সারা খুলনা অঞ্চলের খবর

14
Spread the love

বাগেরহাটে বাঁধনের যুব নেটওয়ার্ক কমিটি গঠন
বাগেরহাট প্রতিনিধি
সরকারি সেবা ও যুবদের গতিশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাঁধন মানব উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে যুবদের নিয়ে একটি নেটওয়ার্ক এর কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে একশনএইড এর সহযোগীতায় ও বাঁধনের বাস্তবায়নে রবিবার সকালে শহরের দশানীস্থ বাঁধনের নিজস্ব ট্রেনিং সেন্টারে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। বাঁধনের নির্বাহী পরিচালক এএসএম মঞ্জুরুল হাসান মিলনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বাগেরহাট প্রেসকাবের সাধারন সম্পাদক তালুকদার আব্দুল বাকী, সদর উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ আজগার আলী, বিডা প্রতিনিধি মোঃ মশিউর রহমান, একশনএইড এর ইন্সপাইরেটর মোঃ হানিফ, ব্রাক প্রতিনিধি এমডি আলমাসুর রহমান, রুপান্তর প্রতিনিধি আলমগীর হোসেন মিরু প্রমুখ। এছাড়াও আলোচনা সভায় সাংবাদিবক, ইয়ূথ জার্নালিষ্ট ফোরাম, টিআইবি, ইয়েস গ্রুপ, বাঁধনের ইয়ূথ গ্রুপের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেস। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাঁধনের এফোরআই প্রকল্পের কো-অর্ডিনেটর খোন্দকার মুশফিকুল ইসলাম। সভা শেষে বাগেরহাট প্রেসকাব, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, বিডা,ব্রাক’কে উপদেষ্টা, দাতা সংস্থা একশনএইড বাংলাদেশকে কারিগরি উপদেষ্টা, উন্নয়ন সংস্থা রুপান্তকে আহবায়ক ও বাঁধন যুব সংগঠনকে সদস্য সচিব করে একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

ডুমুরিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতে ১৩ হাজার টাকা জরিমানা
ডুমুরিয়া প্রতিনিধি
ডুমুরিয়ায় করোনা ভাইরাসের অজুহাতে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও জনসমাবেশ ঘটানোর অভিযোগে ভ্রাম্যমান আদালতে ১৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।গতকাল সোমবার বিকেলে আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোছাঃ শাহনাজ বেগম।
আদালত সুত্রে জানা গেছে,উপজেলার থুকড়া বাজারে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে সৈকত স্টোর’কে ৩ হাজার , জুঁই স্টোর’কে ১ হাজার,মিষ্টির দোকানদার ফারুক হোসেন ৫ হাজার,মুদি দোকানী আবদুল গণিকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করে আদায় করা হয়েছে। এছাড়া ডুমুরিয়া বাস স্ট্যান্ড’র পাশে জন-সমাগম ঘটানোর দায়ে চায়ের দোকানদার আবদুল মান্নানের নিকট থেকে ১ হাজার টাকাসহ মোট ১৩হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

তেরখাদায় শোকাহত পরিবারের পাশে জেলা আওয়ামী লীগ নেতা জামাল
খবর বিজ্ঞপ্তি

গতকাল তেরখাদা উপজেলার বারাসাত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ও বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ তাজিবর রহমান (৭০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন (ইন্নালিল্লাহে….. রাজেউন)। তার মৃত্যুর খবর শুনে মরহুমের নিজস্ব বাসভবনে শোকাহত পরিবারের পাশে ছুটে যান খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান জামাল। এসময় অন্যাণ্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মোল্যা ইমদাদুল হক, যুবলীগ নেতা জামিল খান, অধ্যক্ষ মনোয়ার হোসেন, রেজাউল ইসলাম রেজা, রাকিবুজ্জামান ইমন, মোঃ মাশিকুর চৌধুরী, মোঃ আরিফ হাসান, ফরহাদ শিকদার, জুয়েল রানা, মোঃ মফিজ শেখ, মোঃ সাজ্জাদ বিশ^াস, মোঃ ইমারত শেখ, শামীম বিশ^াস, মেহেদী হাসান, জামাল ফকির প্রমুখ। এ সময় নেতৃবৃন্দ মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

ইসলামী আন্দোলনের নেতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ
খবর বিজ্ঞপ্তি
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর কমিটির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য, বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি খুলনা জেলার সাধারণ সম্পাদক ও জামিয়া রশীদিয়া গোয়ালখালী মাদ্রাসার সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার রজব আলী গতকাল সোমবার বেলা বারটায় ঢাকায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে… রাজিউন। মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও পরিবারের প্রতিবাদ সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর হাফেজ মাওঃ অধ্যক্ষ আব্দুল আউয়াল, মহাসচীব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওঃ ইউনুচ আহমাদ, বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির সেক্রেটারী জেনারেল খন্দকার গোলাম মাওলা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি মুফতী আমানুল্লাহ, জেলা সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ ইমরান, নগর সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, জেলা সেক্রেটারী মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির খুলনা জেলা ছদর মাওঃ ফরিদ আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক শেখ হাসান ওবায়দুল করীম, ইসলামী আন্দোলন নগর সহ সভাপতি মাওঃ মোজাফ্ফার হোসাইন, মুফতী মাহবুবুর রহমান, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওঃ দ্বীন ইসলাম, ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদ নগর সভাপতি মুফতী গোলামুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মুফতী আব্দুল্লাহ ইয়াহইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম সজীব মোল্লা, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন নগর সভাপতি আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গাজী মুরাদ হোসেন, ইসলামী যুব আন্দোলন নগর সভাপতি আলহাজ্ব আবুল কাশেম, সাধারণ সম্পাদক মুফতী আমিরুল ইসলাম, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন নগর সভাপতি এইচ এম খালিদ সাইফুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ মঈনুল ইসলাম। নেতৃবৃন্দ মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

যশোরে ব্যবসায়ীকে মারপিট করে ৫০ হাজার টাকা লুট
যশোর অফিস
যশোর জিলা পরিষদ মার্কেটে সেলুন মালিক মনির হোসেন টিটুকে মারপিট করে ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিলেও তিন দিনে পুলিশ এজাহার হিসেবে রেকর্ড করেনি। এমনটি লুট করা টাকা উদ্ধার করতে পারেনি। এদিকে মারপিটে আহত মনির হোসেন টিটু যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত মনির হোনে টিটু যশোর সদর উপজেলার সুজলপুর গ্রামের নুর ইসলাম বাবুর ছেলে।
আহতের মা রিনা বেগম দায়েরকৃত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, যশোর সদর উপজেলার ধর্মতলা কদমতলা হ্যাচারী পাড়ার আহম্মদ শেখের ছেলে আরিফ এবং শহরের চোরমারা দীঘিরপাড় এলাকার শাহআলমের সাথে পূর্বশত্রুতার চলছিল। তারই জের ধরে শনিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে দোকান বন্ধ করে দোকানের ৫০ হাজার টাকা নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার জন্য বের হলে অজ্ঞাত পরিচয়ে আরো দুইতিনজনসহ তারা দুইজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যার উদ্দ্যেশে টিটুর গলায় আঘাত করে। এসময় ধারালো অস্ত্রটি কানের পাশ দিয়ে চলে যায়। এসময় দুর্বৃত্বরা লোহার রড দিয়ে তার মাথায়, পিঠে, শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করতে থাকে। এসময় টিটুর মা রিনা বেগম ঠেকাতে আসলে তারা তাকেও মারপিট করে শ্লীলতাহানি ঘটায়। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্বরা ব্যবসায়িক ৫০ হাজার টাকা নিয়ে চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়া হয়।
এ ঘটনায় টিটুর মা ওই রাতেই থানায় অভিযোগ করেন। থানার ওসি অভিযোগটি তদন্তের দায়িত্ব দেন এসআই মতিয়ার রহমান। রোববার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও এজাহার হিসেবে রেকর্ড করেনি।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, মনির হোসেন টিটু তিন বছর আগে বিয়ে করেন। তার স্ত্রীর সাথে শাহআলমের পরকীয়া চলছে। এতে টিটু বাধা দিলে তাকে হত্যার জন্য পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়েছে। কোতয়ালি থানার এসআই মতিয়ার রহমান জানান, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

