খুলনা অঞ্চলে সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণভাবে পালিত

0
80

খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে গতকাল রবিবার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাণী অর্চনাসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ঃ রবিবার, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নির্মাণাধীন মন্দির প্রাঙ্গণে বাণী অর্চনা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সরস্বতী পূজা উদযাপন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. সমীর কুমার সাধুর সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনাপর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। প্রধান অতিথি এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন প্রত্যেক ধর্মেই জ্ঞান অর্জনের কথা বলা হয়েছে। জ্ঞান অর্জনের মূল লক্ষ্য হচ্ছে আলোকিত হওয়া এবং মনের অন্ধকার দূরীভুত করা। কোনো একটি দেশ সমৃদ্ধ হয় তার ধর্মীয় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যে। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেখানে এই সকল উপাদান ও পরিবেশ বিদ্যমান। তিনি বলেন এবার এ পূজা উদযাপনে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি কমিট করা হয়েছে। তিনি বলেন আমাদের সবার মূখ্য আরধ্য হওয়া উচিত আদর্শ মানুষ হওয়ার লক্ষ্যে জ্ঞান সাধনা করা এবং সত্য সুন্দর ন্যায় ও কল্যাণের জন্যই আমরা যেনো কাজ করতে পারি। তিনি আয়োজক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান। এর আগে অনুষ্ঠানে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে মুদ্রিত স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করা হয়। আলোচনা সভায় আরও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. উত্তম কুমার মজুমদার, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ সারওয়ার জাহান। ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ শরীফ হাসান লিমনসহ সরস্বতী পূজা উদযাপন কমিটির সদস্যবৃন্দ এবং শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সকালে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রতিমা বেদীতে অঞ্জলি প্রদান এবং পূজা শেষে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। এদিকে বাণী অর্চনা উপলক্ষে বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ঃ খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) ১০ ফেব্রæয়ারি রবিবার সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা জাকজঁমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পালিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সেন্টারের মুক্ত মঞ্চের সম্মুখে অস্থায়ী পূজা মন্ডপে বিশ্ববিদ্যালয়ের পূজা উদ্যাপন কমিটির সার্বিক আয়োজনে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বী শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী, কর্মচারীসহ অন্যান্যরা স্বতঃফূর্তভাবে শ্রী পঞ্চমী তিথিতে শ্বেতবসনা, বাগ্দেবী সরস্বতী দেবীর শুভ আরাধনার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় পূজা মন্ডপ পরিদর্শণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন । পূজাকালীণ সময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, খুলনার ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মিহির রঞ্জন হালদার, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া, আইইএম বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুব্রত তলাপাত্র, পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. পিন্টু চন্দ্র শীল ও কোষাধ্যক্ষ রাজন কুমার রাহাসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ।
শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা উপলক্ষে আজ শনিবার সন্ধায় প্রতিমা আনয়ন করা হয় এবং ১১ ফেব্রæয়ারি সোমবার সকালে প্রতিমা নিরঞ্জন দেওয়া হবে। এছাড়া পূজা উপলক্ষে রবিবার সন্ধ্যায় আরতি প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
যবিপ্রবিতে সরস্বতী পূজা উদ্যাপন ঃ বাণী বন্দনা, পূজা অর্চনা, প্রসাদ বিতরণ এবং অসুস্থ একজন মেয়েকে আর্থিক সহায়তার মধ্য দিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হয়েছে।
রোববার সকাল থেকে যবিপ্রবির সনাতন পরিবারের আয়োজনে বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সরস্বতী পূজা বন্দনায় অংশ নেন বিশ^বিদ্যালয়ের সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ। সরস্বতী পূজা উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ছিলেন বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন।
