সকল জাতীয় সংবাদ

0
34

কালের গর্বে হারিয়ে যাচ্ছে দৃষ্টিনন্দন বাবুই পাখির বাসা
স্টাফ রিপোর্টর
বাবুই পাখিকে নিয়ে কবির ‘স্বাধীনতার সুখ’ কবিতাটি আজো মানুষ উদাহরণ হিসেবে ব্যবহার করলেও হারিয়ে যেতে বসেছে বাবুই পাখি ও বাবুই পাখির বাসা। বাবুই পাখির বাসা আজ অনেকটা স্মৃতির অন্তরালে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। অথচ আজ থেকে প্রায় ১০-১২ বছর আগেও গ্রাম-গঞ্জে তাল, নারকেল ও সুপারি গাছে দেখা যেত বাবুই পাখির নিপুন কারু কাজে তৈরি দৃষ্টিনন্দন বাসা।
তাইতো মানুষকে মানবিকভাবে জাগ্রত করার জন্য কবি রজনীকান্ত সেন বাবুই পাখিকে নিয়ে রচনা করেন কবিতা “বাবুই পাখিরে ডাকি বলিছে চড়াই, কুঁড়ে ঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই! আমি থাকি মহা সুখে অট্টালিকা পরে, তুমি কত পাও কষ্ট রোদ বৃষ্টি ঝড়ে। পাকা হোক তবু ভাই পরের বাসা, নিচ হাতে গড়া মোর কাঁচা ঘর খাসা”। তার এ কালজয়ী কবিতাটি এখনো মানুষের মুখে মুখে।
রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলাসহ আশপাশ এলাকার বিভিন্ন গ্রামে এখন আর আগের মত বাবুই পাখির নিপুণ তৈরি করা দৃষ্টিনন্দন বাসা চোখে পড়ে না। এসব বাসা শুধু শৈল্পিক নিদর্শনই ছিল না, মানুষের মনে চিন্তার খোরাক জাগ্রত এবং স্বাবলম্বী হতে উৎসাহিত করত। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে ও পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে আজ এ পাখিটি আমরা হারাতে বসেছি।
গাছের ঝুড়ির মতো চমৎকার বাসা বুনে বাস করায় এ পাখির পরিচিতি জগৎ জোড়া। খড়, তাল গাছের কচি পাতা, ঝাউ ও কাশবনের লতা-পাতা দিয়ে উঁচু তালগাছে চমৎকার বাসা তৈরি করতো বাবুই পাখি। সেই বাসা যেমন আকর্ষণীয় তেমনি মজবুত। প্রবল ঝড়েও তাদের বাসা ভেঙ্গে পড়ে না। বাবুই পাখির শক্ত বুননে এ বাসা টেনেও ছেঁড়া যায় না। এ জন্য অনেকেই এতে তাঁতি পাখি বলে ডেকে থাকেন।
বাবুই পাখির অন্যতম বৈশিষ্ট হলো রাতের বেলায় ঘর আলোকিত করতে জোনাকি পোকা ধরে নিয়ে বাসায় রাখে এবং সকাল হলে ছেড়ে দেয়। একটি বাসা তৈরি করার পর পুরুষ বাবুই পাখি সঙ্গীর খোঁজে নামে। সঙ্গী পছন্দ হলে স্ত্রী বাবুই পাখিকে সাথী বানানোর প্রয়োজনে পুরুষ বাবুই নিজেকে আকর্ষণীয় করতে খাল, বিল ও ডোবায় ফুর্তিতে নেচে নেচে বেড়ায় গাছের ডালে ডালে।
প্রজনন সময় ছাড়া অন্য সময় পুরুষ ও স্ত্রী বাবুই পাখির গায়ে কালো কালো দাগসহ পিঠ হয় তামাটে বর্ণের। নিচের দিকে কোন দাগ থাকে না। ঠোঁট পুরো মোসাকার ও লেজ চৌকা। তবে প্রজনন ঋতুতে পুরুষ পাখির রং হয় গাড় বাদামি। বুকের ওপরের দিকটা হয় ফ্যাকাশে; অন্য সময় পুরুষ ও স্ত্রী বাবুই পাখির চাঁদি পিঠের পালকের মতই বাদামি হয়। বুকের কালো ডোরে ততটা স্পষ্ট নয়।
বাবুই পাখি সাধারণত তাল, খেজুর, নারকেল ও আখ ক্ষেতে বাসা বাঁধে। ধান, চাল, গম ও পোকা-মাকড় প্রভৃতি তাদের প্রধান খাবার। একসময় বিলাইছড়ি সহ আশপাশ এলাকার বিভিন্ন গ্রামে দেখা যেত শ’ শ’ বাবুই পাখির বাসা। বর্তমানে যেমন তালগাছসহ বিভিন্ন গাছ নির্বিচারে নিধন করা হচ্ছে। তেমনি হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখিও। বাবুই পাখির এ শৈল্পিক নিদর্শনকে টিকিয়ে রাখার জন্য সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করা দরকার বলে জানিয়েছেন পরিবেশবিদরা।

আপনার মাঝে মায়ের প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাই : নুর
ঢাকা অফিস
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নব-নির্বাচিত সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘আমি আড়াই বছর বয়সে মাকে হারাই। আপনার ( প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) মাঝে আমি আমার মায়ের প্রতিচ্ছবি খুঁজে পাই।’ তখন প্রধানমন্ত্রী তাকে পাশে বসান। এসময় প্রধানমন্ত্রীর পা ছুঁয়ে সালাম করেন নুর।
শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে এসব কথা বলেন নুর। ডাকসু ভিপির বক্তব্য দেয়ার পর আমন্ত্রিত নেতাদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। ডাকসু নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ডাকসু নির্বাচন যেন শান্তিপূর্ণ হয়, এটা সবসময় বলেছি। ছাত্রছাত্রীরা যা চাইবে, তাই হবে। ভোট কে কত পেল, সেটা বড় নয়। যারা জয়লাভ করেছে সবার কিন্তু এই বিবেচনা রাখতে হবে কে ভোট দিল কে দিল না সেটা বিষয় নয়।’ নির্বাচনে ভিপি পদে হেরে যাওয়া শোভনের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভোটে হারার পর শোভন আমার কাছে এসেছে। আমি শোভনকে বলেছি, ভোটে হেরেছ, এবার যাও তাকে (নুর) অভিনন্দন জানাও। সে তাই করেছে। আমি এজন্য শোভনকে ধন্যবাদ জানাই। সে রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তার দাদা এমপি ছিলেন, বাবা উপজেলা চেয়ারম্যান। সে তার রাজনৈতিক উদারতা দেখিয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব খুঁজছি। সেটা ছাত্রজীবন থেকেই শুরু হলে ভালো। আমরা স্কুলজীবন থেকেই শুরু করেছি ছোটবেলা থেকেই গণতন্ত্রের চর্চা থাকুক।’
শনিবার বেলা ২টা থেকে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আসতে শুরু করেন ডাকসু ও হল সংসদের নির্বাচিতরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১টি বাসে তারা গণভবনে পৌঁছান। সবার শেষে বেলা ৩টার দিকে একটি প্রাইভেটকারে গণভবনে পৌঁছান ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর। ওই গাড়িতে ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আকতার হোসেনও ছিলেন।
প্রসঙ্গত, গত ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা নুরুল হক নুর। সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে জয়লাভ করেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। এছাড়া সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) নির্বাচিত হন ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন।

