সকল আঞ্চলিক সংবাদ

0
27

কেএমপি কমিশনারের বিপিএম পদক লাভ
খবর বিজ্ঞপ্তি
“বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম-সেবা)” পেলেন খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) সরদার রকিবুল ইসলাম সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমন, মাদক নির্মূল, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি প্রতিরোধ এবং গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন ও সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ, “বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ সম্মাননা বিপিএম-সেবা” পদকে ভূষিত হয়েছেন।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৪ ফেব্রæয়ারি, ২০১৯ রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স ময়দানে “পুলিশ সপ্তাহ-২০১৯” এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই পদক পরিয়ে দেন। এছাড়াও তিনি ইতিপূর্বে ভালো কাজের স্বীকৃতিসরূপ আইজিপি’জ ব্যাজ পেয়েছেন। তিনি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে পূর্ব তিমুর ও সুদানে কর্মরত ছিলেন।
তিনি ৬ মার্চ, ২০১৮ তারিখে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হিসাবে কেএমপিতে যোগদান করেন এবং ২০ ডিসেম্বর, ২০১৮ তারিখ থেকে পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) হিসাবে কর্মরত আছেন।

অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত!
৬০ হাজার রোগীকে চিকিৎসা সেবা ও সাড়ে ৪ হাজার রোগীর চোখের ফ্রি অপারেশন
মোংলা প্রতিনিধি
চোখের সমস্যা নিয়ে ৭০ বছর বয়সের বৃদ্ধা জোহরা বেগম এখন আর একা পথ চলতে পারেন না। তাই দুইজনে দু’পাশ থেকে তাকে ধরে মোংলার আন্ধারিয়া গ্রাম থেকে কয়েক কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে পাশ্ববর্তী উপজেলা রামপালের বড়দিয়া গ্রামে বিনামূল্যের চক্ষু শিবিরে নিয়ে আসেন। সেখানে ওই বৃদ্ধার সাথে কথা হয় খুলনাঞ্চলের এ প্রতিবেদকের। প্রতিবেদককে সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, খুলনা ও বাগেরহাটের চক্ষু হাসপাতাল পর্যন্ত যাওয়া এবং ভিজিট দিয়ে ডাক্তার দেখানোর কোন সামর্থ তার নেই। বিনামূল্যে চক্ষু শিবিরের মাইকিং শুনেই চোখ দেখাতে এসেছেন তিনি। শুধু জোহরাই নয়, সমাজের সামর্থহীন এমন কয়েক হাজার দরিদ্র নারী-পুরুষের ঢল নামে বড়দিয়ার চক্ষু শিবিরে।
শুক্রবার দিনভর বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার বড়দিয়া গ্রামে ঢাকা মেগা সিটি লায়ন্স ক্লাব ও বাংলাদেশ লায়ন্স ফাউন্ডেশনের আয়োজিত চক্ষু শিবিরে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা প্রায় ৪ হাজার রোগীকে বিনামূল্যে সেবা প্রদাণ করেন। শুক্রবার সকালে বড়দিয়া মাদ্রাসা চত্বরে কবুতর উড়িয়ে এ চক্ষু শিবিরের উদ্বোধন করেন বাগেরহাট ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের এ্যাডভোকেট ব্যারিস্টার শেখ মো: জাকির হোসেন। অনুষ্ঠানের সভাপতি ও ঢাকা মেগা সিটি লায়ন্স ক্লাব’র সভাপতি লায়ন ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম জানান, ২০০৯ সাল থেকে রামপালে বিনামূল্যে চক্ষু শিবিরের কার্যক্রম শুরু করে ঢাকা মেগা সিটি লায়ন্স ক্লাব। সেই থেকে এ পর্যন্ত এ শিবিরের মাধ্যমে প্রায় ৬০ হাজার রোগীকে সেবা দেয়া হয়েছে এবং সাড়ে ৪ হাজার রোগীর চোখের অপারেশন করা হয়েছে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। শুক্রবারও প্রায় ৪ হাজার রোগীকে সেবা ও ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে। এদের মধ্যে বাছাইকৃত ৫শ’র অধিক রোগীকে ঢাকায় নিয়ে ফ্রি অপারেশন করে দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, আগামীতেও মানবতার সেবায় লায়ন চক্ষু হাসপাতালের পক্ষ থেকে এ সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে।
চক্ষু শিবিরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবক মোল্লা আবু তাহের, প্রাক্তন শিক্ষক শেখ মোহাম্মদ আলী, বড়দিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানিজং কমিটির সভাপতি শেখ আজম, থানা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক জাহিদুর রহমান, বাশতলী ই্উনিয়ন বিএনপির সভাপতি শেখ আব্দুল্লাহ আজমি ও থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সরদার বোরহান কবির।

মোড়েলগঞ্জে বিদেশী বন্দুক ও ২২ রাউন্ড গুলিসহ ৩ জন আটক
মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে ২২ রাউন্ড গুলি ও একটি বিদেশী বন্দুকসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এরা হচ্ছেন, পার্শ্ববর্তী মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের বাশতলী গ্রামের মৃত মইনুদ্দিনের ছেলে বাবুল ফকির(৪৮), মোড়েলগঞ্জের পশ্চিম আমরবুনিয়া গ্রামের কাদের বড়মিয়ার ছেলে ইব্রাহিম হাওলাদার(৩০) ও মধ্য আমরবুনিয়া গ্রামের সেলিম খানের ছেলে রাকিব খান(২৫)। শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন আমরবুনিয়া গ্রাম থেকে পুলিশ এদেরকে আটক করে।
এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ কেএম আজিজুল ইসলাম বলেন, বাবুল ফকিরসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের নিকট একটি লাইসেন্সি বন্দুক পাওয়া গেছে। বন্দুকটির লাইসেন্স মোংলার বাবুল ফকিরের নামে। যার নং-৪৮/২০১১। এদের নিকট থেকে একটি ধারালো ছুরি ও একটি দিক নির্নয়ক যন্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
স্থানীয়রা বলছেন মোংলার বাবুল ফকির একজন পেশাদার হরিণ শিকারী। সে ‘বাবুল শিকারী’ নামেই পরিচিত। থানা পুলিশও ওই একই সন্দেহ পোষন করছে।
পুলিশের দেওয়া তথ্যমতে, বন্দুক রাখারমত বা পাওয়ার মত কোন ধন সম্পত্তি বাবুল ফকিরের নেই। ঘটনার সময়(শনিবার রাতে) বাবুল ফকির তার লাইসেন্সি বন্দুকটি ভেঙ্গে দুই ভাগ করে একটি বস্তায় ভরে সুন্দরবনের দিকে যাচ্ছিলো বলে জানা গেছে।

