সারা খুলনা অঞ্চলের খবর

12
Spread the love

তালায় কঠোর অবস্থানে সেনাবাহিনী : ৭ জনকে জরিমানা

ইলিয়াস হোসেন, তালা

করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে সাতক্ষীরা তালা উপজেলায় সেনাবাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (০২এপ্রিল) তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী টহল দিচ্ছেন দিনভর। কেউ যাতে অযথা ঘরের বাহিরে ঘোরাফেরা না করেন এ জন্য  এ টহল জোরদার করা হয়। সামাজিক দূরত্ব না মানায় ৭ জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন। জানা গেছে, সরকারি নিষেধ অমান্য করে সামাজিক দূরত্ব না মানায় ৭ জনকে ৬ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয় । উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানের জনশূন্য হয়ে পড়েছে ব্যাস্ততম উপজেলা বাজারগুলো । উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেন  বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বিশেষ প্রয়োজনে ছাড়া কেউ ঘরের বাহিরে বের হবেননা। বের হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দোকান ও ঔষধের দোকান ছাড়া বাকী অন্যান্য দোকান পাট অধিকাংশই বন্ধ থাকায় রাস্তাঘাটে লোক-সমাগম খুবই কম। চলছে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান। এদিকে করোনো সংক্রমণ রোধে তালা থানার ওসি মেহেদী রাসেলের নেতৃত্বে অভিযান অব্যাহত আছে।

ক্রেতার উপচে পড়া ভীড়

শরণখোলায় খোলাবাজারে পণ্য বিক্রি শুরু

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ

বাগেরহাটের শরণখোলায় করোনা পরিস্থিতির কারণে টিসিবির বিশেষ বরাদ্দে খোলাবাজারে ডাল, চিনি ও সোয়াবিন তেল বিক্রি শুরু হয়েছে। পণ্য বিক্রয় পয়েন্টে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়। কোরোনার প্রভাবে দীর্ঘদিন দোকানপাট বন্ধ থাকায় ন্যায্যমূল্যের পণ্য কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে মানুষ। ভীড় সামলাতে হিমশিম খেতে হয় কর্তৃপক্ষকে।

প্রথমদিনে সকাল ৯টা থেকে শরণখোলা প্রেসকাবের সামনে ট্রাকে করে এসব পণ্য সরবরাহ করা হয়। শুক্রবার বাদে অন্যান্যদিন সকাল ৮টা থেকে শুরু করে দুই ঘন্টা পণ্য বিক্রির জন্য টিসিবি পয়েন্ট খোলা থাকবে বলে সময় বেধে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

টিসিবির ডিলার রায়েন্দা ট্রেডার্সের মালিক মো. শহিদুল ইসলাম জানান, প্রথম পর্যায় ৪’শ কেজি মসুরী ডাল, ২ হাজার কেজি চিনি ও ৩ হাজার লিটার সোয়াবিন তেল বিশেষ বরাদ্দ পেয়েছেন তিনি। চিনি ও ডাল প্রতি কেজি ৫০টাকা এবং সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৮০ টাকা দর নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। একজন ক্রেতা দিনে সর্বোচ্চ এক কেজি ডাল, দুই কেজি চিনি এবং পাঁচ লিটার তেল কিনতে পারবেন।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সরদার মোস্তফা শাহিন বলেন, করোনার সংকটময় মুহূর্তে সরকার জনগণের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে খোলাবাজারে পণ্য বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রমজান মাস পর্যন্ত এ ব্যবস্থা চালু থাকবে। সঠিকভাবে পণ্য সরবরাহ এবং করোনা পরিস্থিতিতে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হচ্ছে।

ফকিরহাট করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রচার প্রচারনা

ফকিরহাট প্রতিনিধি

ফকিরহাট উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ফকিরহাট ডাকবাংলা মোড়, সদর বাজার ও ফলতিতা মৎস্য আড়ৎ এলাকায় করোনা প্রতিরোধে মাইকিং করে ব্যপক প্রচার প্রচারন করা হয়েছে। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি স্বপন দাশ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ পারভীন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তহুরা খানম প্রমূখ। প্রচার কালে সকলকে সামাজিক দুরত্ব বজাই রাখার কথা সহ বার বার সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দেন। এছাড়াও বাইরে বের হলে মাক্স পরার কতা বলেন এবং অতি জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেন। অপরদিকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাগেরহাটের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক দেবপ্রসাদ পাল, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ পারভীন ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) রহিমা সুলতানা বুশরা কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড টাউন নওয়াপাড়া মোড় সহ বিভিন্ন স্থানে অনুরুপ প্রচারন করেন।

ফকিরহাটে করোনা প্রতিরোধে সেনাবাহিনীর প্রচার প্রচারনা

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটে বিভিন্ন হাট-বাজার ও মোড়ে মোড়ে সেনাবাহিনীর উদ্যোগে করোনা প্রতিরোধে মাইকিং করে প্রচার প্রচারনা ও পথচারীদের মাঝে মাক্স বিতরণ করেন। প্রচারকালে বিভিন্ন সড়কে জীবানু মুক্ত পানি ছিটানো হয়। এসময় বাগেরহাট জেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ইশতিয়াক আহম্মেদ ও সেনাবাহিনীর মেজর মাহাদী হাসান সহ অন্যান্য সেনা সদস্য উপস্থিত ছিলেন। প্রচারকালে সকলকে আতঙ্কতি না হয়ে সতর্ক থাকার কথা বলেন। অতি জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে না বের হওয়ার জন্য পরামর্শ দেন। এছাড়াও মাক্স ব্যবহারের পাশাপাশি ঘন ঘন হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলার কথা বলেন।

ফকিরহাটে রাতেও পৌছে যাচ্ছে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটে রাতেও থেমে নেই নি¤œ আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ। বাড়ীতে বাড়ীতে পৌছে যাচ্ছে খাদ্য সামগ্রী। এমনটি উপজেলা চেয়ারম্যান স্বপন দাশ নিজ হাতে বহন করে তাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন। বুধবার রাত ৮টার উপজেলার বেতাগার বিভিন্ন এলাকায় এসব মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ পারভীন, মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সাঈদ মোঃ খায়রুল আনাম, বেতাগা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুস আলী শেখ ও ইউপি সচিব এম এ দাউদ উপস্থিত ছিলেন।

ফকিরহাটের বাহিরদিয়া-মানসা হতদরীদ্রদের সহায়তা বিতরণ

ফকিরহাট প্রতিনিধি

ফকিরহাটে বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দীনের সৌজন্যে এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় উপজেলার বাহিরদিয়া-মানসা ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে নি¤œ আয়ের হতদরিদ্রদের মাঝে সহায়তা সরুপ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। হতদরিদ্রদের মাঝে সহায়তা বিতরণ করেন অত্র ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল করিম ফকির। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য রবীন্দ্রনাথ হালদার বাটুল, মোঃ সাইফুল ইসলাম, শেখ লিয়াকত হোসেন, মোঃ হাফিজুর রহমান, ঢালী আঃ খালেক, মোঃ রফিকুল ইসলাম খান জাহিদ হাসান, মহিলা ইউপি সমস্য কোহিনুর বেগম, শাহানারা খাতুন প্রমূখ।

কেশবপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে হামলা: দু’ভাই আহত

আলমগীর হোসেন, কেশবপুর

কেশবপুর উপজেলার কোমরপোল গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধে হামলায় দু’ভাই আহত হয়ে কেশবপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। কেশবপুর থানা বরাবর লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার কোমরপোল গ্রামের ভুন্ডল দাসের সাথে প্রতিবেশি রবিন দাস গংদের সাথে জমি ও বিভিন্ন বিষয়ে বিরোধ চলে আসছিল। তারই জের ধরে ৩১ মার্চ ভোরে রবিন দাস, মন্টু দাস, মান্দার দাস, ফুলচান দাস, সোনা দাস সংগবদ্ধ হয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বাশের লাঠি, লোকার রড-সহ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ভুন্ডল দাস ও তার ভাই শ্যামা দাসের উপর হামলা চালায়। ভুন্ডল দাস ও শ্যামা দাসের আতœচিৎকারে অপর প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে তারা আরো মারপিট ও খুন জখমের হুমকী দিয়ে চলে যায়। মারাতœক আহতাবস্থায় ভুন্ডল দাস (৫০) ও শ্যামা দাস (৪০) কে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এব্যাপারে ভুন্ডল দাসের স্ত্রী ফুলঝুরি দাসী বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। উল্লেখ্য রবিন দাস গং ইতিপূর্বেও ভুন্ডল দাস গংদের উপর হামলা চালিয়েছিল।