সরস্বতীর পূজা উপলক্ষে বিশ^বিদ্যালয়ের ডা. এম আর খান মেডিকেল সেন্টারের সামনে প্যান্ডেল করে পূজা অর্চনার ব্যবস্থা করা হয়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক থেকে শুরু করে পূজা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। রোববার সকাল সাতটার দিকে প্যান্ডেল স্থলে সরস্বতীর প্রতিমা স্থাপন করা হয়। সকাল আটটায় শুরু হয় পূজা অর্চনা। সকাল সাড়ে নয়টা থেকে শুরু হয় পুষ্পাঞ্জলি। পুষ্পাঞ্জলি শেষে ভক্তদের মাঝে বিতরণ করা হয় প্রসাদ। ধীরে ধীরে সকল মত-পথের লোকজনের সমাগমে পূজা প্রাঙ্গণ পরিণত হয় স¤প্রীতির মিলন মেলায়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে আর্ত মানবতার সেবায় সাড়া দিয়ে ক্যানসারে আক্রান্ত চৌগাছার ইছাপুরের একটি মেয়েকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তাও প্রদান করা হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির সনতান পরিবারের সভাপতি ও এগ্রো প্রডাক্ট প্রসেসিং টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ^াস, যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো: ইকবাল কবীর জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক ড. মো: নাজমুল হাসান, পরিচালক (পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও পূর্ত) পরিতোষ কুমার বিশ^াস, সনতান পরিবারের সাধারণ সম্পাদক ও রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সুমন চন্দ্র মহন্ত, যবিপ্রবির সিস্টেম এনালিস্ট সাগর চক্রবর্তী, কেমিকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সুজন চৌধুরী, গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সমীরণ মন্ডল, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের সহকারী পরিচালক এস এম সামিউল আলম প্রমুখ। বিকেলে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ধর্মীয় ভক্তিমূলক সংগীত পরিবেশনের ব্যবস্থা করা হয়।
দৌলতপুর কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ঃ নগরীর দৌলতপুর কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে সনাতন ধর্মালম্বী কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীদের আয়োজনে গতকাল রবিবার সকালে বিদ্যাদেবী সরস্বতীর কৃপা অর্জন লক্ষ্যে কলেজ কম্পাউন্ডে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন কলেজ অধ্যক্ষ মোঃ সোহরাব হোসেন, প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাক্তন পরিচালক বাবু নিত্য রঞ্জন বিশ্বাস, পরিচালনা করেন মুখ্য প্রশিক্ষক বাদল চন্দ্র বিশ্বাস, এ সময় উপস্থিত ছিলেন অমিত বরন সাহা, সচীন্দ্রনাথ বিশ্বাস, শেখ শহীদুজ্জামান, চিন্ময় সরকার, রঘুনাথ কর, সত্যব্রতনাথ, কৃষ্ণা রানী মন্ডল, দীপক কুমার দেবনাথ, প্রভাত কুমার, প্রমূখ। পূজা শেষে সকলের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
কপিলমুনিতে সরস্বতী পূজা ঃ কপিলমুনিতে বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার প্রায় সারাদিন এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। কপিলমুনি কলেজ, সহচরী বিদ্যা মন্দির, মেহেরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কপিলমুনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাড়ম্বরে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া ব্যক্তি উদ্যোগে উত্তর সলুয়া কর্মকারপাড়া, নোয়াকাটী, নাছিরপুর, নাছিরপুর পোদ্দারপাড়া, কাশিমনগর মালোপাড়া, কাশিমনগর দাশপাড়া, মামুদকাটী, হরিদাশকাটী, হরিঢালী পোদ্দারপাড়া, দক্ষিণ সলুয়া, রামনাথপুর, গোয়াল বাথান, নাছিরপুর সাহাপাড়া পূজা মন্ডপে সাড়ম্বরে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়।
বটিয়াঘাটা ঃ বটিয়াঘাটা উপজেলায় গত শনিবার ও রবিবার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন ও ব্যক্তিগত উদ্যেগে বিভিন্ন বাড়ীতে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দপনার বিদ্যারদেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানা যায় উপজেলার সরকারি বটিয়াঘাটা মহাবিদ্যালয়, কৈয়া মহাবিদ্যালয়, গরিয়ারডাঙ্গা মহাবিদ্যালয়, বারোআড়িয়া মহাবিদ্যালয়, সরকারি চক্রাখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বটিয়াঘাটা থানা হেডঃ কোঃ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বয়ারভাঙ্গা বিশম্ভ^র মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হোগলবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সাচিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সুরখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ পূজার আয়োজন করেছে। তিথিগত কারণে দুই দিন ব্যাপি এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়।
পাইকগাছা ঃ পাইকগাছার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাণী আর্চনা, আলোচনা সভা ও প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার সকালে পাইকগাছা সরকারি কলেজ মিলনায়তনে পূজা উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল, প্রাক্তন অধ্যক্ষ রমেন্দ্রনাথ সরকার, সহকারী অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার বৈদ্য, প্রভাষক মোমিন উদ্দীন, তরুণ কান্তি মন্ডল, সুফল মন্ডল, সোমা রায়, তারেক আহম্মেদ ও উজ্জ্বল কুমার বিশ্বাস। পাইকগাছা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক অজিত কুমার সরকার, শিক্ষক পঞ্চানন সরকার, মৃণাল কান্তি ও প্রণব বিশ্বাস। পাইকগাছা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন সেখ, শিক্ষক ইসমাইল হোসেন, ইমরুল ইসলাম ও প্রদীপ শীল। ইউনির্ভাস্যাল এডাস স্কুলে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক প্রদীপ সরকার, শিক্ষক মৃগাঙ্ক সরকার, বাবলু সরকার, প্রভাবর্তী স্বর্ণকার, শিউলী রাণী বিশ্বাস, একান্ত মন্ডল, সুইট সরকার, নির্মলা রায় ও অভিভাবক দীপংকর মন্ডল।
শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজ ঃ ফকিরহাট উপজেলাধীন শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজে যথাযোগ্য মর্যাদায় সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কলেজের পূজার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলেজ গভর্নিং বডির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, খুলনা বিভাগের সেরা বিদ্যোৎসাহী ও রাজনীতিক বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন দাশ। অন্যানের মাঝে উপস্থিত ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ বটু গোপাল দাস, গভর্ণিং বডির সদস্য সৈয়দ মহম্মদআলী, শিক্ষক প্রতিনিধি সেখ তারিকুল ইসলাম, উৎপল কুমার দাস, পলি দাশ, পূজা উদ্যাপন পর্ষদের আহŸায়ক পিযুষ কান্তি পাল, অপূর্ব লাল সাহা, সালমা খাতুন, শেখ শামীম ইসলাম, বিকাশ রঞ্জন বিশ্বাস প্রমুখ। এসময় কলেজের শিক্ষক মন্ডলি, শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং এলাকার সুধী জন উপস্থিত ছিলেন। পূজা অন্তে অঞ্জলি প্রদান বিদ্যা দেবির কাছে প্রার্থনা জানানো হয়। সর্বশেষ বিদ্যার্থী এবং ভক্তদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
রামপাল ঃ রামপালে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজা। পূজা উপলক্ষে সোমবার সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মন্দির ও পাড়া মহল্লায় জ্ঞান ও বিদ্যার দেবী সরস্বতীর পূজা অর্চনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রামপাল কেন্দ্রীয় দূর্গা মন্দির, রামপাল সরকারী কলেজ, সুন্দরবন মহিলা ডিগ্রি কলেজ, সগুনা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সহ বিভিন্ন পূজামন্ডপে অনুষ্ঠিত হয়েছে সরস্বতী পূজা। পূজাকে ঘিরে সকাল থেকে বিভিন্ন পূজা মন্ডপে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ভক্ত ও দর্শনার্থীদের পূজা আর্চনায় ভক্তরা সমবেত হয়ে প্রার্থনায় মিলিত হয়। এসময় দেবী সরস্বতীর পূজা অর্চনা আর বিদ্যাদেবীর সন্তুষ্টি লাভে সনাতনী নারী ও পুরুষেরা প্রণাম নিবেদন করে আর অঞ্জলি দেয়। শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে মাঘ মাসের শুক্লা পক্ষের পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজা আয়োজন করা হয়। ধর্মী আচার অুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে আরতি, শীতল ভোগ দানসহ ধর্মীয় অনুষ্ঠানমালার মধ্য দিয়ে সরস্বতী পূজার আনুষ্ঠানিকতা চলে। সরস্বতী প্রতিমা বির্সজনের মধ্য দিয়ে এই পূজার সমাপ্তি হবে।
যশোরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরস্বতী পূজা ঃ যশোরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকাল ১০ টায় থেকে অর্চনা শুরু হয়। তারপর ধর্মীয় নিয়মনীতি শেষে উপস্থিত সবার মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
যশোর সরকারি এম এম কলেজে এ আয়োজনের উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তালেব মিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর সেখ আবুল কাওসার। সভাপতিত্বে করেন আহবায়ক প্রফেসর শশাঙ্ক মল্লিক।
সরকারি মহিলা কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর ড.এম. হাসান সরোওয়ার্দী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর অমল কৃষ্ণ বিশ^াস, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এবিএম ইকবাল আনোয়ার সহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।
সরকারি সিটি কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তোরাব মোহাম্মদ হাসান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ড.আনোয়ার হোসেন, বিসিএস অ্যাসোসিয়েশনের খুলনা বিভাগীয় যুগ্ম-মহাসচিব সিরাজুল ইসলাম, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি খন্দকার মারুফ হুসাইন ইকবাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।
ডাঃ আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজে উদ্বোধন করেন উপাধ্যক্ষ মঞ্জুরুল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গভার্ণিং বডির সদস্য আব্দুল মতলেব বাবু, আবু মুসা মধু, আহবায়ক সুপ্রিয়া ঘোষ প্রমুখ।
শিক্ষাবোর্ড মডেল স্কুল এ্যন্ড কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ লে.ক. মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ কল্যাণ সরকার, আহবায়ক সুভ্র প্রকাশ হালদার প্রমুখ। এমএসটিপি গার্লস স্কুল এ্যান্ড কলেজে উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ খায়রুল আনাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী শিক্ষক জগদ্বীশ দাস, শিমুল মন্ডল প্রমুখ। সম্মিলিনী স্কুলে উদ্বোধন করেন প্রধান শিক্ষক মিহির কান্তি সরকার। এ সময় সব শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here