভিযোজন কৌশল হিসাবে বৈচিত্রময় জীবন জীবিকার অংশ হিসেবে শরণখোলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষনের ট্যাংকি বিতরণ করেছে উন্নয়ন সংস্থা জে.জে.এস। ২৩ জ্লুাই বৃহস্পতিবার দুপুরে তাফালবাড়ী জে.জে.এস কার্যালয় চত্বরে। তুলনামুলক সুবিধা বঞ্চিত ৪৯ টি পরিবারের মধ্যে ট্যাংকি বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রায়েন্দা উপজেলা আওয়ামী-যুবলীগের আহবায়ক ও রায়েন্দা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব, আসাদুজ্জামান মিলন। অন্যান্যের মধ্যে শরণখোলা জনস্বাস্থ্য উপ-সহকারী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান, জে.জে.এস কর্মকর্তা সত্তরঞ্জন বিশ্বাস, ফিল্ড অফিসার তানিয়া মাহবুবা ও বিশ্বজিৎ বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন। কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইট এর অর্থায়নে কোষ্টাল কমিউনিটি রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ৪ ইউনিয়নের তুলনামুলক সুবিধা বঞ্চিত নারীদের ট্যাংক সহ পানি সংরক্ষনের অন্যান্য সরঞ্জাম ও উঠানে চাষের জন্য সবজি বীজ বিতরণ করা হয় বলে— জে.জে.এস কর্মকর্তারা জানান। এর আগে তারা আরও ২৫০ টি ট্যাংকি বিতরণ করেন। প্রকল্পের উপকারভোগী উত্তর তাফালবাড়ী গ্রামের নিলিমা রানী জানান, প্রায় ২ কিলোমিটার দুর থেকে তার খাবার পানি সংগ্রহ করতে হয়। এই ট্যাংকি পেয়ে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে নিজ বাড়ীতেই তারা বিশুদ্ধ পানির অভাব দূর করতে পারবেন এবং সারা বছরের আমাদের ফ্যামিলিতে যে পরিমান পানি প্রোয়জন হবে তা মেটানো সম্বভ হবে।

চিতলমারী উপজেলা প্রেসকাবের বার্ষিক কমিটি গঠন

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলা প্রেসকাবের বার্ষিক সাধারণ সভা ও বার্ষিক কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পরিষদ সেমিনার হলে আনুষ্ঠানিক ভাবে নব-নির্বাচিত কমিটির নাম ঘোষণা করেন চিতলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল। ১৪ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটিতে সভাপতি নির্বাচিত হন জয়যাত্রা টেলিভিশনের চিতলমারী প্রতিনিধি প্রদীপ ম-ল ও সাধারণ সম্পাদক দৈনিক পূর্বাঞ্চল প্রতিনিধি তাওহিদুর রহমান বাবু। কমিটির অন্যান্য সদস্য হলেন সহ-সভাপতি এস এস সাগর, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখর ভক্ত, সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ বিশ্বাস দেব, কোষাধ্যক্ষ মোঃ কামরুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য পংকজ মন্ডল, শফিকুল ইসলাম সাফা, শহিদুল ইসলাম সোয়েল, সাধারণ সদস্য কপিল ঘোষ, পংকজ কুমার রায়, সোহেল সুলতান মানু, হাফিজুর রহমান ও টিটব বিশ্বাস।

এ সময় চিতলমারী উপজেলা প্রেসকাবের সদ্য বিদায়ী সভাপতি পংকজ মন্ডলের সভাপতিত্বে বার্ষিক সাধারণ সভা ও কমিটি গঠন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, চিতলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল, সম্মানিত অতিথি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) জান্নাতুল আফরোজ স্বর্ণা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মামুন হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ বাবুল হোসেন খান, সাধারণ সম্পাদক পীযূষ কান্তি রায়, থানা অফিসার ইনচার্জ মীর শরিফুল হক, ওসি (তদন্ত) মোঃ ইকরাম হোসেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান স্বপ্না কামাল, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ নিজাম উদ্দীন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ ঘোষ, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ কেরামত আলী, অবনী মোহন বসু, প্রচার সম্পাদক এস এম এ সোয়েল, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক শেখ নজরুল ইসলাম, দৈনিক নবধারা পত্রিকার সম্পাদক মেহেদী হাসান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম রিয়াদ প্রমুখ।

বাগেরহাটে গ্রামরক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে চিংড়ি ঘের ও লোকালয় প্লাবিত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে গ্রাম রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে কেশবপুর গ্রামের শতাধিক চিংড়ি ঘের, ঘরবাড়িসহ লোকালয় প্লাবিত হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে ভৈরব নদীর জোয়ারের পানির চাপে সদর উপজেলার কেশবপুর গ্রামের মুনিগঞ্জ সেতু সংলগ্ন এলাকার পাকা সড়কটি ভেঙ্গে যায়। এতে স্থানীয়দের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।বসত ঘর ও রান্না ঘরে পানি উঠে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে কেশবপুরের শতাধিক পরিবার। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ ও সবজি ক্ষেত। চুলোয় পানি ওঠায় অনেক পরিবার রান্নাও করতে পারেননি। স্থানীয় জুয়েল হাওলাদার, ফিরোজ হাওলাদার, নোমান হাওলাদারসহ স্থানীয়রা বলেন, ‘ব্রিজের নিচ থেকে কিছু দূরে এসে গ্রামরক্ষা বাঁধের একটি অংশে নালা তৈরি হয়। জোয়ারের পানির চাপে ওই জায়গা থেকে পাকা বাঁধ (রাস্তা) ভেঙ্গে যায়। ভেঙ্গে পানি ঢুকে আমাদের পুরো এলাকা প্লাবিত হয়ে যায়। আমাদের অনেকের মৎস্য ঘের, সবজি ক্ষেত ও ঘরবাড়ি ডুবে গেছে। ঘেরের মাছ ও সবজি ভেসে গেছে। করোনা পরিস্থিতিতে এই ক্ষতি কিভাবে পূরণ হবে জানিনা।’ হাসিনা বেগম, নাজমুন নাহার, নাছু বেগম বলেন, ‘হঠাৎ করে পানি এসে বসত ঘর ও রান্নাঘর ডুবে গেছে। চুলোর মধ্যে পানি উঠে গেছে, রান্না করতে পারিনি। পানি না নামলে কিভাবে কি করব জানিনা।’ বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ নাহিদুজ্জামান খান বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডের নাজিরপুর উপ-প্রকল্প নামে কেশবপুর এলাকায় একটি বেড়িবাঁধ ছিল। ১০-১২ বছর আগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এখানে পাকা সড়ক করে। গ্রামে জোয়ারের পানি প্রবেশের জন্য কালভার্ট করা হয়। বাঁধের পাশে স্থানীয়দের চিংড়ি ঘেরে পানি চলাচল সচল রাখার জন্য বাঁধের নিচ থেকে ছোট ছোট পাইপ দিয়েছেন। এই পাইপ ও কালভার্টের ফলে বাঁধটি দূর্বল হয়েছে এবং ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। আমরা যতদ্রুত সম্ভব এখানে বাঁধ সংস্কারের মাধ্যমে লোকালয়ে পানি প্রবেশ বন্ধ করব।’