করোনা ভাইরাস : কিস্তির টাকা নিয়ে বিপাকে পড়েছে যশোরের নি¤œআয়ের তিন লাখ গ্রাহক
যশোর অফিস
করোনা ভাইরাসের কারণে যশোরে নি¤œআয়ের প্রায় তিন লাখ মানুষ বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার (এনজিও) কিস্তির টাকা দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন। ভুক্তভোগীরা আপদকালীন সময়ে কিস্তি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।
জানা গেছে, যশোর জেলা ১০৪টি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে। এছাড়া রাজধানী বা অন্যান্য শহরের প্রতিষ্ঠিত সংস্থার যশোরে ক্রেডিট প্রোগ্রাম রয়েছে। এসময় সংস্থার বেশি ভাগ প্রতিষ্ঠানের ক্রেডিট প্রোগ্রাম বা ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প রয়েছে। এসব সংস্থার মধ্যে গ্রামী ব্যাংকে দেড় লাখ, আশার প্রায় দেড় লাখ, ব্রাকের প্রায় ১ লাখসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রায় নি¤œআয়ের তিন লাখ গ্রাহক রয়েছে। প্রতি সপ্তাহে তাদের কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য থাকে।
অভিযোগ রয়েছে এসব সংস্থার কর্মীরা করোনা আতংকে আতংকিত হয়ে পড়েছে। তারা মাঠপর্যায়ে যেতে ভয় পাচ্ছেন। তারপর গ্রাহকরা কিস্তির টাকা দিতে পারছে না নি¤œ আয়ের গ্রাহকরা। আদ্ব-দ্বীনের ঋণগ্রাহক তাসলিমা খাতুন জানান, তার স্বামী রিকসা চালায়। করোনার কারণে সে শহরে গিয়ে রিকসা চালাতে পারছে না। এসময় ঘরে খাওয়ার তেমন নেই। দুই ছেলে মেয়ের সংসারে বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে কিস্তির টাকা দেব কিভাবে। আর টাকা না দিয়ে সংস্থার মাঠকর্মীরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ দেয়।
আশার গ্রাহক মণিরামপুরের নিলুফার ইয়াসমিন জানান, কাজ কর্ম একেবারে বন্ধ। আমি বা আমার স্বামী কেউ কাজে যেতে পারছি না। যে কারণে কিস্তির টাকা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। একটি ছাগল ছিল তা দিয়ে দুই সপ্তাহের কিস্তি দিয়েছে। আগামীতে কিস্তি কিভাবে দেবো বুঝতে পারছিনা।
ব্যুরো বাংলাদেশের গ্রাহক রনজিতা পারভীন জানান, কাজকর্মে যেতে পারছি না। তাই সুদে টাকা এনে এক সপ্তাহের কিস্তি দিয়েছি। আগামী সপ্তাহ কিভাবে টাকা দেবো বুঝতে পারছি না। কাজকর্ম চললে কিস্তির টাকা নিয়ে ভাবা লাগতো না।
এভাবে অধিকাংশ গ্রাহক কিস্তির টাকা নিয়ে বিপাকে পড়েছে। বিপদকালীন সময়ে তাদের দুই সপ্তাহ বা তিন সপ্তাহে কিস্তি স্থগিতের দাবি করেছেন নি¤œ আয়ের গ্রাহকরা।
নুপুর খানম নামে এক গ্রাহক জানান, দেশের অন্যান্য অঞ্চলে কিস্তির টাকা কয়েক সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। যশোরে তা করা হয়নি। অথচ করোনার কারণে সব কাজ কর্ম বন্ধ রয়েছে। তাই তিনি আপদকালীন সময়ে কিস্তির টাকা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।

করোনা সর্তকতায় যশোরে প্রবাসীদের বাড়িতে লাল পতাকা
যশোর অফিস
করোনা সর্তকতায় যশোরের উপশহরে বিদেশ ফেরতদের বাড়িতে লাল পতাকা টানানো শুরু হয়েছে। যেন মানুষ বুঝতে পারে এ বাড়িতে বিদেশ ফেরত রয়েছে এবং সে অনুযায়ী সর্তকতা অবলম্বন করে চলতে পারে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারে নির্দেশে এ কার্যক্রম চলছে বলে জানিয়েছেন উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।
সোমবার দুপুরে উপশহরের বি-ব্লকে গিয়ে দেখা যায়, ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নিজেই তত্বাবধান করছেন পতাকা লাগানোর কাজ। গ্রাম পুলিশরা এক বাড়িতে পতাকা লাগাচ্ছেন। জানা গেল, এ বাড়ির একজন কুয়েত থেকে সম্প্রতি বাড়ি ফিরেছেন। একারনে করোনা সর্তকর্তার জন্য এ ব্যবস্থা।
উপশহর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু জানান, শনিবার ইউএনও সাহেব পাসপোর্ট অফিসের তথ্য অনুযায়ী আমাদের কাছে একটা লিস্ট দিয়েছে। ১৫ থেকে ২০ দিন আগে যারা বিদেশে থেকে বাড়ি এসেছে তাদের তথ্য আছে। তথ্য অনুযায়ী আমরা লাল পতাকা দেয়া শুরু করেছি। সোমবার ইউনিয়নের ১১ বাড়িতে লাল পতাকা দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিগুলোয় দেয়া হবে।

যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে চাঁদা চেয়ে হুমকী
যশোর অফিস
যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুলের মোবাইল নাম্বারে গভীর রাতে চাঁদা চেয়ে হুমকী দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে তিনি নিরাপত্তার কথা ভেবে সোমবার কোতয়ালি মডেল থানায় সাধারণ ডাইরীভূক্ত করেছেন।
জানাগেছে, যশোর শহরের পুাতন কসবা ইসরাইল হোসেন চাকলাদারের ছেলে জেলা পরিষদরে চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুলের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির মোবাইল নাম্বার থেকে রোববার গভীর রাত পৌনে ২ টায় ফোন করে।তিনি ফোন রিসিভ করলে তার কাছে চাঁদা দাবি করে দুস্কৃতিকারীরা। চাঁদা না দিলে তাকে প্রাণ নাশের হুমকী প্রদান করেন। হুমকীর ফলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেছেন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি তাকে যে কোন সময় চাঁদার জন্য বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে। তিনি চরমভাবে নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। ফলে তিনি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সোমবার কোতয়ালি মডেল থানায় সাধারণ ডাইরীভূক্ত করেছেন পিকুলের পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

যশোরে গাঁজার গাছসহ এক ব্যক্তি গ্রেফতার
যশোর অফিস
র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের সদস্যরা সদর উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামের এক ব্যক্তির চাষকৃত একটি গাঁজার গাছ উদ্ধার করেছে। এ সময় গাঁজার গাছের মালিক নূর ইসলামকে গ্রেফতার করেছে। সে সদর উপজেলার এড়েন্দা গ্রামের আমিনুল্লাহ সরদারের ছেলে।
র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের সদস্যরা জানান,রোববার ২২ মার্চ বিকেলে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি টিম সদর উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামের রাস্তার উপর নূর ইসলামের চাষকৃত একটি গাঁজার গাছ উদ্ধার করে। এ সময় নূর ইসলামকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে কোতয়ালি মডেল থানায় সোর্পদ করে মাদক আইনে মামলা দায়ের করেন।সোমবার নূর ইসলামকে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ আদালতে সোপর্দ করে।

যশোরে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে মামলা
যশোর অফিস
ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সদর উপজেলার আড়পাড়া এলাকায় গতিরোধ করে মারপিট টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সদর উপজেলার আড়পাড়া দক্ষিণ পাড়াস্থ শরিফুল ইসলামের ছেলে নয়ন হোসেন মামলাটি দায়ের করেন। তিনি মামলায় উল্লেখ করেন,গত ২০ মার্চ বিকেলে তিনি আড়পাড়াস্থ পরিত্যক্ত কারখানার ফাকা মাঠে যাওয়ার সময় পুর্ব শত্রুতার কারনে শাকিব হোসেনসহ অজ্ঞাতনামা ২জন তার গতিরোধ করে। তাকে মারপিট শুরু করে। এসময় তার চাচাতো ভাই তাইফুজ্জামান ঠেকাতে এলে তাকেও মারপিট করে তাদের দু’জনের কাছে থাকা ১৬ হাজার ৮শ’ টাকা ছিনিয়ে নেয়। হামলার সময় তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে দুস্কৃতিকারীদের মধ্যে আড়পাড়া দক্ষিণ পাড়ার ইসামাইল হোসেনের ছেলে শাকিব হোসেনকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করে। ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে নয়ন হোসেনের সাথে শাকিবের সম্প্রতি বিরোধ বাধে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে যশোরে লিফলেট বিতরণসহ প্রচার অব্যাহত
যশোর অফিস
করোনাভাইরাসে আতংকিত না হয়ে সচেতন হতে যশোর জেলাব্যাপী লিফলেট বিতরণসহ নানা প্রচারণা চালাচ্ছে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ নিজে বিভিন্ন উপজেলায় গিয়ে জনগণকে সতর্ক করছেন। এছাড়া বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও স্বেচ্ছাসেবীরাও জেলা প্রশাসনের আহবানে সাড়া দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।
ব্র্যাক যশোর অঞ্চলের মাইক্রোফাইন্যান্স, গর্জে উঠো, যশোর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, যশোর পৌরসভা অব্যাহতভাবে জনসচেতনামূলক প্রচার প্রচারণা ও লিফলেট বিতরণ অব্যাহত রেখেছে। এজন্য অন্য সময়ের চেয়ে গেল এক সপ্তাহ জেলার মানুষকে মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা গেছে। হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও জীবাণুনাশকের দোকানেও ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।
ব্র্যাক যশোর অঞ্চলের মাইক্রোফাইন্যান্সের রিজিওনাল ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম বলেন, করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির উপায় হলো জনসচেতনা। এজন্য ব্র্যাক যশোরের প্রতি গ্রামে জনসচেতনমূলক লিফলেট বিতরণ করছে। সোমবার সকালে শহরের চাঁচড়া এলাকায় তারা লিফলেট বিতরণ করেছেন। জেলা সমন্বয়কারী অমরেশ চন্দ্র দাস ও আরএম মনিরুল ইসলামসহ অন্য কর্মকর্তারা আলাদা গ্রুপে প্রচারণা চালিয়েছেন। যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ বলেন, জেলা প্রশাসন নানা বার্তা দিয়ে জনগণকে সতর্ক করছে। দেশে প্রত্যাগতদের হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশনা দিয়ে মনিটরিং করছেন।