কেশবপুরে কর্মহীনদের মাঝে সাংবাদিক সাঈদ-এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি

কেশবপুরে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় লকডাউনে কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। কেশবপুর উপজেলা প্রেসকাব কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার সকালে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় লকডাউনে কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন কেশবপুর উপজেলা প্রেসকাবের সভাপতি এস আর সাঈদ।

উল্লেখ্য, কেশবপুরে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় লকডাউনে শ্রমজীবি, ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী, ভ্যান চালক, চা বিক্রেতা-সহ অসংখ্য মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে উপজেলা প্রশাসন, পৌরসভার মেয়র, ১১টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা সরকারিভাবে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে। তাছাড়া পৌরসভার নিজস্ব অর্থায়নে ও কেশবপুরের কৃতি সন্তান ডাক্তার  হাসনাত আনোয়ারও  খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। তবে অসংখ্য কর্মহীন মানুষের মাঝে আরো খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা প্রয়োজন।

কেশবপুর উপজেলা প্রেসকাবের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি

কেশবপুর উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও উপজেলা প্রেসকাবের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে কেশবপুর শহরে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় মাস্ক বিতরণ করেন উপজেলা প্রেসকাবের সভাপতি এস আর সাঈদ ও সাধারণ সম্পাদক রমেশ চন্দ্র দত্ত। এসময় উপজেলা প্রেসকাবের নেতৃবৃন্দ বাড়িতে অবস্থান করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলার জন্য সকলকে আহ্বান জানান।

কেশবপুরের মজিদপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুলের মৃত্যু : শোক

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি

কেশবপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় মারাত্মক আহত মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগনেতা শহিদুল ইসলাম ঢাকাতে একটি হাসপাতালে ২৫ দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে মৃত্যুবরণ করেছেন।  (ইন্না লিল্লাহি ….রাজিউন)। এদিকে সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগনেতা শহিদুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমীন, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা, মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মশিয়ার রহমান পিরু, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম সরোয়ার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাওঃ আব্দুল হালিম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ রাত ৮টার দিকে কেশবপুর-চুকনগর সড়কের কেশবপুর ফিলিং স্টেশন থেকে মোটর সাইকেলে তেল নিয়ে মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম (৬৭) এবং তার মোটরসাইকেল চালক দেউলি গ্রামের নিছার আলী ছেলে হান্নান মোড়ল (৩৫) মূল সড়কে উঠার সময় দ্রুতগামী একটি যাত্রীবাহী বাস (সাতক্ষীরা ব-৭৯) তাদেরকে ধাক্কা দেয়। ঘটনাস্থলে মোটরসাইকেল চালক হান্নান মোড়ল মাথায় প্রচন্ড আঘাত পেয়ে মৃত্যুবরণ করে এবং সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলামকে মারাত্মক আহতাবস্থায় প্রথমে কেশবপুর হাসপাতাল পরে খুলনায় এবং সর্বশেষ ঢাকাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেওয়া হলে ২৫দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর সেখানে তার মৃত্যু হয়।

বাগেরহাটে ভূমিহীণ আশ্রয় কেন্দ্রের শতাধিক পরিবার পেল খাদ্য সহায়তা

মাসুম হাওলাদার, বাগেরহাট

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ঘরবন্দি বাগেরহাটের ভূমিহীণ আশ্রয় কেন্দ্রের শতাধিক পরিবার খাদ্য সহায়তা পেয়েছে। বৃহষ্পতিবার সকালে বাগেরহাট সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের মাঝিডাঙা আশ্রয় কেন্দ্রের দরিদ্র পরিবারের মাঝে সরকারের বরাদ্দ দেয়া চাল বিতরণ করেন বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানজিল্লুর রহমান। সামজিক দুরত্ব মেনে এসব পরিবারের সদস্যদের হাতে দশ কেজি করে চাল দেয়া হয়। এসময় কাড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ বশিরুল ইসলাম, সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার মমতা রাণী দাস. ১ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শেখ জাহাঙ্গীর হোসেন, উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তানজিল্লুর রহমান বলেন, যারা দরিদ্র দিন আনে দিন খায় তাদের সবার আগে ত্রাণ পৌছে দিতে সরকার কাছ করছে। দরিদ্র এই সব মানুষ ঘর থেকে বাইরে বেরোতে না পারায় তাদের আয় রোজগার বন্ধ। আমরা এদের খোঁজ নিয়ে দ্রুত খাদ্য সহায়তা দেয়ার চেষ্টা কর ।এদিকে করোনা ভাইরাস সক্রমন রোধে সারাদেশে মানুষের স্বাভাবিক চলাচল সীমিত করেছে সরকার। গণপরিবহন বন্ধ, নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের দোকান ছাড়া অন্য সব দোকান বন্ধ। যার ফলে বিপাকে পড়েছে নি¤œ আয়ের মানুষ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। চিন্তা এখন দোকান না খুললে খাবে কি। এ জন্য অনেক চায়ের দোকানী পেেেটর তাগিতে তাদের প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছে। সদর উপজেলার মগরা বাজারের অর্ধশতাধিক চায়ের দোকান ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দোকান বন্ধ রাখা নিশ্চিত করতে চাল, ডাল, তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য সহয়তা দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে কাড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বশিরুল ইসলাম , সিদ্দিকবুর রহমানসহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতি ব্যবসায়ীকে ১০ কেজি চাল, দুই কেজি আলু, এক কেজি করে ডাল, তেল, লবন ও পেঁয়াজ এবং হাত ধোয়ার জন্য একটি করে সাবান দেওয়া হয়েছে

বাগেরহাটে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন করেছে। বুধবার সকালে মোড়েলগঞ্জ উপজেলার পঞ্চকরন গ্রামের রাস্তার পার্শে ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী সঠিক বিচারের দাবিতে এ মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করে। ভুক্তভোগী মোড়েলগঞ্জ উপজেলার পঞ্চকরন গ্রামের মৃত হাকিম শিকদারের ছেলে মোঃ কালাম শিকদার (৫৫)জানান, গত শনিবার (২৮ মার্চ) আমার ছেলে সুজন শিকদার (২৫) স্থানীয় সোনাখালি বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কিনতে গেলে স্থানীয় মোঃ হাসান দোকানদারের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। একই গ্রামের মৃত খালেক হাওলাদের ছেলে মোঃ মালেক হাওলাদার এতে বাধা দেয় এদিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিতন্ড সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে বাজারে অবস্থানরত স্থানীয়রা লোকজন দুজনকে শান্ত করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। তিনি বলেন,বিকালে আমার ছেলে আমার নাতনিকে কোলে নিয়ে বাড়ির সামনের রাস্তা দিয়ে ঘেরে যাওয়ার এক পর্যায়ে ডাকাত মালেকের নেতৃত্বে রিয়াজ,মতি,আলমসহ ৪০/৫০ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র রামদা,রড,লাঠি দিয়ে আমার ছেলের উপর হামলা করে। আমার স্ত্রী তাসলিমা বেগম (৪৫) বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তার উপর ও হামলা চালায় । আমার নাতনি মোঃ সিজান শিকদারকে (০৫) ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। এতে গুরুত্বর আহত হয়ে অজ্ঞান হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকে। পরে হামলা কারীরা বাড়িতে গিয়ে বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নিয়ে যায়। এতে আমার প্রায় দুই লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়। পরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা রিমন তালুকদার ও শাহিনসহ স্থানীয়রা বাধা দিলে হামলাকারীরা জীবন নাশের হুমকি দিয়ে ঘটনা স্থল ত্যাগ করে। তিনি ডাকাত মালেকসহ সকল হামলা কারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। এলাকাবাসিরা জানান,এই ডাকাত মালেকের নামে অসংখ্য মামলা রয়েছে। তার ভয়ে অনেকেই মুখ খুলতে সাহস পায় না। সে অধিকাংশ সময়ই জেলে থাকে। যখনই জেলা থেকে বের হয় তখনই শুরু করে সাধারন মানুষের উপর নির্যাতন। আমরা এলাকাবাসী তার হাত থেকে বাচতে চাই।

