শরণখোলায় স্ত্রীর সাবেক স্বামীর চাপাতির কোপে গুরুতর আহত বর্তমান স্বামী

11
Spread the love

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি :

বাগেরহাটের শরণখোলায় স্ত্রীর সাবেক স্বামী শাহ আলম বিশ্বাসের চাপাতির কোপে গুরুতর আহত হয়ে খুলনা মেডিকেলে ভর্তি হয়েছেন বর্তমান স্বামী আব্দুর রহমান হাওলাদার (৫০)। স্ত্রী ভাগিয়ে নেয়াকে কেন্দ্র করে গত ২২ জুলাই (বুধবার) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার পশ্চিম কদমতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত রহমান হওলাদারকে রাতেই খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে ।

আহত রহমান হাওলাদারের ছোটো ভাই রায়েন্দা বাজারের পাঁচরাস্তা এলাকার তেল ব্যবসায়ী মোঃ বেল্লাল হাওলাদার জানান, বুধবার রাতে দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফিরছিলেন রহমান হাওলাদাররাত দেড়টার দিকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ির সামনে পৌছা মাত্র শাহআলম চাপাতি দিয়ে এলোপাথাড়ি কোপাতে থাকে রহমানকে। তখন রহমানের মাথায় হেলমেট থাকায় মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে যায়। তবে, হাতে ও শরীরের বেশ কিছু স্থানে কোপ লেগে মারাত্মক জখম হয়।

ওইসময় রহমানের চিৎকারে ঘর থেকে ছুটে আসে তার বড় ছেলে নাইম। নাইম এসে বাবাকে বাঁচাতে শাহআলমকে ঝাপটে ধরে। এক পর্যায় শাহআলম সেখান থেকে পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক রহমানকে উদ্ধার করে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে খুলনা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। বর্তমানে রহমানে অবস্থা আশংকাজনক বলেও জানান তার ভাই বেল্লাল ।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, দুই সন্তানের জননী পশ্চিম কদমদলা গ্রামের মোঃ আঃ রহমান বিশ্বাসের ছেলে শাহআলম বিশ্বাসের স্ত্রী নুপুর বেগম (৩৫) স্বামী বিদেশে থাকার সুবাদে একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী মোঃ আঃ মজিদ হাওলাদারের ছেলে রায়েন্দা বাজার পাঁচ রাস্তার মুদি ব্যবসায়ী মোঃ আঃ রহমান হাওলাদারের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পরেন।

বেশ কিছুদিন প্রেম চলাকালে রহমান ও নুপুর দুজনে দুজনকে বিবাহ করতে আগ্রহী হন। এক পর্যায় দুই সন্তানের জননী নুপুর বেগম শাহ আলমকে তালাক দেন এবং রহমানকে বিয়ে করেন। এ খবরে শাহ আলম ক্ষিপ্ত হয়ে রহমানের উপর প্রতিশোধ নিতে সুযোগ খুঁজতে থাকেন এবং বুধবার রাতেই সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে রহমানের উপর হামলা চালায় ।

শরণখোলা থানার ওসি এসকে আব্দুল্লাহ আল সাইদ বলেন, হামলার ঘটনা শুনেছি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।