ঝিকরগাছায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন ১২শ প্রবাসী: আতঙ্কে এলাকাবাসী
যশোর অফিস
যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় ১২শ মানুষ বিদেশ থেকে বাড়ি ফিরেছেন। কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা বলা হলেও তাদের অবাধ বিচরণে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। আতঙ্কে তারা থানায় ফোন করলেও থানা থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগে জানাতে বলা হচ্ছে। আর তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য করা হবে বলেই দায় সারছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।
জানা গেছে, ভাইরাসের সংক্রমণের পর উপজেলার বাঁকড়া এলাকায় অনেক নাগরিক ইতালি, মালয়েশিয়া, বাহরাইনসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বাড়ি এসেছেন। কিন্তু তারা সরকারি কোনো আইন না মেনে অবাধে হাট-বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে চরম আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। পুলিশে খবর দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছে না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জানান, বাঁকড়া বাজারে ইতালি ও মালেয়শিয়া ফেরতদের দেখে থানায় ফোন করলে তারা ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য বিভাগে জানানোর কথা বলেছে।
এদিকে ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, জেলা প্রশাসক প্রত্যেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার সদস্য, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান ও তাদের সদস্যসহ দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের নিয়ে জরুরি সভা করেছেন। প্রত্যেক উপজেলায় প্রশাসনিক কর্মকতা ও প্রত্যেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের অধীনে একটি করে কমিটি গঠন করা হবে। তাদের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
তিনি বলেন, গোটা উপজেলায় মোট ১২শ বিদেশফেরত মানুষ রয়েছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা তাদের তালিকা করবেন এবং স্বাস্থ্য বিভাগের অফিসে জমা দেবেন। এই তালিকা পাওয়ার পর আমরা ব্যবস্থা নেব। সবাইকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। এটা আমাদের ১৫ দিনের একটা চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জে আমাদের সকল নাগরিককে সহযোগিতা করতে হবে। এই চ্যালেঞ্জে ও সকলের সচেতনতায় হয়ত দেশ অনেক বড় ঝুঁকি থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে।

কেশবপুরে হোম কোয়ারেন্টাইন না মানায় ভ্রাম্যমানা আদালতে ২জনকে জরিমানা
আলমগীর হোসেন, কেশবপুর
যশোরের কেশবপুরে হোম কোয়ারেন্টাইন না মানায় ভ্রাম্যমান আদালতে ২ জনকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুসরাত জাহান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা যৌথ অভিযান পরিচালনা করে নির্বাহী মাজিস্ট্রেটের ক্ষমতাবলে সোমবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতে কেশবপুর শহরের কপোতাক্ষ সার্জিক্যাল কিনিকের দায়িত্বে থাকা মিজানুর রহমান হোম কোয়ারেন্টাইন না মানায় তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও দুবাই ফেরত শ্রীপুর গ্রামের নুর ইসলামের স্ত্রী জহুরা বেগমকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

কেশবপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গনসচেতনামূলক কার্যক্রম পরিচালনা
কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি
যশোরের কেশবপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ বিষয়ে লিফলেট বিতরণ ও গনসচেতনামূলক কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। সোমবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুসরাত জাহান ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানার নেতৃত্বে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ম্যানেজার শুভংকর বিশ্বাস-সহ সরকারী কর্মকর্তাগন শহরের অভিযান পরিচালনা করেন। অপরদিকে উপজেলা কৃষি অফিসার মহাদেব চন্দ্র সানা, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার এস এম আলমগীর হোসেন, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার মেহেদী হাসান, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী শাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মনির হোসেন ও ইমরান বিন ইসলাম, সহকারী পল্লী উন্নয়ন অফিসার হংসপতি বিশ্বাসের নেতৃত্বে কর্মকর্তাগন শহরের একটি অংশে অভিযান পরিচালনা করেন।
উভায় অভিযানে কর্মকর্তাগণ শহরে চায়ের দোকান-সহ বিভিন্ন দোকানে অহেতুক ভীড় না করে বাড়িতে অবস্থান করা, মাস্ক ব্যবহার করা, টেলিভিশন ও কেরামবোট বন্ধ রাখা, দ্রব্যমূল্য বৃদ্দি না করা-সহ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ বিষয়ে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়।

পাটকেলঘাটায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা আদায়
পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি
পাটকেলঘাটায় অতি মুনাফা লাভের আশায় অধিক মুল্যে নিত্যপণ্য বিক্রির অভিযোগে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে জরিমানা আদায় করা হয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় জেলা প্রশাসকের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল আমিনের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। এতে মুল্য তালিকা না থাকায় এবং অতিরিক্ত মুল্যে চাউল ও পেয়াজ বিক্রির দায়ে প্রদীপ স্টোরকে ২ হাজার টাকা, নিপা স্টোরকে ১৫০০ শ টাকা, আদি সততা ষ্টোর কে ২ হাজার টাকা সহ বিভিন্ন দোকানে এবং সাধারন ক্রেতাদের সাথে কথা বলে অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়। এসময় করোনার সচেতনতামুলক নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

পাটকেলঘাটা করোনা ভাইরাস সচেতনতামুলক লিফলেট বিতরণ
পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি
‘করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক হোন’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে সোমবার (২৩মার্চ) সকাল ১১টায় পাটকেলঘাটা বাজারে অলিগলিতে বিভিন্ন শ্রেনির পেশার মানুষের মাঝে গনসচেতনা সৃষ্টি জন্য লিপলেট প্রচার প্রচারনায় শুভ উদ্বোধন করেন সাতক্ষীরা-১ (তালা -কলারোয়া) আসনের গনমানুষের প্রিয় নেতা তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেতা শেখ নুরুল ইসলাম। এসময় প্রচারণায় অংশগ্রহন করেন তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার শেখ আব্দুল হাই,সরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বিশ্বাস আতিয়ার রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক আব্দুর রব পলাশ,পাটকেলঘাটা নিউজ কাবের সভাপতি মফিদুল ইসলাম,তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যানির্বাহী কমিটির সদস্য মাহফুজুর রহমান মধু,পাটকেলঘাটা যুবক্রীড়া কাবের সভাপতি আবু হোসেন, পাটকেলঘাটা যুবক্রীড়া কাবের সাধারন সম্পাদক মো. রিপন হোসাইন,আওয়ামীলীগ নেতা ও সমাজসেবক শাহ-আলম টিটো, হাফিজ উদ্দীন,আব্দুর সাত্তার, আলাউর ইসলাম,তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মশিউর আলম সুমন,কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ওসমান গনি প্রমুখ।

অভয়নগরে সচেতনতা মুলক লিফলেট বিতরণ
অভয়নগর প্রতিনিধি
অভয়নগরে হৃদয় টেকরিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের উদ্দ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করোনীয় সচেতনতা মুলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। ২২ ও ২৩ মার্চ দুই দিন ব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ও পৌর এলাকায় এই সকল লিফলেট বিতরণ করা হয়। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সাধারণ যে সকল বিষয় মানুষ খুব সহজে ব্যবস্থা নিতে পারেন যেমন, সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়া, মুখে মাক্সব্যাবহার করা, হাচি-কাশিঁর সময় সিষ্টাচার মেনে চলা, জনবহুল এলাকা পরিহার করা। ডেটল দিয়ে বা বিলিসিন পানি সাথে মিশিয়ে ঘরবাড়ি সহ আসপাশ পরিস্কার রাখা সহ বিভিন্ন বিষয়ে মানুষকে সচেতন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানের পরিচালক সাংবাদিক জাকির হোসেন হৃদয়, সুপারভাইজার ফারজানা ইয়াসমিন, রহিমা বেগম, শামিমা ইয়াসমিন সহ প্রমুখ।

অভয়নগরে চাল মজুদের দায়ে ব্যবসায়ীকে জরিমানা
অভয়নগর প্রতিনিধি
অভয়নগরে অবৈধভাবে চাল মজুদের দায়ে জাকিরুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার বিকালে উপজেলার একতারপুর গ্রামে জাকিরুলের বাড়িতে এ অভিযান চালিয়ে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেএম রফিকুল ইসলাম।
আদালত সূত্র জানায়, চাল মজুদ করা হয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার বিকালে উপজেলার একতারপুর গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে জাকিরুল ইসলামের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এসময় বাড়ির মধ্যে অবৈধভাবে চাল মজুদের দায়ে জাকিরুলকে অত্যাবাকশ্যকীয় পণ্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জব্দ করা হয় ৪৪ বস্তা (৫০ কেজি) ও ১৯৯ বস্তা (২৫ কেজি) চাল। জব্দকৃত চাল আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করার নির্দেশ দেয়া হয়।

