ভালো উদ্যোগ তবে সতর্কতা জরুরি

4
Spread the love

বিদেশে যাওয়া আসার ক্ষেত্রে ডলার বহনের সীমা বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আগের সীমা ৫ হাজার ডলার থেকে তা বাড়িয়ে ১০ হাজার ডলার করা হয়েছে। এর মানে বাংলাদেশ থেকে বিদেশ যাওয়া এবং আসার সময় এখন থেকে ঘোষণা ছাড়াই যেকেনো ব্যক্তি ১০ হাজার ডলার নিয়ে যেতে পারবেন। এ জন্য কোনো ঘোষণা দিতে হবে না বা পাসপোর্ট এনডোর্সমেন্টও করতে হবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী, বর্তমানে বাংলাদেশের যেকোনো নাগরিক ট্রাভেল কোটার আওতায় এক বছরে ১২ হাজার ডলার পর্যন্ত খরচ করতে পারে। এ জন্য পাসপোর্টে প্রয়োজনীয় ঘোষণা দিতে হয়। এখন আর ঘোষণা দিতে হবে না। ডলার রাখার এই সীমা দ্বিগুণ করে সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক একটি প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে। যদিও অনেক দিন ধরেই বিষয়টি সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় ঝুলে ছিল। শেষ পর্যন্ত তা বাস্তবায়িত হলো। এই সিদ্ধান্তকে অনেকেই স্বাগত জানিয়েছে। তাদের দাবি, এতে বিদেশে চিকিৎসা, পড়াশুনাসহ অনেকক্ষেত্রে সুবিধা হবে।

তবে একটি অংশ আবার এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতাও করেছে। তাদের বক্তব্য, এতে বহু কষ্টে অর্জিত বিদেশি মুদ্রা পাচার হওয়ার সুযোগ আরও বেড়ে গেল। কেননা কোনো ব্যক্তি প্রতিবার ১০ হাজার ডলার সাথে নিয়ে বছরে যদি অসংখ্যবার বিদেশে পাড়ি জমান, তাহলে তিনি চাইলে বহু টাকা দেশের বাইরে পাচার করতে পারবেন। আমরা জানি, এখন বাংলাদেশের সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নানান ক্ষেত্রে সম্পর্ক বেড়েছে। প্রতিদিনই অসংখ্য বাংলাদেশি সেসব দেশে যাতায়াত করছে। বিশেষ চিকিৎসা এবং শিক্ষার জন্য। তাই বাংলাদেশ ব্যাংকের এই সিদ্ধান্তে তারাই সবচেয়ে সুবিধা পাবেন। অবশ্য সব পদক্ষেপেরই সুবিধা-অসুবিধা আছে। তাই এর অপব্যবহার রোধ করতে হবে। এ জন্য সরকারকেই পদক্ষেপ নিতে হবে। বিশেষ করে যারা একাধিকবার বিদেশে যাচ্ছেন, তাদের উপর নজর রাখতে হবে। আমরা মনে করি, এটা ভালো উদ্যোগ তবে সতর্কতা জরুরি। বিশেষ করে ডলার পচারের যে শঙ্কা, তা দূর করতে হবে।