প্রধানমন্ত্রীর মাঝে মায়ের ছায়া দেখতে পাই: ডাকসু ভিপি নুর
ঢাকা অফিস
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাঝে নিজের মায়ের ছায়া দেখতে পাই।’ শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে তার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে বক্তব্য প্রদানকালে নুর এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘আড়াই বছর বয়সে আমি মাকে হারাই। ছোটবেলায় আমার একজন স্কুল শিক্ষিকার মাঝে মায়ের ছায়া দেখতে পেয়েছি। আর একজনের মধ্যে আমি মাতৃত্বকে খুঁজে পেয়েছি। তিনি হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’ শেখ হাসিনার দৃঢ় নেতৃত্ব ও উন্নয়নকাজ বিশ্বে তাকে প্রশংসনীয় অবস্থানে নিয়েছে উল্লেখ করে ভিপি নুর ডাকসু কার্যকরে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন।
এরআগে শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে গণভবেন পৌঁছান তারা। গণভবনের গেটে নেমে ডাকসুর নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে কোলাকুলি করেন নুরু। এরপর ভেতরে প্রবেশ করেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে একটি প্রাইভেটকারে চড়ে গণভবনে যান ডাকসুর নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর ও সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন। অন্যদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ও প্রাইভেটকারে গণভবনের উদ্দেশে রওনা হন অন্য ছাত্রলীগ ও অন্য প্যানেল থেকে নির্বাচিত ডাকসুর নেতারা।

জঙ্গিবাদ-উগ্রবাদ মোকাবেলায় সফল হলেও তৃপ্ত নই : র‌্যাব ডিজি
ঢাকা অফিস
পুলিশের এলিটফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-এর মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, জঙ্গি, উগ্রবাদ ও সন্ত্রাস মোকাবেলায় বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সফল হয়েছে, তবে আমরা তৃপ্ত নই। যদি তৃপ্ত হই তবে আমাদের আবার ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হবে। সেজন্য সব আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা তৎপর। দেশ থেকে সর্বশেষ জঙ্গি, উগ্রবাদী নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত আমাদের সতর্কতা বলবৎ থাকবে। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির আয়োজনে ‘সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে তথ্যপ্রযুক্তির নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার’ বিষয়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শনিবার দুপুরে রাজধানীর বিএফডিসি’র অডিটোরিয়ামে এ বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজিত প্রতিযোগিতায় সহযোগিতা করছে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের স¤প্রীতি প্রকল্প। বিতর্ক প্রতিযোগিতা শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জানতে চাওয়াটা মানুষের অধিকার। আমরাও এটা বিশ্বাস করি। তবে পাশাপাশি জানার অধিকার দেখাতে গিয়ে তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার যেন কেউ না করে সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।
আমাদের ইসলামিক স্কলারদের এগিয়ে আসতে হবে। ইসলাম ধর্ম যে আধুনিক ও সব যুগের জন্যই পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান তা বোঝাতে হবে এবং ধর্মের নামে যে উগ্রবাদী চিন্তা বা মতবাদ রয়েছে তা বন্ধে কার্যকরী দিকনির্দেশনা দিতে হবে। তিনি বলেন, যতো বেশি আলো, ততো বেশি উত্তাপ। আবার যতো বেশি উত্তাপ ততো বেশি আলো। একটি মতবাদকে মোকাবেলা করতে হলে আরেকটি মতবাদের প্রয়োজন। একটি খারাপ আইডিয়াকে ভালো আইডিয়া দিয়েই মোকাবেলা করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সুফি-সাধকদের আগমন ঘটেছে সমাজে যে অন্যায়-অবিচার অসামঞ্জস্য রয়েছে তা দূর করা, সাম্যের সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। আমাদের দেশে প্রকৃত শান্তির কথাই প্রচার হয়েছিল। তবে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র থাকা সত্তে¡ও কখনো জঙ্গিবাদ-উগ্রবাদ শিকড় গাড়তে পারেনি। এর পেছনে তিনটি কারণ একটি হচ্ছে, সরকারের পলিসি, দেশের মানুষের ঐক্যবদ্ধতা ও জঙ্গিবাদ উগ্রবাদবিরোধী অবস্থান এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা।
বেনজীর আহমেদ বলেন, প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা কি তথ্যপ্রযুক্তির অবাধ ব্যবহার করবো, নাকি নিয়ন্ত্রণ করবো? সমাজ উন্নয়নের এমন একটা পর্যায়ে এ প্রশ্ন তুলছি যেখানে তথ্যপ্রযুক্তিতে অধিকাংশ মানুষের অংশগ্রহণ রয়েছে। তবে একটি বিষয় স্পষ্ট করে বলা যায় যে, তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার রোধ করতে হবে। উগ্রবাদের ধারণা মোকাবেলা করতে হবে। সেই চ্যালেঞ্জটাই আমাদের নিতে হবে। তিনি বলেন, ইন্টারনেটে বিলিয়ন বিলিয়ন তথ্য রয়েছে। মূল ব্যাপার হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিনে আমি কী খুঁজছি। আমি কি উগ্রবাদের ম্যাটারিয়েল খুঁজছি, নাকি উগ্রবাদের বিরুদ্ধে। ইসলামের বিরুদ্ধে যে কথাগুলো বলে ইসলামকে কোনঠাসা করার চেষ্টা চলছে তাও আছে ইন্টারনেটে। আবার ইসলামের সঠিক কথাটাও আছে ইন্টারনেটে। আমরা আসলে কোনটা গ্রহণ করবো, কোনটা গ্রহণ করবো না, আমাদের সেটা আগে ঠিক করতে হবে। বুঝে, যাচাই করে নিতে হবে, কোনটা সঠিক।
সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি তথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার আমাদের কিছু কিছু তরুণকে উগ্রবাদী কর্মকাÐে জড়িয়ে পড়তে উৎসাহিত করছে। কেবল উগ্র ধর্মীয় উন্মাদনা, আর্থ সামাজিক বৈষম্য, দারিদ্রতা ও সুশাসনের অভাবই সহিংস উগ্রবাদের জন্য দায়ী নয়। এর উৎকৃষ্ট উদাহরণ হচ্ছে নিউজিল্যান্ডে দুটি মসজিদে হামলা। তিনি আরও বলেন, শুধুমাত্র গ্রেফতার বা শাস্তির মাধ্যমে উগ্রবাদ প্রতিরোধ করা যাবে না। এর জন্য দরকার সচেতনতা। জঙ্গিবাদ-উগ্রবাদ বিরোধী রাজনৈতিক অবস্থান, ধর্মীয় স্কলারদের নির্দেশনা ও লেখনী।