নগরীতে ভ্যান চালকের মরদেহ উদ্ধার
রূপসা প্রতিনিধি
গতকাল রবিবার নগরীর রূপসা ভৈরব নদী থেকে রজব নামের এক ভ্যান চালকের মরদেহ ভেসে ওঠে। এলাকাবাসী জানতে পেরে ঘটনাস্থালে ছুড়ে আসে। পরে খুলনা সদর থানা পুলিশ দেহটি নদী থেকে উদ্ধার করে। মৃত ব্যাক্তি নতুন বাজার চর এলাকার জামাল সাহেবের ভাড়াটিয়া বলে জানা যায়। পরে পরিচয় মেলে রজব নামের এই ব্যাক্তিকে কে বা কারা মেরে ফেলে রাতের আধারে নদীতে ভাসিয়ে দেয়। এই ঘটনায় এলাকার মধ্যে চাঞ্চল্যকর অবস্থার সৃষ্টি হয়। পুলিশ মৃত রজবের মরদেহ খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পোষ্ট মডেমের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এই ঘটনায় কে বা কারা জড়িত আছে তা এখনো পুলিশ জানতে পারে নি।

খাই খাই রাজনীতির কারনে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ঃ ডাঃ মোখতার হুসাইন
খবর বিজ্ঞপ্তি
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য ডাঃ মোখতার হোসাইন বলেছেন, কৃষি প্রধান বাংলাদেশের কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে ক্ষমতাসীনদের খাই খাই রাজনীতি। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরেও প্রিয় মাতৃভ‚মি বাংলাদেশ আজ ঘুষ খোর আর দুর্নীতিবাজদের কবলে। ঘুষ খোর দুর্নীতিবাজরা দেশে দাবিয়ে বেড়াচ্ছে।
তিনি বলেন, সৎ মানুষগুলো আজ অসহায়ের মত স্বাধীন দেশে বসবাস করে অনেক ক্ষেত্রে মৌলিক ও মানবাধিকার বঞ্চিত হচ্ছে। দেশের কৃষকরা সৎ ও পরিশ্রমী হওয়ার কারণে তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েই যাচ্ছে। তিনি ন্যায্য অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় গ্রামে গ্রামে ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন এর শাখা গড়ে তুলতে কৃষকদের প্রতি আহবান জানান।
গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় খুলনার সোনাডাঙ্গা নবপল্লী কমিউনিটি সেন্টারে ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন খুলনা মহানগর ও জেলা শাখার নতুন কমিটির পরিচিতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।
ইসলামী কৃষক মজুর আন্দোলন খুলনা মহানগর সভাপতি হাফেজ মাওলানা আব্দুল্লাহ আল মাসুমের সভাপতিত্বে ও মাওলানা শাহ্ আলম এবং মোঃ হায়দার আলীর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত পরিচিতি সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওঃ গাজী ন‚র আহমদ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা মুজ্জাম্মিল হক। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম কবির।
বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা জেলা সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ ইমরান, মহানগর সহ সভাপতি শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, ইসলামী কৃষক মজুর আন্দোলনের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মোস্তফা সজিব মোল্লা, মুফতী আমানুল্লাহ, মোঃ তরিকুল ইসলাম কাবির, মোঃ ন‚রুল হুদা সাজু, ইঞ্জি এজাজ মানসুর, জিএম নওশের আলী, মোঃ জাহিদুল ইসলাম, মোঃ আবুল কালাম আজাদ, মোঃ রবিউল ইসলাম তুষার, আব্দুর রশিদ প্রম‚খ নেতৃবৃন্দ।
প্রধান বক্তা শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, কৃষি প্রধান বাংলাদেশে কৃষকরা আজ অসহায়। তারা অধিকার হারা। বাংলাশের কৃষক যদি ক্ষতিগ্রস্ত হতেই থাকে তবে এদেশে কৃষক, কৃষি এবং কৃষিপন্য খুঁজে পাওয়া যাবে না। বিদেশ থেকে সকল কৃষি পন্য আমদানী করতে হবে। টমেটো, ফুলকপিসহ বিভিন্ন সবজি বিদেশ থেকে আমদানী করতে হবে। এ অবস্থা চলতে পারে না। তিনি বলেন, সরকারের অব্যবস্থাপনার কারনে বছরে ৩০ হাজার কোটি টাকার ফল, ফসল ও সবজি অপচয় হচ্ছে। অথচ সরকার এই অপচয় বন্ধ করতে পারলে কৃষককে ফসল উৎপাদন করে বাজারে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তে হতো না।

সাংবাদিক শেখ বেলাল উদ্দিনের ১৪তম শাহাদাৎবার্ষিকী আজ
খবর বিজ্ঞপ্তি
মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন খুলনার সাবেক সভাপতি, খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি ও দৈনিক সংগ্রামের ব্যুরো প্রধান শেখ বেলাল উদ্দিনের ১৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী আজ ১১ ফেব্রæয়ারি (সোমবার)। ২০০৫ সালের ৫ ফেব্রæয়ারি শনিবার রাত সোয়া ৯টার দিকে খুলনা প্রেসক্লাবের অভ্যর্থনা কক্ষের দরজার সামনে রাখা মোটরসাইকেলের হ্যান্ডেলে সন্ত্রাসীদের রাখা রিমোট কন্ট্রোল বোমায় শেখ বেলাল উদ্দিন গুরুতর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে পরের দিন ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১১ ফেব্রæয়ারি সাংবাদিক শেখ বেলাল উদ্দিন শাহাদাৎবরণ করেন। এর আগে ঘটনায় ওই রাতেই খুলনা সদর থানার এস আই আমিনুল ইসলাম বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে সাংবাদিক আহত ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেন। নিহত হওয়ার পর দায়ের করা মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হয়। ঘটনার পরের দিন রাতে রিক্সা চালক ইউনুস মৃধা ওরফে গদা ইউনুসকে নগরীর গোবরচাকা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছিল খুলনা থানা পুলিশ। পরে ১৪ ফেব্রæয়ারি রাতে সাংবাদিক দীপ আজাদের ওপর বোমা হামলার ঘটনায় ধৃত মোফাজ্জেল হোসেন ও চরমপন্থী নেতা স্বাধীন, হাসান, মেরাজুল, টল বাবু ও এখলাসুর রহমানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এদের মধ্যে চরমপন্থী নেতা হাসান, স্বাধীন ও মেরাজুল ইসলামকে সাংবাদিক বেলাল উদ্দিন হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। এরপর রিক্সা চালক গদা ইউনুস, চরমপন্থী নেতা স্বাধীন ও এখলাসুর রহমান হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয়। মামলার তদন্তকালে ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। ২০০৫ সালের ২৫ এপ্রিল খুলনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন চরমপন্থী নেতা হাসান, স্বাধীন, মেরাজ ও রিক্সা চালক গদা ইউনুসকে আসামি করে আদালতে বিস্ফোরক অংশের চার্জশীট দাখিল করেন। এ সময় সাংবাদিকরা দাখিলকৃত চার্জশীট প্রত্যাখান করেন।
অপরদিকে দীর্ঘ তদন্ত শেষে সাহাবুদ্দিন লস্কর ধীরা ও এখলাসুর রহমান এখলাস, চরমপন্থী নেতা রফিকুল ইসলাম ওরফে হাসান, ইকবাল হোসেন স্বাধীন ও মেরাজুল ইসলাম মেরাজ এবং রিক্সা চালক গদা ইউনুসকে অভিযুক্ত করে একই বছর ১৭ নবেম্বর হত্যা মামলার চার্জশীট দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা। পরে ২০০৬ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ওসি আব্দুল হামিদ রিকশাচালক গদা ইউনুসকে বাদ দিয়ে বাকী ৫ জনের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অংশের সম্পূরক চার্জশীট দাখিল করেন। পরবর্তীতে সিএমএম আদালত থেকে মামলাটি খুলনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতে প্রেরণ করা হয়। ২০০৬ সালের ২৯ জুন আদালতের বিচারক মশিউর রহমান উপরোক্ত ৬ আসামির বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেন। এরপর হত্যা মামলাটি ২০০৭ সালের ১৭ জুন খুলনা বিভাগীয় দ্রæত বিচার ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করা হয়। এখানে ১১১ কার্যদিবস শেষে ২০০৭ সালের ২৯ নবেম্বর ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুস সালাম শিকদার হত্যা মামলায় আসামি চরমপন্থী নেতা হাসান, স্বাধীন ও মেরাজকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই বছর সশ্রম কারাদন্ড দেয়।
এদিকে, বিস্ফোরক অংশের মামলাটি একই বছরের ১০ জুলাই দ্রæত বিচার ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করা হয়। এখানে মাত্র ৯৫ কার্যদিবসে উপরেল্লিখিত আসামিদের বিরুদ্ধে একই সাজা দেয়া হয়। দু’জন সাফাই সাক্ষীসহ ৩১ জন সাক্ষ্য দেন। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি এসএম আবু জাদা, আসামি পক্ষে ছিলেন এডভোকেট মোস্তফা ইউনুস। দু’টি মামলার রায়ে দন্ডাদেশপ্রাপ্ত চরমপন্থী নেতা হাসান, স্বাধীন ও মেরাজ কারাভোগ করছে।
খুলনা প্রেসক্লাব ঃ খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি শেখ বেলাল উদ্দীনের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ ১১ ফেব্রæয়ারি সোমবার ক্লাবের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ঃ সকাল ১০.৪৫ মিনিটে শহীদ সাংবাদিক স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণ এবং বেলা ১১টায় ক্লাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

বইমেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
খবর বিজ্ঞপ্তি
গতকাল রবিবার ছিল একুশে বইমেলা, খুলনা’র ১০ম দিন । বিকালে সরকারি ইকবালনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, খুলনার ছাত্রছাত্রীদের পরিবেশিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বইমেলার অনুষ্ঠানমালার সূচনা হয়। পরবর্তীতে ছিল মুক্তধারা সাহিত্য পরিষদের বাচিক শিল্পীদের পরিবেশনায় আবৃত্তি অনুষ্ঠান। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিশেনায় ছিল উদিচী, বয়রা শাখা এবং ঝংকার সাংস্কৃতিক সংঘের শিল্পীবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন হিমাংশু বিশ্বাস, সামিয়া আকতার এবং মাহাবুব রহমান। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দর্শক বইমেলার সাংস্কৃতিক আয়োজন উপভোগ করে।

ফলোআপ ঃ আশাশুনির মোটরসাইকেল চালক জাহাঙ্গীর হত্যা
৪আসামির ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি
আশাশুনি প্রতিনিধি
আশাশুনি উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নে মোটরসাইকেল চালক জাহাঙ্গীরের মোটরসাইকেল ছিনতাই ও তার হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত গ্রেফতারকৃত আসামীরা বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। শনিবার বিজ্ঞ আদালতে তারা এ জবানবন্দি প্রদান করেন।
আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথ জানান, হত্যাকান্ডের মাত্র ২৬ ঘন্টার মধ্যে হত্যাকান্ডের ক্লু উদঘাটন এবং গুম করা মরদেহ উদ্ধার, আসামীদের গ্রেফতার, ছিনতাই হওয়া মটর সাইকেল উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। আসামী মধ্যম একসরা গ্রামের বশির সানার ছেলে আব্দুল আজিজ (৪০), একই গ্রামের সালামুদ্দিন (খোকন) কারিকরের ছেলে আল আমিন কারিকর (২৫) ও আব্দুল্লাহ কারিকরের ছেলে রবিউল ইসলাম (৩০) ও দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর গ্রামের শরিফুল ইসলাম (২৫) কে শনিবার সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে হাজির করা হলে আসামীরা হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার বর্ণনা পেশ করে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্ধি প্রদান করেছে। জবানবন্ধি রেকর্ড শেষে আসামীদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
এদিকে আশাশুনিতে জাহাঙ্গীর হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নের রাজাপুর বৌ-বাজার টু আমতলা সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। আবু মুসা রনি’র সভাপতিত্বে মানবন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, আনুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর আলম লিটন। এসময় মোঃ আলাউদ্দীন, ইউনুছ ঢালী, হাসান ঢালী, জিয়া উদ্দীন, নিহতের পিতা খোকন গাজী সহ এলাকার হাজার হাজার নারী পুরুষ দীর্ঘ মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন। এসময় বক্তারা বলেন এভাবে যেন আর কোন মায়ের কোল খালি না হয়। বাংলার বুকে যেন আর কোন ঘাতক রবিউল, আব্দুল আজিজ, খোকন, আল-আমিন ও শরিফুল ইসলামের জন্ম না হয়। এমন ঘটনা যেন আর কোন জাহাঙ্গীরের সাথে না ঘটে। মানববন্ধনে নিহত জাহাঙ্গীরের মা আমেনা বিবি কান্না ভেজা কন্ঠে বুক চাপড়াতে-চাপড়াতে বলেন আমার কলিজার টুকরা সন্তানকে যারা সামান্য একটি মটর সাইকেলের জন্য হত্যা করেছে, আমি সেই ঘাতকদের সর্বোচ্চ সাজা ফাঁসির দাবী জানাচ্ছি। উল্লেখ্য: গত ৫ ফেব্রæয়ারী মঙ্গলবার আশাশুনির আনুলিয়া ইউনিয়নের জাহাঙ্গীর আলম নামের এক ভাড়ায় চালিত মটরসাইকেল চালককে হত্যা করে একই ইউনিয়নের মধ্যম একসরা গ্রামের আব্দুল্লাহ কারিকরের পুত্র রবিউল ইসলাম (৩০), বশির সানার পুত্র আব্দুল আজিজ সানা (৫০), সালামুদ্দিন (খোকন) কারিকরের পুত্র আল-আমিন কারিকর (৩০) ও দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর গ্রামের বাদল গাজীর পুত্র শরিফুল ইসলাম (৪০)। গত বৃহস্পতিবার হত্যাকারীদের জবানবন্দী অনুসারে রাত ২টার দিকে আশাশুনি থানা পুলিশ আনুলিয়া ইউনিয়নের মধ্যম একসরা দাখিল মাদ্রাসার সেফটি ট্যাংক থেকে জাহাঙ্গীরের লাশ উদ্ধার করে। মানববন্ধন শেষে উপস্থিত এলাকাবাসী সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