শিরোমণি বহিৃশিখা সংঘের উদ্যোগে ভয়াবহ করোনা ভাইরাসে কর্মহীন পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা)প্রতিনিধি

শিরোমণি বহিৃশিখা সংঘ ও পাঠাগারের উদ্যোগে ভয়াবহ করোনা ভাইরাসে কর্মহীন পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। ২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় শিরোমণি বহিৃশিখা সংঘ ও পাঠাগারের উদ্যোগে প্রায় ২০০ কর্মহীন পরিবারের মধ্যে ১সপ্তাহের খাদ্য সামগ্রী চাল, ডাল, তেল, আলু এবং সাবান বিতরণ করেন। সংগঠনের সভাপতি শেখ সাইফুল ইসলাম পলাশ, সাধারণ সম্পাদক মামুন সরোয়ার মুন্না, প্রফেসর আমিরুল ইসলাম, প্রভাষক মোল্যা জামাল হোসেন, মোঃ আজিজুর রহমান, কাজী বাচ্চু, এসএম লাভলু, আলহাজ্ব শেখ আল আমিন, জিএম ফারুকুল ইসলাম, কাগজী হাসান, মীর রবিউল আলম, মোঃ রবিউল ইসলাম, , মোঃ জিয়াউর রহমান, মোঃ রিয়াদ, মোঃ তৌহিদুল ইসলাম, মোঃ আমিরুল ইসলাম, মোঃ কিবরিয়া হোসেন টিপু, শাহিন মোড়ল, মোঃ আনিসুর রহমান প্রমুখ।

খুলনা জেলা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের উদ্যোগে খুলনা যশোর মহাসড়কে সকল পরিবহনে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা)প্রতিনিধি

 খুলনা জেলা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের উদ্যোগে ৪ দিনের কর্মসূচীর ৩য় দিন ২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত খুলনা যশোর মহাসড়কের ফুলবাড়ীগেট বাস স্ট্যান্ড চত্ত্বরে সকল পরিবহনে করোনা ভাইরাসের জীবানু মুক্ত রাখতে  কোভিড-১৯ এর জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়। খুলনা জেলা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এর সভাপতি মোঃ জাহিদুল কবির এর নেতৃত্বে সকাল ১০টায় শুরু হয়। এ কাজে অংশ গ্রহন করেন খানজাহান আলী থানা সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের সভাপতি মোঃ আব্দুল হানিফ, কুয়েট কর্মচারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান, আবুল কালাম আজাদ, রফিকুল ইসলাম মধু, আব্দুল হালিম খান, মোঃ মিলন, সুমন চৌধুরী, ইসমাইল হোসেন ইমন, মোঃ রুবেল হোসেন প্রমুখ।

সাতক্ষীরায় জোরদার করা হয়েছে সেনাবাহিনীর টহল

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে সাতক্ষীরায় সেনাবাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে। কেউ যাতে অযথা ঘরের বাহিরে ঘোরাফেরা না করেন এ জন্য তারা বৃহস্পতিবার বেলা ১২ টা থেকে এ টহল জোরদার করা হয়। সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার দেবাশীষ চৌধুরীর নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর সদস্যরা শহরের খুলনা রোড মোড়, কদমতলা, নিউমার্কেট, পাকাপোলের মোড়সহ বিভিন্ন সড়কে টহল দিচ্ছেন ও মাংকিং করছেন। এ সময় তারা দুই মোটর সাইকেল আরোহীকে অযথা শহরে ঘোরাফেরা করার অভিযোগে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন। তারা সবাইকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাহিরে বের হবেননা। বের হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া শহরে র‌্যাব পুলিশের টহলও জোরদার করা হয়েছে। এদিকে, শহরের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দোকান ও ঔষধের দোকান ছাড়া বাকী অন্যান্য দোকান পাট অধিকাংশই বন্ধ থাকায় রাস্তাঘাটে লোক-সমাগম খুবই কম। চলছে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান।

সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি যুবক করোনো ভাইরাসে আক্রান্ত না

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হওয়া যুবকের শরীরে করোনো ভাইরাসের কোন অস্তি¡ত্ব মেলেননি। তাকে আইসোলেশন থেকে জেনারেল ওয়ার্ডে নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার আইইডিসিআর থেকে পাওয়া রিপোর্টে করোনো ভাইরাসের অস্তি¡ত্ব  না মেলায় তাকে জেনারেল ওয়ার্ডে ট্রান্সফার করা হয়। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পেশায় এনজিও কর্মী ওই যুবক আগের চেয়ে সুস্থ আছেন। গত সোমবার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসলে তাকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করে নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছিল। যার রিপোর্টে করোনো ভাইরাস নেগেটিভ এসেছে।

প্রসঙ্গত ঃ সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার মৌতলা ইউনিয়নের লক্ষিনাথপুর গ্রামের এনজিও কর্মী আমিরুল গাজী বেসরকারি সংস্থা সুশীলনে কর্মরত আছেন। তার আগে থেকেই শ্বাসকষ্ট ও ডায়াবেটিস ছিল।

গিলাতলায় গৃহবধুর আতœহত্যা

খানজাহান আলী থানা প্রতিনিধি:

খানজাহান আলী থানাধীন নিউ মাওমডাঙ্গায় গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধু আত্যহত্যা করেছে ।  বৃহস্পতিবার বিকাল  ৩ টার সময় মাওমডাঙ্গা এলাকার শাহাজানের মেয়ে মিনারা (২১)  নিজ ঘরে আড়ার সাথে পড়নে ওড়না গলায় পেচিয়ে আত্যহত্যা করেছে।

এস আই দেবেশ জানান, এলাকাবাসির মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য  খুমেক হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। এ ব্যাপারে অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। সে স্বামী পরিত্যাক্তা মািহলা। স্থানিয় ইউপি সদস্য মাহমুদ হাসান জানান মহিলা মানসিক ভারসাম্যহিন রোগি ছিলেন।

লতায় জেলা আ’লীগ সাঃ সম্পাদকের পক্ষে ত্রাণ বিতরণ

কপিলমুনি প্রতিনিধি

খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. সুজিত অধিকারীর পক্ষে লতা ইউনিয়নের অসহায় মানুষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টায় ত্রাণ বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন লতা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কাজল কান্তি বিশ্বাস, লতা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্মল চন্দ্র বৈদ্য, ইউপি সদস্য আলমগীর খলিফা, আজিজুল বিশ্বাস, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সদস্য বিমল সরকার, দিলীপ রায়, প্রানকৃষ্ণ মন্ডল, দীনেশ তরফদার, কালিপদ বিশ্বাস, বিপুল বিশ্বাস, আজিজ সরদার, ফারুক সরদার, ফেরদৌস ঢালী, যুবনেতা মৃগাঙ্ক বিশ্বাস, হীরামন মন্ডল, পলাশ বাছাড়, সুদিপ্ত মন্ডল, মিজান সান, ছাত্রনেতা আশিক সরকার প্রমূখ।

কপিলমুনিতে পুলিশের অভিযান, মানতে শুরু করেছে সরকারী নির্দেশনা, দোকানপাট বন্ধ!