শোকের শহর ক্রাইস্টচার্চে মুসলিমদের কান্না
খুলনাঞ্চল ডেস্ক
শান্ত ছবির মতো সুন্দর শহর ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার পর শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ঘাতকের নির্বিচার গুলি বর্ষণে ৪৯ জন নিরীহ মানুষের প্রাণহানির পর পুরো শহর যেন কালো স্কার্ফ দিয়ে মোড়ানো। শোক প্রকাশের ভাষাও অনেকের জানা নেই। নীরবতাই যেন হয়ে উঠেছে সেই শোকের সর্বজনীন ও একমাত্র ভাষা। শহরের হঠাৎ এই বিপর্যয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন মানুষ। শোক প্রকাশের ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন অনেকে। ব্যাথা বোঝানোর ভাষা না পেয়ে তাই সবাই নীরব হয়ে গেছেন। কথায় আছে অধিক শোকে নাকি মানুষ পাথর হয়ে যায়। বিশেষ করে যারা মুসলিম তাদের শোকের মাতম দেখলেই বোঝা যায় কতটা অসহায় হয়ে পড়েছেন তারা।
মসজিদের যেখানে নৃশংস হামলার ঘটনাটি ঘটেছে তা থেকে অল্প কয়েক মিটার দূরে দেয়ালে মানুষ আসছেন। একজন একজন করে সেখানে তারা নিহতদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি দিচ্ছেন। সেখানে দাঁড়ানো অনেকের চোখে বিন্দু বিন্দু জল। তবে বেশিরভাগ মানুষ সেখানে গিয়ে নির্বাক তাকিয়ে থাকেন আর দেখেন।
তাদের মধ্যে একজন মার্ক ইসাক। তার বন্ধুও সেই মসজিদে হামলার শিকার। তবে প্রাণে বেঁচে গেলেও হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। বন্ধুকে ইসাক দেখতে পারেননি। তাকে হাসপাতালে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। তবে বন্ধু যেখানে হামলা শিকার হয়েছেন সেখানে গিয়ে নীরবে চোখের জল ফেলছেন। মার্ক ইসাক বলছিলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত আমাদের হাসপাতালে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। তাই এখন আমরা অপেক্ষা করছি যে তার সাথে কি ঘটে। আমি অনুভব করছি আমার কিছু করার নেই কিন্তু এখানে এসে তাকে ভালোবাসার সুযোগ তো পাচ্ছি।’
দাউদ নবী একজন আফগান অধিবাসী মসজিদে হামলার ঘটনায় নিহত হয়েছেন। ১৯৭৭ সালে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমানো দাউদ সেখানকার একজন কমিউনিটি নেতা ছিলেন। তার ছেলে ইয়ামা আল নবী সাংবাদিকদের বলেন, ‘গোলাগুলির সময় আরেকজনের জীবন বাঁচাতে গিয়ে তিনি (বাবা) প্রাণ হারিয়েছেন।’ আল নুর মসজিদে হামলার খবর শুনে দ্রæত সেখানে ছুটে যান আল নবী। তবে তিনি দেরি করে ফেলেন। হামলাস্থলে পৌঁছানোর পর তাকে একজন এসে বলে, ‘তোমার বাবা আমার জীবন বাঁচিয়েছে।’ পরে তার ভাই ওমর তাকে নিশ্চিত করেন, হামলাকারীর ধারণ করা ভিডিওতে তিনি তার বাবার মৃত্যু দেখেছেন।
নিউজিল্যান্ডের হাজারো মানুষ শনিবার গণহত্যার শিকার ওই মসজিদ ও হামলাস্থলে যান। হামলার ঘটনায় নিহতদের বন্ধু ও পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়েছেন তারা। আর যারা নিহত হয়েছেন তাদের মধ্যে অনেকেই শিশু ছিল বলে জানা যায়। আবার অনেকেই হাসপাতালে যাচ্ছেন প্রিয়জনের খবর নেওয়ার জন্য। তাছাড়া এখনো অনেক মুসলিম নিখোঁজ রয়েছেন। আফগানিস্তান থেকে নিউজিল্যান্ডে আসা শরিফুল্লাহ নাজিব হাসপাতালের আশেপাশে তার এক বন্ধুকে নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তারও লিনউড মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কাজ থাকায় যেতে পারেননি।
নাজিব গার্ডিয়ানের প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমরা মানুষের অবস্থা দেখার জন্য এসেছি। আমরা অনেককে হারিয়েছি। আমাদের অনেক বন্ধুর নিহত হয়েছে এই হামলায়। আমরা জানি না কারা বেঁচে আছে আর কারা হাসপাতালে আছে। আমার তিনজন বন্ধু আছে ভেতরে। তারা বুলেটবিদ্ধ। আমরা এখন একটি স্কুলে যাচ্ছি যেখানে মরদহের তালিকা আছে।’
নিখোঁজদের মধ্যে তিন বছর বয়সের একটি শিশু আছে। শেষবার তাকে তার বাবা ও ভাইয়ের সঙ্গে আল নূর মসজিদে দেখা যায়। ১৪ বছর বয়সী আরও এক কিশোর নিখোঁজ। যার স্বপ্ন ছিল বড় হয়ে ফুটবলার হবে। শুক্রবার সন্ধ্যায় তার পরিবার জানতে পারে যে সে আর নেই। আল নূর মসজিদে ঢোকার পর থেকেই নিখোঁজ স্থানীয় ক্যাশমেরে স্কুলের ১০ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী।
ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন দেখা কিশোরের বাবা বলছিলেন, ‘আমি আমার ছোট ছেলেটাকে হারিয়ে ফেলেছি। তার বয়স মাত্র ১৪ তে পড়েছে। আমি এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে তার মৃত্যুর খবর পাইনি। তবে সে যে আর নেই এটা আমার জানা হয়েছে গেছে।’ এমন কথা বলতে বলতে চোখের পানি আর ধরে রাখতে পারেন না তিনি।