সুন্দরবনের আত্মসমর্পণকৃত ২৮৪ জলদস্যুকে ঈদ সামগ্রী প্রদান

বাগেরহাট প্রতিনিধি

মোংলায় সুন্দরবনের দস্যুতা ছেড়ে ভালপথে আসা আত্মসমর্পণকারী ২৮৪ জন জল ও বন দস্যুদের হাতে নগদ অর্থ ও ঈদ সামগ্রী তুলে দিলেন র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক আতিকা ইসলাম। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় মোংলা ফুয়েল ঘাটে এক সময়ের সুন্দরবনের ত্রাস এসকল বন দস্যুদের বিভিন্ন বাহিনী থেকে আত্মসমার্পনকারী দস্যুদের হাতে এ ঈদ সামগ্রী তুলে দেন বরিশাল র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা। দেশের ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের রয়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার, চিত্রা হরিণ, হরেক রকমের বণ্যপ্রাণী ও নদী-খালে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। কিন্ত এক সময় পুরো সুন্দরবন জুড়ে রাজত্ব কায়েম করতো বড় বড় কয়েকটি বন ও জলদস্যু গ্রুপ। এ দস্যুরা বনের মধ্যে জেলেরা পাশ-পারমিট নিয়ে মাছ আহরণে গেলেই তাদের অপহরণ করে মোটা অংকের টাকা মুক্তিপণ আদায় করতো এসকল দস্যুরা। শুধু মুক্তিপণ নয়, জেলে বহরে হামলা ও লুটপাট চালিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ ও মুল্যবান মালামাল লুট করে নিতো তারা। জেলেরা মুক্তিপণের ধার্যকৃত টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাদের উপর নেমে আসতো অমানুষিক নির্যাতন। এরপরই বেগবান হয় সুন্দরবনে র‌্যাবসহ আইনশৃংখলা রক্ষা বাহিনীর অভিযান। প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে র‌্যাব ২২৩টি অভিযানে ৫০৭ জলদস্যু গ্রেফতার, ১৫৫৬টি আগ্নেয়াস্ত্র ও বিপুল পরিমান গোলাবরুদ উদ্ধার করে। এসময়কালীন র‌্যাব বন ও জলদস্যুর সাথে বন্দুক যুদ্ধে ১৩৫জন দস্যু নিহত হয়েছে। যার ফলে এদের বিরুদ্ধে মোংলা, রামপাল, শরনখোলা, মোড়েলগঞ্জ, দাকোপসহ বিভিন্ন থানায় রয়েছে অসংখ্য মামলা। তাই সরকার সাধারণ ক্ষমার আওতায় এনে দস্যুদের দস্যুতা ছেড়ে ভাল পথে ফিরে আসার ঘোষণা দেয়ায়, র‌্যাবের দেয়া তথ্যানুযায়ী সুন্দরবন উপকুলীয় অঞ্চলে ২০১৬ সালের ৩১ মে মাষ্টর বাহিনীর আত্মসমর্পণ মাধ্যমে শুরু হওয়ার পর একে একে ২৭টি বাহিনীর সদস্যরা আত্মসমর্পন করতে শুরু করে। গত ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর দস্যুমুক্ত সুন্দরবন ঘোষণা করেন সরকার।

র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক আতিকা ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন যাবত প্রায় ২৭টি দস্যু বাহিনীর সদস্যরা সুন্দরবনের দস্যুতা করে আসছিল। সরকারের নিদের্শনায় এ বাহিনীর লোকজন দস্যুতা ছেড়ে ভাল পথে ফিরে আসে প্রায় ৪শ’র অধিক জল ও বন দস্যু সদস্যরা। তাই ফিরে আসা এসকল মানুষদের সমাজে ভালভাবে বসবাস ও চলাচলের জন্য র‌্যাব এর পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় সহায়তা করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৮ এর আওতাধীন ৩টি জেলায় বাগেরহাটের মোংলায় ১৭৮ জনসহ খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলা থেকে সুন্দরবনের আত্মসমর্পণকৃত মোট ২৮৪ জন জলদস্যু পরিবারকে নগদ অর্থ ও ঈদ সামগ্রী এবং করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী উপকরণ বিতরণ করে তারা। আত্মসমর্পণ বনদস্যু ও স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনামূলক উপকরণ বিতরণ করা হয়। দস্যুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন র‌্যাব-৮ এর অপারেশন কর্মকর্তা এএসপি মুকুর চাকমাসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও র‌্যাব সদস্যরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

রামপালের বিভিন্ন ইউনিয়নে কেসিসি মেয়রের ত্রাণ বিতরণ

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

রামপালে করোনা দূর্গত ও অসহায়-দরিদ্র পরিবারের মাঝে পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে ত্রানসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার সকাল ৯ টা থেকে রামপালের বিভিন্ন ইউনিয়নের দুঃস্থ মানুষদের মধ্যে ভিজিএফ এর চাউল, বীজ ধান এবং গবাদিপশুর ঔষধ বিতরণ করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশন মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

কেসিসি মেয়র তার বক্তব্যে বলেন, করোনা ভাইরাস ( কোভিড – ১৯)  মোকাবেলায় সবাইকে সচেতন হয়ে একযোগে কাজ করতে হবে। মাস্ক ছাড়া বাড়ির বাইরে কেউ বের হবেন না, বের হলে তাদের কে কঠিন শাস্তির আওতায় আনা হবে। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রামপাল উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাধন কুমার বিশ্বাস, উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, গৌরম্ভা ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন গাজী, বাইনতলা ইউপি চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল্লাহ,রাজনগর ইউপি চেয়ারম্যান সরদার আঃ হান্নান ডাবলু, উজলকুড় ইউপি চেয়ারম্যান গাজী আকতারুজ্জামান সহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধী এবং রাজনৈতিক নেতাকর্মীবৃন্দ।

করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে সাতক্ষীরায় তিন জনের মৃত্যু

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

করোনা আক্রান্ত হয়ে এক মুক্তিযোদ্ধা ও উপসর্গ  নিয়ে সাতক্ষীরায় দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশনে করোনা আক্রান্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দীন শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মারা যান। আর করোনার উপসর্গ নিয়ে মরিয়ম খাতুন নামের এক নারী বৃহস্পতিবার রাতে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে এবং লায়লা বেগম নামের অপর এক বৃদ্ধা নারী রাতে তার নিজ বাড়ি কালিগঞ্জ উপজেলার নলতায় মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, সদর উপজেলা নেবাখালী জগন্নাথপুর গ্রামের মৃত অজিহার রহমানের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দীন (৭০), দেবহাটা উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের আব্দুল গফফারের স্ত্রী মরিয়ম খাতুন (৫৫) ও কালিগঞ্জ উপজেলার নলতায় গ্রামের নুরুল হকের স্ত্রী লায়লা বেগম (৬৫)। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ রফিকুল ইসলাম জানান, গত ১৫ জুলাই জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হন করোনা আক্রান্ত আলফাজ উদ্দীন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে তিনি মারা যান। এদিকে, করোনার উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ভর্তির পরপরই মারা যান মরিয়ম খাতুন। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। অপরদিকে, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা গ্রামের লায়লা বেগম রাতে তার নিজ বাড়িতে মারা যান। এর আগে গত বুধবার তার নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। তার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট এখনও পাওয়া যায়নি। ডাঃ রফিকুল ইসলাম আরো জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের লাশ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। এনিয়ে, সাতক্ষীরায় করেনার উপসর্গ নিয়ে আজ পর্যন্ত মারা গেছেন অন্তত ৪৩ জন। আর করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরো ১৯ জন।

ফকিরহাটে নতুন করে ১৩ জনের শরীরে করোনা সনাক্ত

ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটে করোনায় আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। ২৩ জুলাই বৃহস্পতিবার রাত ১২ টার দিকে উপজেলার মাসকাটা গ্রামে আঃ আজিজ (৬০) নামের ওই ব্যক্তির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে উপজেলা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরন করে কোভিড পজিটিভ হওয়া কালিপদ(৭০) ও মাসকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আঃ আজিজ সহ উপজেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা দাড়ালো এখন ০৭ জনে।

এদিকে ফকিরহাটে গত চব্বিশ ঘন্টায় নতুন করে করোনায় সনাক্ত হয়েছে আরো ১৩ জন। এ নিয়ে উপজেলায় মোট কোভিড সনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাড়ালো ১৩৮ জনে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা: অসিম কুমার সমাদ্দার। করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্তে বাগেরহাট জেলায় এখন পর্যন্ত ফকিরহাট উপজেলা শীর্ষে অবস্থান করছে।

দশ দিনের মধ্যে জড়িত সকল আসামী গ্রেফতার: জামাল হত্যাকান্ডে জড়িত ট্রাকের হেলপার মোহন খা চাঁদপুর ফেরীঘাট থেকে আটক

