সকল জাতীয় সংবাদ

0
23

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে
স্টাফ রিপোর্টার
ফেব্রæয়ারির দুটি সপ্তাহ ধরে চলছিল একুশে ফেব্রæয়ারির প্রস্তুতি। অলি আহাদের ভাষ্যমতে, সরকার একুশে ফেব্রæয়ারি পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের বাজেট অধিবেশন আহŸান করেছিল। একুশে ফেব্রæয়ারির কর্মসূচির উদ্দেশ্য ছিল ওই অধিবেশনে বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিয়ে পূর্ব পাকিস্তানের তরফ থেকে এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করা। একুশ ফেব্রæয়ারির আগে সভা ও মিছিলগুলোর কারণে কেবল ছাত্রদের মধ্যে নয়, সাধারণ মানুষের মনেও সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছিল। সবাই প্রতিরোধ ও সংগ্রামের প্রত্যক্ষ কর্মসূচিই প্রত্যাশা করছিলেন। এ রকম অবস্থায় পূর্ববঙ্গ সরকার ২০ ফেব্রæয়ারি থেকে এক মাসের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করে ঢাকা শহরে সমাবেশ ও শোভাযাত্রা নিষিদ্ধ করে দেয়। সরকারি নির্দেশে বলা হয়, ‘ঢাকার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ১৪৪ ধারার আদেশ জারি করিয়া এক মাসের জন্য ঢাকা শহরে সভা, শোভাযাত্রা প্রভৃতি নিষিদ্ধ করিয়াছেন। আদেশ জারির কারণ সম্পর্কে বলা হয়, একদল লোক শহরে সভা, শোভাযাত্রা ও বিক্ষোভ প্রদর্শনের প্রয়াস পাওয়ায় এবং তদ্বারা জনসাধারণের শান্তি ও নিরাপত্তা বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থাকায় এই ব্যবস্থা অবলম্বিত হইয়াছে। কোতওয়ালী, সূত্রাপুর, লালবাগ, রমনা ও তেজগাঁও থানার অন্তর্গত সমুদয় এলাকায় ইহা প্রবর্তিত হইয়াছে।
জনমনে ভীতি ও ত্রাস সঞ্চারের চিরাচরিত পন্থাই সরকার গ্রহণ করেছিল। ফৌজদারি দÐবিধির ১৪৪ ধারা জারি করার সঙ্গে সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। সরকার একটি গুজবও ছড়িয়ে দেয় যে, হাসপাতালে অনেকগুলো শয্যাও খালি করা হয়েছে, যাতে একুশে ফেব্রæয়ারি শান্তিভঙ্গের কারণে যারা আহত হবেন তাদের ভর্তি করা যায়। অলি আহাদ একটি কথা উল্লেখ করেছিলেন যে, জহুর হোসেন চৌধুরী তখন মুসলিম লীগের বাংলা মুখপত্র ‘দৈনিক সংবাদ’ এর যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। সেই সূত্রে সরকারি মহলে তার যোগাযোগ ছিল ভালো। একুশে ফেব্রæয়ারি নিয়ে সরকারের মনোভাব যে কঠোর ছিল তা তিনি জানতেন। অলি আহাদকে তিনি খুব স্নেহ করতেন। একুশে ফেব্রæয়ারি তারিখটি যত এগিয়ে আসছিল জহুর হোসেন চৌধুরী ততই তাদের আইন ভঙ্গ করার চিন্তা বাদ দিতে বলছিলেন। ১৯ ফেব্রæয়ারি তার বাসায় তিনি অলি আহাদকে জানান, আন্দোলন দমন করতে সরকার প্রয়োজনে সেনাবাহিনী তলব করবে, ট্যাঙ্ক ব্যবহার করবে। অলি আহাদ সেদিন উত্তরে বলেছিলেন, ‘দাসত্বের চেয়ে মৃত্যু ভালো।’ জহুর হোসেন চৌধুরী রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের সমর্থক ছিলেন। তিনি আশঙ্কা করছিলেন একুশে ফেব্রæয়ারি আন্দোলনের দমন করতে গিয়ে সরকার হয়তো গণতন্ত্রের আন্দোলনকেই দমন করে ফেলতে পারে। কিন্তু তা যে সম্ভব হয়নি ইতিহাসই তার সাক্ষী।

নালিশ আর মামলা বিএনপির শেষ ভরসা: কাদের
ঢাকা অফিস
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির আন্দোলন করার মতো সামর্থ্য নেই, তাই নালিশ আর মামলাই তাদের শেষ ভরসা।
গতকাল রবিবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ কথা বলেন কাদের। তিনি উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পর এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, যেকোনো নির্বাচনের ফল নিয়ে যে কারোরই মামলা দায়েরের অধিকার রয়েছে। জাতীয় নির্বাচনের ফল নিয়ে জেলা পর্যায়ে বিএনপির মামলা করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাওয়া এক প্রার্থীর বিষয়ে অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখব। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
পৌরসভার মেয়র বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন কি না? এ বিষয়ে কাদেরের কাছে জানতে চাওয়া হয়। এর উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের আইনের ব্যত্যয় যেন না হয়, সে জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। সে জন্যই আমরা জাতীয় নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং মেয়রদের দলীয় মনোনয়ন দিইনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও আমরা মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের কোনো চেয়ারম্যানকে মনোনয়ন দিইনি। তারপরও কোনো অভিযোগ পেলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।’
এ সময় সাংবাদিকের অপর এক প্রশ্নের সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, ‘গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুযায়ী, আমরা শতকরা ৩৩ ভাগ নারী প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আরপিওর ধারাটি পুরোপুরিভাবে পালন করার টার্গেট রয়েছে।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ২২ ফেব্রæয়ারি তৃতীয়, ২৩ ফেব্রæয়ারি চতুর্থ এবং জুন মাসে পঞ্চম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

