কালো পাহাড়ের দাম ১০ লাখ টাকা

9
Spread the love

মাগুরা প্রতিনিধি

নাম কালো পাহাড়। পুরো শরীর কুচকুচে কালো, পায়ের নিচের দিকটা কিছুটা সাদা-কালোর মিশ্রণ। ২৮-৩০ মণ ওজনের ষাঁড় গরুটির দাম চাওয়া হচ্ছে ১০ লাখ টাকা। ঈদ যতই এগিয়ে আসছে কালো পাহাড়ের খ্যাতি ততই ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে। কালো পাহাড়াকে দেখতে জাফর শেখের বাড়িতে ভিড় করছেন উৎসুক জনতা।

মাগুরা সদরের দেড়ুয়া গ্রামের আবু জাফর শেখের অতি যতেœ লালন পালন করা ষাঁড়টি জেলার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে। নিজ বাড়িতে প্রায় ২ বছর ধরে ষাঁড়টি লালন পালন করেছেন জাফর শেখ। ইতোমধ্যে কালো পাহাড়ের দাম উঠেছে ৫-৬ লাখ টাকা। কিন্তু মালিক জাফর শেখ তাকে এ দামে ছাড়তে নারাজ। তার দাবি এ দামে বিক্রি করলে লাভ তো দূরের কতা উল্টো লোকসান গুনতে হবে। তাই একটু ভালো দামের আশায় তিনি দিন গুনছেন। মালিক জাফর শেখ বলেন, তিনি ২০ বছর ধরে গরু পালন করে ব্যবসা করছেন। নিজ বাড়িতেই রয়েছে তার খামার। তিনি পেশায় একজন কৃষক। জমিতে ফসল চাষাবাদের পাশাপাশি বাড়িতেই নিজের সন্তানের মতো কালো পাহাড়কে লালন-পালন করেছেন। সময় মতো তিন বেলা খাবার খাওয়াচ্ছেন। খাবারের তালিকায় রয়েছে ভুসি, ভুট্টার আটা, ধানের কুড়া, ছোলা, গমের ভূসি, খুদ ও নেপিয়ার ঘাস। প্রতিদিন তার এ ষাঁড় বাবদ ১ হাজার টাকা খরচ হয়। যতেœর কোনো ত্রুটি করেননি তিনি। কালো পাহাড় গরম একেবারেই সইতে পারে না। তাই ২৪ ঘণ্টাই ফ্যান চালানো থাকে। আর দিনে দু’বার গোসল করানো হয়।

তিনি আরও বলেন, নিজের সন্তানদের মতো করে গরুটিকে পালন করেছেন তিনি। তবে কালো পাহাড়কে নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তায় রয়েছেন জাফর শেখ। করোনা পরিস্থিতিতে মানুষ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। বড় গরু কেনার মতো সচরাচর ক্রেতা ও পাইকার মিলছে না। অন্যদিকে চলতি বছরের হাটে স্বাস্থ্যবিধির কথা চিন্তা করে এটিকে হাটে নিয়ে যেতেও নারাজ তিনি। বাড়িতে ভালো ক্রেতা পেলে তিনি বিক্রি করে দেবেন কালো পাহাড়কে।