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা)প্রতিনিধি

মহেশ^রপাশা খাদ্য গুদামের সর্দার খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য জামাল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ট্রাকের হেলপার মোহন খা’কে চাঁদপুর ফেরিঘাট এলাকা থেকে আটক করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সকল আসামীকে পুলিশ দশ দিনের মধ্যে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। পুলিশ বলছে হত্যার রহস্য উৎঘাটন এবং জড়িত সকলকে সনাক্ত করে গ্রেফতার করা হয়েছে এখন দ্রুত সময়ে মামলার চার্জশীট দেওয়া হবে। পুলিশ জানায়, একটি লাইটারকে কেন্দ্র করে জামালকে হত্যা করা হয়। হত্যার ঘটনায় আসামীদের স্বীকারোক্তিতে হত্যাকান্ডের মূল রহস্য এবং হত্যার সাথে পাঁচজনের সম্পৃক্ততা পাওয়াগেছে। গ্রেফতারকৃতদের স্বীকারোক্তিতে ওঠে আসামী পশ্চিম সেনপাড়ার রশিদ খা’র পুত্র মোহন খা’কে ২৪ জুলাই শুক্রবার চাঁদপুর ফেরিঘাট এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে মামলার মুল আসামী আমির হোসেনকে অভয়নগর থানা এলাকা থেকে আটক করা হয়।  ১৬৪ ধারা জবানবন্দি রেকর্ড করে তাকে জেল হাজতে পাঠান হয়। এই মামলার আসামী  বিপ্লব ও হিরো এবং  মাছুম ওরফে কালা মাছুম জেল হাজতে রয়েছে।

দৌলতপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোশারফ হোসেন বলেন, জামাল হত্যার সাথে জড়িত মোহন খা’কে সোর্সের মাধ্যমে চাদপুর ফেরীঘাট থেকে আটক করা হয়েছে। মোহনকে আটকের মধ্যে দিয়ে হত্যার সাথে জড়িত আমিন হোসেন, বিপ্লব, হিরো, মাছুমসহ সকল আসামীকে অল্প সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। তিনি বলেন গ্রেফতারকৃতদের স্বীকারোক্তিতে হত্যার কারণ এবং যে পাঁচজনের জড়িত থাকার কথা উঠে এসেছে তাদের সকলকে বিভিন্ন জেলা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখন মামলার চার্জশীট দ্রুততম সময়ের মধ্যে দিতে পারব বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য মহেশ^রপাশা খাদ্য গুদামের সর্দার খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য মো. জামাল সরদারকে গত ১৪ জুলাই রাতে নিমর্মভাবে কুপিয়ে ও পিটিয়ে রেল লাইনের ওপর ফেলে রেখে যায়। পরবর্তিতে সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে মারা যায়। এই ঘটনায় নিহতের মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে মো. আমির হোসেন, বিপ্লব, হিরোসহ ২/৩ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে দৌলতপুর থানায় মামলা দায়ের করেছে। (মামলা নং -১২, তাং১৫/৭/২০)।

মণিরামপুরে ব্যস্ততা নেই কামার পাড়ায়

আনোয়ার হোসেন, মণিরামপুর

ঈদের আর মাত্র ছয় দিন বাকি। কোরবানির জন্য সাধ্যমত পশু কিনছেন কেউ কেউ। কিন্তু পশু জবাই ও মাংস প্রস্তত করতে ব্যবহৃত চাপাটি এবং ছুরি কিনতে বা ধার করাতে কামারের দোকানে ভিড়তে দেখা যাচ্ছে না লোকজনকে। ফলে কর্মহীন অলস সময় যাচ্ছে যশোরের মণিরামপুরে কামারদের। শুক্রবার (২৪ জুলাই) উপজেলার গাঙ্গুলিয়া, বাসুদেবপুর, টেংরামারী, হানুয়ার ও রাজগঞ্জ বাজারসহ বিভিন্ন কামারপাড়া ঘুরে এমন চিত্র চোখে পড়েছে। করোনায় কর্মহীন হওয়ায় এবং ঘূর্ণিঝড় আম্পানের ক্ষতির কারণে এবছর মানুষের হাতে টাকা পয়সা নেই। গত বছর যারা কোরবানি করেছেন তাদের অনেকে এবার কোরবানি করতে পারছেন না। ফলে কামারের কাছে ভিড়ছেন না ক্রেতারা। গাঙ্গুলিয়া গ্রামের গৌর কর্মকার বলেন, এইবারের মত এত খারাপ অবস্থা আগে কখনো হয়নি। এবার কাজ মোটেও নেই। সকাল থেকে একটাকাও আয় হয়নি। ওই পাড়ার মধু কর্মকার বলেন, গতবছর ঈদে কাজ করে ৭-৮ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। এবার দুই হাজার টাকা লাভ হবে কিনা বলতে পারছিনে। আর রবিন কর্মকারের দাবি,এই বছর সবই লোকসান। রাজগঞ্জ বাজারের জয়দেব কর্মকার বলেন, অন্য বছর রাতদিন কাজ করে শেষ নামাতে পারতাম না। এবার কাজ নেই। সকাল থেকে বসে আছি। রাজগঞ্জ বাজারে ১৫-১৬ টা কর্মকারের দোকান আছে; সবার একই অবস্থা। ওই বাজারের পাইকারী বিক্রেতা দুলাল কর্মকার বলেন, সকাল থেকে কোন বিক্রি নেই। দোকানে বসে ঝিমাচ্ছি।

তবে গ্রাম এলাকার বাজার বা মোড়ের দুই একজন কর্মকারকে ব্যস্তসময় পার করতে দেখা গেছে। গাঙ্গুলিয়া আমতলা মোড়ের কানাই কর্মকার বলেন, আমার কাজ ভাল চলছে। অন্য বছরের তুলনায় এবার কাজ বেশি হচ্ছে। গত ২০ দিন ধরে কাজের চাপ বেড়েছে। কেউ নতুন ছুরি বা চাপাটি গড়াচ্ছেন আবার কেউ কেউ পুরনোটা ধার করাতে আসছেন। আয় বাড়াতে সরকারি ঋণের দাবি কানাই কর্মকারের।

কানাই কর্মকারের খদ্দের উপজেলার নওয়াপাড়া গ্রামের রজব আলী বলেন, এবার ছাগল কোরবানি করবো। তাই চাপাটি আর ছুরিতে ধার কাটাতে এসেছি।

মোংলা বন্দরের হিরণ পয়েন্ট এলাকায় বিদেশী জাহাজের স্টোর রুম ভেঙ্গে দূর্ধর্ষ চুরি

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

মোংলা বন্দরের প্রবেশমুখে হিরণ পয়েন্ট এলাকায় একটি গ্যাসবাহী বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজের ষ্টোর রুম ভেঙ্গে শুক্রবার ভোরে দূর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার পর বিদেশী ওই জাহাজের চীফ অফিসার বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে জাহাজটির স্থানীয় শিপিং এজেন্ট ‘সি এশিয়া’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আকরাম হোসেনকে জানিয়েছেন। এরপর তিনি (আকরাম হোসেন) চুরির ঘটনাটি বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টারকে অবহিত করেছেন।

এমভি সিনা-০৫ নামক জাহাজটি বন্দরে গ্যাস ডেলিভারী দেওয়ার জন্য হিরণ পয়েন্টে অপেক্ষা করছিল। শুক্রবার ভোরে একটি সংঘবদ্ধ চোরাকারবারী দল ওই জাহাজে উঠে ষ্টোর ভেঙ্গে ৫টি মুরিংরোপসহ অন্যান্য মূল্যবান মালামাল নিয়ে যায়। পণ্য খালাসের জন্য শুক্রবার বিকেলে মোংলা বন্দরের একটি এলপিজি কারখানায় জাহাজটি ভিড়ার কথা ছিল। বন্দরের এই প্রবেশ মুখে প্রায়ই এ রকম চুরির ঘটনা ঘটে আসছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।। এর আগে গত ৭ জুন তেলবাহী জাহাজ এম,টি ট্রেসা থেকে ৭টি মুরিংরোপ একই ভাবে চুরি করে নেয় সংঘবদ্ধ চোরাকারবারী চক্রের সদস্যরা। ওই ঘটনায় জাহাজের স্থানীয় শিপিং এজেন্ট ষ্ট্রারপাত গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন মোঃ রফিকুল ইসলাম ৮ জুন বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও হারবার মাষ্টারকে চিঠি দিয়ে ঘটনাটি অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান । তবে সে ব্যাপারে কোন প্রকার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কিনা তা জানাতে পারেননি ক্যাপ্টেন রফিক। এম,ভি সিনা-০৫ জাহাজের চুরির ঘটনায়ও  বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে  চিঠি দিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হবে বলে জানান সংশ্লিষ্ট এজেন্টের এমডি মোঃ আকরাম হোসেন।