আরও ১২২ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর নাম ঘোষণা আ’লীগের
ঢাকা অফিস
উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ১২২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের গতকাল রবিবার সকালে ধানমন্ডিতে দলের সভাপতির কার্যালয়ে প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করেন। এবার উপজেলা নির্বাচন কয়েকটি ধাপে হবে। প্রথম ধাপের ৮৭টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নাম আগেই ঘোষণা করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ কোনো প্রার্থী দিচ্ছে না। এখানে দলের নেতাদের জন্য উন্মুক্ত প্রতিযোগিতার সুযোগ রাখা হয়েছে। গতকাল রবিবার প্রকাশ করা ১২২ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন:
বিভাগ: রংপুর
ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁও সদরে অরুণাশু দত্ত টিটো, পীরগঞ্জে আখতারুল ইসলাম, রানীশংকৈলে সাইফুল হক, হরিপুরে জিয়াউল হাসান, বালিয়াডাঙ্গীতে আহসান হাবীব বুলবুল।
রংপুর : পীরগাছায় আবদুল্লাহ আল মাহমুদ মিলন, তারাগঞ্জ মো. আনিছুর রহমান. বদরগঞ্জে ফজলে রাব্বি, কাউনিয়া আনোয়ারুল ইসলাম, পীরগঞ্জে নূর মোহাম্মদ মÐল, গঙ্গাচড়ায় মো. রুহুল আমিন।
গাইবান্ধা : গাইবান্ধা সদরে শাহ সারোয়ার কবীর, সাদুল্যাপুরে মো. সাহারিয়া খান, গোবিন্দগঞ্জে মো. আবদুল লতিফ প্রধান, ফুলছড়ির জি এম সেলিম পারভেজ, সাঘাটা এস এম সামশীল আরেফিন, পলাশবাড়ীতে এ কে এম মোকছেদ চৌধুরী।
দিনাজপুর : দিনাজপুর সদরে ইমদাদ সরকার, কাহারোলে এ কে এম ফারুক, বিরলে এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান, বোচাগঞ্জে মো. আফছার আলী, চিরিরবন্দরে মো. আহসানুল হক, ফুলবাড়ীতে মো. আতাউর রহমান মিল্টন, বিরামপুরে পারভেজ কবীর, হাকিমপুরে হারুন উর রশীদ, বীরগঞ্জে আমিনুল ইসলাম, নবাবগঞ্জে আতাউর রহমান, পার্বতীপুরে হাফিজুল ইসলাম প্রামাণিক, খানসামার সফিউল আযম চৌধুরী, ঘোড়াঘাটের আবদুর রাফে খন্দকার।
চট্টগ্রাম বিভাগ
নোয়াখালী : জেলার হাতিয়ায় মাহবুব মোর্শেদ, চট্টগ্রাম: সদ্বীপ উপজেলায় মো. শাহজাহান, সীতাকুÐের এস এম আল মামুন, রাঙ্গুনিয়ায় খলিলুর রহমান চৌধুরী, ফটিকছড়ির মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, মীরসরাইয়ে জসিম উদ্দিন, রাউজানে এ কে এম এহেছানুল হায়দর চৌধুরী, হাটহাজারীতে এস এম রাশেদুল আলম।
রাঙামাটি: কাউখালী উপজেলায় সামশু দোহা চৌধুরী, রাঙামাটি সদর শহীদুজ্জামান মহসীন, রাজস্থলীর উবাচ মারমা, লংগদুর আবদুল বারেক সরকার, বিলাইছড়ির জয় সেন তঞ্চঙ্গ্যা, কাপ্তাইয়ে মো. মফিজুল হক, বরকলের সবির কুমার চাকমা, জুড়াছড়ি রূপকুমার চাকমা, বাঘাইছড়ির মো. ফয়েজ আহমেদ।
বিভাগ: রাজশাহী
বগুড়া : বগুড়া সদরে মো. আবু সুফিয়ান, নন্দীগ্রামে মো. রেজাউল আশরাফ, সারিয়াকান্দিতে অধ্যক্ষ মুহম্মদ মুনজিল আলী সরকার, আদমদীঘি মো. সিরাজুল ইসলাম খান রাজু, দুপচাঁচিয়া মো. মিজানুর রহমান খান, ধুনটে মো. আবদুল হাই (খোকন), শাজাহানপুর মো. সোহরাব হোসেন, শেরপুরে মো. মজিবর রহমান মজনু, শিবগঞ্জে মো. আজিজুল হক, কাহালুতে মো. আবদুল মান্নান, গাবতলীতে এ এইচ এম আজম খান এবং সোনাতলায় মো. মিনহাদুজ্জামান লিটন।
নওগাঁ : নওগাঁ সদরে মো. রফিকুল ইসলাম (রফিক), আত্রাইয়ে মো. এবাদুর রহমান প্রামাণিক, নিয়ামতপুরে ফরিদ আহমেদ, সাপাহারে মো. শামছুল আলম শাহ্ চৌধুরী, পোরশায় মো. আনোয়ারুল ইসলাম, ধামইরহাটে মো. আজাহার আলী, বদলগাছীতে মো. আবু খালেদ বুলু, রাণীনগরে মো. আনোয়ার হোসেন, মহাদেবপুরে মো. আহসান হাবীব, পতœীতলায় মো. আবদুল গাফফার, মান্দায় মো. জসিম উদ্দীন।
পাবনা : সদর উপজেলায় মো. মোশারোফ হোসেন, আটঘরিয়ায় মো. মোবারক হোসেন, বেড়ায় আবদুল কাদের, ভাঙ্গুড়ায় মো. বাকি বিল্লাহ, চাটমোহরে সাখাওয়াত হোসেন সাখো, ঈশ্বরদীতে মো. নুরুজ্জামান বিশ্বাস, সাঁথিয়া মো. আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, সুজানগরে শাহীনুজ্জামান এবং ফরিদপুরে মো. খলিলুর রহমান সরকার।
বিভাগ: ঢাকা
ফরিদপুর : সদর উপজেলায় মো. আবদুর রাজ্জাক মোল্লা, বোয়ালমারীতে এম এম মোশাররফ হোসেন, চরভদ্রাসনে মো. কাউছার, সদরপুরে শায়েমিন জামাল শিশু, সালথায় মো. দেলোয়ার হোসেন, আলফাডাঙ্গায় এস এম আকরাম হোসেন, মধুখালীতে মির্জা মনিরুজ্জামান বাচ্চু, নগরকান্দায় মো. মনিরুজ্জামান সরদার এবং ভাঙ্গায় মো. জাকির হোসেন মিয়া।
বিভাগ: সিলেট
সিলেট: সদর উপজেলায় আশফাক আহমেদ, বিশ্বনাথে মো. নুনু মিয়া, দক্ষিণ সুরমায় মো. আবু জাহিদ, বালাগঞ্জে মো. মোস্তাকুর রহমান, কোম্পানীগঞ্জে মো. জাহাঙ্গীর আলম, গোয়াইনঘাটে মো. গোলাম কিবরিয়া হেলাল, জৈন্তাপুরে লিয়াকত আলী, কানাইঘাটে আবদুল মোমিন চৌধুরী, গোলাপগঞ্জে ইকবাল আহমেদ চৌধুরী, জকিগঞ্জে মো. লোকমান উদ্দিন চৌধুরী , বিয়ানীবাজারে আতাউর রহমান খান।