সোনাডাঙ্গা থানা আ’লীগের মতবিনিময়
খবর বিজ্ঞপ্তি
গতকাল রবিবার বিকাল ৪টায় সোনাডাঙ্গা থানা মহিলা আওয়ামী লীগ নিজস্ব কার্যালয় সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান আগামী ১৩ই ফেব্রæয়ারী বুধবার বিকাল ৩টায় সফল করার লক্ষে সোনাডাঙ্গা থানা মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীবৃন্দের সাথে সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন থানা মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কাউন্সিলর মাহমুদা বেগম। মতবিনিময় সভা পরিচালনা করেন থানা মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নূর জাহান রুমি। মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা তসলিম আহম্মেদ আশা। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আব্দুল কাউয়ুম গোরা, এস. এম. রাজুল হাসান রাজু, এজাজ পারভেজ বাপ্পী, মোঃ রুহুল আমীন খান, আইয়ুব আলী, জাহানার সিরাজ, মনোয়ারা বেগম, শাহানার বেগম, শাহানা বানু, কহিনুর রাজ্জাক, লুৎফুর নাহার লিলি, কবিতা ওসি, সাবিহা ইসলাম আঙ্গুর, কবিতা আহম্মেদ, তামান্না ইসলাম, আসমা বেগম, রেশমা খানম, সৈয়দা হেনা বেগম, সাফিয়া আক্তার, মাকসুদা রানা ছাত্রনেতা হামিম ইসলাম আবির প্রমুখ।
অপরদিকে গতকাল মাগরিব বাদ ২০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ কার্যালয় সোনাডাঙ্গা থানা সেচ্ছাসেবক লীগ নেত্রবৃন্দের সাথে সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন থানা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোঃ কামরুল ইসলাম। মতবিনিময় সভা পরিচালনা করেন থানা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন। মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা তসলিম আহম্মেদ আশা। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চ.ম মুজিবুর রহমান, মীর মোঃ লিটন, আব্দুল কাউয়ুম গোরা, এস. এম. রাজুল হাসান রাজু, মোক্তার হোসেন, এজাজ পারভেজ বাপ্পী, মোঃ রুহুল আমীন খান, আলী আকবর, তোতা মিয়া, রফিকুল ইসলাম কাজল, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ আনোয়ার হোসেন, শেখ জিল্লুর রহমান, মারুফ চৌধুরী রিমন, মোঃ শহিদ, শেখ ইকবাল, শেখ আবু হানিফ, সফিকুল ইসলাম, মোঃ নজরুল ইসলাম, ছাত্রনেতা জাহিদ খোকন প্রমুখ।

ডুমুরিয়ায় চোরের পিটুনিতে বাড়ী মালিক আহত
ডুমুরিয়া প্রতিনিধি
ডুমুরিয়ায় ঘরের জানালা কেটে লক্ষাধিক টাকার স্বর্ণালংকার চুরি ও চোরের পিটুনিতে আহত হয়েছে বাড়ীর মালিক বাসুদেব মল্লিক নামের এক কৃষক। শনিবার গভীর রাতে উপজেলার বরাতিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আটলিয়া ইউনিয়নের বরাতিয়া এলাকার বাসুদেব মল্লিক (৬১) ঘটনার রাতে তার নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। এমতবস্থায় গভীর রাতে একদল চোর পাকা ঘরের জানালা কেটে ভিতরে প্রবেশ করে বাক্সে থাকা আড়াই ভরি স্বর্ণালংকার চুরি করে। যার মূল্য লক্ষাধিক টাকা। টের পেয়ে বাড়ীওয়ালা বাসুদেব ও তার ভাই আশুতোষ মল্লিক চোরদের ধাওয়া করলে তারা উল্টা তাদের উপর হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়। এতে বাড়ীর মালিক বাসুদেব মল্লিক ও তার ভাই আশুতোষ মল্লিক আহত হয়। এ ঘটনায় থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বেসরকারি পাট-সুতা বস্ত্রকল শ্রমিক ফেডারেশনের জরুরী সভা
খানজাহান আলী থানা প্রতিনিধি
বেসরকারি পাট-সুতা বস্ত্রকল শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে গতকাল রবিবার বিকাল ৪টায় মীরেরডাঙ্গা সোনালী জুট মিলস সিবিএ কার্যালয়ে বিভিন্ন বেসরকারি জুট মিলের সিবিএ’র নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সোনালী জুট মিলস সিবিএ’র সভাপতি মুন্সি সিরাজুল হকের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নাজিউর রহমান নজরুলের পরিচালনায় জরুরী সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ফেডারেশনের সভাপতি আলহাজ্জ শেখ আনছার আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সবুজ। সভায় শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান মিলগুলোর সৃষ্ট সমস্যা সমাধানে প্রশাসন, মিল মালিক এবং ব্যাংক প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে পূর্ব ঘোষিত কর্মসুচি স্থগিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। সভায় বক্তৃতা করেন, শ্রমিক নেতা কাবিল আহম্মেদ, বখতিয়ার শিকদার, ইমরান মীর, মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহিদ মুরাদ, আফজাল হোসেন, হীরন মীর, আসলাম হোসেন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

দুটি মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন সালাম মূর্শেদী এমপি
খবর বিজ্ঞপ্তি
খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম মূর্শেদী এমপি দুইটি মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছে। মন্ত্রণালয় দুইটি হলো স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।
গতকাল সংসদ অধিবেশনে তাকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে অনুমোদন করা হয়। এর আগে ৬ ফেব্রয়ারি তাকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