পলাশ কর্মকার, কপিলমুনি ঃ

খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনিতে থানা পুলিশের অভিযান ও নিরন্তর প্রচেষ্টার ফলে এলাকার মানুষ মানতে শুরু করেছে সরকারী নির্দেশনা। ফলে বন্ধ রাখা হয়েছে দোকান পাট। বৃহস্পতিবার বিকেলে পাইকগাছা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি এজাজ শফীর নের্তৃত্বে পুলিশের একটি সচেতনতামূলক অভিযান পরিচালিত হয়। এতে করে বন্ধ হয়ে যায় সব দোকানপাট। এর আগে বাজারে মানুষের সমাগম রীতিমতো প্রশ্নবিদ্ধ করে সর্ব মহলে। যেন কোন ক্রমেই প্রভাব ছিল না সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নের। মোটরসাইকেল মহড়া দেওয়ার পরপরই সকল দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। জনশুন্য হয়ে পড়ে ব্যাস্ততম কপিলমুনি বাজার। দোকানপাট বন্ধ হওয়ায় এক রকম ভুতুড়ে পরিবেশ সৃষ্টি হয়। পুলিশের সতর্ক অবস্থানে তাৎক্ষণিক জনসাধারণ যার যার মত বাড়ি চলে যায়।

স্থানীয়রা জানান, সরকারী ঘোষণা বা চলমান ছুটির বিষয়ে তেমন কোন গুরুত্ব ছিলনা এলাকার মানুষের মাঝে। ফলে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় চিন্তিত ছিলেন এলাকার সচেতন মহল। বিষয়টি নিয়ে সংবাদও প্রকাশিত হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকেও প্রচারিত হয়। এমন বিষয়টি থানা প্রশাসনের দৃষ্টিতে গেলে ওসি এজাজ শফির নের্তৃত্বে হরিঢালী পুলিশ ফাঁড়ী ইনচার্জ মোঃ মনিরুজ্জামানসহ বেশ কিছু পুলিশ কর্মকর্তার অংশ গ্রহণে মোটরসাইকেল বহর নিয়ে সচেতনতামূলক মহড়া পরিচালিত হয়। মুহুর্তের মধ্যে বদলে যায় জন সমাগম সহ দোকানপাটের চিরচেনা চিত্র। এ ঘটনার পর সমাজ সচেতন মানুষ ওসিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এবিষয়ে হরিঢালী পুলিশ ফাঁড়ী ইনচার্জ মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘করোনার ভয়াবহতার হাতে থেকে রক্ষা পেতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আমাদের এ প্রচেষ্টা। কোনভাবেই এ এলাকায় দোকানপাট হাটবাজার পাবলিক প্লেসে জনসমাগাম করতে দেওয়া হ্েব না।

নগরীতে করোনায় কাজ করছে বিএনসিসি সুন্দরবন রেজিমেন্টও

আইএসপিআর

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে দেশের জনগণকে রা ও সচেতন করার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) সুন্দরবন রেজিমেন্টও। বুধবার ওই রেজিমেন্টের উদ্যোগে নগরীর প্রায় ১০০ নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে চাল, ডাল, পেঁয়াজ, তেল, লবণ ও আলু বিতরণ করা হয়।

একইসঙ্গে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে সমন্বয় করে শহরের ব্যস্ততম পাঁচটি স্থান কোট বিল্ডিং, পোস্ট অফিসের সামন, নিউমার্কেট কাঁচাবাজার, শিববাড়ী মোড়, সন্ধ্যা বাজার ও রূপসা ঘাটে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন করেছে সুন্দরবন রেজিমেন্ট।পাশাপাশি শহরের বিভিন্ন স্থানে করোনা ভাইরাস নিয়ে সতর্কতামূলক ব্যানারও স্থাপন করেছে।

এর আগে বিএনসিসির সুন্দরবন রেজিমেন্ট কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল রাহাত নেওয়াজ সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের সঙ্গে সাাৎ করে বিএনসিসির বিভিন্ন উদ্যোগ সম্পর্কে অবগত করেন। এছাড়া সুন্দরবন রেজিমেন্টের আওয়তাধীন ২১টি জেলার বিএনসিসির প্লাটুন পর্যায়েও এ সংক্রান্ত বিভিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ রেজা উল-করিম শাম্মী স্বারিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এদিকে, করোনা মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় এবং হোম কোয়ারেন্টিনের বিষয়টি কঠোরভাবে নিশ্চিত করছে সেনাবাহিনী। করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। একইসঙ্গে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হতে এবং নির্দিষ্ট কিছু সেবা প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাট ছাড়া সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়। প্রথম কয়েকদিন নির্দেশনা মানা হলেও গেলো কয়েকদিন আবার এর ব্যত্যয় ঘটতে শুরু করে। আর এ কারণেই মাঠে আরও কঠোর হয়েছে সেনাবাহিনী। তারা মানুষকে যেকোনো মূল্যে ঘরে রাখার কর্মসূচি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে কাজ করছে।

ডুমুরিয়ায় নারী শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগে আটক ২

স্টাফ রিপোর্টার

ডুমুরিয়া উপজেলার কৈয়া বাজার এলাকায় ৩০বছর বয়সের এক নারী শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।  বুধবার রাতে তাদের আটক করা হয়। এর আগে সোমবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। আটকরা হলেন উপজেলার গুটুদিয়া গ্রামের আব্দুল করিমের ছেলে রেজওয়ান (৩৬) ও মোস্তফা গাজীর ছেলে আরিফ (৩০)।

ডুমুরিয়া থানার এসআই রফিক জানান,  এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া আটকদের আদালতে ও নারী শ্রমিককে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

ভুক্তভোগীর এক স্বজন বলেন, ওই নারী শ্রমিকের চার মেয়ে রয়েছে। স্বামী পরিত্যক্তা। করোনা ভাইরাসের কারণে টেক্সটাইল মিল বন্ধ থাকায় মেয়েদের নিয়ে না খেয়ে আছেন। তাই আমাদের বাসায় এসেছিলেন কিছু সাহায্যের জন্য। প্রতি মাসেই তাদের কিছু সাহায্য করা হয়। ৩০ মার্চ বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে গল্লামারী থেকে ডুমুরিয়ায় বাসায় যাওয়ার পথে আটককৃত দুইজনসহ আরও একজন তাকে জোর করে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে।

সাতীরায় র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা, গাঁজা ও বিদেশী মদসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

সাতীরা জেলার সদরের কালিগঞ্জ রোডে মাদক বিরোধী এক অভিযান চালিয়ে  ৯৫পিস ইয়াবা, ৪৫০গ্রাম গাঁজা ও এক বোতল বিদেশী মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। বুধবার রাত ১১টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন সাতীরা জেলার দেবহাটা থানার ৯নং ওয়ার্ড চালতেতলা গ্রামের মৃত. গহর আলী গাজীর ছেলে মো. আজিজুল ইসলাম গাজী (২৯)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, বুধবার রাত ১১টার দিকে সাতীরা  জেলার সদরের কালিগঞ্জ রোডে মাদক বিরোধী এক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় আলিপুর হাটখোলার মেসার্স শিলা ফার্মেসির সামনে থেকে ৯৫পিস ইয়াবা, ৪৫০গ্রাম গাঁজা ও এক বোতল বিদেশী মদসহ আজিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে সাতীরা সদর থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কলারোয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ৩৩৫পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

সাতীরা জেলার কলারোয়া থানাধীন কাকডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৩৫ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন সাতীরা জেলার কলারোয়া থানার কুঠিবাড়ি গ্রামের মো. আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. তরিকুল ইসলাম (১৯)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে সাতীরা জেলার কলারোয়া থানাধীন কাকডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় মো. রবিউল ইসলাম গাজী এর বাড়ি  থেকে ৩৩৫ পিস ইয়াবাসহ তরিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে কলারোয়া থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শার্শায় র‌্যাবের অভিযানে ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

যশোর জেলার শার্শা থানাধীন নাভারন-সাতীরা মোড়ে মাদক বিরোধী এক অভিযান চালিয়ে ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। বুধবার রাত ৯টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন যশোর জেলার ঝিকরগাছা থানার গদখালী গ্রামের মো. খোদাবক্স হোসেন গাজীর ছেলে মো. ইমাম হোসেন গাজী (৩০)।

র‌্যাব-৬ জানায়, বুধবার রাত ৯টার দিকে যশোর জেলার শার্শা থানাধীন নাভারন-সাতীরা মোড়ে মাদক বিরোধী এক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ ইমাম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে শার্শা থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ডুমুরিয়ায় জেলা ডিবি’র অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ২০০গ্রাম গাঁজা

এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামের মৃত. নাজের গাজীর ছেলে মো. জামাল গাজী (৩৮)। 

জেলা ডিবি জানায়, বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামে মাদকদ্রব্য উদ্ধার ও বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন ইনচার্জ  সেখ কনি মিয়া এর নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক গোপাল চন্দ্র রায়। এসময়

গুটুদিয়া ওয়াপদা ব্রীজের পুর্ব পাশের্^ হাইওয়ে রাস্তার উপর থেকে ২০০গ্রাম গাঁজা

জামাল গাজীকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ পরিদর্শক গোপাল চন্দ্র রায় বাদী হয়ে ডুমুরিয়া থানায় উপরোক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