জামায়াতের বিচারে আইন সংশোধন হচ্ছে : আইনমন্ত্রী
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর বিচার প্রক্রিয়ার জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইনের সংশোধনী তৈরি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা নিয়ে পুনরায় ওই সংশোধনী মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হবে, যাতে এটি মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা যায়। আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হবে।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আজ একাদশ সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের (নেত্রকোনা-৫) তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। তিনি মন্ত্রীর কাছে জানতে চান, যুদ্ধাপরাধীর দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর বিরুদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা নিতে সরকারের কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা, থাকলে তা কী?
লিখিত জবাবে আনিসুল হক বলেন, ১৯৯৮ সালে জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে বিএনপি চারদলীয় জোট গঠন করে। যে জামায়াতে ইসলামী ১৯৭১ সালে রাজনৈতিকভাবে দৃঢ় ও প্রকাশ্য অবস্থান নিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল তাদের বাড়ি এবং গাড়িতে চারদলীয় জোট জাতীয় পতাকা উড়ায়। কিন্তু বর্তমান সরকার সবসময়ই আইনের শাসনে বিশ্বাসী। এ সরকারই বঙ্গবন্ধু, জাতীয় চার নেতা হত্যা ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে এ দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে। এ দেশের মাটিতেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছে।
তিনি আরও বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধীদের একাধিক মামলার রায়ে আদালত জামায়াতে ইসলামী দল হিসেবে যুদ্ধাপরাধে জড়িত ছিল মর্মে উল্লেখ করেছেন। পরবর্তীতে ২০১৮ সালের ২৮ অক্টোবর নির্বাচন কমিশন জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

সংসদে এরশাদের ১৫ মিনিট
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
একাদশ সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ হুইল চেয়ারে বসে প্রথমবারের মতো সংসদ অধিবেশনে যোগ দিয়ে। গতকাল রবিবার বিকাল ৪টা ৩৫ মিনিটে তিনি সংসদ ভবনে এসে পৌঁছান। এ সময় জাপার কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও সংসদের বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গার সহযোগিতায় গাড়ি থেকে নেমে হুইল চেয়ারে বসে লিফটে সরাসরি বিরোধী দলের লবিতে যান তিনি।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল রবিবার বিকাল ৪টা ৪০ মিনিটে একাদশ সংসদের ৭ম দিনের বৈঠক শুরু হয়। এর ১৫ মিনিট পর হুইল চেয়ারে বসেই অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন এরশাদ। এ সময় জিএম কাদের ও রাঙ্গাকে দলীয় চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হুইল চেয়ার থেকে নামিয়ে সংসদের বিরোধী দলীয় নেতার জন্য সংরক্ষিত আসনে বসিয়ে দিতে দেখা যায়। চেয়ারে বসে এরশাদ অধিবেশনে থাকা সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে হাত নেড়ে সালাম জানান। সরকারি দলের সামনের সারিতে থাকা আওয়ামী লীগের সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, বেগম মতিয়া চৌধুরী, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামালসহ কয়েকজন হাত তুলে এরশাদকে সালাম জানান। ১৫ মিনিটের মত সংসদে অবস্থান করে বিরোধী দলীয় নেতা হুইল চেয়ারে বসেই অধিবেশন কক্ষ ত্যাগ করেন। অধিবেশন কক্ষ থেকে শুরু করে গাড়িতে ওঠা পর্যন্ত পেছন থেকে হুইল চেয়ার ঠেলে নিয়ে যান মসিউর রহমান রাঙ্গা। এ সময় জিএম কাদের, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, নাসরিন জাহান রত্মা, মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ প্রমুখ জাপার এমপিরা এ সময় এরশাদের সঙ্গে ছিলেন।
এদিকে, গতকাল রবিবার জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ সংসদে যাননি। সংসদে এরশাদের বাম পাশের আসনটিতেই বসেন রওশন। এরশাদ যতক্ষণ অধিবেশন কক্ষে ছিলেন ততক্ষণই রওশনের চেয়ারে বসে এরশাদের সঙ্গে কথা বলেন জিএম কাদের। এ সময় এরশাদকে বেশ হাসিখুশি দেখাচ্ছিল। পুরো অধিবেশন কক্ষের দিকে তাকিয়ে এবারের সংসদে কে কোথায় বসেছেন তা মাথা ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেখতে দেখা যায় এরশাদকে। এর ফাঁকে সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ এসে একবার এরশাদের পাশে বসে তার কুশল জানতে চান।
গত ৩০ জানুয়ারি একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হলেও সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন থাকায় এবং গত ৪ ফেব্রæয়ারি দেশে ফেরার পরেও তেমন সুস্থ না থাকায় এতদিন সংসদে যেতে পারেননি এরশাদ।

কমপারিটেকের প্রতিবেদন
বাংলাদেশে ৩৬% মোবাইল ম্যালওয়্যার আক্রান্ত
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
দেশের মোট মোবাইলের ৩৫ দশমিক ৯১ ও পিসির ১৯ দশমিক ৭ শতাংশ ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকর গ্রোগ্রামে আক্রান্ত। সে হিসাবে বিশ্বের ৬০ টি দেশের মধ্যে বাজে সাইবার নিরাপত্তার দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৬ নম্বরে। ম্যালওয়্যারের আক্রমণ, সাইবার নিরাপত্তা গ্রস্তুতি, হালনাগাদ সাইবার নিরাপত্তা সংক্রান্ত আইন বিবেচনায় এ গবেষণা করেছেন যুক্তরাজ্যের গবেষণা গ্রতিষ্ঠান কমপারিটেক।
মোবাইল ফোন আমদানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমপিআইএ) হিসাব অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে ৯ কোটি মোবাইল ফোন সক্রিয় রয়েছে। ১৫ কোটি সিম সক্রিয় রয়েছে। মোট ফোনের মধ্যে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী ২৫.৩০ শতাংশ। বাংলাদেশ কম্পিউটার বিক্রেতাদের সূত্রে জানা গেছে, দেশে বর্তমানে গ্রতি বছর ১ লাখ ২০ হাজার ইউনিট পিসি বিক্রি হচ্ছে।
কমপারিটেকের তালিকায় বাংলাদেশের স্কোর ৪৭ দশমিক ২১। বাংলাদেশের পেছনে রয়েছে কেবল উজবেকিস্তান, তানজানিয়া, ভিয়েতনাম,ইন্দোনেশিয়া ও আলজেরিয়া। সাইবার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বাজে অবস্থা আলজেরিয়ার। তাদের স্কোর ৫৫ দশমিক ৭৫। তালিকায় ৪৭ দশমিক ১০ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে একধাপ এগিয়ে পাকিস্তান। ভারতের অবস্থান ১৫ তম। ভারতের স্কোর ৩৯ দশমিক ৩০। এ তালিকায় যে দেশের স্কোর সবচেয়ে কম সে দেশ সাইবার নিরাপত্তায় তত বেশি শক্তিশালী। তালিকায় মাত্র ৮ দশমিক ৮ স্কোর নিয়ে সাইবার নিরাপত্তার দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে জাপান। এরপরের অবস্থান যথাক্রমে ফ্রান্স, কানাডা, ডেনমার্ক, যুক্তরাষ্ট্র, আয়ারল্যান্ড, সুইডেন, যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ডস, সিঙ্গাপুর ও অস্ট্রেলিয়া।
কমপারিটেক তাদের গ্রতিবেদনে যে বিষয়গুলো বিবেচনা করেছে, সেখানে বাংলাদেশের সাইবার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বাজে অবস্থানে জন্য মোবাইল ম্যালওয়্যার ও কম্পিউটার ম্যালওয়্যারের বিষয়টি বেশি গুরুত্ব পেয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। এর মধ্যে ম্যালওয়্যারের আক্রমণের হার বা সাইবার নিরাপত্তা সংক্রান্ত হালনাগাদ আইন রয়েছে। এ ছাড়া সাইবার নিরাপত্তা গ্রস্তুতির বিষয়টি বিবেচনা করতে ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নের (আইটিইউ) ২০১৭ সালের গেøাবাল সাইবার সিকিউরিটি ইনডেক্স (যঃঃঢ়ং://িি.িরঃঁ.রহঃ/ফসংথঢ়ঁন/রঃঁ-ফ/ড়ঢ়ন/ংঃৎ/উ-ঝঞজ-এঈও.০১-২০১৭-জ১-চউঋ-ঊ.ঢ়ফভ) বিবেচনা করা হয়েছে। ওই তালিকায় বিশ্বে বাংলাদেশর অবস্থান ৫৩।
কমপারিটেকের গ্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে আর্থিক খাতে আক্রমণ ১ দশমিক ৩ শতাংশ, আইওটি বা টেলনেট ক্ষেত্রে আক্রমণ দশমিক ৩৮ শতাংশ, ক্রিপটোমাইনারসের আক্রমণ ৩ দশমিক ৩১ শতাংশ।
কমপারিটেক তাদের গ্রতিবেদনে আরও বলেছে, কয়েকটি দেশের কিছু কিছু ক্ষেত্রে দুর্বলতা ও কিছু ক্ষেত্রে শক্ত অবস্থান রয়েছে। বাংলাদেশসহ গ্রতিটির দেশে সাইবার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আরও উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে। কম্পিউটার ও মোবাইল খাতে আরও নিরাপত্তা বাড়ানো, সাইবার নিরাপত্তা আইন শক্তিশালী করার মতো বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দিতে হবে।