খুলনা সদর থানা আ’লীগের মতবিনিময়
খবর বিজ্ঞপ্তি
খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত আগামী ১২ ফেব্রæয়ারীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সফল করার লক্ষ্যে খুলনা মহানগর মহিলা শ্রমিক লীগের এক বর্ধিত সভা গতকাল রবিবার সন্ধ্যা ৬ টায় দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর মহিলা শ্রমিক লীগের সভাপতি নাসরিন আক্তার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ। বক্তব্য রাখেন মহানগর শ্রমিক লীগ নেতা মোঃ মোতালেব মিয়া, মোঃ সেলিম রাজু, কাজী আঃ ওহাব, মোঃ আঃ রহিম খান, কিংকর সাহা, শেখ মোঃ রমজান, মোঃ মনিরুল ইসলাম, মোল্লা মাহাবুবুর রহমান, চুন্নু সিকদার, মোঃ আশিক, মহিলা শ্রমিক লীগ নেত্রী মোমেনা বেগম, লাভলী বেগম, আমেনা খাতুন, খুশী বেগম, নাজমা আক্তার, পারভীন বেগম, আকলিমা, রেশমা বেগম, ফতেমা, শাহনাজ, প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
সভায় নেতৃবৃন্দ আগামী ১২ ফেব্রæয়ারী খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য মহিলা শ্রমিক লীগের সকল ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের মিছিল সহকারে বিকাল ৩ টায় গোলক মনি শিশু পার্কের সামনে উপস্থিত হওয়ার আহবান জানান।
এদিকে খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত আগামী ১২ ফেব্রæয়ারীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সফল করার লক্ষ্যে ২১নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের এক সভা শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় সংগঠনের কার্যালয়ে খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ২১নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি মুন্সী ইউনুস এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ। সভা পরিচালনা করেন ২১নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক তৈয়ব আলী হাওলাদার। বক্তব্য রাখেন মোঃ ফারুক সরদার, মোঃ ফারুক মোল্লা, মোঃ আনিসুর রহমান, মোঃ হারুন, মোঃ বাবুল শেখ, মোঃ হান্নান, মোঃ সাজু শেখ, মোঃ রাজু খান, মোঃ হুমায়ুন কবির, মোঃ ফারুক শেখ, মোঃ রিপন, মোঃ ফারহান, মোঃ পারভেজ শেখ, মোঃ জুম্মান শেখ, মোঃ মামুন, মোঃ জিহাদ, মোঃ শাহ আলম শেখ, মোঃ শামীম আহম্মেদ, মোঃ জাকির হোসেন, আসাদ তালুকদার প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
সভায় নেতৃবৃন্দ আগামী ১২ ফেব্রæয়ারী খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য ২১নং ওয়ার্ডের সকল নেতাকর্মীদের ব্যানার নিয়ে মিছিল সহকারে বিকাল ৩.০০ টায় শহীদ হাদিস পার্কে উপস্থিত হওয়ার আহবান জানান।

সাংসদ শেখ জুয়েলের সাথে শ্রমিক লীগের মতবিনিময়
খবর বিজ্ঞপ্তি
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভ্রাতুষ্পুত্র খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সালাহ্উদ্দিন জুয়েল এর সাথে খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দ গতকাল রবিবার সকাল ১১টায় তার নিজ বাস ভবনে মত বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও খুলনা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি কাজী আমিনুল হক, খুলনা সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডঃ মোঃ সাইফুল ইসলাম, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস, খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য মোঃ ফারুক হাসান হিটলু, খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি মোঃ মোতালেব মিয়া, সহ-সভাপতিদ্বয় শেখ মখলুকার রহমান, মোঃ সেলিম রাজু, মোঃ ফারুক হোসেন, খুলনা মহানগর যুবলীগ নেতা শফিকুর রহমান পলাশ, খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের যুগ্ম সম্পাদকদ্বয় আঃ রহিম খান, মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদকদ্বয় মোল্লা আজাদ আলী, কিংকর সাহা, সদস্য এস.এম. ইমরুল আলম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
প্রথমেই সংসদ সদস্যের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন ও তার শারীরিক অবস্থার খোজ-খবর নেন নেতৃবৃন্দ। সংসদ সদস্য বলেন খুলনাকে মাদক, সন্ত্রাস, ভুমিধস্যু মুক্ত ও খুলনাকে পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দদের সহযোগিতা করার আহবান জানান। খুলনার শ্রমিকদের সকল সমস্যার ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয় সংসদ সদস্যের সাথে নেতৃবৃন্দের।