তবে যারা ওই নৃশংস হামলা থেকে বেঁচে ফিরেছেন তাদেরও হয়েছে ভয়ংকর সব অভিজ্ঞতা। আদিম সামি নামের ৫২ বছর বয়সী এক বাবা নাটকীয়ভাবে তার দুই ছেলের প্রাণ বাঁচিয়েছেন। মসজিদে হামলাকারী যখন নির্বিচারে গুলি করা শুরু করেন তখন তিনি তার ২৯ ও ২৩ বছর বয়সী ছেলে আবদুল্লাহ আর আলির উপর ঝাপিয়ে পড়ে তাদের প্রাণ রক্ষা করেছেন। তবে ঘাতকের বুলেটের আঘাতে থেকে নিজে বাঁচতে পারেননি তিনি।
হামলায় বুলেটবিদ্ধ আদিব এখন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। তার মেয়ে বলছিলেন, ‘আমার বাবা একজন প্রকৃত নায়ক। তিনি আমার ভাইদের বাঁচাতে নিজের পিঠ বুলেটের মুখে ঠেলে দিয়েছেন। তিনি তাদের সাথে কিছুই ঘটতে দেননি।’
এমন অসংখ্য ঘটনা আর প্রিয়জন হারানোর নির্মম গল্প তৈরি হয়েছে আল নূর মসজিদে হামলার ঘটনায়। কেউ ভাই হারিয়েছেন, কেউ সন্তান, তো কেউ বাবা। আবার অনেকেই স্বামী সন্তান সবই হারিয়েছেন। কট্টর খ্রিষ্টীয় ধর্মালম্বী অস্ট্রেলিয়ান সেই হামলা হামলাকারী স্পষ্টত একজন সন্ত্রাসী। আর তার পেছনে মদদ আছে খ্রীষ্টান জঙ্গিবাদের। ধর্মের নামে যা মানুষ মারার বৈধতা দেয়।

রোববার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া আসছেন আগামীকাল রোববার। সকাল ১০টায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। পরে তারা ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেবেন।
এরপর বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া জাতীয় গ্রন্থ কেন্দ্র ও জেলা প্রশাসন আয়োজিত বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী।
রাষ্ট্রপতির প্রটোকল অফিসার মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন সরোয়ার স্বাক্ষরিত গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান সরকারের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে এসব তথ্য জানানো হয়। গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান সরকার বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রোববার সকালে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় আসবেন।
বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে বঙ্গবন্ধুর লেখা চিঠি গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন, বঙ্গবন্ধুকে লেখা শ্রেষ্ঠ চিঠি পাঠ, সেলাই মেশিন বিতরণ, জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠানে যোগদান ও প্রধান অতিথির বক্তব্য দেবেন শেখ হাসিনা। দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বেলা ২টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী নিজ বাসভবনে অবস্থান করবেন। বেলা ৩টায় হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবেন প্রধানমন্ত্রী।

গণআন্দোলন ছাড়া গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা অসম্ভব : জাফরুল্লাহ
ঢাকা অফিস
গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ভাসানী অনুসারী পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, দেশে গণতন্ত্র এবং মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য, সম্মিলিত ও জাতীয়ভাবে গণআন্দোলন করতে হবে। তাছাড়া অন্য কোনো পথ নেই। শনিবার রাজধানীর শিশু কল্যাণ পরিষদ হল রুমে ভাসানী অনুসারী পরিষদ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
জাফরুল্লাহ বলেন, দেশে গণতন্ত্রের কবর রচিত হয়েছে। এছাড়া ভোট লুণ্ঠন ও ভোট ডাকাতি হচ্ছে। এই অবস্থায় মওলানা ভাসানী বেঁচে থাকলে যা করতেন, আমাদের তাই করতে হবে। তিনি যেভাবে চিন্তা করতেন সেভাবে চিন্তা করতে হবে।
তিনি আরও বলেন, ঢাকা শহরে মওলানা ভাসানীর একটি স্মৃতিসৌধ করতে চেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি বেশি দিন বাঁচেননি। তবে তার দল এখনও বেঁচে আছে। বিএনপি যদি জিয়াউর রহমানকে সম্মান করে, তাহলে তার কথাকেও সম্মান করা উচিত। বিএনপির উচিত প্রতি বছর মওলানা ভাসানীকে স্মরণ করা। বিএনপি যত বড় দলই হোক না কেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে তারা একলা চলতে পারবে না।
ডাকসু নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ছাত্রদল পাঁচ নম্বরে চলে এসেছে। এত বড় একটা দল তারা পাঁচ নম্বরে চলে আসল। এত অহংকার ভালো নয়। ছাত্রদলের উচিত ছিল ছাত্র ইউনিয়ন, সাধারণ ছাত্র পরিষদের সঙ্গে যোগ দেয়া। অনেক সময় পিছিয়ে আসতে হয়। অন্যের নেতৃত্ব মেনে নিতে হয়। তাহলেই ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।
দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমরা মাওলানা ভাসানীকে ভুলে গেছি। তার আদর্শকে ভুলে গেছি। তিনি ১৯৭২ সালে দেশে ফিরে বলেছিলেন, ভারত থেকে সাবধান। কিন্তু আমরা বর্তমানে ভারতের দালালি করি। ভারতের দালালি বন্ধ না করলে ভবিষ্যতে দেশে বড় বিপদ আসবে।
সভায় সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. আখতার হোসেন সভাপতিত্ব করেন। কৃষক দলের আহŸায়ক কমিটির সদস্য ও দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সঞ্চালনায় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ভাসানী অনুসারী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, জিনাফ সভাপতি লায়ন মিয়া মো. আনোয়ার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক মহাসচিব নঈম জাহাঙ্গীর, ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুজ্জামান মনি, হান্নান আহমেদ খান বাবলু, কাদের সিদ্দিকী প্রমুখ।

‘সমুদ্র অর্থনীতি বিকাশে উপযুক্ত নীতিমালা প্রয়োজন’
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
চীনের রাষ্ট্রদূত জ্যাং জো বলেছেন, সমুদ্র অর্থনীতি খাতে বাংলাদেশের সম্ভাবনা উজ্জ্বল। এই খাতের যথাযথ বিকাশে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়ন এবং প্রাতিষ্ঠানিক ও মানবসম্পদের দক্ষতা উন্নয়ন একান্ত অপরিহার্য।