সাতীরায় র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা, গাঁজা ও বিদেশী মদসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

সাতীরা জেলার সদরের কালিগঞ্জ রোডে মাদক বিরোধী এক অভিযান চালিয়ে  ৯৫পিস ইয়াবা, ৪৫০গ্রাম গাঁজা ও এক বোতল বিদেশী মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। বুধবার রাত ১১টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন সাতীরা জেলার দেবহাটা থানার ৯নং ওয়ার্ড চালতেতলা গ্রামের মৃত. গহর আলী গাজীর ছেলে মো. আজিজুল ইসলাম গাজী (২৯)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, বুধবার রাত ১১টার দিকে সাতীরা  জেলার সদরের কালিগঞ্জ রোডে মাদক বিরোধী এক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় আলিপুর হাটখোলার মেসার্স শিলা ফার্মেসির সামনে থেকে ৯৫পিস ইয়াবা, ৪৫০গ্রাম গাঁজা ও এক বোতল বিদেশী মদসহ আজিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে সাতীরা সদর থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কলারোয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ৩৩৫পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

সাতীরা জেলার কলারোয়া থানাধীন কাকডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৩৫ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন সাতীরা জেলার কলারোয়া থানার কুঠিবাড়ি গ্রামের মো. আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. তরিকুল ইসলাম (১৯)। 

র‌্যাব-৬ জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে সাতীরা জেলার কলারোয়া থানাধীন কাকডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় মো. রবিউল ইসলাম গাজী এর বাড়ি  থেকে ৩৩৫ পিস ইয়াবাসহ তরিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে কলারোয়া থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শার্শায় র‌্যাবের অভিযানে ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

যশোর জেলার শার্শা থানাধীন নাভারন-সাতীরা মোড়ে মাদক বিরোধী এক অভিযান চালিয়ে ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। বুধবার রাত ৯টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন যশোর জেলার ঝিকরগাছা থানার গদখালী গ্রামের মো. খোদাবক্স হোসেন গাজীর ছেলে মো. ইমাম হোসেন গাজী (৩০)।

র‌্যাব-৬ জানায়, বুধবার রাত ৯টার দিকে যশোর জেলার শার্শা থানাধীন নাভারন-সাতীরা মোড়ে মাদক বিরোধী এক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় ৩৪বোতল ফেন্সিডিলসহ ইমাম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে শার্শা থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ডুমুরিয়ায় জেলা ডিবি’র অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ২০০গ্রাম গাঁজা

এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামের মৃত. নাজের গাজীর ছেলে মো. জামাল গাজী (৩৮)। 

জেলা ডিবি জানায়, বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে খুলনা জেলার ডুমুরিয়া থানার গুটুদিয়া গ্রামে মাদকদ্রব্য উদ্ধার ও বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন ইনচার্জ  সেখ কনি মিয়া এর নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক গোপাল চন্দ্র রায়। এসময়

গুটুদিয়া ওয়াপদা ব্রীজের পুর্ব পাশের্^ হাইওয়ে রাস্তার উপর থেকে ২০০গ্রাম গাঁজা

জামাল গাজীকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ পরিদর্শক গোপাল চন্দ্র রায় বাদী হয়ে ডুমুরিয়া থানায় উপরোক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

ইসলামী আন্দোলন খুলনা মহানগরের অসহায়দের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগরের উদ্দোগে গতকাল বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে চরমোনাই পীর সাহেব হুজুরের নির্দেশে অসহায়, গরীব ও দিনমজুরদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। খাদ্য সামগ্রী বিতরণে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি আলহাজ্ব মুফতী আমানুল্লাহ, সহ সভাপতি মুফতী মাহবুবুর রহমান, সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, সহ সাংগঠনিক মোল্লা রবিউল ইসলাম তুষার, সহ প্রচার সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশীদ, সহ দপ্তর সম্পাদক মুফতী আমিরুল ইসলাম, ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতী আলী আহমদ, ইসলামী আন্দোলনের আবু হানিফ ভান্ডার, আব্দুল মান্নান সরদার, মোঃ আরিফুল ইসলাম, মোঃ মনির শেখ, মোঃ রমজান আলী প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

নেতৃবৃন্দ চরমোনাই পীর সাহেবের হুজুরের আহবানে অসহায়, দরিদ্রদের সাহায্যার্থে দেশের ধনাঢ্য ব্যাক্তিদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।

করোনা সংকটে বেনাপোলে বেকার হাজার শ্রমিক

বেনাপোল প্রতিনিধি

বেনাপোল স্থলবন্দরবাংলাদেশ ও ভারত করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিভিন্ন বিধি-নিষেধ আরোপ করেছে। তারই জেরে বন্দর এলাকার অর্থনীতি কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছে। স্থবির হয়ে পড়েছে বেনাপোল স্থলবন্দর। আর এর প্রভাব পড়েছে কয়েক হাজার শ্রমিকের ওপর। যেহেতু এই এলাকায় কোনও শিল্প-কারখানা নেই তাই বন্দরের আমদানি-রফতানি কার্যক্রমের ওপরই নির্ভরশীল শ্রমিকেরা।

শুধু শ্রমিক নয় বন্দর ও কাস্টমস সংশ্লিষ্ট কয়েকশ এনজিও কর্মীও একই অবস্থায় পড়েছে। ভারত দিয়ে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের সিংহভাগ পণ্য আসে এই বন্দর দিয়ে। আপাতত বেনাপোল বন্দরের সঙ্গে যুক্ত সীমান্ত এলাকার মানুষজন করোনার চেয়ে বেশি রুটি-রুজি তীব্র সংকটের ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন।

বাংলাদেশের সাধারণ ছুটি ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এরপর ভারতে ২১ দিনের লকডাউন ২৩ মার্চ থেকে শুরু হয়েছে যা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। সেই হিসেবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে আমদানি-রফতানি। পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও হেলপারদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস যাতে এক দেশ থেকে অন্য দেশে বিস্তার ঘটতে না পারে সে লক্ষ্যে বেনাপোল বন্দরের সঙ্গে সব ধরনের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ করা হয়েছে। গত ২২ মার্চ ভারতে কারফিউ থাকায় বন্ধ থাকে আমদানি-রফতানি। এরপর ২৩ মার্চ থেকে ২৭ মার্চ পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করে ভারত। এর মধ্যে ২৩ মার্চ রাতে এক ঘোষণায় ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। যা চলবে আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত। সেই হিসেবে ২৪ দিন বন্ধ থাকতে পারে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য। এর ফলে উভয় সীমান্তে আটকা পড়ে আছে শতশত পণ্যবোঝাই ট্রাক। যার অধিকাংশই বাংলাদেশের শতভাগ রফতানিমুখী গার্মেন্টস শিল্পের কাঁচামাল। যেগুলো বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় আছে।

গত ২২ মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে কোনও পণ্যবাহী ট্রাক বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করেনি। বেনাপোল বন্দর দিয়ে কোনও পণ্য নিয়ে ট্রাক পেট্রাপোল বন্দরে যায়নি। আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকায় ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। যদিও এখন পর্যন্ত তার বড় কোনও প্রভাব পড়েনি। তবে আর কয়েকদিন বন্ধ থাকলে শিল্প কারখানায় উৎপাদন ব্যহতের পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য-সামগ্রীর মূল্য বাড়ারও শঙ্কা রয়েছে ব্যবসায়ীদের। এদিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনে লকডাউনের সময় বৃদ্ধি করা হতে পারে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। তবে সে ক্ষেত্রে আমদানি-রফতানি সাময়িকভাবে চালু হতে পারে বলে আভাস পাওয়া গেছে। এরই মধ্যে গত ৩০ মার্চ জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ছুটিকালীন সময়ে আমদানিকৃত নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য, জরুরি চিকিৎসা ও অন্যান্য সেবা সামগ্রী শুল্কায়নসহ খালাস প্রদান এবং রফতানি ও ইপিজেডের কার্যক্রম সচল রাখার জন্য সকল কাস্টমস হাউস ও শুল্ক স্টেশনসমূহে সীমিত আকারে দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