খুলনা অঞ্চলে সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণভাবে পালিত
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে গতকাল রবিবার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাণী অর্চনাসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ঃ রবিবার, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নির্মাণাধীন মন্দির প্রাঙ্গণে বাণী অর্চনা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সরস্বতী পূজা উদযাপন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. সমীর কুমার সাধুর সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনাপর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। প্রধান অতিথি এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন প্রত্যেক ধর্মেই জ্ঞান অর্জনের কথা বলা হয়েছে। জ্ঞান অর্জনের মূল লক্ষ্য হচ্ছে আলোকিত হওয়া এবং মনের অন্ধকার দূরীভুত করা। কোনো একটি দেশ সমৃদ্ধ হয় তার ধর্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যে। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেখানে এই সকল উপাদান ও পরিবেশ বিদ্যমান। তিনি বলেন এবার এ পূজা উদযাপনে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি কমিট করা হয়েছে। তিনি বলেন আমাদের সবার মূখ্য আরধ্য হওয়া উচিত আদর্শ মানুষ হওয়ার লক্ষ্যে জ্ঞান সাধনা করা এবং সত্য সুন্দর ন্যায় ও কল্যাণের জন্যই আমরা যেনো কাজ করতে পারি। তিনি আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান। এর আগে অনুষ্ঠানে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে মুদ্রিত স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করা হয়। আলোচনা সভায় আরও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. উত্তম কুমার মজুমদার, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ সারওয়ার জাহান। ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ শরীফ হাসান লিমনসহ সরস্বতী পূজা উদযাপন কমিটির সদস্যবৃন্দ এবং শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সকালে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রতিমা বেদীতে অঞ্জলি প্রদান এবং পূজা শেষে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। এদিকে বাণী অর্চনা উপলক্ষে বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ঃ খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) ১০ ফেব্রæয়ারি রবিবার সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পালিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারের মুক্ত মঞ্চের সম্মুখে অস্থায়ী পূজা মন্ডপে বিশ্ববিদ্যালয়ের পূজা উদ্যাপন কমিটির সার্বিক আয়োজনে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বী শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী, কর্মচারীসহ অন্যান্যরা স্বতঃফূর্তভাবে শ্রী পঞ্চমী তিথিতে শ্বেতবসনা, বাগ্দেবী সরস্বতী দেবীর শুভ আরাধনার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় পূজা মন্ডপ পরিদর্শণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন । পূজাকালীণ সময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, খুলনার ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া, আইইএম বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুব্রত তলাপাত্র, পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. পিন্টু চন্দ্র শীল ও কোষাধ্যক্ষ রাজন কুমার রাহাসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ।
শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা উপলক্ষে আজ শনিবার সন্ধায় প্রতিমা আনয়ন করা হয় এবং ১১ ফেব্রæয়ারি সোমবার সকালে প্রতিমা নিরঞ্জন দেওয়া হবে। এছাড়া পূজা উপলক্ষে রবিবার সন্ধ্যায় আরতি প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
যবিপ্রবিতে সরস্বতী পূজা উদ্যাপন ঃ বাণী বন্দনা, পূজা অর্চনা, প্রসাদ বিতরণ এবং অসুস্থ একজন মেয়েকে আর্থিক সহায়তার মধ্য দিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হয়েছে।
রোববার সকাল থেকে যবিপ্রবির সনাতন পরিবারের আয়োজনে বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সরস্বতী পূজা বন্দনায় অংশ নেন বিশ^বিদ্যালয়ের সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ। সরস্বতী পূজা উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ছিলেন বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন।
সরস্বতীর পূজা উপলক্ষে বিশ^বিদ্যালয়ের ডা. এম আর খান মেডিকেল সেন্টারের সামনে প্যান্ডেল করে পূজা অর্চনার ব্যবস্থা করা হয়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক থেকে শুরু করে পূজা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। রোববার সকাল সাতটার দিকে প্যান্ডেল স্থলে সরস্বতীর প্রতিমা স্থাপন করা হয়। সকাল আটটায় শুরু হয় পূজা অর্চনা। সকাল সাড়ে নয়টা থেকে শুরু হয় পুষ্পাঞ্জলি। পুষ্পাঞ্জলি শেষে ভক্তদের মাঝে বিতরণ করা হয় প্রসাদ। ধীরে ধীরে সকল মত-পথের লোকজনের সমাগমে পূজা প্রাঙ্গণ পরিণত হয় স¤প্রীতির মিলন মেলায়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে আর্ত মানবতার সেবায় সাড়া দিয়ে ক্যানসারে আক্রান্ত চৌগাছার ইছাপুরের একটি মেয়েকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তাও প্রদান করা হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির সনতান পরিবারের সভাপতি ও এগ্রো প্রডাক্ট প্রসেসিং টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ^াস, যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো: ইকবাল কবীর জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক ড. মো: নাজমুল হাসান, পরিচালক (পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও পূর্ত) পরিতোষ কুমার বিশ^াস, সনতান পরিবারের সাধারণ সম্পাদক ও রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সুমন চন্দ্র মহন্ত, যবিপ্রবির সিস্টেম এনালিস্ট সাগর চক্রবর্তী, কেমিকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সুজন চৌধুরী, গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সমীরণ মন্ডল, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের সহকারী পরিচালক এস এম সামিউল আলম প্রমুখ। বিকেলে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ধর্মীয় ভক্তিমূলক সংগীত পরিবেশনের ব্যবস্থা করা হয়।
দৌলতপুর কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ঃ নগরীর দৌলতপুর কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে সনাতন ধর্মালম্বী কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীদের আয়োজনে গতকাল রবিবার সকালে বিদ্যাদেবী সরস্বতীর কৃপা অর্জন লক্ষ্যে কলেজ কম্পাউন্ডে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কলেজ অধ্যক্ষ মোঃ সোহরাব হোসেন, প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাক্তন পরিচালক বাবু নিত্য রঞ্জন বিশ্বাস, পরিচালনা করেন মুখ্য প্রশিক্ষক বাদল চন্দ্র বিশ্বাস, এ সময় উপস্থিত ছিলেন অমিত বরন সাহা, সচীন্দ্রনাথ বিশ্বাস, শেখ শহীদুজ্জামান, চিন্ময় সরকার, রঘুনাথ কর, সত্যব্রতনাথ, কৃষ্ণা রানী মন্ডল, দীপক কুমার দেবনাথ, প্রভাত কুমার, প্রমূখ। পূজা শেষে সকলের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
কপিলমুনিতে সরস্বতী পূজা ঃ কপিলমুনিতে বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার প্রায় সারাদিন এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। কপিলমুনি কলেজ, সহচরী বিদ্যা মন্দির, মেহেরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কপিলমুনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাড়ম্বরে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া ব্যক্তি উদ্যোগে উত্তর সলুয়া কর্মকারপাড়া, নোয়াকাটী, নাছিরপুর, নাছিরপুর পোদ্দারপাড়া, কাশিমনগর মালোপাড়া, কাশিমনগর দাশপাড়া, মামুদকাটী, হরিদাশকাটী, হরিঢালী পোদ্দারপাড়া, দক্ষিণ সলুয়া, রামনাথপুর, গোয়াল বাথান, নাছিরপুর সাহাপাড়া পূজা মন্ডপে সাড়ম্বরে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়।
বটিয়াঘাটা ঃ বটিয়াঘাটা উপজেলায় গত শনিবার ও রবিবার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন ও ব্যক্তিগত উদ্যেগে বিভিন্ন বাড়ীতে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দপনার বিদ্যারদেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানা যায় উপজেলার সরকারি বটিয়াঘাটা মহাবিদ্যালয়, কৈয়া মহাবিদ্যালয়, গরিয়ারডাঙ্গা মহাবিদ্যালয়, বারোআড়িয়া মহাবিদ্যালয়, সরকারি চক্রাখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বটিয়াঘাটা থানা হেডঃ কোঃ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বয়ারভাঙ্গা বিশম্ভ^র মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হোগলবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সাচিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সুরখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ পূজার আয়োজন করেছে। তিথিগত কারণে দুই দিন ব্যাপি এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়।
পাইকগাছা ঃ পাইকগাছার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাণী আর্চনা, আলোচনা সভা ও প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার সকালে পাইকগাছা সরকারি কলেজ মিলনায়তনে পূজা উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল, প্রাক্তন অধ্যক্ষ রমেন্দ্রনাথ সরকার, সহকারী অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার বৈদ্য, প্রভাষক মোমিন উদ্দীন, তরুণ কান্তি মন্ডল, সুফল মন্ডল, সোমা রায়, তারেক আহম্মেদ ও উজ্জ্বল কুমার বিশ্বাস। পাইকগাছা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক অজিত কুমার সরকার, শিক্ষক পঞ্চানন সরকার, মৃণাল কান্তি ও প্রণব বিশ্বাস। পাইকগাছা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন সেখ, শিক্ষক ইসমাইল হোসেন, ইমরুল ইসলাম ও প্রদীপ শীল। ইউনির্ভাস্যাল এডাস স্কুলে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক প্রদীপ সরকার, শিক্ষক মৃগাঙ্ক সরকার, বাবলু সরকার, প্রভাবর্তী স্বর্ণকার, শিউলী রাণী বিশ্বাস, একান্ত মন্ডল, সুইট সরকার, নির্মলা রায় ও অভিভাবক দীপংকর মন্ডল।
শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজ ঃ ফকিরহাট উপজেলাধীন শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজে যথাযোগ্য মর্যাদায় সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কলেজের পূজার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলেজ গভর্নিং বডির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, খুলনা বিভাগের সেরা বিদ্যোৎসাহী ও রাজনীতিক বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন দাশ। অন্যানের মাঝে উপস্থিত ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ বটু গোপাল দাস, গভর্ণিং বডির সদস্য সৈয়দ মহম্মদআলী, শিক্ষক প্রতিনিধি সেখ তারিকুল ইসলাম, উৎপল কুমার দাস, পলি দাশ, পূজা উদ্যাপন পর্ষদের আহŸায়ক পিযুষ কান্তি পাল, অপূর্ব লাল সাহা, সালমা খাতুন, শেখ শামীম ইসলাম, বিকাশ রঞ্জন বিশ্বাস প্রমুখ। এসময় কলেজের শিক্ষক মন্ডলি, শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং এলাকার সুধী জন উপস্থিত ছিলেন। পূজা অন্তে অঞ্জলি প্রদান বিদ্যা দেবির কাছে প্রার্থনা জানানো হয়। সর্বশেষ বিদ্যার্থী এবং ভক্তদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
রামপাল ঃ রামপালে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজা। পূজা উপলক্ষে সোমবার সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মন্দির ও পাড়া মহল্লায় জ্ঞান ও বিদ্যার দেবী সরস্বতীর পূজা অর্চনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রামপাল কেন্দ্রীয় দূর্গা মন্দির, রামপাল সরকারী কলেজ, সুন্দরবন মহিলা ডিগ্রি কলেজ, সগুনা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সহ বিভিন্ন পূজামন্ডপে অনুষ্ঠিত হয়েছে সরস্বতী পূজা। পূজাকে ঘিরে সকাল থেকে বিভিন্ন পূজা মন্ডপে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ভক্ত ও দর্শনার্থীদের পূজা আর্চনায় ভক্তরা সমবেত হয়ে প্রার্থনায় মিলিত হয়। এসময় দেবী সরস্বতীর পূজা অর্চনা আর বিদ্যাদেবীর সন্তুষ্টি লাভে সনাতনী নারী ও পুরুষেরা প্রণাম নিবেদন করে আর অঞ্জলি দেয়। শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে মাঘ মাসের শুক্লা পক্ষের পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজা আয়োজন করা হয়। ধর্মী আচার অুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে আরতি, শীতল ভোগ দানসহ ধর্মীয় অনুষ্ঠানমালার মধ্য দিয়ে সরস্বতী পূজার আনুষ্ঠানিকতা চলে। সরস্বতী প্রতিমা বির্সজনের মধ্য দিয়ে এই পূজার সমাপ্তি হবে।
যশোরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরস্বতী পূজা ঃ যশোরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকাল ১০ টায় থেকে অর্চনা শুরু হয়। তারপর ধর্মীয় নিয়মনীতি শেষে উপস্থিত সবার মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
যশোর সরকারি এম এম কলেজে এ আয়োজনের উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তালেব মিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর সেখ আবুল কাওসার। সভাপতিত্বে করেন আহবায়ক প্রফেসর শশাঙ্ক মল্লিক।
সরকারি মহিলা কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর ড.এম. হাসান সরোওয়ার্দী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর অমল কৃষ্ণ বিশ^াস, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এবিএম ইকবাল আনোয়ার সহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।
সরকারি সিটি কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তোরাব মোহাম্মদ হাসান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ড.আনোয়ার হোসেন, বিসিএস অ্যাসোসিয়েশনের খুলনা বিভাগীয় যুগ্ম-মহাসচিব সিরাজুল ইসলাম, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি খন্দকার মারুফ হুসাইন ইকবাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।
ডাঃ আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজে উদ্বোধন করেন উপাধ্যক্ষ মঞ্জুরুল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গভার্ণিং বডির সদস্য আব্দুল মতলেব বাবু, আবু মুসা মধু, আহবায়ক সুপ্রিয়া ঘোষ প্রমুখ।
শিক্ষাবোর্ড মডেল স্কুল এ্যন্ড কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ লে.ক. মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ কল্যাণ সরকার, আহবায়ক সুভ্র প্রকাশ হালদার প্রমুখ। এমএসটিপি গার্লস স্কুল এ্যান্ড কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ খায়রুল আনাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী শিক্ষক জগদ্বীশ দাস, শিমুল মন্ডল প্রমুখ। সম্মিলিনী স্কুলে উদ্বোধন করেন প্রধান শিক্ষক মিহির কান্তি সরকার। এ সময় সব শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সোনাডাঙ্গায় ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৩জন জেলহাজতে
স্টাফ রিপোর্টার
সোনাডাঙ্গা মডেল থানাধিন মজিদ স্বরণী রোডস্থ খালাসী মাদ্রাসার সামনে থেকে ৫৭পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৩জনকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল রবিবার মহানগর হাকিম মো. শাহীদুল ইসলাম এ আদেশ প্রদান করেছেন।
এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই পল্লব কুমার সরকার আসামিদের আদালতে হাজির করেন। আসামিরা হলেন নগরীর নবপল্লী জোড়া ৪তলা বালুর মাঠের পাশে সেলিম মোল্লার বাড়ির ভাড়াটিয়া সেকেন্দার বিশ্বাসের ছেলে মো. ফয়সাল বিশ্বাস (২০), গোবরচাকা নবীনগর আব্দুল্লাহ মোড়লের বাড়ির ভাড়াটিয়া মোকসেদ মোড়লের ছেলে মো. মনিরুল ইসলাম (৩৯) ও সাতক্ষীরা জেলা সদরের পাঁচরোখি এলকার আবুল হোসেনের ছেলে মনিরুল ইসলাম (২৮)
মামলার বিবরণে জানা যায়, ফেব্রæয়ারি সন্ধ্যা ৭টার দিকে সোনাডাঙ্গা মডেল থানাধিন মজিদ স্বরণী রোডে অভিযান পরিচালনা করেন এসআই রহিত কুমার বিশ্বাস। এসময় খালাসী মাদ্রাসার সামনে থেকে ৫৭পিস ইয়াবাসহ ফয়সাল বিশ্বাস, মো. মনিরুল ইসলাম ও মনিরুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। এঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয় যার নং-১৪।