অভয়নগরে চাল ব্যবসায়ীদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের মতবিনিময়
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি
অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্থানীয় চাল মিল মালিক ও ব্যবসায়ীদের সাথে বর্তমান বাজার পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে চালের দাম না বাড়ানোর অঙ্গিকার করেছে ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা। গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুসেইন খাঁনের সভাপতিত্বে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন, অভয়নগর থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম ছামদানী, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মীনা খানম, নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসমাইল আদম, মজুমদার অটো রাইস মিলের মালিক আদিত্য মজুমদার, পরশ অটো রাইস মিলের মালিক আনিসুর রহমান, পাইকারী চাল ব্যবসায়ী মো. বাপ্পি প্রমুখ। সভায় উপজেলার বিভিন্ন অটো ও হ্যাসকিং মিল মালিক, পাইকারি ও খুচরা চাল ব্যবসায়ী সহ সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আগামী এক মাসের মধ্যে চালের মূল্য বৃদ্ধি না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়া বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে চালের বাজার সঠিক রাখাসহ সব থেকে বেশি বিক্রিত স্বর্ণা চাল ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা কেজির মধ্যে রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গৃহিত সকল সিদ্ধান্ত অমাণ্যকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণেরও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের করোনা সচেতনতার লিফলেট বিতরণ
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি
অভয়নগর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুসেইন খাঁনের নেতৃত্বে এ লিফলেট নওয়াপাড়া বাজার, খেয়াঘাট ও শংকরপাশা বাজারের ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগণের মাঝে বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, নওয়াপাড়া প্রেস কাবের যুগ্ম সম্পাদক এস জেড মাসুদ তাজ, সদস্য জাকির হোসেন হৃদয়, রিপানুল ইসলাম, শিকদার আনিসুর রহমান সহ স্কাউটের সদস্যবৃন্দ।

করোনা প্রতিরোধে লিফলেট বিতরণ করেছে নওয়াপাড়া পৌরসভা
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি
নওয়াপাড়া পৌরসভার উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও করণীয় বিষয়ের উপর পৌরবাসীর মাঝে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১২ টার সময় পৌর মেয়র ও অভয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সুশান্ত কুমার দাস শান্তর সভাপতিত্বে এ লিফলেট বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, পৌর প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, পৌর কাউন্সিলর জিয়াউদ্দিন পলাশ, মিজানুর রহমান মোল্যা, শাহ্ জোবায়ের, মুজিবর রহমান, বস্তিউন্নয়ন কর্মকর্তা রাজিবুর রহমান সহ পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

ডুমুরিয়ায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ১১ প্রবাসী ঃ নির্দেশনা মানতে মাইকিং
ডুমুরিয়া প্রতিনিধি
ডুমুরিয়ায় সদ্য বিদেশ ফেরত ১১জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে।এদের মধ্যে ১জন কুয়েত,১জন সৌদি আরব এবং বাকিরা ভারত ফেরত বলে জানা গেছে।এদিকে করোনা ভাইরাসের প্রার্দূভাব প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন,স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও আইন শৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে।গতকাল রবিবার থেকে উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহনাজ বেগম স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তি মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচার প্রচারনা অব্যাহত রয়েছে।ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে শুধুমাত্র সরকারী কর্মকান্ড ও করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত বিষয়ে দাপ্তরিক কর্মকান্ড ব্যতিত সকল ধরনের সমাবেশ,সেমিনার,সামাজিক,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড বন্ধ থাকবে।বিকেল ৫টার পর সকল চায়ের দোকান বন্ধ থাকবে এমনকি ওই দোকানে বেঞ্চ,টুল বা টিভি থাকবে না।পরবর্তি নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সকল গরুর হাট বন্ধ থাকবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে রশিদ প্রদান ও দ্রব্যাদির মূল্য তালিকা দোকানে টাঙ্গাতে হবে। নির্দেশ অমান্য কারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ডুমুরিয়ায় ব্যবসায়ীকে লাঞ্চিত’র ঘটনায় জিডি
ডুমুরিয়া প্রতিনিধি
ডুমুরিয়ায় এক ব্যবসায়ীকে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে লাঞ্চিত করেছে প্রতিপক্ষ।গত বৃহস্পতিবার রাত অনুমান ৮টার দিকে উপজেলার শাহাপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় থানায় একটি সাধারন ডায়রি করা হয়েছে। ডায়রি সূত্রে জানা যায়,আন্দুলিয়া এলাকার সোয়াইব বিশ্বাস,নাহিদ হোসেন সজল ও সাগর ফকিকের সাথে শাহাপুর বাজারস্থ ফাতেমা বস্ত্রালয়’র মালিক আব্দুর রব আকুঞ্জির পূর্ব শত্রুতা রয়েছে।তারই জের ধরে ঘটনার রাতে ওই ৩ যুবক তার দোকানের সামনে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।কারন জানতে চাইলে তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়া হয় এবং খুন,জখম ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি দেয়া হয়।ঘটনা প্রসঙ্গে ওসি মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন,তদন্ত সাপেক্ষে এ ্ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ডুমুরিয়ায় জিয়ালতলা মহামায়া আশ্রম সাময়িক স্থগিত
ডুমুরিয়া প্রতিনিধি
করোনাস ভাইরাস প্রার্দূভাব প্রতিরোধে ডুমুরিয়ায় শোভনা ইউনিয়নে জিয়ালতলা মহামায়া আশ্রমের সকল কর্মকান্ড বন্দ ঘোষনা করা হয়েছে।মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা বিবেচনা ও সরকারী নির্দেশনা মেনে চলতে এ সিন্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে বলে আশ্রমের অধ্যক্ষ নারায়ন চন্দ্র গোস্বামী স্বাক্ষরিত এক প্রেস সূত্রে জানা গেছে।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে যুগ যুগ ধরে বহমান জিয়ালতলা মহামায়া আশ্রমে সপ্তাহে প্রতি মঙ্গলবার রাতে হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের সমাগম ঘটে আসছে। সম্প্রতি করোনা প্রতিরোধে সরকারী নির্দেশনায় এ কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে। এ কারনে দুর দুরন্ত থেকে আগত ভক্তবৃন্দ ও শুভাঙ্খীদের আশ্রমে না আসতে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

দেবহাটা উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির ত্রিবার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন
দেবহাটা প্রতিনিধি
দেবহাটা উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিঃ এর ত্রিবার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির নির্বাচনে মোট ৮ টি পদের মধ্যে ইতিমধ্যে সভাপতি হিসেবে সাবেক ইউপি সদস্য জাকির হোসেন, সহ-সভাপতি পদে আব্দুর রশিদ ও সদস্য হিসেবে ১নং ব্লকে আব্দুর রহিম, ২নং ব্লকে নজরুল ইসলাম ও ৬নং ব্লকে আশুতোষ কুমার সরদার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। সোমবার বাকী ৩ টি ব্লকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৩নং ব্লকে এসাকুল ইসলাম ও মোহাম্মাদ আলীর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এসাকুল ইসলাম, ৪নং ব্লকে কাশেম সরদার ও আফজাল হোসেনের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আফজাল হোসেন এবং ৫নং ব্লকে আবুল কালাম আজাদ ও রফিকুল ইসলামের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আবুল কালাম আজাদ নির্বাচিত হন। নির্বাচনে মোট ৩৩ জন ভোটারের মধ্যে ২৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচন কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা আকরাম হোসেন। এছাড়া নির্বাচন কমিটির সদস্য হিসেবে সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তাজি.এম আব্দুস সামাদ ও জেলা সমবায় কার্যালয়ের পরিদর্শক রাজিব হোসেন দায়িত্ব পালন করেন। পোলিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা সমবায় অফিসের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর আতাউর রহমান।

দেবহাটায় ইউএনওর উদ্যোগে করোনা সতর্কতায় ১৯টি টিমের তৎপরতা
কে.এম রেজাউল করিম, দেবহাটা
দেবহাটায় ইউএনওর উদ্যোগে করোনা সতর্কতায় প্রশাসনের পাশাপাশি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয়ে ১৯ টি মাঠে কাজ করছে। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করতে সাধারণ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে “দেবহাটা ক্যাটারিং সার্ভিস”সহ ” বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। তারা প্রশাসনের পাশাপাশি স্বেচ্ছায় সেবা দিয়ে চলেছে অবিরাম। দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীনের সহযোগিতায় মাস্ক, জীবানুনাশক হ্যান্ড স্প্রেসহ সচেতনমূলক লিফলেট বিতরণ করে সাধারণ মানুষকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সতর্ক করছে তারা। দেবহাটা উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে সচেতনতামূলক প্রচারে সবাইকে বলা হচ্ছে বেশি বেশি হাত ধুতে, বাইরে থেকে এসেই আগে নিজের কাপড় ডিটারজেন্ট দিয়ে ধুয়ে ফেলতে, সাবান দিয়ে গোসল করতে এবং প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে। তামাক জাতীয় দ্রব্য যেমন (সিগারেট, তামাক) না থেকে এবং যেখানে সেখানে থু থু ফেলা যাবে না। সাথে সাথে যেসব দোকানে ক্রেতার ভীড় বেশি সে সব দোকানের সামনে জীবানুনাশক স্প্রে রাখতে যাতে ক্রেতারা দোকানের ভিতরে ঢোকার আগে হাত ধৌত করে ঢুকতে পারে। দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন করোনা সতর্কতায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পর্যবেক্ষন ও সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করছেন। দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে প্রশাসনের ৫টি টিম প্রত্যেকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেন এবং প্রত্যেকের বাড়িতে বাড়িতে লাল পতাকা ও হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের হাতে কোয়ারেন্টাইন সিল মেরে দেয়া হচ্ছে। দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন গত ১লা মার্চ থেকে ২৩ মার্চ বিকাল ৪ টা পর্যন্ত মোট ১৬০ জন ব্যক্তি হোম কোয়ারেন্টাইনে আঝে জানিয়ে বলেন, সকলের করোনা ভাইরাস সম্পর্কে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত ও সকলকে সচেতন করার জন্য কাজ করা হচ্ছে। বর্তমান বৈশ্বিক সমস্যা করোনায় আতঙ্কিত না হয়ে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে নিরাপদ থাকার আহ্বান জানিয়ে ইউএনও আতর্কিত না হয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন। প্রশাসনের ১৯টি টিমের পাশাপাশি পুলিশের ৪টি টিম ও বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সমাজসেবী সংগঠন করোনা সতর্কতায় কাজ করছে জানান ইউএনও। ইউএনও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তি ও তাদের পরিবারবর্গসহ বিভিন্ন এলাকায় মাস্ক প্রদান করছেন।

দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যানের উদ্যোগে করোনা থেকে রক্ষায় বিশেষ দোয়া
দেবহাটা প্রতিনিধি
দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আব্দুল গনির উদ্যোগে করোনা থেকে রক্ষা পেতে বিশেষ দোয়ার অনুষ্ঠান সোমবার সকাল ১১ টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যানের চাঁদপুরস্থ নিজস্ব বাসভবন সংলগ্ন মসজিদে উপজেলার সকল মসজিদের ইমামদের অংশগ্রহনে মহান আল্লাহ মালিকের কাছে এই দোয়ার অনুষ্ঠান করা হয়েছে। বর্তমানে করোনা সমস্যায় সারা বিশ^ স্থবির হয়ে পড়েছে। বর্তমানে আমাদের দেশের মানুষেরাও করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এই বালা থেকে মুক্তির জন্য মহান আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থমা করে ও আল্লাহ মালিকের রহমান লাভের আশায় এই দোয়ার অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আব্দুল গনি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সবুজ, উপজেলা ইমাম সমিতির সভাপতি হাফেজ মাওলানা আব্দুস সাত্তার, উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম মুফতি আব্দুর রহমানসহ উপজেলার সকল মসজিদের ইমামগন উপস্থিত ছিলেন।

ফকিরহাটে করোনা বিষয়ে মাইকিং ও লিফলেট বিতরন
ফকিরহাট প্রতিনিধি
বাগেরহাটের ফকিরহাটে করোনা বিষয়ে সচেতনতা মূলক মাইকিং করে ব্যাপক প্রচার প্রচারনা ও লিফলেট বিতরণ করেছেন বাগেরহাট জেলা পুলিশ। সোমবার দুপুর ১২টায় সদর ইউনিয়নের জনবহুল বিশ্বরোড মোড় ও মুলঘর ইউনিয়নের সর্ববৃহৎ ফলতিতা মৎস্য আড়ৎ বাজার সহ বিভিন্ন হাট-বাজার এবং গুরুত্বর্পূণ কয়েকটি মোড়ে এই মাইকিং করা হয়েছে। এসময় বাগেরহাট জেলা পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় জনসাধারনের মধ্যে করোনা সচেতনা মূলক লিফলেটও বিতরণ করেন। এসময় তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন ফকিরহাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহানাজ পারভীন, মডেল থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু সাইদ মোঃ খায়রল আনাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক শিরিনা আক্তার সহ বিভিন্ন কর্মকর্তাবৃন্দ(পিকেএ)।

ব্র্যাক এর উদ্যোগে খুলনাতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহন
খবর বিজ্ঞপ্তি
গতকাল সোমবার খুলনা শহরের জনবহুল এলাকাগুলোতে চলমান যাত্রী ও জনসাধারণের মধ্যে করোনা ভাইরাস বিষয়ে জনসচেতনা সৃষ্টি করার লক্ষ্যে ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর উদ্যোগে নগরীর সোনাডাংগা বাস স্ট্যান্ড, রুপসা ফেরিঘাট এলাকায় খুলনা শহরে আগত ও বহির্গত জনসাধারনের মধ্যে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয় এবং সেই সাথে হাত জীবানুমুক্ত করা হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সকলের মধ্যে বিতরণ করা হয়। এছাড়াও খুলনা বাস মিনিবাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের সরাসরি সহায়তায় খুলনা শহরে আগত সকল বাস মিনিবাস কে বিশেষ ধরনের জীবানুমূক দ্রবন দিয়ে জীবানু মুক্ত করার ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। ব্র্যাক এর এই উদ্যোগ আগামী সাত দিন নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চলবে। উক্ত কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক জেলা সমন্বয়কারি জনাব আবু সাঈদ, সিনিয়র রিজিওনাল কোওর্ডিনেটর জনাব আবু মোজাফফর মাহমুদ , উর্ধতন কর্মকর্তা কেশব লাল গাইন, তমিজ উদ্দিন, জয়ন্ত হালদার, উতপল কুমার দাস, ইউসুপ আলি। ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর সিনিয়র রিজিওনাল কোওর্ডিনেটর জনাব আবু মোজাফফর মাহমুদ বলেন ব্র্যাক সবসময় দেশের আপদকালীন সময়ে জনসাধারণের পাশে থেকেেেছ , আর্থ-সামাজিক যেকোন উন্নয়ন কাজে ব্র্যাক মানুষের পাশে থাকবে।

বটিয়াঘাটা সংবাদ
বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি ঃ বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম ও রূপসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন বেগম এর যৌথ হস্থক্ষেপে লামিয়া খাতুন (১৪) নামের এক ৯ম শ্রেণীর ছাত্রীর বাল্য বিবাহ বন্ধ হয়েছে। সে বটিয়াঘাটার চর ঝিনাইখালী এলাকার মোঃ আজিজুর শেখের কন্যা এবং আমিরপুর ঝিনাইখালী দাখির মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। সম্প্রতি জেএসসি পরীক্ষায় পাশ করেছে বলে জানা যায়।
সূত্রে প্রকাশ লামিয়া খাতুনের অসম্মতিতে গতকাল সোমবার তার পিতা আজিজুর শেখ জোর পূর্বক মামার বাড়ী রূপসা উপজেলার বাগমারা এলাকায় হালিম মসজিদের পাশের্^ উক্ত বাল্য বিবাহের অয়োজন করে। বিবাহে সার্বিক সহযোগিতা করছিলেন তার মামা মোঃ হাবিব। বটিয়াঘাটা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ বাল্য বিবাহের বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষনিকভাবে রূপসা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন বেগমকে অবহিত করেন এবং বাল্য বিবাহ বন্ধ করেন।
।। সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ।।
বটিয়াঘাটা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গত পরশু রবিবার বিকাল ৪টায় জলমা ইউনিয়নের কৈয়া বাজার, হোগলাডাঙ্গা, নিজখামার, জিরোপয়েন্ট, সাচিবুনিয়া, চক্রাখালী, মল্লিকের মোড় সহ বিভিন্ন বাজারে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন। পাশাপাশি করোনাকে কেন্দ্র করে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রন ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিৎ করনে এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কৈয়া বাজারে পেয়াজের দাম বেশি নেয়ায় বিকাশ চন্দ্র রায় ও আব্দুল্লাহকে ২হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য ও আদায় করে। তাছাড়া আশালতা ফার্মেসীর স্বত্বধিকারী ধীরাজ কুমার কবিরাজকে মেয়াদ উত্তির্ণ জীবনহানী অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ঔষধ বিক্রীর দায়ে ২০ হাজার এবং মাতৃমঙ্গল মেডিকেল হলের স্বত্বাধিকারী সুশান্ত কবিরাজকে মেয়াদ উত্তির্ণ ঔষধ বিক্রীর দায়ে ২হাজার টাকা জরিমান আদায় করেছে। এ সময় জলমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আশিকুজ্জামান আশিক সহ আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

করোনায় আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হওয়ার আহবান জানালেন নবনির্বাচিত এমপি এ্যাড. মিলন
শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ
করোনায় আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হওয়ার আহবান জানালেন বাগেরহাট-৪ আসনের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট আমিরুল আলম মিলন। তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা মহামারী আকার ধারণ করেছে। করোনার প্রভাবে সারা বিশ্ব এখন এক ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখোমুখি অবস্থান করছে। বাংলাদেশেও ধীরে ধীরে এই প্রাণঘাতি ভাইরাসের বিস্তৃতি ঘটছে। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আমাদের সবাইকে সতর্কতার সঙ্গে এই বৈশ্বিক দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হবে।
তিনি বলেন, করোনা মোকাবেলায় সরকারের সবধরণের প্রস্তুতি রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে তা বাস্তবায়ন এবং জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রশাসনের সকল সেক্টর ও জনপ্রতিনিধিদের নিজ নিজ দায়িত্ববোধ থেকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে। সোমবার দুপুরে শরণখোলা উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে এক সংক্ষিপ্ত মতবিনিময় সভায় নবনির্বাচিত এমপি এ্যাড. মিলন এসব কথা বলেন।
উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রাহিমা আক্তার হাসির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় বক্তৃতা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসকে আব্দুল্লাহ আল সাইদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ ফরিদা ইয়াসমিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজমল হোসেন মুক্তা, ভাইস চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান পারভেজ, সাউথখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোজাম্মেল হোসেন, রায়েন্দা ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন, প্রেসকাবের সভাপতি ইসমাইল হোসেন লিটন প্রমূখ।