বেনাপোল স্থলবন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য সবুজ মিয়া বলেন, আমরা এখানে কাজ করে যে টাকা পাই তাতে ভালোভাবে আমাদের সংসার চলে যায়। সম্প্রতি করোনাভাইরাসের কারণে সকল প্রকার লোড-আনলোড বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা শ্রমিকসহ সকলে অসুবিধায় পড়েছি। কীভাবে সংসার চলবে জানি না। কোনো উপার্জন নেই এই মুহূর্তে। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাজেন্ট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দু’দেশের সীমান্ত বাণিজ্য ২২ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে। সেই সঙ্গে কাস্টমস ও বন্দরে কোনও কাজ হচ্ছে না। ফলে আমাদের শত শত সদস্য খুব কষ্টের মধ্যে দিন পার করছে।

ভারতের পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, করোনার বিস্তার ঠেকাতে কেন্দ্রীয় ও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এতে সকল রকম আমদানি-রফতানিসহ সীমান্ত বাণিজ্য বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে স্থলবন্দর এলাকার অর্থনীতি কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছে।

বেনাপোল আমদানিকারক সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক আনু জানান, এখনই ক্ষতির মুখ দেখতে শুরু করেছে ভারত-বাংলাদেশের পণ্য আমদানি-রফতানিকারকেরা। ক্ষতি কাটিয়ে নিতে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের বড় ধরনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে। আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ভারতে লকডাউন ঘোষণা করায় আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। বাণিজ্য বন্ধ থাকলে ব্যবসায়ীদের ক্ষতির পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দামও বেড়ে যাবে। বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবির তরফদার বলেন, প্রতিদিন পেট্রাপোল বন্দর থেকে তিনশ থেকে চারশ ট্রাক আমদানি পণ্য নিয়ে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। আবার বেনাপোল দিয়ে দেড়শ’ থেকে আড়াইশ’ ট্রাক রফতানি পণ্য চালান যায় ভারতে। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দুই দেশের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমদানি-রফতানির পাশাপাশি বন্দরের সকল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা জানান, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে। কবে নাগাদ চালু হবে সেটা বলা যাচ্ছে না।

বালু ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

যশোর প্রতিনিধি

যশোর শহরের খড়কি এলাকায় বড় আলআমিন (২৪) নামে এক বালু ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এসময় আরও দুই জনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। বুধবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত বড় আলআমিন শহরের খড়কি এলাকার আলমগীর হোসেনের ছেলে। আহতরা হলেন একই এলাকার আব্দুল খালেকের ছেলে ছোট আল আমিন (২২) ও ইফাজতুল্লাহ সরদারের ছেলে সাহেব আলী (৪৫)। আহত ছোট আল আমিন জানিয়েছেন, বড় আল আমিন খড়কি এলাকার সিরাজ ও শরিফের কাছে বালু বিক্রি করেন। রাত ৯টার দিকে তারা তিনজন বালু বিক্রির সাড়ে ১৭ হাজার টাকা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। রাস্তায় খড়কি কবরস্থান মসজিদ মোড়ে পৌঁছালে একই এলাকার জামাল, হিরা, পিন্টু, বিপুল, লিটন, তরিকুলসহ ১০/১২ জন তাদের গতিরোধ করে এবং তিনজনকেই কুপিয়ে জখম করে। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। বড় আল আমিনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে খুলনা রেফার করা হয়।

নিহতের খালা আকলিমা বেগম বলেন, বড় আল আমিনকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর সেখানকার জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জানিয়েছেন, হাসপাতালে আনার আগেই সে মারা যায়। যশোর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, হত্যাকা-ে অংশ নেওয়াদের চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের আটকে পুলিশে অভিযান শুরু করেছে।

খুলনায় চরম দুর্ভোগে হতদরিদ্র মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনার হতদরিদ্র মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভয়ে কাজ হারিয়ে এসব মানুষ বেকার অবস্থায় সময় পার করছে। এদের অনেকের ঘরেই খাবার নেই। নেই গচ্ছিত টাকা। হতদরিদ্র এসব শ্রমজীবী মানুষের দিন কাটছে অর্ধাহারে-অনাহারে। ইতিমধ্যে অনেকের ঘরের সঞ্চিত খাবারও শেষ হয়ে গেছে। এদিকে, ত্রাণের দাবিতে বুধবার দুপুরে ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বাসভবনের সামনে শতাধিক হতদরিদ্র শ্রমজীবী নারী-পুরুষ অবস্থান নেয়। তবে ত্রাণের আশ্বাস নিয়েই তাদের ফিরে যেতে হয়েছে। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, খুলনা মহানগরীর ৩১টি ওয়ার্ডে ছোটো-বড়ো মিলিয়ে বস্তির সংখ্যা ৭২৬টি। এসব বস্তিতে প্রায় দুই লাখ মানুষের বসবাস। এর মধ্যে লক্ষাধিক রয়েছেন রিকশা, ভ্যান ও ইজিবাইকচালক। নগরীর ২ নম্বর কাস্টমস ঘাটের বাসিন্দা রিকশাচালক আনোয়ার মিয়া আক্ষেপ করে বলেন, আমার চার জনের সংসার। করোনার কারণে মানুষ রাস্তায় বের হচ্ছে না। ঠিকমতো রিকশাও চালাতে পারছি না। গত এক সপ্তাহ ধরে বেকার আছি। ঘরে খাবার নেই। বুধবার সকাল ৬টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ১০০ টাকাও আয় হইনি। নগরীর বসুপাড়া এলাকায় ষাটোর্ধ্ব অপর এক রিকশাচালক রমজান আলী বলেন, কোনো ভাড়া নেই। কেউ কোনো সাহায্যও করছে না। গত তিন দিনেও ডুমুরিয়া উপজেলার হতদরিদ্র বহু মানুষ সরকারি-বেসরকারি কোনো সাহায্য পায়নি।

বুধবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে আরাজি ডুমুরিয়া গ্রামের হতদরিদ্র রিজিয়া বেগম, পাতা বিশ্বাস, অঞ্জলি দাস, পঞ্চ দাস, কৈশালী দাস, গুটুদিয়া গ্রামের জেসমিন আক্তার, রূপা খাতুনসহ প্রায় শতাধিক হতদরিদ্র ক্ষুব্ধ নারী-পুরুষ ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনের সামনে জড়ো হয়। এ সময় তারা ত্রাণ দেওয়ার জন্য দাবি জানাতে থাকেন। কিন্তু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাদের সামনে আসেননি। তবে, খবর পেয়ে স্থানীয় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গাজী আব্দুল হালিম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্জিব কুমার দাস ইউএনওর বাসভবনের সামনে এসে তাদের সঙ্গে কথা বলে ত্রাণ দেওয়ার আশ্বাস দেন। এছাড়া নাম ঠিকানাসহ তাদের তালিকা লিপিবদ্ধ করেন।

ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. শাহনাজ বেগম মোবাইল ফোনে বলেন, আমরা যে ত্রাণ পেয়েছি, তা জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করে দিয়েছি। আবার ত্রাণ এলে যারা পায়নি তাদের যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে দেওয়া হবে। খুলনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আজিজুল হক জোয়ার্দার জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে খুলনা মহানগরীসহ জেলার বেকার থাকা হতদরিদ্র ও খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষের জন্য সরকার নতুন করে ২০০ মেট্রিক টন চাল ও ৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। এর আগে গত ২৫ মার্চ ২৭২ মেট্রিক টন চাল ও ৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল।

চৌগাছায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের ভবন নির্মাণের ইট চুরির অভিযোগ!