নারায়ণগঞ্জের সাবেক ইউএনও বীনার স্ট্যাটাসে প্রশাসনে তোলপাড়
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসনে আরা বেগম বীনাকে গত ৪ ফেব্রয়ারি ওএসডি (বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) করা হয়েছে। ওএসডি’র পর গত শুক্রবার রাতে বীনা তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। যা নিয়ে প্রশাসনে চলছে তোলপাড়।
তার স্ট্যাটাসের মুল বক্তব্য হল-মাত্র ৯ মাস পূর্বে তিনি এ পদে যোগদান করেন। তার দীর্ঘ ৯ বছরের দাম্পত্য জীবনে বহু চেষ্টা চিকিৎসার পরও কোনো সন্তান হয়নি। কিন্তু পাঁচ মাস পূর্বে জানতে পারেন তিনি দুই মাসের সন্তানসম্ভবা। এ অবস্থা নিয়েই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে সফলতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। এমনকি এ জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে এপ্রিসিয়েশনও দিয়েছে। অথচ সন্তান সম্ভবা হওয়ার পর তাকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে বদলীর পায়তারা করে ছিল একটি মহল।
সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল আগামী ২০ এপ্রিল; মানসিকভাবে প্রস্তুতিও ছিল তার। গত ৪ ফেব্রয়ারি বিকালে রেগুলার চেকআপ করার সময় খবর পান কর্তৃপক্ষ তাকে ওএসডি করেছে। তার অপরাধ তিনি সন্তান সম্ভবা। খবর শোনার পর তিনি মানসিক চাপ সহ্য করতে পারেননি। অ্যাজমার রোগী হওয়ায় প্রচন্ড মানসিকচাপে তার ফুসফুসে বøাড সার্কুলেশন অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়। এতে তার পেটের সন্তানের অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ হয়ে যায় এবং হঠাৎ করেই পেটের সন্তানের নড়াচড়া বন্ধ হয়ে য়ায়।
এরপর তাৎক্ষণিক হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ৩১ সপ্তাহ বয়সী প্রি-ম্যাচিউর বেবিকে সিজার করে বের করে ফেলা হয়। বর্তমানে সে স্কয়ার হাসপাতালের এনআইসিওতে বেঁচে থাকার জন্য প্রাণপণ যুদ্ধ করে যাচ্ছে। বীনার প্রশ্ন তার নিষ্পাপ সন্তানটার কী অপরাধ ছিল? নাকি মা হতে চাওয়াটাই বড় অপরাধ? বীনার অভিযোগ, তার জায়গায় পোস্টিং নিতে প্রভাবশালী কারও তদবিরে এমনটা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এপিডি) শেখ ইউসুফ হারুন সাংবাদিকদের বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিষয়টি আমরা দেখেছি। সামনে যেহেতু উপজেলা নির্বাচন, মূলত তার ওপর মানসিক চাপ কমাতে এবং টেনশনমুক্তভাবে বিশ্রামে থাকতে পারেন সে জন্য ওএসডি করা হয়েছে। অন্য কোনো কারণ নেই। বিষয়টি অনাকাঙ্খিত বলেও মন্তব্য করেন শেখ ইউসুফ হারুন।

সরকারি চাকরিতে পদ শূন্য ৩ লাখ ৩৭ হাজার
ঢাকা অফিস
সরকারের বিভিন্ন অফিস ও মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৭৪৬টি পদ শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ হাজার ৮৫৪টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্য পদ পূরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। গতকাল রবিবার জাতীয় সংসদে মো. আনোয়ারুল আজীম (আনার) ও শামসুল হক টুকুর ভিন্ন ভিন্ন তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন একথা বলেন।
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, ৩৭তম বিসিএস এর মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারের ১ হাজার ২৮৯টি পদে নিয়োগের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম-কমিশন সুপারিশ করেছে। সুপারিশকৃত প্রার্থীদের প্রাক চাকরির বৃত্তান্ত যাচাই করার জন্য যথাযথ এজেন্সিকে অনুরোধ কর হয়েছে। প্রাক চাকরি যাচাই প্রতিবেদন, মুক্তিযোদ্ধা সনদ যাচাই ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়ার পর চূড়ান্ত নিয়োগ দেয়া হবে।
তিনি বলেন, ৩৮, ৩৯, ৪০তম বিসিএস এর মাধ্যমে যথাক্রমে ২০২৪, ৪৭৯২ ও ১৯০৩ জন মোট ৮৭১৯টি বিভিন্ন ক্যাডারের শূন্য পদে নিয়োগের কাজ চলছে।
প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, সরকারি অফিস সমূহে শূন্য পদে লোক নিয়োগ একটি চলমান প্রক্রিয়া। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ এবং এর অধীন সংস্থাসমূহের চাহিদার প্রেক্ষিতে সরকারি কর্ম-কমিশনের মাধ্যমে ১০ থেকে ১২ গ্রেডে (দ্বিতীয় শ্রেণি) শূন্য পদে জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে। ১৩ থেকে ২০ এর (তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণি) পদে স্ব স্ব মন্ত্রণালয়/বিভাগ/সংস্থা নিয়োগ বিধি অনুযায়ী করে থাকে।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ ধারাবাহিকভাবে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে নতুন পদ সৃজনের সম্মতি প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে মন্ত্রণালয় বা বিভাগ নিয়োগ বিধি অনুযায়ী ওই পদে জনবল নিয়োগের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করে থাকে। আদালতের কার্যক্রম শেষ না হওয়া এবং পদোন্নতি যোগ্যপ্রার্থী না পাওয়ায় কিছু শূন্য পদ পূরণ করা যায় না।