নতুন বাজার এলাকা থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার
স্টাফ রিপোর্টার
নগরীর নতুন বাজার বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে আব্দুর রাজ্জাক শেখ ওরফে রজব (৩২) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রবিবার দুপুরে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। সে ওই এলাকার মৃত. আব্দুল মালেক শেখের ছেলে ও দিনমজুরের কাজ করতেন।
খুলনা থানার এসআই গোপী নাথ সরকার জানান, দুপুরে বেড়িবাঁধ এলাকায় এক ব্যক্তির মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।
খুলনা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবির জানান, ওই ব্যক্তির গলায় রশি দিয়ে শ্বাসরোধের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

খুলনায় মাদক বিক্রেতাসহ গ্রেফতার ৭৫
স্টাফ রিপোর্টার
খুলনা জেলা ও মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযানে মাদক বিক্রেতাসহ ৭৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা জেলার ৯ থানা ও মহানগরের ৮ থানা এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ো তাদের গ্রেফতার করা হয়।
জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান জানান, খুলনা জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে গত ২৪ঘণ্টায় ৫জন মাদক বিক্রেতাসহ মোট ৪৪জন আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। জেলার বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে এসব মাদক বিক্রেতাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়াদের কাছ থেকে ৭৪ গ্রাম গাঁজা জব্দ করা হয় এবং মোট ৫টি মাদক মামলা রুজু করা হয়েছে।
খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (আরসিডি) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, গত ২৪ঘণ্টায় খুলনা মহানগর পুলিশের অভিযানে মহানগরের বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে ১৩জন মাদক বিক্রেতাসহ মোট ৩১জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ১২২ পিস ইয়াবা, ২০ গ্রাম গাঁজা ও ২লিটার দেশি মদ জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