তবে অভিযোগ রয়েছে, মোংলা বন্দরে আগত বিদেশী জাহাজের পণ্য ঠিক একই কায়দায় চুরি/ডাকাতি করার জন্য একটি শক্তিশালী চক্রের নিয়ন্ত্রণে পৌর শহরের রিজেকশন গলি ও শহরতলীর কাইনমারী-বাইদ্দাপাড়া এবং গোগ এলাকায় অন্তত ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ রয়েছে। ওই গ্রুপকে শেল্টার দেওয়ার জন্য একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ স্থানীয় বন্দর ব্যবহারকারীদের। এ ব্যাপারে মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, চুরির ঘটনাস্থল মোংলা থেকে ১৩০/১৪০ নটিক্যাল মাইল দূরে। এছাড়া ঘটনাস্থলও খুলনা জেলার দাকোপ থানার অধীনে।  

এ বিষয়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টার কমান্ডার এম ফখরউদ্দিন বলেন, জাহাজটির ক্যাপ্টেনের সাথে কথা বলে মুরিংরোপ চুরির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়ে তারপর দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঝিনাইদহে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে  ৩ জনের মৃত্যু

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালিচরণপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো: হাফিজুর রহমান করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। ঝিনাইদহ কোভিভ-১৯ হাসপাতাল (শিশু হাসপাতাল) ৮দিন ভর্তি ছিলেন। এরপর শারীরিক আবস্থার অবনতি হলে ১৭ জুলাই সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসারত অবস্থায় শুক্রবার ভোর রাতে তিনি মারা যান।

এদিকে পৌর এলাকার আরাপপুর খাঁ পাড়ার মো: সিতাব উদ্দীন খান নামের এক বৃদ্ধ করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৭ জুলাই ঝিনাইদহ কোভিভ-১৯ হাসপাতাল (শিশু হাসপাতাল) ভর্তি হয় । সেখানে চিকিৎসারত আবস্থায় শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান। এছাড়াও পৌর এলাকার আরাপপুর সি টি কলেজপাড়ার এ.কে.এম রশিদুর রহমান এর স্ত্রী সাহিদা রহমান করোনা উপসর্গে গতকাল ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে মারা যান। ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আব্দুল হামিদ খান জানান, করোনা উপসর্গ এবং আক্রান্ত হয়ে মৃতবরণকারী মোট ৩২ জনের জানাজা শেষে লাশ দাফন করেছে ইফা গঠিত কমিটি।

করোনা সংকটকালেও শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত রাখতে খুবি কর্তৃপক্ষের যুগান্তকারী পদক্ষেপ

খবর বিজ্ঞপ্তি

বর্তমান করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন একাডেমিক কার্যক্রম চালু রাখতে কর্তৃপক্ষের নানামুখী উদ্যোগের সাথে শিক্ষার্থীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতে বেশ কয়েকটি বিষয় যুক্ত হচ্ছে। অনলাইনে যাতে সকল শিক্ষার্থী কাসে যুক্ত হতে পারে সেজন্য অস্বচ্ছল শিক্ষার্থী যাদের প্রয়োজনীয় ডিভাইস এবং ইন্টারনেট প্যাকেজ (এনড্রয়েড মোবাইল সেটসহ) ক্রয়ে যথেষ্ট সামর্থ নেই তাদেরকে তা ক্রয়ে বিনাসুদে শিক্ষাঋণ দেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯টি ডিসিপ্লিনের (বিভাগ) প্রত্যেকটির ১৪জন করে মোট ৪০৬জন শিক্ষার্থী পাঁচ হাজার টাকা করে পাবেন। এটা সম্পূর্ণ বিনা সুদে তাদের শিক্ষা মেয়াদে শিক্ষাঋণ দেওয়া হবে। শিক্ষা মেয়াদের মধ্যে তারা তা পরিশোধ করার সুযোগ পাবে। গতকাল বিকেল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক প্রধানদের সাথে এক ভিডিও কনফারেন্স শেষে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর  রাত  সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের সাথে এক ভিডিও কনফারেন্সে এ পদক্ষেপের কথা জানান উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। শিক্ষার্থীদের এ সুবিধা প্রদানের বাইরে স্ব স্ব ডিসিপ্লিন থেকে শিক্ষকবৃন্দ এবং এলামনাইদের সহযোগিতায় অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। শিক্ষার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে তিনি বর্তমান করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা যাতে ঘরে বসেই চিকিৎসা সুবিধা পেতে পারে সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার থেকে ২৪ঘণ্টা টেলিমেডিসিন সুবিধা আজ ২৪ জুলাই থেকে কার্যকর হবে বলেও তিনি জানান।

ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত শিক্ষক যারা অনলাইনে কাস গ্রহণ করবেন তাদের সুবিধার জন্য যাদের ল্যাপটপ নেই এমন শিক্ষকদেরকে বিনা সুদে তা ক্রয়ে ঋণ প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এবং ইতোমধ্যে এ প্রক্রিয়ায় ঋণ বিতরণ শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থীদের ওই শিক্ষাঋণ ডিসিপ্লিন থেকে তালিকা পাওয়ার পর ঈদের পরপরই চালু করা যাবে বলে উপাচার্য আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এছাড়া অনলাইনে থিসিস জমাদান, ডিফেন্স গ্রহণ এবং তা মূল্যায়ণে বোর্ড অব অ্যাডভান্সড স্টাডিজ এবং একাডেমিক কাউন্সিলের যুগান্তকারী সুপারিশ সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ২০৬তম সভায় অনুমোদনের কথাও জানান উপাচার্য। একই সিন্ডিকেটে কোভিড-১৯ পরীক্ষাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ে সংশ্লিষ্ট বহুমুখী গবেষণা সুবিধার লক্ষ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সতন্ত্র অত্যাধুনিক আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপনের প্রস্তাবও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। এসব যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাংবাদিকরা উপাচার্য এবং সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিলসহ শিক্ষকদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান।  উল্লেখ্য, করোনা মহামারী পরিস্থিতির মধ্যে গত তিন মাসে একাডেমিক প্রধানদের সাথে কয়েক দফা ভিডিও কনফরেন্সে মিলিত হন উপাচার্য। এসব সভায় অনলাইনে শিক্ষাকার্যক্রম সচল রাখতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়। একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করে  তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের সুবিধা-অসুবিধার বিষয় ধারণা পেতে জরিপও চালানো হয়। এতে দেখা যায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শতাংশের কিছু শিক্ষার্থীর এনড্রয়েড ফোন সেট নেই এবং ছয় শতাংশের কিছু বেশি শিক্ষার্থীর বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সুবিধা নেই, অনেকের থাকলেও তা দুর্বল ও নিরবচ্ছিন্ন নয়। শিক্ষার্থীদের নিরবচ্ছিন্ন ও কম মূল্যে ইন্টারনেট সুবিধা প্রদানে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ অব্যাহত রয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও নানাভাবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে বলেও উপাচার্য জানান। ।

রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি ও ঈদের বোনাস প্রদানের দাবী বাম গণতান্ত্রিক জোটের