দাকোপে নিত্য দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষ দিশেহারা
দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি
করোনা ভাইরাসকে পুজি করে খুলনার দাকোপে মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে প্রশাসন বিভিন্ন হাট বাজারের ১২জন অসাধু ব্যবসায়ীকে জরিমানা করলেও বাজার নিয়ন্ত্রনে আসছে না বলে ক্রেতাদের অভিযোগ। সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারের অসাধু ব্যবসায়ীরা গত ৪/৫দিন যাবৎ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য হঠাৎ বাড়িয়ে দিয়েছে। বর্তমানে বাজারে চাউল কেজি প্রতি ৩ থেকে ৪ টাকা এবং বস্তায় দেড়‘শ থেকে ২‘শ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া গতকাল সোমবার চালনা বৌমার গাছতলা কাঁচা বাজারে পিয়াজের মূল্য প্রায় দ্বিগুন বেড়ে ৩৫/৪০ টাকার স্থলে ৭০ থেকে ৮০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। রসুনের দামও কেজিতে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা। আলুও ১৫ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ২৭ টাকা দরে। কাঁচা ঝালের মূল্যও কেজি প্রতি ২০টকা বেড়ে ৭০ থেকে ৮০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মাছের বাজারেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এভাবে মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধানে প্রতিদিন চাল, আলু, পেঁয়াজ, রসুনসহ নিত্য প্রয়োজনীয় মালামালের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় এলাকার অবস্থা সম্পন্ন লোকেরা কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ছে। আর এতে এলাকার অধিকাংশ নিন্ম আয়ের লোকজন দিশেহারা হয়ে পড়ছে। এদিকে বাজার নিয়ন্ত্রনে আনতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময়ে মূল্য বৃদ্ধির অপরাধে একাধিক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে জরিমানা আদায় করলেও ব্যবসায়ীরা নিয়ম নীতির তোয়াক্কা করছে না। ফলে বাজারও নিয়ন্ত্রনে আসছে না বলে ক্রেতাদের অভিযোগ।
এপ্রসঙ্গে ক্রেতা পানখালী এলাকার ফাল্গুনী হালদার জানান সারাদিন মটর সাইকেল ভাড়ায় চালিয়ে যা আয় হয় তা দিয়ে বাজারে গিয়ে চড়া দামে চাল ডাল তরিতরকারী কেনার পর আর মাছের পয়সা থাকছে না। বর্তমানে পরিবার পরিজন নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন বলে তিনি জানান।
এব্যাপারে চালনা বৌমার গাছতলা বাজারের ব্যবসায়ী ইসলাম গাজী, গুরুপদ রায়সহ একাধিক ব্যক্তি বলেন বর্তমানে খুলনার কাঁচা বাজারের মোকাম থেকে বেশি দামে মাল কিনতে হচ্ছে। ফলে বাধ্য হয়ে বেশি দরে মাল বেচতে হচ্ছে।
এবিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ তরিফ-উল হাসান বলেন আমরা নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছি। মূল্য বৃদ্ধির অপরাধে বিভিন্ন হাট বাজারে অভিযান চালিয়ে এপর্যন্ত প্রায় ১৫ থেকে ২০জন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হয়েছে। আমরা বিভিন্ন বাজারে আমাদের ফোন নম্বরও দিয়েছি। আমরা সঠিক তথ্য পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এবিষয়ে আমাদের অভিযান অভিযান অব্যহত আছে এবং থাকবে।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল ওয়াদুদ বলেন যদি কোন ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দাম নেয় তার সঠিক তথ্য প্রমান পেলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কয়রায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা ও করনীয় শীর্ষক সভা
কয়রা প্রতিনিধি
কয়রা উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের হলরুমে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধি, করনীয় শীর্ষক সভা ও লিফলেট বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৩ মার্চ সোমবার সকাল ১০ টায় মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান জিএম আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলুর সভাপতিত্বে মহারাজপুর ইউনিয়নের সকল মসজিদের ইমাম ও পরিষদের সকল সদস্যদের নিয়ে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। সভায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধি, নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র তৈরি ও প্রয়োজনে কোয়ারেন্টাইনসহ প্রয়োজনীয় আর্থিক ও লজিষ্টিক সহায়তার বিষয়ে বিশদ আলোচনা করা হয়।
সভায় ইউপি চেয়ারম্যান জিএম আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু বলেন, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সচেতনতাই এর অন্যতম প্রতিরোধ ব্যবস্থা। তারপরও যে কোন উপায়ে দেশে যাতে এ ভাইরাস প্রবেশ না করতে পারে সেই জন্য প্রত্যেকেই সতর্কতার অংশ হিসেবে মুখে মাস্ক ব্যবহার করা, গণপরিবহন ও ময়লা পোশাক এড়িয়ে চলা, প্রচুর ফলের রস এবং পর্যাপ্ত পানি পান করা, ঘরে ফিরে হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে ভালো করে হাত ধোয়া, নিয়মিত থাকার ঘর এবং কাজের জায়গা পরিস্কার রাখতে হবে। তিনি ইমামদের মসজিদে প্রত্যেক ওয়াক্তে নামায অন্তে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করতে এবং এলাকার মুসাল্লিদের সচেতন করতে বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাংবাদিক সদর উদ্দিন আহম্মেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক শাহাবাজ প্রমূখ।

শরণখোলায় শিক্ষকের বাড়িতে আগুন: থানায় জিডি
শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ
বাগেরহাটের শরণখোলায় এক শিক্ষকের বাড়িতে আগুন দিয়েছে দুবৃত্তরা। ২২ মার্চ (রবিবার) ভোর রাতে উপজেলার পশ্চিম খোন্তাকাটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। উপজেলার বি.কে মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও বসত বাড়ির মালিক মীর মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, রবিবার রাত অনুমান ৪.৩০ মিনিটের দিকে কে বা কারা তার বসত ঘর সংলগ্ন একটি ঘরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। ওই সময় ঘরে মধ্যে ঘুমিয়ে থাকা তার বৃদ্ধা মায়ের ডাক চিৎকার শুনে তিনি সহ ঘরের অন্য অন্য সদস্যরা এগিয়ে যান। পরে স্থানীয়দের সহয়তায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন। এ ঘটনায় তিনি শরণখোলা থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেছেন। ইউপি সদস্য আলমগীর বলেন, নির্বাচন পরবর্তী সময়ে জনমনে ভীতি সৃষ্টির উদ্দেশ্যে দুবৃত্তরা এমন অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে। শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস কে আব্দুল্লাহ আল সাঈদ বলেন, বিষয়টির খোঁজ খবর নিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শরণখোলায় সকল হাট বন্ধ
শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ
করনো ভাইরাসের সংক্রমন এড়াতে বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের সকল সাপ্তাহিক হাট বাজার বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন। সোমবার দুপুরে করনো সচেতনতা মুলক এক বৈঠকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন এ নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, করনো প্রতিরোধে ওই বাজার গুলো সাময়িক বন্ধে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে, ওষুধ, কাঁচামাল ও মুদি দোকান খোলা থাকবে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের তাদের নিজ নিজ এলাকায় জন সাধারনের জ্ঞাতার্থে মাইকিং করতে বলা হয়েছে।

খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষে বাসারাত বাজারে করোনা সম্পর্কিত লিফলেট বিতরণ
খবর বিজ্ঞপ্তি
গতকাল তেরখাদা উপজেলার বারাসাত বাজারে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জনগণকে সচেতনতার লক্ষে হ্যান্ডওয়াশ ব্যবহার ও করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান জামাল, আওয়ামী লীগ নেতা মোল্যা ইমদাদুল হক, যুবলীগ নেতা জামিল খান, অধ্যক্ষ মনোয়ার হোসেন, রেজাউল ইসলাম রেজা, রাকিবুজ্জামান ইমন, মোঃ মাশিকুর চৌধুরী, মোঃ আরিফ হাসান, ফরহাদ শিকদার, জুয়েল রানা, মোঃ মফিজ শেখ, মোঃ সাজ্জাদ বিশ^াস, মোঃ ইমারত শেখ, শামীম বিশ^াস, মেহেদী হাসান, জামাল ফকির প্রমুখ ।