রাজধানীতে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যা
ঢাকা অফিস
রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর কুতুবখালী এলাকায় একটি ভবনের চারতলায় সালমা (৩৫) নামে এক নারীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় রাবেয়া (৩৫) নামে আরেক নারী আহত হয়েছেন। গতকাল রবিবার সন্ধ্যার পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।
যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়াজেদ আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা ঘটনস্থলে আছি, কে বা কারা কেন বাসায় প্রবেশ করে এ হত্যাকাÐ ঘটিয়েছে তা পরে জানানো হবে।

ডাকসু নির্বাচনের তফসিল কাল
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে আগামী কাল সোমবার। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোমবার সকাল ১০টায় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। তফসিল ঘোষণা করবেন ডাকসু নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এস এম মাহফুজুর রহমান। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, একই দিনে স্ব স্ব হল কর্তৃপক্ষ হল সংসদ নির্বাচনের তফসিলও ঘোষণা করবে। সর্বশেষ ডাকসু নির্বাচন হয়েছিল ১৯৯০ সালে।

বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় বোন লিপি নির্বাচিত
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
একাদশ জাতীয় সংসদের কিশোরগঞ্জ-১ আসনের পুননির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ড. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন। গতকাল রবিবার বিকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বেসরকারিভাবে তাকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি সদ্যপ্রয়াত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ছোট বোন এবং শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে।
এদিকে, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. মোস্তাইন বিল্লাহ ও গণতন্ত্রী পার্টি মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলনের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়। এছাড়া বিএনপির নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট ভোট বর্জন করায় এ আসনে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হন ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি।
উল্লেখ্য, ৩০ শে জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জয়লাভ করেন। গত ৩ জানুয়ারি তিনি মারা যাওয়ায় কিশোরগঞ্জ-১ আসনটি শূন্য হয়।

গরুর দুধ ও দইয়ে কীটনাশক, অণুজীব ও সিসা!
ঢাকা অফিস
গরুর তরল দুধে (প্রক্রিয়াজাতকরণ ছাড়া) সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি কীটনাশক ও নানা ধরনের অ্যান্টিবায়োটিকের উপাদান পাওয়া গেছে। পাওয়া গেছে বিভিন্ন অণুজীবও। একই সঙ্গে প্যাকেটজাত গরুর দুধ, দুগ্ধজাত পণ্য এমনকি দইয়েও অ্যান্টিবায়োটিক ও সিসা পাওয়া গেছে মাত্রাতিরিক্ত। গতকাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য জানিয়েছে সরকারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ফুড সেফটি ল্যাবরেটরি (এনএফএসএল)। সংস্থাটি জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) আর্থিক সহায়তায় গরুর দুধ, প্যাকেটজাত দুধ, দই ও গো খাদ্য নিয়ে এই জরিপের কাজ করেছে।
এনএফএসএল সূত্র জানায়, দেশের বিভিন্ন উপজেলা/থানা থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। গরুর দুধ সরাসরি খামার থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। একই সাথে উক্ত খামার থেকেই গবাদী পশুর খাবার সংগ্রহ করা হয়েছে। দই ঢাকা শহরের বিভিন্ন ব্র্যান্ড দোকান ও আশপাশের উপজেলার দোকান থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। বাজারে প্রচলিত বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্যাকেটজাত তরল দুধ এবং আমদানি করা প্যাকেটজাত দুধও সংগ্রহ করা হয়েছে। এগুলো নির্দিষ্ট নিয়মে মেনে ল্যাবরেটরিতে পৌঁছানোর পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে।
গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলে জানানো হয়, ৬৯-১০০ শতাংশ গোখাদ্যে বিভিন্ন রকমের রাসায়নিক- কীটনাশক (৯টি নমুনায়), সীসা (২২টি নমুনায়), ক্রোমিয়াম(১৬টি নমুনায়), টেট্রাসাইক্লিন(২২টি নমুনায়), এনরোফ্লোক্সাসিন (২৬টি নমুনায়), সিপ্রোসিন(৩০টি নমুনায়) এবং আফলাটক্সিন (১৯টি নমুনায়) গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে বেশি মাত্রা পাওয়া যায়। গরুর দুধের ৯৬টি নমুনার মধ্যে ৯ শতাংশ দুধে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি কীটনাশক, ১৩ শতাংশে টেট্রাসাইক্লিন, ১৫ শতাংশে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি মাত্রায় সিসা পাওয়া যায়। ৯৬ শতাংশ দুধে মেলে বিভিন্ন অণুজীব।
প্যাকেটজাত দুধের ৩১টি নমুনায় ৩০ শতাংশে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি হারে আছে টেট্রাসাইক্লিন। একটি নমুনায় সিসা মিলেছে। একই সঙ্গে ৬৬ থেকে ৮০ শতাংশ দুধের নমুনায় বিভিন্ন অণুজীব পাওয়া গেছে। এছাড়া দইয়ের ৩৩টি নমুনা পরীক্ষা করে একটিতে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি সিসা পাওয়া গেছে। আর ৫১ শতাংশ নমুনায় মিলেছে বিভিন্ন অণুজীব। গবেষকেরা বলছেন, যে সকল উপাদান পাওয়া গেছে তা মানুষের রোগ প্রতিরোধ শক্তির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তাছাড়া সিসা ও ক্রোমিয়াম ক্যানসার সৃষ্টি করতে পারে।
আজ রাজধানীর জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদের সামনে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বিভাগীয় প্রধান এবং এএফএসএ’র প্রধান অধ্যাপক ড. শাহনীলা ফেরদৌসী এই গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন।

প্রতি বছর বাড়ছে আট লাখ বেকার: সিপিডি
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
গত ১০ বছরে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনেক উন্নয়ন হলেও কর্মসংস্থান প্রবৃদ্ধি মূল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে প্রতি বছর বাড়ছে আট লাখ বেকার। গুলশানে লেকশোর হোটেলে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)আয়োজিত ‘প্রবৃদ্ধি ও অগ্রাধিকার’ বিষয়ক সংলাপে এ তথ্য জানানো হয়। বিশ্ব ব্যাংকের তথ্য ব্যবহার করে মূল প্রবন্ধে বলা হয়, প্রতিবছর দুই লাখ মানুষ শ্রম বাজারে ঢুকছে, বিপরীতে চাকরি তৈরি হচ্ছে ১ লাখ ৩০ হাজার। সেক্ষেত্রে প্রতিবছর আট লাখ মানুষ নতুন করে বেকার হচ্ছে। প্রবৃদ্ধির সুবিধা সমানভাবে বিতরণ না হওয়ায় বৈষম্য চরম আকার ধারণ করেছে। বক্তারা আরো বলেন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে নজর দেয়া দরকার। প্রান্তিক পর্যায়ে স্বাস্থ্যব্যবস্থা চরমভাবে ভেঙে পড়েছে।
হাসপাতালগুলোতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হলেও তা ব্যবহারে স্বচ্ছতা নেই। শিক্ষা ব্যবস্থা’র আধুনিকীকরণ না হলে টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করার দিকটি সামনে আনা হয়। সিপিডির সংলাপে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী আবদুল মান্নান, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, শিক্ষাবিদ ড. রেহমান সোবহান।