খবর বিজ্ঞপ্তি

উৎপাদন বন্ধ ঘোষিত রাষ্ট্রায়ত্ব ২৫টি পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি ও বোনাস ঈদের অন্তত ৫ দিন পূর্বে প্রদান করার দাবী জানিয়েছেন বাম গণতান্ত্রিক জোট খুলনা শাখার নেতৃবৃন্দ। শুক্রবার অপরাহ্ন ৬টায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) খুলনা জেলা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জোটের এক বৈঠক থেকে এ দাবী জানানো হয়। বাম গণতান্ত্রিক জোট খুলনা জেলা সমন্বয়ক ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ খুলনা জেলা নেতা জনার্দন দত্ত নাণ্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেনÑবাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র কেন্দ্রীয় সদস্য ও জেলা সভাপতি ডাঃ মনোজ দাশ, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এ রশীদ, জেলা সাধারণ সম্পাদক এড. রুহুল আমিন, খুলনা মহানগর সভাপাতি এইচ এম শাহাদৎ, সাধারণ সম্পাদক এড. মোঃ বাবুল হাওলাদার, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ খুলনা জেলা সম্পাদকম-লীর সদস্য মোস্তফা খালিদ খসরু, আনিসুর রহমান মিঠু, কাজী দেলোয়ার হোসেন, বাসদ খুলনা জেলা সদস্য আব্দুল করিম, সিপিবি নেতা সুতপা বেদজ্ঞ, এড. নিত্যানন্দ ঢালী, বাসদ জেলা সদস্য কোহিনুর আক্তার কণা, সনজিত ম-ল প্রমুখ। নেতৃবৃন্দ বলেন, চলমান করোনা মহামারীকালে যখন দেশের শ্রমজীবী মানুষ চরম আর্থিক দুর্দশায় পড়েছে ঠিক তখন সরকার রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকলসমূহ বন্ধ করে স্থায়ী-বদলী ও দৈনিক ভিত্তিকসহ প্রায় ৭০ হাজার শ্রমিককে কমচ্যূত করেছে। ফলে তারা পরিবারসহ ভীষণ কষ্টে দিনাতিপাত করছে। ২০১৯ সালের ৬ সপ্তাহের মজুরিসহ প্রায় ৭/৮ সপ্তাহের মজুরি বাকী। আলিম জুট মিল শ্রমিকদের প্রায় ২০/২১ সপ্তাহের মজুরি বাকী। এমতাবস্থায় সরকার ঘোষণা করেছে শ্রমিকদের এবার ঈদ-উল-আজহার বোনাস দেয়া হবে না। এ ঘোষণা শ্রমিকদের প্রতি সরকারের চরম অন্যায়। নেতৃবৃন্দ এর তীব্র নিন্দা জানান এবং অবিলম্বে এ ঘোষণা প্রত্যাহার করার দাবী জানান। নেতৃবৃন্দ বলেন, মজুরী ও বোনাস শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা, এটা যথাসময়ে পরিশোধ করা সরকারের আইনত কর্তব্য। তাই অবিলম্বে সকল শ্রমিকদের বকেয়া মজুরী ও ঈদ বোনাস ঈদের অন্তত ৫ দিন পূর্বে পরিশোধ করতে হবে। একই সাথে বদলী শ্রমিকদের সম্পূর্ণ না হলেও এরিয়ারের একটা অংশ ঈদের পূর্বে পরিশোধ করতে হবে যাতে শ্রমিকরা ঈদের দিন তাদের পরিবারের মুখে কিছুটা স্বস্তি আনতে পারে। পাশাপাশি নেতৃবৃন্দ বামজোটের চলমান আন্দোলনের দাবী করে বলেন, অবিলম্বে রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল বন্ধের ঘোষণা বাতিল করে এসব পাটকল আধুনিকায়ন করার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রীয় মালিকানাতেই চালু করতে হবে এবং শ্রমিকদের এরিয়ারের টাকা, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকদের পাওনাসহ সকল বকেয়া পরিশোধ করতে হয়।

করোনায় প্রাণ গেল আরও এক পুলিশ সদস্যের

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ পুলিশের আরও এক সদস্য জীবন দিয়েছেন। তার নাম মো. শরীফুল ইসলাম (৫৫)। তিনি খুলনা রেঞ্জের ঝিনাইদহ সদর ফাঁড়িতে টিএসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনি ঝিনাইদহ কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শুক্রবার (২৪ জুলাই) বিকেল ৩টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার গ্রামের বাড়ি মাগুরা জেলায়। পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা জানান, বাংলাদেশ পুলিশের ব্যবস্থাপনায় মরদেহ মরহুমের গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে টিএসআই শরীফুল ইসলামের মৃত্যুতে পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এক শোকবার্তায় আইজিপি বলেন, করোনা প্রতিরোধের সম্মুখযোদ্ধা টিএসআই মো. শরীফুল ইসলাম জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে গিয়ে দায়িত্ব পালনকালে জীবন দিলেন। বাংলাদেশ পুলিশের এ বীর সদস্য দেশ ও জনগণের সেবার এক অনুপম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আমি তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।

আইজিপি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। তিনি শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান।

তালার কাটবুনিয়ায় রাস্তার বেহালদশা দেখার কেউ নেই

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা 

তালার কাটবুনিয়ায় রাস্তার বেহালদশা দেখার কেউ নেই ? ভোট আসলে আমাদের  খোঁজে,এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন। ভোটের  পরে কেউ খোঁজ নেয় না। আমাদের যাতায়াতের রাস্তা নেই বলে চলে। কেউ অসুস্থ্য হলে হাসপাতালে নেওয়ার তেমন ব্যবস্থা নেই বলে চলে। এমন একটি দ্বীপের মধ্যে আমাদের বসবাস। রাস্তা মেরামতের নামে সরকারি বরাদ্দ আসলেও তা দিয়ে কাজ হয় না।’ এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন তালা উপজেলার কাটবুনিয়া গ্রামের সাধনা মন্ডল। তিনি আক্ষেপ করে আরও বলেন, ‘করোনা ভাইরাসের কারণে বাড়ির পুরুষরা সবাই কর্মহীন হয়ে পড়েছে। বাধ্য হয়ে মাছের ঘেরে শ্রমিকের কাজ করছি। তার সংসারে ছেলে-মেয়েসহ ছয় জন মানুষ। সকাল ৮ থেকে বেলা ১ টা পর্যন্ত কাজ করে পায় ২০০ টাকা । এই টাকা দিয়েই চলে তার সংসার। খেয়ে না খেয়ে দিন চলে খোঁজ নেওয়ার কেউ নেই। সরকারি কোনো অনুদান আসলেও আমাদের পর্যন্ত আসে না। ওরা সব ভাগ করে নেয়। কোথায় যাবো, কি করবো। তাই বাধ্য হয়ে মাছের ঘেরে জন দিতে আইছি।’ সাতক্ষীরার তালা উপজেলা থেকে ১২ কিলোমিটার পূর্বদিকে কাটবুনিয়া গ্রাম। এ গ্রামে প্রায় ৩০০ পরিবারের দুই হাজার ৫০০ মানুষের বসবাস। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও তাদের গ্রামে তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি। হাজরাকাটি বাজার থেকে কাটবুনিয়া পর্যন্ত যেতে সড়কের দুই পাশে রয়েছে মৎস্য ঘের। মৎস্য ঘেরের পানির ঢেউ-এ সড়কও বিলীন হয়ে যায়। প্রতিবছর সড়ক সংস্কার করলেও মৎস্য ঘেরের কারণে বিলিন হয়ে যায়। কাটবুনিয়া গ্রামের মহিলা শ্রমিক তৃপ্তি মন্ডল জানান, তাদের গ্রামের সাথে শহরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বলেই চলে। তাদের গ্রামে কেউ অসুস্থ্য হলে সড়ক পথে নিয়ে গেলে তিনি আরও অসুস্থ্য হয়ে যায়। এজন্য কোনো সময় নৌকায়, আবার কোনো সময় ঘাড়ে করে নিয়ে যেতে হয়।

একই গ্রামের বাসিন্দা সাধনা মন্ডল জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে বাড়ির লোক বেকার বসে আছে। ঘের মালিকরা ২০০ টাকা করে মহিলা শ্রমিক নিয়ে কাজ করছে। এজন্য তিনি কাজে আসছে। এমন বক্তব্য ওই গ্রামের অধিকাংশ মানুষের।

ঈদ-উল আজাহা উপলক্ষে মোড়েলগঞ্জে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ

 মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

পবিত্র ঈদ-উল আজাহা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া উপহার মোড়েলগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের অসহায় হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ করা হয়।

শুক্রবার বিকেলে ঐতির্য্যবাহী এসিলাহা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ সব চাল বিতরণ করেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌরসভার মেয়র এ্যাড.মনিরুল হক তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.দেলোয়ার হোসেন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর মো.মহিদুল শেখ, ওয়ালিউর রহমান, রেদোয়ান মাতুব্বর ও কুরছিয়া বেগম।