করোনার কারণে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে বাড়তি সতর্কতা
যশোর প্রতিনিধি
করোনাভাইরাস মোকাবেলায় যশোর কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষ বিশেষ প্রস্ততি গ্রহণ করেছে। কারা বাউন্ডারিতে কেউ ঢুকলেই মূল গেট থেকে সাবান দিয়ে হাত-মুখ ধুয়ে ভেতরে নেওয়া হচ্ছে। নতুন কোনও বন্দি এলে কারা অভ্যন্তরে চারটি নতুন ওয়ার্ড করে সেখানে রাখা হচ্ছে। বন্দিদের বাইরের পোশাক খুলে নতুন পোশাক এবং মাস্ক দেওয়া হচ্ছে। বয়োবৃদ্ধ, সর্দি-কাশি, জ্বর মাথা ব্যথাসহ কোনও উপসর্গ দেখা দিলে তাদের আলাদা থাকার ব্যবস্থা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজার রাখার জন্য প্রতি ওয়ার্ডের দরজায় রাখা হয়েছে সাবান ও পানি। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বন্দিদের ওয়ার্ডের বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। গোসলের সময় এক একটি ওয়ার্ডে বন্দিদের গোসল শেষ হলে অন্য একটি ওয়ার্ডের লোকজন বের করে গোসল করানো হচ্ছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে জীবনুনাশক ছিটানো হচ্ছে। কারারক্ষীদের বেলায়ও এই নিয়মের আওতায় রাখা হয়েছে।
যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার তুহিন কান্তি খান বলেন, বর্তমানে কারাগারে বন্দি আসামির সংখ্যা ১৩৯৯জন। যার মধ্যে পুরুষ ১৩৩৬ জন এবং নারী ৬৩ জন, সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি পুরুষ ৭০৩ ও নারী ৩২, ফাঁসির আসামি ৯৬জন পুরুষ ও নারী ৬জন। এছাড়া হাজতিদের মধ্যে পুরুষ ৫১০ ও নারী ২৫জন। করোনা আতঙ্ক প্রতিরোধে কারাগারে সার্বক্ষণিক ডাক্তার সত্যজিৎ ম-ল ও ডাক্তার মাহবুবুর রহমান তত্ত্বাবধান করছেন। তবে সতর্কতা গ্রহণের পরেও কারারক্ষী ও বন্দিদের স্বজনদের মধ্যে বিরাজ করছে আতঙ্ক। তারা কারা অভ্যন্তরে ও জেলগেটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করে হা-হুতাশ করছেন। কারাবন্দিদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে আসা যশোর সদরের সুলতানপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম, ঝুমঝুমপুরের আবু বক্কার, পূর্ববারান্দী পাড়ার কোহিনুর বেগম, ষষ্টীতলাপাড়ার শারমিন, নারাঙ্গালীর নাজমাসহ বেশকয়েক দর্শনার্থী দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও দেখা করতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানান। কারাবন্দিদের নিরাপত্তা নিয়ে তারা আতঙ্কিত।

এ প্রসঙ্গে জেলার বলেন, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আমরা সবাই সচেতন হলেই করোনার হাত থেকে রক্ষা পাবো। এদিকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের সুপার সুব্রত কুমার বালা বলেন, আমাদের সীমাবদ্ধতা আছে। তবে সাধ্য অনুযায়ী শতভাগ প্রস্তুতি নিয়েছি কারাগারে। হাজতিদের এখন প্রতি ১৫ দিনে একবার দেখা করার ব্যবস্থা করেছি। আর কয়েদিদের ক্ষেত্রে প্রতিমাসে একবার। দেখার লোকের সংখ্যা সর্বোচ্চ দুই থেকে তিনজন নিকট আত্মীয়। তিনি আরও জানান, বর্তমানে কারাগার থেকে বন্দিদের আদালতে পাঠানো হচ্ছে না। ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই নিয়ম পালন করা হবে। বন্দি আসামিদের করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করতে কারা কর্তৃপক্ষ সচেতন দৃষ্টি রাখছে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

খুলনায় সাপ্তাহিক হাট বন্ধ ঘোষণা
স্টাফ রিপোর্টার
খুলনায় জেলা প্রশাসনের জরুরি সভা‘করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে খুলনা জেলায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার ছাড়া অন্য সাপ্তাহিক হাট ও গরু-ছাগলের হাট বন্ধ থাকবে। খুলনা মহানগরীতে বিকাল পাঁচটার পরে চায়ের দোকান খোলা রাখা যাবে না। করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব একটি দুর্যোগ তৈরি করায় জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিকে জরুরি অবস্থার মতো সক্রিয় রাখতে হবে। দাকোপের আংটিহারায় ভারত থেকে আসা কিংকারবাহী জাহাজ হতে নাবিকদের দেশের অভ্যন্তরে না নামার বিষয়টি কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হবে।’ সোমবার (২৩ মার্চ) সকালে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত খুলনা জেলা কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত জানানো হয়। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় খুলনা সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, উপপুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মো. এহসান শাহ, গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিসহ জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় জানানো হয়, সরকারের বিশেষ উদ্যোগে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ কিট ও চিকিৎসকদের নিরাপত্তা উপরকণসমূহ উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছাবে। জনসাধারণকে সহজ বাংলায় কোয়ারেন্টিন (সন্দেহভাজনকদের পৃথক করে রাখা) বিষয়টি বুঝিয়ে বিদেশফেরতদের হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হচ্ছে। কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের প্রয়োজনের সময় চিকিৎসাকেন্দ্রে আনার জন্য আলাদা অ্যামবুলেন্স প্রস্তুত রাখার বিষয়ে এ সময় নির্দেশনা দেওয়া হয়। সভায় আরও বলা হয়, সরকারি খাদ্য গুদামে ১৭ লাখ মেট্রিক টন ধান ও সাড়ে তিন লাখ মেট্রিক টন গম মজুত থাকায় দেশে খাদ্য সংকট হওয়ার সুযোগ নেই। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারদর নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের নজরদারি অব্যাহত থাকবে। সরকারি চাকরিজীবীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করতে বলা হয়।

এ সময় খুলনার বিভিন্ন উপজেলা হতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা ডিভিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলা পর্যায়ে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরেন।
বাগেরহাটে ৩৩০০ প্রবাসীর বাড়িতে উড়ছে লাল পতাকা
বাগেরহাট প্রতিনিধি
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বাগেরহাটে তিন হাজার ৩০০ জন প্রবাসীর বাড়িতে লাল পতাকা ওড়ানো হয়েছে। গত ১ থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন দেশ থেকে বাগেরহাটে আসা তিন হাজার ৩০০ জনের মধ্যে দুই হাজার ২৭৪ জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইন না করে ঘুরে বেড়ানোয় জেলাব্যাপী ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বিদেশফেরতদের বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নেয় জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটি। সোমবার (২৩ মার্চ) সকাল থেকে জেলার ৯টি উপজেলায় সদ্য বিদেশফেরত সব প্রবাসীর তালিকা ধরে ধরে স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ ও প্রশাসনের লোকজন এসব লাল পতাকা ওড়ায়।
বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির জানান, জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্তে বাগেরহাটের ৯টি উপজেলায় বিদেশফেরত যেসব প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইন করছেন বা যেসব প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইন না করে গাঢাকা দিয়েছেন তাদের সবার বাড়িতেই লাল পতাকা ওড়ানো হয়েছে। এই লাল পতাকা দেখে সাধারণ মানুষ এখন নিজের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে ওই সব বাড়িসহ সেখানকার লোকজনকে এড়িয়ে চলতে পারবে। এতে বাগেরহাটে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো সহজতর হবে।

জনসচেতনতায় আওয়ামী লীগের প্রচারপত্র বিতরণ
খবর বিজ্ঞপ্তি
করোনা ভাইরাস নিয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে খুলনা জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচারপত্র বিতরণের অংশ হিসেবে সোমবার সন্ধ্যা ৭.০০ টায় নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়, কে.সি.সি মার্কেট মোড়, কে.ডি. ঘোষ রোড, ডাক বাংলা মোড় এলাকায় লিফলেট বিতরণ করেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত কুমার অধিকারী। এসময় তার সাথে লিফলেট বিতরণ কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক এ্যাড. ফরিদ আহমেদ, সাবেক প্রচার সম্পাদক আলহাজ্ব জোবায়ের আহমেদ খান জবা, সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মিজানুর রহমান মিজান, সাবেক যুব ক্রীড়া সম্পাদক ও খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক কাজী শামীম আহসান, সাবেক সদস্য এম.এ রিয়াজ কচি, রূপসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম ডাবলু, জেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অজিত বিশ্বাস, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ন আহ্বায়ক হাজী সাইফুল ইসলাম, রেজাউল ইসলাম রেজা, মোঃ কামাল, দিলশাদ শিমুল, মোল্লা নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

সাতক্ষীরা আরোও ২৭৩ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে: হোম কোয়ারেন্টাইনের বাইরে রয়েছে প্রায় ৮ হাজার ৩ শ’ ৬২ জন
খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা
সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘন্টায় বিদেশ ফেরত আরো নতুন ২৭৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছে। এনিয়ে গত ৭ দিনে বিদেশ ফেরত সাতক্ষীরার ৯৬২ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। এছাড়া সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল আইসোলেশানে রয়েছেন এক জন। এর মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ৬৭ জন, আশাশুনি উপজেলায় ৫৫ জন, দেবহাটা উপজেলায় ১২১ জন, কালিগঞ্জ উপজেলায় ১৫৭ জন, কলারোয়া উপজেলায় ২৯৬ জন, শ্যামনগর উপজেলায় ১৪৩ জন ও তালা উপজেলায় ১২৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে।
তবে, বিদেশ থেকে আগত লোকের সংখ্যা গত ১ মার্চ থেকে ২০ মার্চ পর্যন্ত ৯ হাজার ৩২৫ জন। এর মধ্যে হোম কোয়ারেন্টাইনের বাইরে রয়েছে ৮ হাজার ৩ শ’ ৬২ জন। তবে, সাতক্ষীরা জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রন কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, বিদেশ থেকে আসা সকল প্রবাসীদেরকে ইতিমধ্যে হোম কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। এদিকে, সাতক্ষীরার ভোমরা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দুই দেশে আটকে থাকা পাসপোর্ট যাত্রীর আসা-যাওয়া স্বাভাবিক রয়েছে। যদিও দু দেশেই নতুন করে কোন পাসপোর্ট যাত্রীকে প্রবেশাধিকার না থাকায় যাত্রী সংখ্যা অনেক কমে গেছে।