‘খালেদা জিয়ার পা ফুলে গেছে, ঠিকমতো হাঁটতে পারছেন না’
ঢাকা অফিস
দীর্ঘ এক বছর ধরে কারাবন্দি অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে টেনেহিঁচড়ে জবরদস্তি করে আদালতে আনা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। রিজভী বলেন, গত বৃহস্পতিবার তাকে (খালেদা জিয়া) আদালত নামের কারাগারের আলো-বাতাসহীন ছোট্ট একটি রুমে এনে এক ঘণ্টা বসিয়ে রাখা হয়। তার অসুস্থতা দিন দিন বাড়লেও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। পুরোনো রোগগুলো বেড়ে গেছে।
বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, চোখেও প্রচÐ ব্যথা, পা ফুলে গেছে। নির্যাতন সহ্য করতে গিয়ে তার পূর্বের অসুস্থতা এখন আরো গুরুতর রূপ ধারণ করেছে। তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালের সুবিধা ও ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের দ্বারা নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা থেকেও বঞ্চিত করা হচ্ছে। তার র্আর্থাইটিসের ব্যথা, ফ্রোজেন শোল্ডার, হাত নড়াচড়া করতে পারেন না।
রিস্ট জয়েন্ট ফুলে গেছে, সার্ভাইক্যাল স্পন্ডিলোসিসের জন্য কাঁধে প্রচÐ ব্যথা, এই ব্যথা হাত পর্যন্ত রেডিয়েট করে। হিপ-জয়েন্টেও ব্যথার মাত্রা প্রচÐ। ফলে শরীর অনেক অসুস্থ, তিনি পা তুলে ঠিকমতো হাঁটতেও পারেন না। তিনি বলেন, এই রকম শারীরিক অসুস্থতার মধ্যেও অমানবিকভাবে কারাগারের ভেতরে স্থাপিত ছোট্ট অপরিসর কক্ষের ‘ক্যাঙ্গারু আদালতে’ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ঘন ঘন হাজির করা হচ্ছে। মূলত খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার নামে টানাহেঁচড়া করে নির্যাতন করা হচ্ছে। চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকলেও তিলে তিলে শেষ করে দেওয়ার জিঘাংসা চরিতার্থ করে চলেছে সরকার।
রিজভী সরকারের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, ‘হলমার্ক, সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাটের বিচার না করে দুই কোটি টাকার তথাকথিত প্রমাণহীন ও সংশ্লিষ্টতাহীন দুর্নীতির বিচারে ১০ বছর সাজা দেয়া হলো। রেন্টাল-কুইক রেন্টাল বিদ্যুতের দুর্নীতির অভিযোগ তুলে যাতে কেউ মামলা করতে না পারেন, সেজন্য জাতীয় সংসদে ইনডেমনিটি বিল পাস করা হয়েছে। দেশের উন্নয়নের নামে মেগা মেগা প্রকল্প গ্রহণ করে সেগুলো বাস্তবায়নে সময়ক্ষেপণ এবং দফায় দফায় ব্যয় বৃদ্ধি কি দুর্নীতি নয়? খালেদা জিয়ার কারাদÐে যে মন্ত্রীরা উৎফুল্ল, তারা আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখেন কখনো? যারা লাখো কোটি টাকা পাচার করেছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি, উল্টো তারাই জাতির দÐমুÐের কর্তা সেজেছেন। সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ দপ্তর সম্পাদক মো. মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আইসিইউতে কবি আল মাহমুদ
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
আইসিইউতে কবি আল মাহমুদ। শনিবার রাতে তাকে গুরুত্বর অসুস্থ অবস্থায় ধানমন্ডিতে ইবনে সিনা হাসপাতালের নেয়া হয়েছে। আল মাহমুদের পারিবারিক একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আল মাহমুদ নিউমোনিয়াসহ বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছেন। হাসপাতালে ভর্তির পর ‘সোনালী কাবিন’-এর এই কবিকে প্রথমে সিসিইউতে ও পরে আইসিইউতে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি অধ্যাপক ডা. মো. আবদুল হাইয়ের তত্ত¡াবধানে আছেন।
কবি আল মাহমুদ আধুনিক বাংলা কবিতাকে নতুন আঙ্গিকে, চেতনায় ও বাক্ভঙ্গিতে বিশেষভাবে সমৃদ্ধ করেছেন। আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবিও তিনি। তার প্রকৃত নাম মীর আবদুস শুকুর আল মাহমুদ। একাধারে একজন কবি, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক, ছোটগল্প লেখক, শিশুসাহিত্যিক এবং সাংবাদিক তিনি।

ক্রিসেন্ট গ্রæপ ও জনতা ব্যাংকের ২২ জনের বিরুদ্ধে মামলা
ঢাকা অফিস
জনতা ব্যাংকের এক হাজার ৭৪৫ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় ক্রিসেন্ট গ্রæপের সাত চেয়ারম্যান ও পরিচালক এবং জনতা ব্যাংকের ১৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রাজধানীর চকবাজার থানায় পাঁচটি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রোববার রাজধানীর চকবাজার থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে মামলাগুলো করেন। দুদক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে ।
আসামিরা হলেন, ক্রিসেন্ট গ্রæপের চেয়ারম্যান এম এ কাদের, রূপালী কম্পোজিট লেদার লিমিটেডের পরিচালক সামিয়া কাদের নদী, ক্রিসেন্ট লেদার প্রোডাক্ট লিমিটেডের পরিচালক সুলতানা বেগম, পরিচালক রেজিয়া বেগম, রিমেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল আজিজ ও ব্যবস্থপনা পরিচালক লিটুন জাহান মীরা ও মেসার্স লেক্সকো লিমিটেড পরিচালক মো. হারুন-অর-রশীদ।
জনতা ব্যাংকের আসামিরা হলেন, জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, মো. মনিরুজ্জামান, মো. সাইদুজ্জামান, প্রিন্সিপাল অফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমীন, সিনিয়ার প্রিন্সিপাল অফিসার মো. মাগরেব আলী, মো. খায়রুল আমিন, বাহারুল আলম, এজিএম মো. আতাউর রহমান সরকার, এস এম শরীফুল ইসলাম, ডিজিএম (বর্তমানে সোনালী ব্যাংকের ডিএমডি) মো. রেজাউল করিম, ডিজিএম মুহাম্মদ ইকবাল, একেএম আসাদুজ্জামান, কাজী রইস উদ্দিন আহমেদ, ডিএমডি মো. জাকির হোসেন ও ডিমডি ফখরুল আলম।
জানা গেছে, জনতা ব্যাংক থেকে নেয়া মোট ঋণের মধ্যে ক্রিসেন্ট লেদার প্রডাক্ট লিমিটেডের ৫০০ কোটি ৬৯ লাখ ৪৪ হাজার ৮৯৯, ক্রিসেন্ট ট্যানারিজ লিমিটেডর ৬৮ লাখ ৩৪ হাজার ৯৫ হাজার ১২০, লেক্সকো লিমিটেডের ৭৪ কোটি ৩৮ লাখ ৯৫ হাজার ৩৫৯, রূপালী কম্পোজিট লেদার লিমিটেডের ৪৫৪ কোটি ১০ লাখ ৮৭ হাজার ৩৮৪ ও রিমেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেডের ৬৪৮ কোটি ১২ লাখ ৫৬ হাজার ৭৪৭ টাকা। ভুয়া রেকর্ডপত্রের ভিত্তিতে এফডিবিপি ও প্যাকিং ক্রেডিটের জন্য ক্রিসেন্ট গ্রæপের ওই প্রতিষ্ঠানসমূহ জনতা ব্যাংকের ইমামগঞ্জ শাখা থেকে এ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করে।
দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা মো. গুলশান আনোয়ার, সহকারী পরিচালক-টিম লিডার মো. নিয়ামুল আহসান গাজী গত সেপ্টেম্বরে অনুসন্ধান শুরু করেন। তদারককারী কর্মকর্তা ছিলেন পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন।

সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যা মামলা : সাত বছরে ৬২ বার সময়ের আবেদন
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
সাত বছরেও শেষ হয়নি সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার মামলা। এই সাত বছরে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৬২ বার সময় পেয়েছে তদন্ত সংস্থা। হত্যার রহস্য উদঘাটনে আর কত সময় লাগবে তাও জানে না তদন্তের দায়িত্বে থাকা র‌্যাব। এদিকে তদন্ত নিয়ে হতাশ সাগর-রুনির পরিবার।
১১ ফেব্রæয়ারি ২০১২ সালে হত্যাকাÐের পর সাত বছরেও মামলাটির কোনো কূল-কিনারা না হওয়ায় হতাশায় ভুগছে তাদের পরিবার। পরিবারের প্রশ্ন, হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে আর কত সময় লাগবে? বিচার পাওয়ার আশায় আর কতদিন পথ চেয়ে থাকতে হবে। আমাদের পরিবার কি এ হত্যাকাÐের বিচার আদৌ পাবে?
মামলার বাদী রুনির ভাই নওশের আলম রোমান বলেন, মামলাটির তদন্তের কোনো অগ্রগতিই নেই। তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলার অগ্রগতির বিষয়ে কোনো কিছুই জানান না। মামলার বিচার নিয়ে আমাদের পরিবার হতাশ। মামলা তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, সাগর-রুনি হত্যা মামলাটির অত্যন্ত স্পর্শকাতর। মামলাটির তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। আলোচিত এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়ার জন্য চলতি মাসের (ফেব্রæয়ারি) ১৭ তারিখ দিন ধার্য রয়েছে।
মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রæয়ারি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক গোলাম মোস্তফা সারোয়ার ওরফে সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন নাহার রুনা ওরফে মেহেরুন রুনি দম্পতি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের বাসায় খুন হন। খুন হওয়ার পর রুনির ভাই নওশের আলম রোমান শেরেবাংলা নগর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।
প্রথমে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন ওই থানার এক উপ-পরিদর্শক (এসআই)। চারদিন পর চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। দুই মাসেরও বেশি সময় তদন্ত করে ডিবি রহস্য উদ্ঘাটনে ব্যর্থ হয়। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল হত্যা মামলাটির তদন্তভার র‌্যাব বের কাছে হস্তান্তর করা হয়। মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৬২টি ধার্য তারিখ পার হয়েছে।
মামলায় ৮ জনকে বিভিন্ন সময়ে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে মিন্টু, কামরুল হাসান, বকুল মিয়া, রফিকুল ইসলাম আবু সাঈদ ও এনাম আহম্মেদ কারাগারে রয়েছে। পলাশ রুদ্র পাল ও তানভীর রহমান হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছেন।

বিএনপি আইন-আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহŸান জানিয়ে বিএনপি আইন-আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। রোববার বিকেলে চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়াম জিমনেসিয়াম মাঠে অমর একুশে বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এমন মন্তব্য করেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজ (গতকাল) সকালে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সাহেব প্রধানমন্ত্রীর কাছে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার আহŸান জানিয়েছেন। এর মাধ্যমে মূলত বিএনপি আইন এবং আদালতের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছে। প্রকান্তরে প্রধানমন্ত্রীকে তিনি প্রধান বিচারপতির চেয়ারে বসিয়ে দিয়েছেন।’ তিনি (তথ্যমন্ত্রী) আরও বলেন, তারা (বিএনপি) বারবার বলছে বেগম খালেদা জিয়া অসুস্থ। তিনি তো আগে থেকেই অসুস্থ। গত বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়া যে বেশভুষা নিয়ে আদালতে গেছেন তা দেখে কি মনে হয় তিনি অসুস্থ? উল্টো তিনি সানগøাস লাগিয়ে এসেছেন।
উল্লেখ্য গতকাল দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, এক বছরে খালেদা জিয়াকে বহু নির্যাতন ও কষ্ট দিয়েছেন। এবার তাকে মুক্তি দিন।
এর আগে বিকেল ৫টা ৮ মিনিটে তথ্যমন্ত্রী জাতীয় পতাকা, মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন চসিকের পতাকা উত্তোলন করেন। এ সময় কাপাসগোলা সিটি কর্পোরেশন কলেজের ছাত্রীরা জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন। পরে তথ্যমন্ত্রী ফেস্টুন উড়িয়ে বইমেলার উদ্বোধন করেন। চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সহায়তায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) ১৯ দিনব্যাপী এ বইমেলার আয়োজন করেছে। মেলায় ঢাকা ও চট্টগ্রামের ১১০টি প্রকাশনার প্রায় দেড়শ স্টল অংশ নিয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। স্বাগত বক্তব্য দেন সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা। আরও বক্তব্য রাখেন বইমেলার আহŸায়ক কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, যুগ্ম আহŸায়ক মহিউদ্দিন শাহ আলম নিপু, জামাল উদ্দিন, সচিব সুমন বড়ুয়া প্রমুখ।