যশোর প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছার মাকাপুর-বল্লভপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের ইট চুরি করে নিজের বাড়িতে কাজ করার অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী। বল্লভপুর গ্রামের আব্দুর রহমান, ইসাকুল, বিল্লাল হোসেনসহ জানিয়েছেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলামের বাড়িতে একটি গরুর গোয়াল ঘর নির্মাণ করেছেন। ওই গোয়াল ঘর নির্মাণের কাজে তিনি স্কুলের ভবন নির্মাণের ইট ব্যবহার করেছেন। সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য ইমান আলী বলেন, বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের ইট নিজের কাজে ব্যবহার করে থাকলে চরম অপরাধ করেছেন।

বিদ্যালয় সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় বলেন, স্কুলের ইট যদি প্রধান শিক্ষকের বাড়িতে কাজে লাগানো হয় তবে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে বিদ্যালয়ের ইট দিয়ে নিজের বাড়িতে কাজ করার কথা অস্বীকার করেছেন প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম।

খুলনা প্রেসকাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক হস্তান্তর

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষার জন্য খুলনা প্রেসকাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সচেতনতামূলক প্রচারপত্র হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন। বৃহস্পতিবার দুপুরে খুলনা প্রেসকাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজাসহ উপস্থিত নেতৃবৃন্দের নিকট হ্যান্ড স্যানিটাইজার হস্তান্তর করেন যুব ইউনয়িনের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাড. মো. বাবুল হাওলাদার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রেসকাবের সাবেক সভাপতি ও নির্বাহী  সদস্য মকবুল হোসেন মিন্টু, সাবেক সভাপতি এ হে হিরু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহিদ হোসেন, সাবেক সদস্য সচিব ও নির্বাহী সদস্য মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, যুগ্ম-সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, নির্বাহী সদস্য হাসান আহমেদ মোল্লা, সদস্য মো. শাহ আলম, ওয়াহেদ-উজ-জামান বুলু, দেবব্রত রায়, কৌশিক দে ও শেখ তৌহিদুল ইসলাম তুহিন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) এর খুলনা মহানগর সভাপতি এইচ এম শাহদাৎ, সিপিবি নেতা মিজানুর রহমান বাবু, যুব ইউনিয়নের খুলনা জেলা সভাপতি অ্যাড. নিত্যানন্দ ঢালী প্রমুখ। এছাড়া বাংলাদেশ জুট এ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব মাহফুজুল হকের পক্ষে খুলনা প্রেসকাবে মাস্ক হস্তান্তর করেন কাবের সদস্য শেখ তৌহিদুল ইসলাম তুহিন।

কয়রায় দক্ষিণ বেদকাশিতে দুর্বৃত্তের দেওয়া আগুনে ঘর পুড়ে ছাই

কয়রা প্রতিনিধি

খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিন বেদকাশি ইউনিয়নের আংটিহারা খাসিটানা বেড়িবাঁধ সংলগ্ন একটি লোনা পানির চিংড়ি ঘেরের বাসা রাতের অন্ধকারে আগুন লাগিয়ে পালিয়েছে দুর্বৃক্তরা। অগ্নিকান্ডে ঘর সম্পূর্ণ পূড়ে প্রায় ৩ লক্ষাধিক   টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজন দাবী করেছেন। এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তিদের সূত্রে জানা গেছে, ৩১ শে মার্চ মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নে ৪ নং ওয়ার্ড আংটিহারা খাসিটানা গ্রামে রশিদ ঢালীর ঘেরের বাসায় আগুন লাগে। ঘটনার পর সকালে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি পরিদর্শন করেছে দক্ষিণ বেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান জি এম শামছুর রহমান ।

ক্ষতিগ্রস্ত আঃ রশিদ ঢালী জানায়, রাত আনুঃ ১০ ঘটিকার সময় আমার পুত্র শামীম ও আমি ঘেরে যাই। আমার পুত্র ঘেরের বাসায় অবস্থান করে আর আমি টর্চ লাইট নিয়ে পাহারত অবস্থায় ঘের হইতে ওয়াপদার রাস্তায় উঠি। তখন ২ জন অপরিচিত লোক আমার ঘেরে যাইবে বলে পথ দেখাইয়া দিতে বলে। আমি আমার ঘের দেখাইয়া দিয়ে আমার পুত্রকে বাসা থেকে বের করে নিয়ে পাশ্ববর্তী বাড়ীতে যাই। উক্ত বাড়ী হইতে আমার পুত্র বাড়ীতে চলে যায় এবং আমি সেখানে থাকি। গভীর রাতে শব্দ পেয়ে ঘুম থেকে উঠে আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে পেয়ে গ্রামবাসীর হাক চিৎকারে লোকজন জড়ো হন পানি দিয়ে আগুন নেভানোর জোর চেষ্টা করে । কিন্তু ততক্ষণে মুহুর্তের মধ্যে ঘেরের বাসার বসতঘর সম্পূর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ঘেরের এরামিট টিন এর বাসা সহ বাসায় থাকা  আসবাবপত্র, একটি নতুন হিরো হোন্ডা মোটর সাইকেল, নগদ ১০ হাজার টাকা,প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র,  ডিড,হারি ও হিসাবের খাতাপত্র, দু’টি সোলার প্যানেল, লক্ষাধিক টাকা মূল্যের মাছ ধরার বড় ফাঁস জাল,আটন, ৮ বস্তা সার, হাড়ি পাতিলসহ ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।তিনি আরও বলেন আমাদের ধারণা শত্রুতা মুলকভাবে দুর্বৃত্তরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।এব্যাপারে কয়রা থানা লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।দক্ষিন বেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান জিএম শামছুর রহমান ঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেন,ঘটনা স্থান পরিদর্শ করে আইনের আশ্রয় নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ রবিউল হোসেন বলেন, আগুনে চিংড়ি ঘেরের বাসা পুড়ে যাওয়ার বিষয়টি শুনেছি । লিখিত পেয়েছি তদন্ত পূর্বক  ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

কয়রায় জেলা আওয়ামীলীগ নেতার খাদ্র সামগ্রী বিতরণ অসহায়দের মাঝে

কয়রা প্রতিনিধি

খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ সুজিত অধিকারী কয়রায় মরণঘাতি করোনার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ দিনমজুর ও দুস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী এবং মাক্স ও সাবান বিতরণ করেছেন। তিনি বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে কতিপয় দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেৃবৃন্দের নিকট এসব খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন। এসময় তার সাথে ছিলেন, কয়রা-পাইকগাছার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু। জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক এ্যাডঃ ফরিদ আহম্মেদ, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয়নেতা অসিত বরণ বিশ্বাস,পাইকগাছা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইকবল মন্টু, কয়রা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জিএম মোহসিন রেজা ও বিজয় কুমার সরদার। দলীয় কার্যালয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষে জেলা আওয়ামীলীগ নেতা সাংবাদিকদের জানান, সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে তিনি এবং তার দলের স্বচ্ছল নেতাকর্মীরা এই দূর্যোগ মহুর্তে দিন মজুর এবং অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে খাদ্য সামগ্রীসহ অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় মালামাল বিতরণ করছেন। তিনি বলেন খুলনার প্রতিটি উপজেলায় এমনকি অনেক ইউনিয়নেও তিনি নিজ উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন। এসময় এমপি বাবু সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, তিনি এবং তার সংগঠনের পক্ষ থেকে কয়রা পাইকগাছার ১৮ টি ইউনিয়নে দলমত নির্বিশেষে সকল পেশার শ্রমজীবী পরিবারে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেওয়া হবে।

মোংলায় করোনায় কর্মহীনদের মাঝে কেসিসি মেয়রের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক মোংলায় করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। পৌর কর্তৃপক্ষের আয়োজনে বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে স্থায়ী বন্দরের পাওয়ার হাউজ এলাকায় ১শ পরিবারের হাতে এ খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন কেসিসি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

এ সময় মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো: জুলফিকার আলী, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আ: রহমান, পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: আ: রাজ্জাক, বন্দর সিবিএ’র সভাপতি মো: সাইজউদ্দিন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মো: ফিরোজসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ডাক্তার-নার্সসহ এলাকাবাসীর মানববন্ধন

শরণখোলায় ডাঃ সিরাজুলের বদলি প্রত্যাহারের দাবী

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যপরায়ন মেডিকেল অফিসার ডাঃ সিরাজুল ইসলামের বদলির আদেশ প্রত্যাহার ও স্বেচ্ছারী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াসমিনের অপসারণের দাবীতে পৃথক পৃথক মানববন্ধন করেছে ডাক্তার, স্টাফ নার্স ও এলাকাবাসী। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় প্রেসকাবের সামনের সড়কে মানব কল্যান সোসাইটির ব্যানারে এলাকাবাসী এবং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে ডাক্তার ও স্টাফ নার্স এ মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও পেশাজীবি সংগঠনের নের্তৃবৃন্দ অংশ নেন। এসময় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজমল হোসেন মুক্তা, মানব কল্যান সোসাইটির শরণখোলা শাখার সদস্য সচিব সুরাইয়া আক্তার, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মাসুম বিল্লাহ, শ্রমিকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম মিরাজ, তাঁতীলীগের আহবায়ক জিয়াউল তালুকদার প্রমুখ।