এ সময় পৌরসভার মেয়র এ্যাড. মনিরুল হক তালুকদার বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের করোনা সংকটের মুর্হুতে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের কথা সার্বক্ষনিক ভাবেন। পবিত্র ঈদ উল আজহা উপলক্ষ্যে পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের প্রতিটি অসচ্ছল পরিবারের জন্য ১০কেজি করে চাল বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মোড়েলগঞ্জে তাঁতীলীগের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষীকি উপলক্ষ্যে উপজেলা তাঁতীলীগের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির শুভ উদ্ধোধন করেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌরসভার মেয়র এ্যাড. মনিরুল হক তালুকদার। শুক্রবার দুপুরে ঐতিয্যবাহী এসিলাহা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের এ বৃক্ষ রোপন উদ্ধোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক হাওলাদার, উপজেলা তাঁতীলীগের সভাপতি মো. হাসানুজ্জামান বাবু, সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট খান আমজাদ হোসেন, সহ-সভাপতি কেএম মাসুদ করিম(টিটু)সহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

মোড়েলগঞ্জে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের দুটি ওয়ার্ড কমিটি গঠন

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের পৌর শাখার ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৮নং ওয়ার্ডের নবগঠিত কমিটির নেতৃবৃন্দরা হলেন মো. মোজাম হাওলাদার(সভাপতি), আ. লতিফ শেখ(সহ-সভাপতি), মো. ছালাম হাওলাদার(সাধারণ সম্পাদক), মো. বাবুল শেখ(যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক), মোঃ জাহাঙ্গীর শেখ(দপ্তর সম্পাদক) ও মো. তোতা মিয়া(সাংগঠনিক সম্পাদক)। অপরদিকে ৯নং ওয়ার্ডের মোঃ বাদল শেখ(সভাপতি), মো. মহারাজ শেখ(সহ-সভাপতি), মোঃ শহিদুল ইসলাম (পনু)(সাধারণ সম্পাদক), মো. কামরুল ইসলাম(যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক), মো. মোকছেদ রহমান(দপ্তর সম্পাদক) ও মো. ইব্রাহিম শেখ(সাংগঠনিক সম্পাদক)।

উপজেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আল আমিন শেখের উপস্থিতিতে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের পৌর শাখার সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান মল্লিকের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি বৃহস্পতিবার অনুমোদন দিয়েছেন।

জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদ খুলনা সদর থানা শাখার জরুরী সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি

শুক্রবার সকাল ৬টায় জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদ  খুলনা সদর থানা শাখার সভাপতি মুফতী ফখরুল হাসান কাসেমীর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাদের এর পরিচালনায় নিক্সন মার্কেট মসজিদে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সংগঠন সম্প্রসারণ ও মজবুতি অর্জনের লক্ষ্যে আলোচনা হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন মাওলানা আবুল ফজল, মুফতী ইকরাম হোসেন, মাওলানা শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, মাওলানা শহিদুল ইসলাম, মাওলানা জাকির হুসাইন, মুফতী আব্দুল্লাহ, মুফতী রেজওয়ান, মুফতী শেখ আমীরুল ইসলাম, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ, মাওলানা আলী আকবার, মাওলানা ইসমাঈল হোসেন, মাওলানা আব্দুল গফফার, মাওলানা আবু বকর, শামসুর রহমান বাবুল, হাফেজ মাওলানা আকরামুল ইসলাম সহ প্রমূখ ওলামায়ে কেরাম।

নানা আয়োজনে যবিপ্রবিতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালন

যশোর অফিস

গবেষণা পুকুরে পোনা অবমুক্তকরণ, র‌্যালিসহ নানা আয়োজনে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২০ উদ্যাপন করা হয়েছে। এ বছর জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের প্রতিবাদ্য হচ্ছে ‘মাছ উৎপাদন বৃদ্ধি করি, সুখী সমৃদ্ধ দেশ গড়ি।’ শুক্রবার সকালে যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২০ উপলক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগ আয়োজিত নানা কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। যবিপ্রবির জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষ্যে আয়োজিত কর্মসূচি শুরু হয় বিশ^বিদ্যালয়ের গবেষণা পুকুরে বিভিন্ন জাতের পোনা অবমুক্তকরণের মাধ্যমে। এরপর বিশ্বব্যাপী করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে অত্যন্ত সীমিত পরিসরে সংক্ষিপ্ত র‌্যালির আয়োজন করা হয়।

র‌্যালি পরবর্তী সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, বিশ্বে মৎস্য খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগকেও এগিয়ে যেতে হবে। এই বিভাগের তত্ত্বাবধানে একটি অত্যাধুনিক হ্যাচারি অ্যান্ড ওয়েট ল্যাব রয়েছে। তবে করোনার কারণে এটির কার্যক্রমে পুরোদমে শুরু করা যায়নি। তবে আশা করব, যখন এটার কাজ পুরোদমে শুরু হবে, তখন যেন এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের পোনা উৎপাদন থেকে শুরু করে বাজারজাতকরণ পর্যন্ত বাস্তবধর্মী শিক্ষা প্রদান করা হয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে, নিজস্ব আয়ের পথ সুগম করা। যার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় ধীরে ধীরে স্বনির্ভরতার দিকে এগিয়ে যাবে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা খাতের আরও উন্নয়ন করা সম্ভব হবে।  

ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো: সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মো: আনিছুর রহমান, একই বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. সুব্রত মন্ডল, অধ্যাপক ড. মো: আমিনুর রহমান, ড. মো. মীর মোশাররফ হোসেন, ড. মঞ্জুরুল হক, আবদুস সামাদ, সরোয়ার-ই-মাহফুজ, আল মামুন ফরিদ, অনুশ্রী বিশ্বাস, টেকিনিক্যাল অফিসার আবু তালেব, কর্মচারী সমিতির সভাপতি এস এম সাজেদুর রহমান জুয়েল, ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী আল-আমিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জমেনি যশোরের ৭ মাইলের পশু হাট

যশোর অফিস

করোনার প্রাদুর্ভাবে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সবচেয়ে বড় পশুর হাট যশোরের সাতমাইলে বেচাকেনা নেই বললেই চলে। অথচ হাটে উঠছে উল্লেখযোগ্য পশু। হাটে ক্রেতারা গরু কিনে খুশি হলেও বিক্রেতারা খুশি হতে পারছেন না। খামারিরা বলছেন, গরু পালনে খরচের তুলনায় এ বছর লাভ হচ্ছে না। আর যদি ভারতীয় গরু আসে, তাহলে স্থানীয় খামারিরা চরম ক্ষতির সম্মুখীন হবেন।

যশোর জেলা শহর থেকে ৩৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশে বসে এই অঞ্চলের বৃহত্তম সাতমাইল পশুহাট। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকাররা এসে এই হাট থেকে গরু কিনে নিয়ে যান। হাটের ইজারাদার নাজমুল হাসান বলেন, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ঝিনাইদহ, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, ঢাকাসহ অন্তত ২০টি জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যাপারিরা আসেন এ হাটে। কিন্তু এবার তারা এখনো খুবএকটা আসেননি। তাই বেচাকেনা কম। খামারিরা বিক্রির উদ্দেশে হাটে গরু নিয়ে গেলেও দিনশেষে পশুসহই ফিরে যাচ্ছেন বাড়িতে। খামারিরা বলছেন, এবার পরিস্থিতিগত কারণে কুরবানি নিয়ে মানুষের মধ্যে আগ্রহ অনেক কম। গত বছর এই সময়ে রাস্তায়, হাটে, খামারে ক্রেতারা কুরবানির জন্যে ঘোরাঘুরি করেছেন, কিন্তু এবার কারোরই দেখা মিলছে না। শার্শার নারায়ণপুর গ্রামের খামারি আনিছুর রহমান সাতমাইল হাটে গরু এনে দুপুর নাগাদ বিক্রি করতে পারেননি। আনিছুর বলেন, ‘অন্যান্য বছর কুরবানির এক মাস আগে থেকেই বাড়ি বাড়ি ঘুরে ব্যাপারিরা গরু কিনেছেন। এবার একটা ব্যাপারিও আসেনি। করোনাভাইরাস নিয়ে সবাই আতঙ্কের মধ্যে আছে।’

তিনি বলেন, দাম কম, ক্রেতা নেই। দেনা করে গরু পাললাম। এখন দাম পাচ্ছিনে। গত বছর বন্যার কারণে লাভ হয়নি। আর এবার দেশের যে অবস্থা, তাতে চালানটাই বাঁচবে কি-না সন্দেহ।’

