ফের গণস্বাস্থ্যের কিটের সক্ষমতা যাচাইয়ের নির্দেশ

1
Spread the love

ঢাকা অফিস

বিদ্যমান সরকারি নিয়ম মেনে আবারও কন্ট্রাক্ট রিসার্চ ফার্মের (সিআরও) মাধ্যমে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে তাদের অ্যান্টিবডি কিটের সক্ষমতা (ভ্যালিডেশন) যাচাই করতে বলেছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

রোববার ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠকের পর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিনিধি দলের প্রধান ও র‌্যাপিড কিট প্রকল্পের সমন্বয়ক ডা. মহিবুল্লাহ খন্দকার সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দকার বলেন, ওষুধ প্রশাসন তাদের কথা ইতিবাচকভাবে (পজিটিভলি) শুনেছেন। এ সময় তারা অ্যান্টিবডি কিটের বিষয়ে গণস্বাস্থ্যের ইন্টারনাল ভেলিডেশান রিপোর্টকে আমলে এনে নিবন্ধন দেওয়ার অনুরোধ জানান। এ সময় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর বিদ্যমান সরকারি নিয়মে আবার সিআরও এর মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের এফডিএ’র (ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অথরিটি) নীতিমালা (আমব্রেলা গাইডলাইন) অনুযায়ী ‘এক্সটারনাল ভেলিডেশান’ বা তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সক্ষমতা যাচাই করতে বলেছেন।

এ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে ডা. মুহিব উল্লাহ খন্দকার বলেন, নতুন কিছু করতে গেলে সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী আবার একইরকম সিআরও’র মাধ্যমে এক্সটারনাল ভেলিডেশন করতে হবে। তারা যে নতুন গাইডলাইন দিয়েছে, সেটা অনুযায়ী করতে হবে। গণস্বাস্থ্য  সেটা করবে।

তিনি জানান, আগামী বুধবার অ্যান্টিজেনের নীতিমালা চূড়ান্ত হবে। তারপর ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর একটা ফরম্যাট পাঠাবে। সেই অনুযায়ী প্রটোকল আপডেট করে জমা দিতে বলা হয়েছে গণস্বাস্থ্যকে।

এর আগে গত ১৭ জুন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় গণস্বাস্থ্যের কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা শেষে প্রতিবেদন জমা দেয় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরে। তবে এ র‌্যাপিড কিটের নিবন্ধন দেয়নি ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।