শনিবার ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি ওসামা তাসীরের সঙ্গে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত জ্যাং জো সাক্ষাৎকালে এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী, সহ-সভাপতি ইমরান আহমেদ, পরিচালক আন্দালিব হাসান, আলহাজ দ্বীন মোহাম্মদ, এনামুল হক পাটোয়ারী প্রমুখ।
নীতিমালা প্রণয়ন করেছে চীন সরকার। এ সুযোগ গ্রহণ করে বাংলাদেশের বিনিয়োগকারীদের চীনে বিনিয়োগের জন্য আহŸান জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, মানসম্মত পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিতকল্পে চীন সরকারের গৃহীত ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড কার্যক্রমটি চলমান রয়েছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বাংলাদেশে চীনের বিনিয়োগ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং সামনের দিনগুলোতে এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।
জ্যাং জো বলেন, বাংলাদেশের অবকাঠামো খাতের বৃহৎ প্রকল্পগুলোর উন্নয়ন ও বিনিয়োগে চীন বৃহত্তম অংশীদার। নিকট ভবিষ্যতে এ খাতের নতুন প্রকল্পসমূহে চীনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। চীনের ২০০টি বড় প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি প্রায় ২০০টির মতো ক্ষুদ্র ও মাঝারি চীনা উদ্যোক্তাও এদেশে বিনিয়োগ করেছে। তিনি চীন ও বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যকার সহযোগিতা বাড়ানো, সম্ভাবনাময় খাতে প্রয়োজনীয় গবেষণা পরিচালনা এবং দুই দেশের বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের যোগাযোগ স¤প্রসারণে ঢাকা চেম্বার একটি অন্যতম মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
ঢাকা চেম্বারের সভাপতি ওসামা তাসীর চীনের রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য অংশীদার চীন। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল ১২.৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালের মধ্যে এর পরিমাণ ১৮বিলিয়ন মার্কিন ডলারে এসে দাঁড়াবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
ওসামা তাসীর জানান, বাংলাদেশ প্রতিবছর চীনে মৎস ও হিমায়িত মৎস, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, শাক-সবজি, টেক্সটাইল ফাইবার্স, পেপার ইয়ার্ন, ওভেন ফেব্রিক্স, ইলেকট্রিকাল মেশিনারিজ এবং আসবাবপত্র প্রভৃতি পণ্য রফতানি করে থাকে। চীন ও আশিয়ান অঞ্চলের দেশসমূহের সঙ্গে সহযোগিতা আরও বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ লুক ইষ্ট নীতিমালা গ্রহণ করেছে। চীনের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা প্রদানের আহŸান জানান তিনি।

নিরাপত্তা পরীক্ষা করেই বিদেশ পাঠানো হবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে: প্রধানমন্ত্রী
ঢাকা অফিস
ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ক্রিকেট দলকে বিশ্বের অন্য কোনও দেশে খেলতে পাঠানোর আগে আয়োজক দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আগামীতে যেখানেই আমাদের ক্রিকেট টিম পাঠাবো সেখানে অন্তত তাদের নিরাপত্তার বিষয়টা আমরা ভালোভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই পাঠাবো। কারণ আমাদের দেশে যারা খেলতে আসে তাদের আমরা সবসময় যথাযথভাবে নিরাপত্তা দিয়ে থাকি।’

শনিবার (১৬ মার্চ) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতায় চার লেন ফ্লাইওভার এবং লতিফপুর রেলওয়ে ওভারপাস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতদের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনার পাশাপাশি এ ঘটনায় বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের বেঁচে যাওয়ায় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে এ ঘটনাকে ‘ঘৃণ্য সন্ত্রাসী’ ও ‘জঙ্গিবাদী ঘটনা’ হিসেবে আখ্যায়িত করে এ ধরনের হামলা বন্ধে বিশ্ববাসীকে একযোগে পদক্ষেপ গ্রহণের আহŸান জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ক্রিকেট খোলোয়াড়দের ওই মসজিদেই নামাজ পড়তে যাওয়ার কথা। তারা গিয়েছিলও। কিন্তু ওখানে একজন আহত মহিলা তাদের মসজিদের মধ্যে ঢুকতে দেয়নি। তারা কোনোমতে জীবন নিয়ে ফিরে আসে। এজন্য আল্লাহতায়ালার কাছে আমি শুকরিয়া আদায় করি।’ তিনি বলেন, ‘আশা করি বিশ্ববাসী এই ধরনের ঘটনার শুধু নিন্দাই করবে না, এই ধরনের সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদী ঘটনা যেন বন্ধ হয় সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটি একটি ঘৃণ্য ঘটনা। এটা সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদী ঘটনা।এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। সেখানে যেভাবে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে ঢুকে নামাজরত অবস্থায় তাদের গুলি করে হত্যা করা হয়ে, এর চেয়ে জঘণ্য কাজ, ঘৃণ্য কাজ হতে পারে না। যারা জঙ্গি, যারা সন্ত্রাসী তাদের কোনও ধর্ম নাই। তাদের কোনও দেশ নাই, জাতিও নাই। তারা সন্ত্রাসী। এদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।’ বাংলাদেশকে জঙ্গিমুক্ত করার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘অনেক কষ্ট করে আমরা আমাদের দেশকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ থেকে রক্ষা করতে পেরেছি। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস মানুষের অমঙ্গল ছাড়া কোনও মঙ্গল করতে পারে না।’
বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা ও স¤প্রীতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্মীয় স্বাধীনতা, এটা সব মানুষের স্বাধীনতা। আমাদের দেশে আমরা সেটা রক্ষা করতে পেরেছি। যে যার যার ধর্ম সে স্বাধীন ভাবে পালন করবে। সেই সুযোগটা আমরা করে দিয়েছি।’
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নিউ জিল্যান্ডে সেখানে মসজিদের ভেতরে ঢুকে ৪৯ জনকে হত্যা করা হয়েছে, অনেকে আহত। সেখানে আমাদের তিন জন বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছে। তাদের প্রতি শোক জানাচ্ছি।’ উল্লেখ্য, গত শুক্রবার নিউ জিলান্ডের ক্রাইস্টচার্চে জুমার নামাজের সময় আল নূর মসজিদ এবং লিনউড মসজিদে বন্ধুকধারীদের হামলায় ৪৯ জন নিহত এবং কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। নিউ জিল্যান্ড সফররত বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল সে সময় তৃতীয় টেস্টে অংশগ্রহণের জন্য ক্রাইস্টচার্চে অবস্থান করছিল। ক্রিকেটাররা আল নূর মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন।
এর আগে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান শুক্রবার জানান, ভবিষ্যতে নিজেরা যথেষ্ট নিরাপত্তা না পেলে বিদেশ সফরে বাংলাদেশ টিম বিরত থাকবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে কোনও বিদেশি দল যখন আসে, তখন তারা যে ধরনের নিরাপত্তা নিয়ে কথাবার্তা বলে, আমাদের সেটা দিতে হয়। কিন্তু আমরা এমনটা কখনও পাইনি। সেটা নিয়ে আমরা জোরাজুরি করিনি। আসলে আমার কাছে যেটা মনে হয়েছে, এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে এরকম কোনও ধারণাই নিউ জিল্যান্ডের নেই। এখন থেকে যে দেশেই বাংলাদেশ যাক না কেন, আমাদের ন্যূনতম চাওয়া অনুযায়ী নিরাপত্তা দিতে হবে। এটা যারা দিতে পারবে, তাদের ওখানেই আমরা খেলতে যাবো। এছাড়া খেলতে যাওয়া সম্ভব না।’ সূত্র: বাসস।

দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু উদ্বোধন
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শীতালক্ষ্যা নদীর উপর নির্মিত দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু শনিবার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইউএনবির খবরে বলা হয়, ৩৯৭ দশমিক ৩ মিটার দৈর্ঘ্য (লম্বা) ও ১৮. ১ মিটার চওড়া (প্রস্থ) চার লেনের এ সেতু নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৯৫০ কোটি টাকা। গণভবনে এক ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাঁচপুর সেতু ছাড়াও ভুলতায় চার লেনের ফ্লাইওভার (উড়াল সেতু) এবং লতিফপুরে একটি ওভারপাস উদ্বোধন করেন। জাপানী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওবায়েশি কর্পোরেশন, শিমিজু কর্পোরেশন, জেএফই প্রকৌশলী কর্পোরেশন এবং আইএইচ ইনফ্রা সিস্টেম কোম্পানি লিমিটেড দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতুসহ দ্বিতীয় মেঘনা এবং দ্বিতীয় মেঘনা-গুমতি সেতুর কাজ শুরু করে ২০১৬ সালের জানুয়ারি।
২০১৯ সালের জুনে দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও চার মাস আগেই এটির কাজ শেষ করা হয়। এদিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ভুলতায় ৩৫৩ দশমিক ৩৬ কোটি টাকা ব্যয়ে তিন স্তরে ১ দশমিক ৩ কিলোমিটার চার লেনের ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়।
চীনা নির্মাণ সংস্থা চীন রেলওয়ে ২৪ ব্যুরো গ্রুপ, স্পেক্ট্রা ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড এবং এমএন বিল্ডার প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা আশা করছেন যে, এই ফ্লাইওভার নির্মাণের ফলে ঢাকা-সিলেটে সড়ক যোগাযোগ সহজ হবে এবং যানজট দূর হবে। এতে ব্যবসা-বাণিজ্যেও গতিশীলতা ও জোরদার হবে।
এছাড়া ৪৫৬ দশমিক ৩৭ মিটার লতিফপুর ফ্লাইওভার চালুর কারণে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানচট কমিয়ে আসবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

লন্ডনে মসজিদের কাছে ‘হাতুড়ি’ নিয়ে হামলা
খুলনাঞ্চল ডেস্ক
নিউ জিল্যান্ডে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় বহু লোক নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর যুক্তরাজ্যের পূর্ব লন্ডনের একটি মসজিদের বাইরে একজন নামাজির ওপর হামলা হয়েছে। হামলায় ‘হাতুড়ি’ ও ‘ব্যাটন’ ব্যবহৃত হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদপত্র দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার তিন জনের একটি দল ক্যানন স্ট্রিট রোডের একটি মসজিদের পাশ দিয়ে গাড়িযোগে যাওয়ার সময় চিৎকার করে ইসলামবিদ্বেষী গালাগাল করে ও জুমার নামাজ পড়তে আসা মুসলিমদের ‘সন্ত্রাসী’ বলে গালি দেয়।
কয়েকজন নামাজি নীল রংয়ের ওই গাড়িটিকে ধাওয়া করলে কয়েক ব্যক্তি একটি অস্ত্রসহ গাড়িটি থেকে নেমে এসে তাদের একজনের ওপর হামলা চালায়। ব্যবহৃত অস্ত্রটি একটি হাতুড়ি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হামলায় আহত ২৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তির মাথায় আঘাত লেগেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এ সময় দুই দলের মধ্যে মারামারি হয়, এরপর ওই ব্যক্তিরা গাড়িতে উঠে চলে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীদের ধারণ করা একটি ভিডিও ক্লিপে সন্দেহভাজন এক হামলাকারীকে চলন্ত গাড়ির বনেটের ওপর উঠে সরে পড়ার চেষ্টা করতে দেখা যায়।
শুক্রবার দুপুর প্রায় ১টার দিকে পুলিশকে খবর দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশের এক মুখপাত্র। “পুলিশ আসার আগেই সন্দেহভাজনরা ফের তাদের গাড়িতে চড়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। ওই গাড়িটি খুঁজে বের করতে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে। সন্দেহভাজনরা সবাই শ্বেতকায় পুরুষ ও তাদের বয়স বিশ এর কোঠায় বলে বর্ণনা করা হয়েছে,” বলেছেন তিনি।
লন্ডন অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসকে ডাকা হলেও আহত ওই ২৭ বছরের ব্যক্তিকে তার বন্ধুরা নিজেদের গাড়িতে করে লন্ডন হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু তিনি হাসপাতালের কর্মীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে চিকিৎসা না নিয়েই হাসপাতাল ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন লন্ডন পুলিশের ওই কর্মকর্তা। আহত ব্যক্তির ‘আঘাত গুরুতর নয়’ এমনটিই ধারণা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। নিউ জিল্যান্ডে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ৪৯ জন মুসলিমকে হত্যার দিনটিতেই লন্ডনে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে।
নিউ জিল্যান্ডে ওই হামলার পর শুক্রবার যুক্তরাজ্যের মসজিদগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছিল। তারমধ্যেই এ ঘটনাটি ঘটল।