নারায়ণগঞ্জের মাহফুজুর রহমান মাহফুজ ব্যাপারি প্রতিবছর প্রতিহাটে অন্তত পাঁচ ট্রাক গরু কিনলেও মঙ্গলবারের হাটে তিনি মাত্র দুই ট্রাক গরু কিনেছেন বলে জানালেন। এবার বিভিন্ন এলাকায় করোনা ও বন্যার কারণে পশুর চাহিদা কম। দামও তুলনামূলক অনেক কম।

ঢাকার রাসেল ব্যাপারি বলেন, মঙ্গলবার হাটে দুপুর পর্যন্ত তিনি ২৫টি গরু কিনেছেন। এর মধ্যে ২০টি গরু দিয়ে একটি ট্রাক ঢাকার গাবতলী হাটে পাঠিয়েছেন। বাজারের অবস্থা বোঝার চেষ্টা করছেন। ভালো হলে আরো দুই ট্রাক পাঠানোর প্রস্তুতি রয়েছে তার। এসব গরু ৭০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকায় বিক্রি করবেন বলে তিনি জানান।

শার্শার খামারি আখতারুজামান বলেন, ‘গ্রামেও এখন গরু সস্তা, নেওয়ার লোক নেই। যে গরুগুলো হাটে আনিছি গত বছর এই মাপের গরু ৬০-৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। এবার ৪৫-৪৮ হাজারের ওপর দাম ওঠেনি। এই দামে গরু বিক্রি করলে লস হবে। তবে ভাবছি, চালানটা তোলার জন্য। চালান হাতে এলেই গরু বিক্রি করে বাড়ি চলে যাব।’

কুরবানির গরু কিনতে আসা বেনাপোলের কামরুজ্জামান বলেন, এ হাটে প্রচুর গরু আছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা গরুর দাম কমাচ্ছে না। যে কারণে বেচাবিক্রি একটু কম।

সামটার ইকবাল হোসেন বলেন, সাড়ে চার মণ মাংস হতে পারে- এমন একটা গরু কিনেছেন ৭৫ হাজার ৫০০ টাকায়। অন্য সময় এর দাম লাখের বেশি হতো। কম দামে গরু কিনতে পেরে বেজায় খুশি তিনি।

ঝিকরগাছার দেউলি গ্রামের আব্দুস সামাদ চার মণ মাংস হতে পারে- এমন একটি গরু কিনেছেন ৬৭ হাজার টাকায়। বেনাপোলের নামাজ গ্রামের আবু নিদাল ফয়সল একটি ষাঁড় কিনেছেন ৮০ হাজার টাকায়। তিনি বলেন, হাটে মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি হওয়ায় দাম কিছুটা বেশি। তবে বড় গরুর দাম তুলনামূলক অনেক কম। হাট কমিটির সভাপতি স্থানীয় চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুল বলেন, এই হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের থাকা-খাওয়া সুব্যবস্থা রয়েছে। পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় সতর্ক থাকায় এখানে সুস্থ ও মানসম্মত পশু পাওয়া যায়। নিরাপত্তা দিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বদা নিয়োজিত রয়েছে। করোনার কারণে হাটে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। হাত ধোওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এখানে শনি ও মঙ্গলবার সপ্তাহে দুই দিন হাট বসে।’

খামারিদের হতাশা সম্পর্কে শার্শা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাসুমা আখতার বলেন, এ বছর এ উপজেলায় ৯৯০ জন খামারি তিন হাজার ৬৪৫টি ষাঁড়, ৬০২টি বলদ, দুই হাজার ৮৪১টি ছাগলসহ মোট সাত হাজার ১৭৮টি গরুছাগল কুরবানির জন্য প্রস্তুুত করেছেন, যা উপজেলার চাহিদার দ্বিগুণ। কিন্তু ক্রেতার অভাবে বেচাকেনা কম। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা যাতে হাটে আসে সেদিকে লক্ষ্য রাখা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘খামারিরা খরচের টাকাও তুলতে পারছেন না বলে খবর পাচ্ছি। লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে বাড়ি ফিরছেন।

যবিপ্রবি ল্যাবে একদিনে ৮২ করোনা শনাক্ত

যশোর অফিস

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে একদিনে ৮২ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। ল্যাবে মোট ৩৪৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এই ফল আভে। বাকি ২৬২ টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, যবিপ্রবি এনএফটি বিভাগের চেয়ারম্যান ও জিনোম সেন্টারের পরীক্ষণ দলের সদস্য শিরিন নিগার।

তালায় মোবাইল ফোনে শিখন কার্যক্রম চালাচ্ছেন শিক্ষক আবুল কাশেম

ইলিয়াস হোসেন, তালা

করোনাকালীন মোবাইল ফোনে শিখন ও মূল্যায়ন কার্যক্রম চালাচ্ছেন সাতক্ষীরার তালা উপজেলার হাজরাকাটী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম সরদার। বিদ্যালয় বন্ধের কারণে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি কাটিয়ে উঠার জন্য প্রত্যেক শিক্ষার্থীর শিখন ও ধারাবাহিক মূল্যায়নের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে শিক্ষার্থীর বৃহত্তর কল্যাণ ও দেশের জন্য কিছু করার সুযোগ এবং শিক্ষার্থীদের ভালোবাসার শক্তি থেকে অভিভাবকদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ও সহযোগিতায় শিক্ষার্থীদের পড়ানো ও ধারাবাহিক মূল্যায়ন নিশ্চিত করতে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন ঐ শিক্ষক। হাজরাকাটী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী রাকিব,সাদিয়া, রিয়াদ,খালিদ জানায়, আবুল কাশেম স্যার প্রতিদিন রাতে আমাদের মোবাইল ফোনে পড়ান। এতে আমরা খুব উপকৃত হচ্ছি এবং করোনার মধ্যেও পড়াশুনা অব্যাহত রেখেছি। এ বিষয়ে শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম সরদার বলেন, সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ বাবুল আক্তার স্যারের নির্দেশনায় আমি বেশ কিছু দিন মোবাইল ফোনে শিক্ষার্থীদের পড়াচ্ছি। বর্তমানে ভালো ফলও পাচ্ছি। প্রথমে আমি খানিকটা হতাশ হলেও এখন শিক্ষার্থীরা বেশ আগ্রহী এবং তারা রাত ৮.৩০ টার পরে আমার ফোনের অপেক্ষায় থাকে,যা আমাকে আরও বেশি উৎসাহিত করে।

হাজরাকাটী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রীতা দাস বলেন, শিক্ষক মোঃ আবুল কাশেম সরদার সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশনা অনুযায়ী মোবাইল ফোনে শিখন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন, যেটি খুবই প্রশংসনীয়।

মহেশপুরে পুলিশের হাতে টাকা ও তাসসহ ৫ জুয়ারী আটক

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের মহেশপুর থানা পুলিশ গত বৃহস্পতিবার রাতে পৌর এলাকার বোয়ালিয়া গ্রাম থেকে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকা ও তাসসহ ৫ জুয়ারীকে আটক করেছে। আটক কৃতরা হচ্ছে নস্তী গ্রামের ইয়াকুব আলী (৪০),শাহীন মিয়া (২৪),জলিলপুর গ্রামের জসিম উদ্দীন (৩৮),যুগিহুদা গ্রামের শাহাজান আলী (৪৫) ও বোয়ালিয়া গ্রামের আব্দুল মজিদ ম-ল (২৪)। মহেশপুর থানার সেকেণ্ট অফিসার এস আই আব্দুল জলিল জানান, বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ বোয়ালিয়া গ্রামের একটি বাড়ী থেকে জুয়া খেলা অবস্থায় ১৫ হাজার ১৭০ টাকা,তাস পাটিসহ ৫ জুয়ারীকে আটক করে।

মহেশপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মোহাম্মদ মোর্শেদ হোসেন খান জানান, আটক কৃত জুয়ারিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। সকালে ৫ জুয়ারিকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে সকালে জুয়ারিদের আটক করায় তাদের পরিবারের সদস্যরা পুলিশ সদস্যদেরকে থানায় এসে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