খুলনা মাদকমুক্ত জেলা হিসাবে গড়ার অঙ্গীকার
স্টাফ রিপোর্টার
খুলনাকে মাদকমুক্ত জেলা হিসাবে গড়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুরে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয়। জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।
সভায় জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল হোসেন বলেন, শতভাগ মাদক নির্মূলে যৌথ উদ্যোগের কোন বিকল্প নেই। খুলনা জেলাকে মাদকমুক্ত করতে পুলিশ বাহিনী ও জেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালিত করা হবে। তিনি বলেন, ময়ূর নদীসহ নগরীর ২২ খালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এ কার্যক্রমে ব্যাপক জনসচেতনতার জন্য মাইকিং করা হবে। ভেজাল খাদ্যদ্রব্য বাজারজাতকরণ নিয়ন্ত্রণ করতে অভিযান কার্যক্রম অব্যাহত আছে।
খুলনা সিভিল সার্জন ডা. এ এস এম আব্দুর রাজ্জাক বলেন, জনগণকে সেবা দিতে সকল চিকিৎসক ও নার্সরা কর্তব্য পালন করে যাচ্ছে। খুলনা বেসরকারি ক্লিনিকগুলোকে যাচাই-বাছাই করে অনলাইনের মাধ্যমে নতুন লাইসেন্স দেয়া হবে। এর ফলে স্বাস্থ্য বিভাগে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ১০০ দিনের কর্মসূচির সফল বাস্তবায়ন হবে।
পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে আগামী এক মাসের মধ্যে খুলনা জেলাকে মাদকমুক্ত করা হবে। মাদক নিয়ে নিরীহ লোককে হয়রানি করা হবে না। মাদক ও ভূমিদস্যুদের জন্য তদবিরকারীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে। তিনি বলেন, সুশাসন নিশ্চিত করতে পারলে এই শহরকে দুর্নীতিমুক্ত করা যাবে। তাই সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করতে তিনি সকলের নিজ নিজ কাজ সততার সাথে করার অনুরোধ করেন।
সভায় আইন-শৃংখলা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, খুলনা জেলার নয়টি উপজেলায় গত জানুয়ারি মাসে চুরি ছয়টি, খুন পাঁচটি, অস্ত্র আইন দুইটা ,ধর্ষণ একটি নারী ও শিশু নির্যাতন ছয়টি, নারী ও শিশু পাচার দুইটি,মাদকদ্রব্য ১১৫টি এবং অন্যান্য ৬৬টিসহ মোট ২০৩টি মামলা দায়ের হয়েছে। ডিসেম্বর মাসে এ সংখ্যা ছিল ১২৯টি।
মহানগরীর আটটি থানায় জানুয়ারি মাসে ডাকাতি একটি, চুরি দশটি, খুন চারটি, অস্ত্র আইন দুইটি, দ্রæত বিচার একটি,ধর্ষণ একটি, নারী ও শিশু নির্যাতন সাতটি, মাদকদ্রব্য ২৭২টি এবং অন্যান্য আইনে ১৯টি সহ মোট ৩১৭টি মামলা দায়ের হয়েছে। ডিসেম্বর মাসে এ সংখ্যা ছিল ১৪৯টি।
সভায় সকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সকল ইউএনওসহ জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মঠবাড়িয়ায় ইউপি সদস্যকে মারধর করে টাকা ছিনতাই
পিরোজপুর প্রতিনিধি
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় কাঠ ব্যবসায়ী ইউসুফ উজ্জামান খান (৪২) ও তার ভাই ইউপি সদস্য মো. জসিম খানকে (৩৬) মারধর করে গাছ বিক্রির ৫১ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা।
গতকাল রবিবার দুপুর আড়াইটার দিকে মঠবাড়িয়া বাজারে গাছ বিক্রি করে টাকা নিয়ে কাঠ ব্যবসায়ী ইউসুফ ও তার ছোট ভাই ইউপি সদস্য মো. জসিমকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে উপজেলার পূর্ব সেনের টিকিকাটা বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথে রাস্তার মধ্য ৮-৯ জন দুর্বৃত্ত মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে আহত করে টাকা নিয়ে দ্রæত পলিয়ে যায়। পরে আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে ইউসুবকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ও ইউপি সদস্য জসিমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়।
আহত কাঠ ব্যবসায়ী ইউসুফ জানান, বাড়ি যাওয়ার পথে মোল্লার হাট বাজার সংলগ্ন আব্দুল লতীফ ফরাজী বাড়ির সামনের রাস্তায় ৮-৯ জন দুর্বৃত্ত মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে এলোপাথারি পিটিয়ে আহত করে। এ সময় চিৎকার দিলে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে টাকা নিয়ে দুর্বৃত্তরা পলিয়ে যায়।
মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শওকত আনোয়ার জানান, এ ঘটনা শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কুষ্টিয়ায় ইয়াবাসহ যুবক আটক
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
কুষ্টিয়ায় ২৪৫ পিস ইয়াবাসহ তুহিন নামে এক যুবককে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। গতকাল রবিবার দুপুরে শহরের চৌড়হাস এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। তুহিন কুষ্টিয়া শহরের কালিশংকরপুর এলাকার আতিয়ার রহমানের ছেলে।
কুষ্টিয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হালিম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চৌড়হাস এলাকার গড়াই বাস কাউন্টারের সামনে থেকে তুহিন নামে এক যুবককে আটক করা হয়। পরে তার কাছ থেকে ২৪৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

শ্যামনগরে বাকপ্রতিবন্ধি ছাত্রী ধর্ষণ, ইউএনও’র ড্রাইভার গ্রেপ্তার
শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে ১৯ বছরের বাকপ্রতিবন্ধী এক কলেজছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের গাড়ি চালক লম্পট আবদুল গফফারকে (৫৩) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার রাত ৮টার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্তর থেকে পুলিশের উপ-পরিদর্শক রাজ কিশোর পাল তাকে গ্রেপ্তার করে।
ধর্ষিতা বাক প্রতিবন্ধী শ্যামনগর সরকারি মহসিন কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্রী। গ্রেপ্তার ড্রাইভার আবদুল গফফার উপজেলা সদরের চন্ডীপুর গ্রামের মৃত গহর আলী গাইনের পুত্র। এদিকে, এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
পুলিশ ও ধর্ষিতার স্বজনরা জানান, গাড়িচালক আবদুল গফফার শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবনের পেছনে একটি মাটির ঘরে দুপুরে বিশ্রাম নিতেন। শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে ড্রাইভার এর বাড়ি থেকে ড্রাইভারের জন্য ভাত নিয়ে যায় বাকপ্রতিবন্ধী ওই যুবতী।
সেখানে তাকে একা পেয়ে আবদুল গফফার ড্রাইভার জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে। পরে সে বিষয়টি বাড়িতে গিয়ে তার মাকে জানালে, তিনি থানায় গিয়ে ধর্ষণ মামলা করেন। পরে পুলিশ আবদুুল গফফারকে গ্রেপ্তার করে।
তারা আরও জানান, ড্রাইভার গফফারের বর্তমানে ৪টি স্ত্রী আছে। শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাবিল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় পুলিশ ইতিমধ্যে আবদুল গফফারকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে এবং ধর্ষিতা বাকপ্রতিবন্ধীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ধর্ষক আব্দুল গফফারকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here