দেশে ফিরলেন তামিমরা
ঢাকা অফিস
ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম দিন বাংলাদেশের পারফরম্যান্স কেমন হলো, সেটি নিয়েই আলোচনা থাকত আজ। কিন্তু ক্রাইস্টচার্চে গতকাল দুটি মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় বদলে গেছে বাস্তবতা। শেষ টেস্ট বাতিল হওয়ায় নিউজিল্যান্ড থেকে আজ দেশে ফিরেছেন তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা। রাত ১০টা ৪২ মিনিটে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফসহ দেশে ফিরেছেন মোট ১৯ জন। শুক্রবার জুমার নামাজের সময় ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত হয় ৪৯ জন। হ্যাগলি ওভালের খুব কাছের নূর মসজিদেই ঘটেছে হতাহতের সবচেয়ে বড় ঘটনাটি। যেখানে জুমার নামাজ আদায় করার কথা ছিল বাংলাদেশ দলেরও। মিনিট পাঁচেকের জন্য হামলার শিকার হওয়া থেকে বেঁচে যান তামিম-মুশফিকরা।
ওই সময় ক্রিকেটারদের সঙ্গে থাকা দলের ম্যানেজার খালেদ মাসুদ পাইলট পরে ঘটনার বর্ণনায় বলেছিলেন, ‘মসজিদ আমরা বাস থেকেই দেখতে পাচ্ছিলাম। আমরা হয়তো ৫০ গজ দূরে ছিলাম। আর যদি ৩-৪ মিনিট আগে চলে আসতাম; তাহলে আমরা মসজিদেই হয়তো থাকতাম। হয়তো বিশাল, ভয়ানক একটা ঘটনা ঘটে যেতে পারত।’
৮-১০ মিনিট বাসে বসে থাকার পর নেমে হ্যাগলি পার্কের ভেতর দিয়ে হেঁটে মাঠে ফিরে ঘণ্টা দুয়েক অবরুদ্ধ অবস্থায় থাকেন তারা। এরপর ফেরেন হোটেলে। বাসে চড়ার আগে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর সংবাদ সম্মেলন একটু দেরিতে শেষ হওয়ায় এবং সেখানে পৌঁছার পর এক ভদ্রমহিলা মসজিদের ভেতরে গোলাগুলি চলছে জানিয়ে আর সামনে না এগোনোর আহŸান জানানোয় রক্ষা পায় দল।
আজ যেখানে বাংলাদেশ সময় ভোর চারটায় শুরু হওয়ার কথা ছিল শেষ টেস্ট, এর ঘণ্টা খানেক পরই দেশে ফেরার বিমান ধরতে হয় তামিমদের। যদিও পুরো দল একসঙ্গে দেশে ফিরতে পারবে কি না, তা নিয়ে প্রথমে সংশয় ছিল। শেষ পর্যন্ত একই ফ্লাইটের টিকিট পেয়ে সবাই একসঙ্গেই দেশে ফিরলেন।
নিরাপদে দেশে ফিরে আসলেও ক্রাইস্টচার্চের ঘটনায় ক্রিকেটারদের যে মানসিক ধাক্কা লেগেছে, সেটা কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে বেশ।

অগ্নিঝরা মার্চ
স্টাফ রিপোর্টার
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৫২তম জন্মদিন উপলক্ষে ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সমাজের সর্বস্তরের মানুষ মিছিল করে ধানম-ির ৩২ নম্বর রোডের বাসভবনে গিয়ে তাদের প্রাণপ্রিয় নেতাকে শুভেচ্ছা জানায়। বঙ্গবন্ধু ঘোষিত বাংলার অহিংস, অসহযোগ আন্দোলনের ষোড়শ দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সকাল ১০টায় প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে দ্বিতীয় দফা বৈঠকে মিলিত হন। কড়া সামরিক প্রহরার মধ্যে প্রেসিডেন্ট ভবনে এই বৈঠক শুরু হয়। এদিন বৈঠক প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলে। পাকিস্তানীদের ভাষায়, সে বৈঠক ছিল একটা ঞড়ঁময ংবংংরড়হ। সেদিনও বৈঠকের শুরুতেই শেখ মুজিব সামরিক শাসন প্রত্যাহার ও নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন। এবং ইয়াহিয়া আবারও আইনগত সমস্যার কথা বলেন। প্রথমদিনের মতোই আলোচনা শেষে অপেক্ষমাণ দেশী-বিদেশী সাংবাদিকদের বঙ্গবন্ধু বলেন, আলোচনা এখনও শেষ হয়ে যায়নি। তবে আলোচনার পরবর্তী সময়ও ঠিক হয়নি। আলোচনা চলছে।
লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলনও চলবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব তার বাসভবনে পৌঁছালে দেশী-বিদেশী সাংবাদিকদের অনুরোধে তিনি তাদের সঙ্গে এক ঘরোয়া বৈঠকে মিলিত হন। ৫২তম জন্মদিনে তার কামনা কি, জনৈক বিদেশী সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু বলেন, জনগণের সার্বিক মুক্তি।
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু বলেন, আমি জনগণেরই একজন। আমার জন্মদিনই কি! আর মৃত্যৃদিনই কি! আমার জনগণের জন্যই আমার জীবন ও মৃত্যু। আপনারা আমাদের জনগণের অবস্থা জানেন। অন্যের খেয়ালে যে কোন মুহূর্তে আমাদের মৃত্যু হতে পারে। ঐদিন সন্ধ্যায় আবারও ইয়াহিয়ার উপদেষ্টাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের একটি দলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। উল্লেখ্য, শেখ মুজিবের সঙ্গে বৈঠকের পরপরই ইয়াহিয়া খান বেলুচিস্তানের কসাই টিক্কা খানকে বলেন, ঞযব ইধংঃধৎফ রং হড়ঃ নবযধারহম. ণড়ঁ মবঃ ৎবধফু। টিক্কা খাদিম হোসাইন রাজাকে রাতে ফোন করে জানান, কযধফরস, ুড়ঁ পধহ মড় ধযবধফ! ধীরে ধীরে সম্পন্ন হচ্ছিল অপারেশন সার্চলাইটের সকল প্রস্তুতি। সন্ধ্যায় চট্টগ্রামে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী বলেন, পূর্ববাংলা এখন স্বাধীন, সাড়ে সাত কোটি বাঙালী এখন স্বাধীনতার প্রশ্নে ঐক্যবদ্ধ। তিনি বলেন, আমার ৮৯ বছরের অতীতের সব আন্দোলনের সঙ্গে আমি জড়িত ছিলাম। কিন্তু একটি সর্বজনীন দাবিতে জনগণের মধ্যে বর্তমান সময়ের মতো একতা ও সহযোগিতা আমি এর আগে কখনও দেখিনি। এছাড়া ন্যাপ নেতা আবদুল ওয়ালী খান প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। এবং বিকেলে সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমান শাসনতান্ত্রিক সঙ্কট নিরসনের জন্য জাতীয় পরিষদই যোগ স্থান। অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টো ও প্রধান বিচারপতি হামুদুর রহমানকে ঢাকায় আসার আমন্ত্রণ জানান। অসহযোগ আন্দোলনের ষোড়শ দিবসে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ছাত্রছাত্রীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ময়দানসহ বিভিন্ন এলাকায় কুচকাওয়াজ ও রাইফেল চালানোর প্রশিক্ষণ শুরু করেন। ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসকে ‘প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে পালনের জন্য স্বাধীন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রসংগ্রাম কর্মসূচী ঘোষণা করে। এ উপলক্ষে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ নেতৃবৃন্দ ঐদিন সকাল ৬ টায় সরকারী- বেসরকারী অফিস, আদালত, শিক্ষা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং সকল প্রকার যানবাহনে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন, প্রভাতফেরি, শহীদানের মাজার জিয়ারত, শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ, জয় বাংলা বাহিনীর কুচকাওয়াজ এবং বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বটতলায় ছাত্র-জনসভার কর্মসূচী ঘোষণা করে। লাহোরে পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিকগণ পৃথক পৃথক বিবৃতিতে ভুট্টোর দুই অংশের দুটি সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রস্তাব প্রসঙ্গে বলেন, সাধারণ নির্বাচন গোটা দেশের জন্য হয়েছে।