বক্তারা জানান, শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘদিন থেকে ডাক্তার সংকট চলে আসছে। এর মধ্যে বর্তমান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াসমিন প্রশাসনিক কাজ ছাড়া কোন রোগী দেখেন না। এ অবস্থায় করোনা ভাইরাস সংকট মোকাবেলায় পাঁচজন ডাক্তার হিমশিম খাচ্ছেন। এমন সময় কর্তব্যপরায়ন মেডিকেল অফিসার ডাঃ সিরাজুল ইসলামকে বাগেরহাট সদরে বদলি করায় এলাকায় চিকিৎসা সংকট দেখা দিয়েছে। তারা অবিলম্বে ওই ডাক্তারের বদলির অদেশ প্রত্যাহারের দাবী জানান। পাশাপাশি রোগী, মেডিকেল অফিসার ও নার্সদের সাথে দুর্ব্যবহারকারী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াসমিনের অপসারণের দাবী জানান।

অপরদিকে ডাঃ সিরাজুল ইসলামের বদলী প্রত্যাহারের দাবীতে ডাক্তার ও স্টাফ নার্স যৌথভাবে মানববন্ধন করেন। অবিলম্বে ওই বদলীর আদেশ প্রত্যাহার করা না হলে কর্মবিরতিসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করবেন বলে তারা জানান। এসময় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র স্টাফ নার্স শিখা রানী ও জোহরা খাতুন। জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াসমিন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ডাঃ সিরাজুল ইসলামকে ডেপুটেশনে বাগেরহাট সদরে নিয়েছেন এখানে আমার কিছু করার নেই।

ব্যাপারে বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডাঃ হুমায়ুন কবির বলেন, করনো সংকটের কারণে অন্যান্য উপজেলার মতো শরণখোলা থেকেও একজনকে সাময়িক ডেপুটেশনে নিয়ে আসা হয়েছে। ১১ এপ্রিলের পরে তাকে পুনঃরায় শরণখোলা ফিরিয়ে দেয়া হবে। এ ব্যাপারে সকলের সহযোগীতা চান তিনি।

খুলনায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানদের এগিয়ে আসার উদাত্ত আহবান সিটি মেয়রের

তথ্য বিবরণী

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘মানবিক সহায়তা কর্মসূচির’ আওতায় বৃহস্পতিবার সকালে খুলনা সার্কিট হাউস চত্বরে সমাজের অনগ্রসর, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মাঝে চাল, ডাল, তেল, আলু, সাবান, মাস্কসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। বিতরণে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বিতরণকালে দুর্যোগ মোবাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানদের এগিয়ে আসার উদাত্ত আহবান জানান সিটি মেয়র। যতদিন এই করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে না আসবে ততদিন  ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, সবকিছু সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। সকলের সহযোগিতায় এ দুর্যোগ থেকে উত্তরণ সম্ভব।

এসময় খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জিয়াউর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সারোয়ার আহমেদ সালেহীন, উপপুলিশ কমিশনার মোঃ এহসান শাহ এবং খুলনা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক খান মোতাহার হোসেন উপস্থিত ছিলেন। সিটি মেয়র ও জেলা প্রশাসক দুইশ জনের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন।

করোনায় কর্মহীন ৩শ পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী দিয়েছে নৌবাহিনী

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে মোংলায় ঘরে থাকা নি¤œ আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে নৌবাহিনী। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় নৌবাহিনীর মোংলা এনক্স চত্বরে ৩শ অসহায় পরিবারের হাতে এ খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন খুলনা নৌঅঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা। এ সময় মোংলা নৌঘাঁটির অধিনায়ক ক্যাপ্টেন মইনুল, অন্যান্য নৌ কর্মকর্তা ও জেসিও’স এবং নাবিকেরা উপস্থিত ছিলেন। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, চিনি, লবণ ও আলু।

ব্যক্তি ও সংগঠন পর্যায়ে ত্রাণ বিতরণে জেলা প্রশাসনের বিজ্ঞপ্তি জারি

তথ্য বিবরণী

ব্যক্তি বা সংগঠন পর্যায়ে ত্রাণ সহায়তা করতে হলে জেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে সম্পন্ন করতে খুলনা জেলা প্রশাসন বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। খুলনা জেলায় করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে চলমান ‘ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন’-এর কারণে কর্মহীন পরিবারের মাঝে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কিংবা বিত্তবান ব্যক্তির মাধ্যমে পরিচালিত ‘মানবিক সহায়তা’ কর্মসূচিকে সুন্দর, সুশৃঙ্খল ও সুসমন্বিত করার লক্ষ্যে দুর্যোগ বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলি অনুযায়ী খুলনা জেলা প্রশাসন গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কোথায়, কখন, কতটি পরিবারকে কী ধরণের ত্রাণ সহায়তা করতে চান তা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করে জেলা প্রশাসনকে পূর্বেই জানিয়ে ত্রাণ বিতরণে অনুমতি গ্রহণের জন্য নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। নমুনা ফরম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ই-সেবাকেন্দ্র, সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় এবং সিটি কর্পোরেশনের কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করা যাবে। এছাড় জেলা প্রশাসনের ওয়েব পোর্টাল িি.িশযঁষহধ.মড়া.নফ থেকেও ডাউনলোড করা যাবে। ত্রাণ বিতরণের পরে যে সকল পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে তার একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কন্ট্রোলরুমে দাখিল করতে হবে। প্রয়োজনে ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জিয়াউর রহমান এর মোবাইল নম্বর ০১৭১২৬৪৭৬২৯ এ যোগাযোগ করা যাবে।

ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিটি এলাকায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাড়াতে হবে: মঞ্জু

খবর বিজ্ঞপ্তি

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস যখন বিশ্বব্যাপী গ্রাস করে বসেছে, তখন ভাইরাসের কারণে মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছে না। এই প্রাদুর্ভাব ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে মানুষ ঘরে বন্দি। কর্মহীন শ্রমজীবি নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে আজ বিকেলে ২৫ নং ওয়ার্ড বিএনপির উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন নগর বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

বিতরণকালে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস আজ মহামারী আকারে ধারণ করেছে বিশ্বব্যাপী। এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া কঠিন। সকলকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। বার বার সাবান পানি দিয়ে ২০ সেকেন্ড হাত ধুতে হবে। মুখে মাস্ক ও হাতে গাভস ব্যবহার করতে হবে। সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিটি এলাকায় হত দরিদ্র মানুষের পাশে দাড়াতে হবে এবং মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আলাহ তালাহ’র কাছে সাহায্য চাহিতে হবে। ত্রাণ বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন আসাদুজ্জামান মুরাদ, একরামুল কবির মিল্টন, মাহবুব হাসান পিয়ারু, শরিফুল ইসলাম বাবু, আনিসুর রহমান আরজু, হেদায়েত হোসেন, ওহেদুজ্জামান খোকন, শামীম আহসান, শাহাদাৎ হোসেন বাবলু, ইমরান হোসেন, শরিফুল ইসলাম সাগর, আশিকুর রহমান, শেখ মারুফ হোসেন।

ইজিবাইক শ্রমিক দল নেতা মানিকের ইন্তেকাল: নগর বিএনপির শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা ইজিবাইক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মানিক গতকাল রাতে মৃত্যুবরণ করেন (ইন্নালিলাহি…রাজিউন)। সে দীর্ঘদিন মরণব্যাধী ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন। সে রাজপথে থেকে মিত্যা মামলায় কারাভোগ করেছেন। বিভিন্ন আন্দোলনে তার সাহসী ভূমিকা ছিল। মানিকের মৃত্যুতে গভীর শোক, শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিভিন্ন প্রদান করেছেন নগর বিএনপি নেতৃবৃন্দ।

বিবৃতিদাতারা হলেন, বিএনপির চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা এম নুরুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, সৈয়দা নার্গিস আলী, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউলাহ খান সাচ্চু, জলিল খান কালাম, সিরাজুল ইসলাম, এড. ফজলে হালিম লিটন, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শেখ আমজাদ হোসেন, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, এস এম আরিফুর রহমান মিঠু, ইকবাল হোসেন খোকন প্রমুখ।