মহেশপুরে ফেন্সিডিল ও গাজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি

গত বৃহস্পতিবার রাতে ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত এলাকার শ্যামকুড় গ্রামের মাঠ থেকে থানা পুলিশ ৬০ বোতল ফেন্সিডিল ও ৫০০ গ্রাম গাজাসহ মাদক ব্যবসায়ী হাফিজুল ইসলামকে (৩২) আটক করেছে। থানা সুত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার রাতে থানার এ এস আই রওশন আলী ও এ এস আই সজল কুমার শ্যামকুড় গ্রামের মাঠ থেকে শ্যামকুড় হুদা বন্দেপাড়ার নজরুল ইসলামের ছেলে হাফিজুর রহমানকে ৬০ বোতল ফেন্সিডিল ও ৫০০ গ্রাম গাজাসহ আটক করা হয়। মহেশপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মোহাম্মদ মোর্শেদ হোসেন খান জানান, আটক কৃত মাদক ব্যবসায়ীকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযান প্রতিরাতেই চলছে চলবে।

সেনপাড়ার জামাল হত্যা মামলার আসামী হিরো এবং তার স্বজনদের অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসী

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি

নগরীর দৌলতপুর থানাধীন পশ্চিম সেনপাড়া এলাকার শামছু সরদারের পুত্র মহেশ^রপাশা খাদ্য গুদামের সর্দার খুলনা বিভাগীয় ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য জামাল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত গ্রেফতার হিরোর অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসী। হিরো ও তার স্বজনদের সমন্বয়ে রয়েছে একটি শক্তিশালী গ্রুপ যাদের ভয়ে এলাকাবাসী মুখ খুলতে ভয় পায়। কোন কিছু হলেই স্বদলবলে ঝাপিয়ে পড়ে এলাকাবাসীর ওপর। হিরোর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় ৮/১০টি অভিযোগ রয়েছে বলে বিভিন্ন সুত্রে জানাগেছে। হিারোগং এর ভয়ে নিরবে মুখ বুজে অত্যাচার সয্য করে গেছে সকলে। হত্যার ঘটনায় তাকে গ্রেফতারের পর  এলাকায় কিছুটা শস্তিতে ফিরে এসেছে। এলাকায় তার ভাংচুর এবং হামলার নিদর্শন এখনও দন্ডায়মান রয়েছে। জানাগেছে, সিএসডি খাদ্য গুদামের সর্দার জামাল হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী হোসেন আলীর পুত্র ট্রাক চালক হিরো গ্রেফতার হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে মাদক সেবন, মাদক ব্যবসা, ছিনতাই, হামলা-হ্ঙ্গাামা, বাড়ীঘর ভাংচুর, ইফটিজিং, চাঁদাবাজীসহ নিরীহ এলাকাবাসীর ওপর বিভিন্ন ধরনের নির্যাতনের অভিযোগ করছে এলাকাবাসী। সর্বশেষ গত ১৪ জুলাই জামাল হত্যার মধ্যে দিয়ে তিনি ষোলকলা পুর্ণ করলেন। এত অপরাধ যার বিরুদ্ধে তিনি পুলিশের সামনে দিয়ে বীর দর্পে দাবিয়ে চলেছে এলাকায়। ভূক্তভোগী ট্রাক ড্রাইভার লাভলু জানায়, মাদকাশক্ত হিরোর অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ট। এলাকার সর্বস্থরের মানুষ তার বিষয়ে অবগত রয়েছে।  হিরো গত দ্ইু মাস আগে আমার কাছে টাকা দাবী করে টাকা না পেয়ে দলবল নিয়ে গভীর রাতে আমার বাড়ীতে হামলা চালায়। আমার স্ত্রীকে মারপিট করে বাড়ী ভাংচুর করে আজ পর্যন্ত আমি সেই বাড়ী মেরামত করতে পারিনি। এ ব্যাপারে তিনি দৌলতপুর থানায় অভিযোগ করেছে বলে জানান। হিরো পুর্বশত্রুতার জেরে এলাকার গণির ছেলে সজিবকে বটি দিয়ে কোপাতে যায়। পরিবারের সদস্যরা ঠেকাতে গেলে বাড়ী ভাংচুর করে, এ ব্যাপার সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দাখিল করেছে বলে ভুক্তভোগী জানায়। এলাকার পেয়ারা নামের এক যুবতী জানায়, হিরো বেশ কিছু দিন আগে প্রকাশ্যে রাস্তার উপর আমাকে মারধর করে। আমার মা এবং চাচাতো বোন ঠেকাতে আসলে তাদেরকেও মারধর করে। হিরোর হামলায় আমার মায়ের পা ভেঙ্গে যায়, এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করে ছিলাম। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোশারফ হোসেন বলেন, হিরো মাদকাশক্ত তার বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে। তবে আমি দায়িত্ব গ্রহনের পর ঐ হিরো সহ এলাকার কিছু ব্যক্তির উপর নজরদারীর মধ্যে ছিল । হিরোকে জামাল হত্যা মামলার অভিযুক্ত আসামী তাকে পুলিশ গ্রেফতার করে এবং হত্যার সাথে জড়িত বলে সে স্বীকারও  করেছে।

সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদের ঝিনাইদহ জেলা কমিটি গঠন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদের ঝিনাইদহ জেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে সভাপতি মোঃ মানিক মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক মোঃ আশরাফুল আলমকে নির্বাচিত করে ৮১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও কমিটিতে সহ-সভাপতি বি এম শফিউদ্দিন, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ গোলাম নবী এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রাফিদ হাসানকে নির্বাচিত করা হয়েছে। সামাজিক উন্নয়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষে কাজ করায় এ সংগঠনের মূল উদ্যেশ্য বলে জানা গেছে।

শরণখোলায় ডাক্তার সহ ১১ জন করোনা আক্রান্ত

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

বাগেরহাটের শরণখোলায় নতুন করে আরো ১১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরা হচ্ছেন, শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ফয়সাল আহমেদ (৩৩), স্বাস্থ্য সহকারী শাহজাহান মিয়া (৫৯), নার্স পপী রানী (২৪), মাতৃভাষা কলেজের অধ্যাপক আবুল খায়ের (৪৩), উত্তর কদমতলা গ্রামের টি.এম মিজানুর রহমান (৫২), রায়েন্দা গ্রামের মোঃ সাইফুল ইসলাম (৩৬), রাশিদা আক্তার  (৪৫), শারমিন সুলতানা (২২), শরণখোলা থানা পুলিশ সদস্য শ্যামল কৃষ্ণ পাল (২৭), রাজৈর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম (৪০), উত্তর বাধাল গ্রামের সাইফুল ইসলাম (৭৭)। গত ১৪, ১৭ ও ২১ জুলাই তাদের দেয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট গত বৃহস্পতিবার রাতে শরণখোলায় এসে পৌছায়। এনিয়ে শরণখোলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ জনে দাড়িয়েছে। স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ তরিকুল ইসলাম জানান, গত ১৪, ১৭ ও ২১ জুলাই শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই ১১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে খুলনার পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হলে তাদের রিপোর্ট করোনা পজেটিভ হয়।  এ পর্যন্ত শরণখোলায় ৫১ জন আক্রান্তের মধ্যে থেকে ১জন মৃত্যুবরণ করেন, ৩৫জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন, ২জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন, বাকী ১৫জন নিজ নিজ বাড়ীতে আইসোলেশনে আছেন।

খুলনায় পাটকল সংক্রান্ত লিফলেট বিলির সময় ৮ জন আটক!

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনায় বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ-মার্কসবাদী) এর নেতা রুহুল আমিনসহ ৮ জনকে আটক করেছে খালিশপুর থানা পুলিশ। শুক্রবার রাতে নগরীর খালিশপুর থানার প্লাটিনাম জুট মিলের শ্রমিক কলোনি এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। রুহুল আমিনের সহকর্মীদের অভিযোগ, তারা পাটকল রক্ষায় শ্রমিক কৃষক ছাত্র জনতা সংগ্রাম পরিষদের লিফলেট বিতরণ করার সময় তাদেরকে আটক করা হয়। রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল চালুর দাবিতে এই সংগঠনের ব্যানারে আগামী রোববার তাদের সমাবেশ করার কথা রয়েছে। সমাবেশ সফল করার জন্য তারা এই লিফলেট বিলি করছিলেন। তবে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (মিডিয়া) কানাই লাল সরকার বলেন, তাদেরকে আটক করা হয়নি। লিফলেট বিলির সময় তাদেরকে থানায় ডেকে নেওয়া হয়েছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।