দল সুসংগঠিত করেই নির্বাচনে যাব: মির্জা ফখরুল
খুলনাঞ্চল রপোর্ট
মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার পাচুরিয়া গ্রামে বিএনপির প্রাক্তন মহাসচিব মরহুম খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ৮ম মৃত্যুবার্ষিকীতে তার কবর জিয়ারত করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় তিনি দলীয় নেতাকর্মী ও পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। শেষে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বিনা অপরাধে রাজনৈতিক কারণে কারাভোগ করছেন। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াসহ রাজবন্দীদের মুক্তি এবং সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তার জন্য বিএনপি শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করে যাচ্ছে। বর্তমানে দল পুনর্গঠনের কাজ চলছে। এদেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ফ্যাসিবাদী ও স্বৈরাচারী সরকারকে উৎখাত করা হবে।
তিনি নিউজিল্যান্ডের বন্দুকধারীর হামলায় বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের জন্য দোয়া এবং হতাহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারের এ পাতানো নির্বাচন ফাঁদে বিএনপি আর পা দেবেনা। ভবিষ্যতে দল সুসংগঠিত করেই তবে আমরা নির্বাচনে যাব।
এ সময় যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, যুগ্ম মহাসচিব ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের পুত্র খোন্দকার আব্দুল হামিদ খান ডাবলু, জেলা বিএনপির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক খোন্দকার আকবর হোসেন বাবলু, জামিলুর রশিদ খানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরো বলেন, মরহুম খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন ছিলেন একজন দৃঢ়চেতা ও আদর্শনিষ্ঠ রাজনীতিবিদ। দৃঢ়তা, অটুট মনোবল এবং ব্যক্তিত্বে তিনি ছিলেন অনন্য উচ্চতায় একজন ব্যতিক্রমী রাজনীতিবিদ। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধিকার, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও জনগণের মুক্তির সকল সংগ্রামে তিনি রেখেছেন অসামান্য অবদান। ১/১১-তে দেশের এক চরম রাজনৈতিক সংকটকালে বিএনপি মহাসচিবের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে তিনি দলের বিরুদ্ধে চক্রান্ত রুখে দিতে যোগ্য নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।
উল্লেখ্য, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন ২০১১ সালের ১৬ মার্চ সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

আজ সরকারী হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে দেশের সকল সরকারী হাসপাতালে আজ রবিবার বিনামূল্যে পরামর্শ ও চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হবে। অনেক হাসপাতালে দেয়া হবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসাসেবা। এদিন সকাল ৮টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত দেশের সকল হাসপাতালের বহির্বিভাগে এ চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হবে। অনেক বেসরকারী হাসপাতালেও এমন চিকিৎসাসেবা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, শিশু দিবস উপলক্ষে রবিবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত হাসপাতালের বহির্বিভাগে জনসাধারণকে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেয়া হবে। এছাড়া এদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টার মধ্যে হাসপাতালগুলোতে ‘শিশুর স্বাস্থ্য সচেতনতা, পুষ্টি ও খাদ্য’ সম্পর্কে আলোচনা সভার আয়োজনের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সরকারী হাসপাতালগুলোতে ভর্তি রোগীদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডাঃ উত্তম কুমার বড়ুয়া জানান, এমনিতেই সরকারী হাসপাতালে ফ্রি চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়ে থাকে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যাননি তানহা
ঢাকা অফিস
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদের নির্বাচিত ২৫৯ জন প্রতিনিধি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে গণভবন গেছেন। তবে গণভবনে যাননি সুফিয়া কামাল হল সংসদের সদস্য লামইয়া তানজিন তানহা। নির্বাচনের ফল কারচুপির অভিযোগে ডাকসুর ফল বাতিল চেয়েছেন তিনি।
শনিবার বিকাল ৪টায় গণভবনে ডাকসুর নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রী। ডাকসু নেতাদের নিয়ে বেলা পৌনে ২টার দিকে ৪টি মিনিবাস আর ৬টি বাস রওনা দেয়।

এ বিষয়ে তানহা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নির্বাচনে যখন কারচুপি হলো তখনই আমরা সবাই প্যানেল থেকে বর্জনের ঘোষণা দিয়েছি। তারপর ফলাফল ঘোষণার পর আবার যখন দেখলাম আমি জয়ী হয়েছি তখন আমি এ ফলাফল আর গ্রহণ করতে পারি না। কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী যদি তার ভোট দিতে না পারে সেটাও ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে বিশাল অন্যায়। সেজন্য আমি প্রথমে নির্বাচন বর্জন করেছি, পরে পদত্যাগ করেছি। তাই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছি না।’
ইংরেজী বিভাগের এই শিক্ষার্থী সুফিয়া কামাল হলে সদস্য পদে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের প্যানেল থেকে নির্বাচন করেছেন। ৮৪১ ভোট পেয়ে নির্বাচিতও হয়েছেন তিনি। তবে সামগ্রিকভাবে পুরো ডাকসু নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে ভোটের ফল প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।
প্রসঙ্গত, ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ ওঠায় ছাত্রলীগ ছাড়া বাকি প্যানেলগুলো তা বর্জনের ঘোষণা দেয়। পরে ভিপি পদে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা নুরুল হক নুর এবং জিএস পদে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও ডাকসুর ২৫টি পদের মধ্যে ২টি পদে কোটা সংস্কার আন্দোলনের দুই নেতা আর বাকি ২৩টি পদে ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে জয়ী হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here