উপজেলা পর্যায় থেকে মাস্টার প্ল্যানের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
দেশের ভূমি ব্যবস্থাপনা আধুনিক ও যুগোপযোগী করে তুলতে উপজেলাকে মাস্টার প্ল্যানের আওতায় আনার নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রয়োজন অনুভূত হলেই আমরা আগ-পিছু না ভেবে অবকাঠামো নির্মাণ করি। ধানি জমি নষ্ট করে দালান তুলছে। যেমন দাবি ওঠলো রাস্তা নির্মাণের, আমরা রাস্তা বানাচ্ছি। সেটা না করে আমরা যদি এটা পরিকল্পিতভাবে সবকিছু করি, তবে বেশি মানুষ এটার সুবিধা পাবে। উপজেলা পর্যায় থেকে যদি মাস্টার প্ল্যান করা যায়, তাহলে এর দীর্ঘস্থায়ী সুফল পাওয়া যাবে।
রোববার সকালে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগেও আমি একটা নির্দেশনা দিয়েছিলাম। তবে সেভাবে কার্যকর হয়নি। সেটা হলো- উপজেলায় একটা মাস্টারপ্ল্যান করে দেওয়া। এখন কারো টাকা থাকলেই ধানি জমি নষ্ট করে দালান তুলছে। কোনো হিসাব-নিকাশ নেই। এখন থেকে আমরা যেনো এটা নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করি। বিশেষ করে কোথায় বসতবাড়ি হবে। যেখানে ভিটেবাড়ি আছে সেটা আলাদা কথা। কিন্তু চট করে ফসলি জমি নিয়ে যখন বাড়িঘর করে ফেলে তখনই সমস্যা।
তিনি বলেন, আমরা ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত যতটুকু কাজ এগিয়ে ছিলাম, মাঝখানে ৭ বছরে আমরা যখন ছিলাম না এসময়ে অনেক কিছু নষ্ট হয়ে যায়। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সময় হাতে পেয়েছিলাম বলে অনেকগুলো কাজ করতে পেরেছি। আজ বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। এখন আমাদের কাজ হচ্ছে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তোলা।
শেখ হাসিনা বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ ও তাদের জীবনমান উন্নত করার বিষয়টি প্রাধান্য দিয়ে আমাদের সমস্ত পরিকল্পনা করতে হবে। এটা করতে পারলে স্বাভাবিকভাবেই আস্তে আস্তে সমস্ত দেশটাই উন্নত হবে। সেদিকে লক্ষ্য করে এই মন্ত্রণালয়টা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, বাজেটের সবচেয়ে বড় টাকার অংশটাই এই মন্ত্রণালয়ে আসে।’ তিনি আরও বলেন, অনেকগুলো কাজ রয়ে গেছে। যেগুলো আমাদের করতে হবে। আমি সব সময় চিন্তা করেছি কীভাবে মানুষের কাছে যাওয়া যায়। মানুষের কাজটা করা যায়। এই মন্ত্রণালয়ের কাজ হচ্ছে সুপেয় পানির নিশ্চয়তা দেওয়া। স্যানিটেশনের ব্যবস্থা করা। সেই সঙ্গে আবার রাস্তাগুলোকেও উন্নত করতে হয়। বহুমুখী কাজ, আবার জনস্বাস্থ্যের দিকেও গুরুত্ব দেওয়া। আমি মনে করি যতগুলো মন্ত্রণালয় আছে এই মন্ত্রণালয়টা হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়। আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ করে স্থানীয় সরকারকে আরও শক্তিশালী করা। যাতে তারা নিজ নিজ এলাকার উন্নয়নে আরও বেশি মনোনিবেশ করতে পারে ও অবদার রাখতে পারে। বিকেন্দ্রীকরণ ছাড়া উন্নয়নও টেকসই হবে।
কেন্দ্রীয়ভাবে আগামী বাজেট প্রণয়ণ হবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আগামীতে আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে বাজেট করবো ঠিকই। কিন্তু এরপরও আমি চাচ্ছি দায়িত্ব দিয়ে দেবো আমাদের প্রতিটি জেলায়। তারা বলবে ওই অঞ্চলের কী চাহিদা, কীভাবে মানুষের কাছে সেবা পৌঁছাতে পারে। তাদের কাছ থেকে মতামত ও পরিকল্পনা আমরা নেবো। এভাবে পর্যায়ক্রমে প্রত্যেকটা স্তর থেকে আমরা বাজেট কীভাবে হবে সেই ধারণাটা নিয়ে বাজেট তৈরি করবো। যাতে প্রতিটি পয়সা মানুষের কল্যাণে কাজে লাগে। সেজন্য চিন্তা-ভাবনা আমাদের আছে।
তিনি বলেন, অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে বারবার ক্ষমতায় এসেছিল তাদের মধ্যে দেশগড়ার চেতনটাই ছিল না। এর ফলে দেশটা অনেক পিছিয়ে ছিল। তৃতীয়বারের মতো এসে এটুকু সান্ত¡না পেলাম যে আমরা কিছু কাজ করার সুযোগ পেলাম। তাই বাজেট প্রণয়নের সময় লক্ষ্য রাখতে হবে আমরা মানুষের কাছে কীভাবে পৌঁছাতে পারি।’

দুর্ঘটনায় আহত ফেরদৌস-পূর্ণিমা
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
‘গাঙচিল’ ছবির শুটিং করতে গিয়ে আহত হয়েছেন জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী ফেরদৌস ও পূর্ণিমা। শুটিং হচ্ছিল নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরমÐল এলাকায়। সেখানে গতকাল দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘গাঙচিল’ উপন্যাস থেকে ছবি নির্মাণ করছেন ‘এক কাপ চা’ খ্যাত পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল। তিনি জানান, মোটরসাইকেলের একটি দৃশ্যধারণের সময় দুর্ঘটনা ঘটে। দৃশ্যটি এমন, পূর্ণিমা মোটরসাইকেল চালাবেন এবং তার পেছনে বসা থাকবেন ফেরদৌস। এই দৃশ্যটি ক্যামেরা বন্দি করতে গিয়ে মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। দুজনই ছিটকে পড়েন পিচঢালা রাস্তায়। দুজনেই বেশ আঘাত পান।
ঘটনাস্থলে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ফেরওদৗস ও পূর্ণিমাকে নিয়ে যাওয়া হয় বসুরহাট সেন্ট্রাল হাসপাতালে। সেখানকার চিকিৎসা শেষে তাদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে স্থানীয় আবাসিক হোটেলে। সেখানে তারা এখন বিশ্রাম নিচ্ছেন। নেয়ামূল বলেন, ‘তারা এখন বিশ্রাম নিচ্ছেন। তারা এখানেই থাকবেন, নাকি ঢাকায় চলে যাবেন, সেটা বোঝা যাবে সন্ধ্যার পর। যদি তারা বেশি অসুস্থ হয়ে যান সেক্ষেত্রে অবশ্যই তাদের ঢাকায় পাঠানো হবে। আর সুস্থ অনুভব করলে দ্রæতই তাদের নিয়ে শুটিং শুরু করব।’
ছবিতে ফেরদৌস একজন সাংবাদিক এবং পূর্ণিমাকে দেখা যাবে এনজিও কর্মীর চরিত্রে। ছবির বিশেষ চরিত্রে দেখা যাবে কলকাতার অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে। এ ছবিতে আরও অভিনয় করছেন আনিসুর রহমান মিলন, তারিক আনাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here