আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টাইগারদের সহজ জয়

0
15

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে আগেই। ফলে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষের ম্যাচটি ছিল নিছক আনুষ্ঠানিকতার। সেই আনুষ্ঠানিকতার ম্যাচটিও সহজেই জিতে নিল বাংলাদেশ। গতকাল বৃহস্পতিবার আয়ারল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা। নিয়মরক্ষার এই ম্যাচে ২৯২ রানের বড় স্কোর গড়েও বাংলাদেশের কাছে পাত্তা পায়নি স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড। বাংলাদেশ ৪২বল হাতে রেখেই জয় ছিনিয়ে নেয়েছে।
বিশ্বকাপ শুরুর আগ পর্যন্ত পেছনে ফিরে তাকানোর ফুসরত নেই বাংলাদেশের ক্রিকেট সেনাদের। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিতে গত ৩মে আয়ারল্যান্ডে উড়াল দিয়েছিলো লাল-সবুজের দলটি। সেখানে ত্রিদেশীয় সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে একের পর এক জয় নিয়ে মুক্ত বিহঙ্গের মতো উড়ছে মাশরাফি-সাকিবরা। সিরিজের লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে আরও একবার শক্তির জানান দিলো টাইগার সেনারা। কাল শুক্রবার সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ লড়াই। ফলাফল যাই হোক, বিশ্বকাপের আগে টাইগারদের দারুণ পারফরমেন্স দেখে ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়ার আর ইংল্যান্ডের মতো পরাশক্তিদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়লে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। টাইগারদের খেল তো এখানেই শেষ নয়, বিশ্বকাপ শুরুর প্রাক্কালে ক্রিকেট বিশ্বের দুই পরাশক্তি ভারত-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অনুশীলন ম্যাচও খেলবে বাংলাদেশের ওরা ১১জন।
গতকালের ম্যাচে একাদশ নিয়ে কিছুটা পরীক্ষা নিরীক্ষার চালিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। কয়েকটি পরিবর্তন এনেছিল বাংলাদেশ। ধারাবাহিক সৌম্য সরকারকে বিশ্রামে দিয়ে বাজিয়ে দেখেছে লিটন দাসকে। আর সুযোগ পেয়েই তা কাজে লাগিয়েছেন এই ওপেনার। তামিম ইকবালের সাথে গড়েছেন শতরানের জুটি। সেই সাথে নিজে খেলেছেন ৭৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। এছাড়া সাকিব আল হাসান ব্যাট হাতেও ছিলেন উজ্বল। আহত হয়ে মাঠ ছাড়ার আগে করেছেন ৫০ রান। হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন তামিম ইকবালও। বাঁ-হাতি এই ওপেনার ৫৩ বলে করেছেন ৫৭ রান। টপ অর্ডারের এমন সাফল্যে সহজেই আইরিশদের দেওয়া বড় রানের চ্যালেঞ্জ টপকে গেছে বাংলাদেশ।
এদিন প্রথমে ব্যাট করে পল স্টার্লিং ও উইলিয়ামস পোর্টারফিল্ডের ব্যাটে ভর দিয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৯২ রান সংগ্রহ করে আয়ারল্যান্ড। দুইজন মিলে গড়েছেন ১৭৪ রানের জুটি। মাশরাফি-সাকিবদের হতাশায় পুড়িয়ে সেঞ্চুরি তুলে নেন স্টার্লিং। ৪টি ছক্কা ও ৮টি চারে সাজিয়ে ১৪১ বলে ১৩০ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছেন এই ওপেনার। পোর্টারফিল্ড করেছেন ৯৪ রান। গত ম্যাচে অভিষিক্ত আবু জায়েদ রাহী ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচে ছিলেন উইকেট শূন্য। তবে দ্বিতীয়বার সুযোগ পেয়েই কাজে লাগিয়েছেন তা। তুলে নিয়েছেন ৫ উইকেট। রুবেল হোসেন নিয়েছেন ১উইকেট। তবে বল হাতে বাজে দিন গিয়েছে সাকিব আল হাসানের। গত দুই ম্যাচের সবচেয়ে কৃপণ বোলারটির গতকাল ইকোনোমি ছিল সাতের ওপরে।
এদিকে জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪২বল হাতে রেখেই ৬উইকেটের জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। টপ অর্ডারের সাফল্যকে দারুণ ফিনিশিং দেন মাহমুদউল্লাহ। ৪৩ রানে অপরাজিত থেকে ৪২.২ ওভারে বাংলাদেশকে পৌঁছে দেন ২৮৯ রানে। গতকালই প্রথম ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির রহমান। তবে একেবারে শেষ দিকে। ফলে সাত বলে অপরাজিত ২রান নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। মুশফিকুর রহীম করেছেন ৩৫ রান। ম্যাচে প্রথম সুযোগ পাওয়া মোসাদ্দেক হোসেন আউট হয়েছেন ব্যক্তিগত ১৪ রানে।
২৯৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে নিজেদের দারুণ প্রস্তুতি সেরে নেন তামিম ও লিটন। ওপেনিং জুটিতে ১১৭ রান উপহার দেয় এ জুটি। তামিম ৫৭ রানে বিদায় নিলেও দলের জয়ের ভিত গড়ে দেন সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস। ম্যাকগার্থির ইয়র্কারে বোল্ড হয়ে ফেরার আগে ৬৩ বলে ৭৬ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন লিটন। মুশফিক ৩৫ রানে ফেরার পর সাকিব-রিয়াদ ভালোই জবাব দিতে থাকনে। কিন্তু হঠাৎ চোটে পড়ায় ৫০ রানের পর উঠে যান সাকিব। জয় থেকে ১৫ রান দূরে থাকতে দুর্বল শট খেলে আউট হন মোসাদ্দেক (১৪)। সাব্বিরকে (৭) নিয়ে বাকী পথটা দেখেশুনেই পার করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (৩৫)। ঘরের মাঠে একটি জয়ের খোঁজে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ২৯২ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল আইরিশরা। যে রানের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন পল স্টার্লিং (১৩০) ও উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড (৯৪)। এই ম্যাচে ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়েন দ্বিতীয় ওডিআই খেলতে নামা আবু জায়েদ রাহী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here