রূপসার রাজাপুর শাহী মসজিদের কোষাধ্যক্ষ’র জানাজায় সংসদ সদস্য বাবু
খবর বিজ্ঞপ্তি
রূপসার রাজাপুর শাহী মসজিদের কোষাধ্যক্ষ ও ব্যাংকার মোঃ রেজাউল ইসলাম (৬০) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মরহুমের মৃত্যুতে গভীর প্রকাশ ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু। মরহুমের নামাজে জানাজা গত রবিবার বাদ আসর রাজাপুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় অংশগ্রহণ করেন খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু, আরও উপস্থিত ছিলেন মোঃ শহিদুল ইসলাম, শামীম হাসান তুহিন, জসিম উদ্দিন বাবু, শামীম সরকার, হারুন আর রশীদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য অহিদুজ্জামান মিন্টু, শেখ কামরুজ্জামান টুকু, মোঃ আবু সাঈদ খান, রবিউল ইসলাম রবি, এএইচএম কামাল, শেখ মোঃ সাকিল, মীর ছদরুল আমিন, হাফিজুর রহমান, শাহিন হাসান, খান রাসেল, রয়েল, নজির আহমেদ, মুহাইমিন আল মাহিন, রবিউল ইসলাম রিদয়সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, ব্যবসায়ী ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লীবৃন্দ।

বাগেরহাট অতিরিক্ত মূল্যেচাল বিক্রি ছয় ব্যবসায়ী জরিমানা
বাগেরহাট প্রতিনিধি
বাগেরহাটের চিতলমারীতে অতিরিক্ত দামে চাল বিক্রি করায় ভ্রাম্যমান আদালত ৬ ব্যবসায়ীকে এক লাখ ২৫ টাকা জরিমানা করেছে। সোমবার দুপুরে সদর বাজারে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা কালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মারুফুল আলম এ অর্থদন্ডাদেশ দেন। এ সময় সদ্য বিদেশ ফেরতদের বাসার সামনে সরকারি ভাবে লাল পতাকা টানানো হয় এবং চিতলমারীর সকল গোহাট বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মারুফুল আলম জানান, করোনা ভাইরাসকে পূঁজি করে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দামে চাল বিক্রি করছিল। এ খবর পেয়ে সোমবার দুপুরে চিতলমারী উপজেলা সদর বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। আদালত পরিচালনা কালে অতিরিক্ত দামে চাল বিক্রির দায়ে চাল ব্যবসায়ী নাজমুল শেখকে ২০ হাজার, পরিতোষ কীর্ত্তনীয়া ৩০ হাজার, চন্দ্র শেখর হাজরা ২০ হাজার, পরিতোষ সাহা ৩০ হাজার, প্রদীপ সাহা ১৫ ও ইসমাইল হোসেনকে ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া জনগুরুত্ব বিবেচনা করে সদ্য বিদেশ ফেরতদের বাসার সামনে সরকারি ভাবে লাল পতাকা টানানো এবং চিতলমারী উপজেলার সকল গোহাট বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত্য এ আদেশ বলবৎ থাকবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
অপরদিকে, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে নানা তথ্য মনিটরিং করতে চিতলমারী সদর ইউনিয়ন পরিষদে জরুরী বৈঠকে বসেন বাগেরহাটের স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক দেব প্রসাদ পাল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মারুফুল আলম, সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন শেখ, চিতলমারী উপজেলা প্রেসকাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম সাফা, সিনিয়র সাংবাদিক এস এস সাগর, দেবাশিষ বিশ্বাস, টিটব বিশ্বাস, ব্যবসায়ীগন ও ইউনিয়ন পরিষদ ব্যবসায়ীগন।

ভোক্তা অধিকারের বাজার তদারকিতে ৪টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
স্টাফ রিপোর্টার
নগরীর সোনাডাঙ্গা ও রূপসা থানায় পৃথক দু’টি বাজার তদারকিমুলক অভিযান পরিচালনা করে ৪টি প্রতিষ্ঠানকে ১২হাজার টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরণ অধিদপ্তরের খুলনা জেলা কার্যালয়। গতকাল জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শিকদার শাহীনুর আলম জরিমানার আদেশ প্রদান করেছেন।
এই অভিযানে সোনাডাঙ্গা থানাধীন পল্লিমঙ্গল এলাকায় তদারকি করে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বেকারী খাদ্য সামগ্রী তৈরি ও সংরণ করায় পপুলার বেকারীকে ৫হাজার টাকা প্রশাসনিক ব্যবস্থায় জরিমানা করা হয়।
পৃথক আরেকটি অভিযানে রূপসা উপজেলা সেনের বাজার তদারকি করে মূল্য তালিকা না থাকা ও নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি প্রস্তুত ও সংরনের দায়ে ভাগ্যকুল সুইটসকে ৪হাজার, মূল্য তালিকা না থাকায় দি সাতীরা ঘোষ ডেয়ারীকে ২হাজার, মূল্যবিহীন বিদেশী কসমেটিকস সংরণের দায়ে হাসান বেকারীকে একহাজার টাকা প্রশাসনিক ব্যবস্থায় জরিমানা করা হয়।
অভিযানে সকলকে ভোক্তা অধিকার সংরণ আইন, ২০০৯ অনুসারে ভোক্তা অধিকার বিরোধী কার্যাবলী হতে বিরত থাকার অনুরোধ জানানোসহ সচেতন করা হয়। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য সহনীয় রাখাসহ একজন ক্রেতার কাছে অতিরিক্ত পরিমান বিক্রয় না করার অনুরোধ জানানো হয়। পরিদর্শনমুলক এই বাজার অভিযানে সার্বিক সহায়তা করেন ৩ এপিবিএন, শিরমনি খুলনা, ও কনজুমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) খুলনা প্রতিনিধি।

সাতীরায় র‌্যাবের অভিযানে ৪৭০পিস ইয়াবা ও গাঁজাসহ স্বামী-স্ত্রী গ্রেফতার
স্টাফ রিপোর্টার
সাতীরা জেলার তালা থানাধীন বালিয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ডাকাতি, হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি স্বামী-স্ত্রীকে ৪৭০পিস ইয়াবা ও গাঁজাসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। গতকাল সোমবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতার স্বামী-স্ত্রী হলেন সাতীরা জেলার তালা থানার বালিয়া গ্রামের মৃত. সানাউল্লাহ গাজীর ছেলে মো. সবুজ গাজী (৪২) ও সবুজ গাজীর স্ত্রী মোসা. জোসনা বেগম (৩২)।
র‌্যাব-৬ জানায়, গতকাল সোমবার সাতীরা জেলার তালা থানাধীন বালিয়া গ্রামে অভিযান পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মোতাহার হোসেন। এসময় ৪৭০পিস ইয়াবা ও ৮৫ গ্রাম গাঁজাসহ সবুজ গাজী ও জোসনা বেগমকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে তালা থানায় মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নগরীতে ব্র্যাক এর উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের ব্যবস্থা
স্টাফ রিপোর্টার
নগরীর সোনাডাংগা বাসস্ট্যান্ড, রূপসা ফেরিঘাট এলাকায় আগত ও বহির্গত জনসাধারনের মধ্যে সচেতনতামুলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার জনবহুল এলাকাগুলোতে চলমান যাত্রী ও জনসাধারণের মধ্যে করোনা ভাইরাস বিষয়ে জনসচেতনা সৃষ্টি করার ল্েয ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ ও হাত জীবানুমুক্ত করা হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সকলের মধ্যে বিতরণ করা হয়।
এছাড়াও খুলনা বাস মিনিবাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের সরাসরি সহায়তায় খুলনা শহরে আগত সকল বাস মিনিবাস কে বিশেষ ধরনের জীবানুমূলক দ্রব্য দিয়ে জীবানু মুক্ত করার ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। ব্র্যাক এর এই উদ্যোগ আগামী সাত দিন নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চলবে। উক্ত কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক জেলা সমন্বয়কারি আবু সাঈদ, সিনিয়র রিজিওনাল কোওর্ডিনেটর আবু মোজাফফর মাহমুদ, উর্ধতন কর্মকর্তা কেশব লাল গাইন, তমিজ উদ্দিন, জয়ন্ত হালদার, উতপল কুমার দাস, ইউসুপ আলি।
ব্র্যাক আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর সিনিয়র রিজিওনাল কোওর্ডিনেটর আবু মোজাফফর মাহমুদ বলেন, ব্র্যাক সবসময় দেশের আপদকালীন সময়ে জনসাধারণের পাশে থেকেছে, আর্থ-সামাজিক যে কোন উন্নয়ন কাজে ব্র্যাক মানুষের পাশে থাকবে।