বাংলাদেশকে উড়িয়ে দাপুটে জয় আমিরাতের

0
12

ক্রীড়া প্রতিবেদক
পাকিস্তানে চলমান ইমার্জিং কাপের শুরুতেই বড় লজ্জাকে সঙ্গী করেছে বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-২৩ দল। ব্যাটে বলে বাজে পারফরম্যান্সে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হেরেছে নুরুল হাসান সোহানের দল।
করাচির সাউথল্যান্ড ক্লাব ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আরব আমিরাতের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ৪৯.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৬৭ রান করে আরব আমিরাত। জবাবে ব্যাট করতে নেমে কান্ডজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ে ১৭০ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। তাতেই ৯৭ রানের দাপুটে জয় পায় আরব আমিরাত। জয়ের জন্য ২৬৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে চরম ব্যাটিং ব্যর্থতার পরিচয় দেয় বাংলাদেশ। টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কেবল মিজানুর ৪৩ রান করতে সক্ষম হয়েছেন। বাকিরা ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। অধিনায়ক সোহান এবং মোসাদ্দেক হোসেন দুজনেই আউট হয়েছেন ০ রানে। জাকির আউট হন ৩ রান করে। ব্যর্থতার মিছিলে ছিলেন শান্ত। তিনি আউট হয়েছেন মাত্র ৮ রান করেই। মিডলঅর্ডার বালুর বাধের মতো ভেঙে পড়লেও শেষদিকে তাদের কিছুটা ব্যাটিং শিখিয়েছেন নবম ও দশম ব্যাটসম্যান হিসেবে নামা শফিউল ও শরিফুল ইসলাম। শফিউল ৩২ রান করে আউট হলেও ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন শরিফুল।
এরআগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশি বোলারদের বেশি ভুগিয়েছেন আরব আমিরাতের টপঅর্ডাররা। দলটির হয়ে সর্বোচ্চ ইনিংস খেলেছেন আশফাক আহমেদে। তবে সেঞ্চুরির জন্য মাত্র ২ রানের আক্ষেপ নিয়ে ফিরতে হয়েছে আমিরাতের এ ওপেনারকে। ৯৩ বলে ১৬ চার ও ১ ছক্কায় ৯৮ রান করেন তিনি। এছাড়া অধিনায়ক রোহান মুস্তফা ৪০, গোলাম সাব্বির ৫২ ও সায়মান আনোয়ার ৩৪ রান করেছেন। বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৪টি উইকেট নিয়েছেন শরিফুল ইসলাম। এছাড়া ৩টি উইকেট নেন খালেদ আহমেদ।

এশিয়ান জুনিয়র টেনিসের বালক এককে চ্যাম্পিয়ন রুমান
ক্রীড়া প্রতিবেদক
এশিয়ান অনুর্ধ্ব-১৪ সিরিজ টেনিস প্রযোগিতার বালক এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশের রুমান হাসান। গতকাল বৃহস্পতিবার রমনা জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে বালক এককের ফাইনালে রুমান ২-১ সেটে স্বদেশী মাহাদি হাসানকে পরাজিত করে।
বালক দ্বৈতের শিরোপা জিতেছে বাংলাদেশের মাহাদি। জোবায়েদ উৎসকে নিয়ে ফাইনালে ২-০ সেটে হারিয়েছে স্বদেশী রুমান-ফরহাদ জুটিকে। বালিকা এককের শিরোপা জিতেছে শ্রীলংকার সাজিদা রাজিক। ফাইনালে রাজিক ২-১ সেটে হারিয়েছে ভারতের খুশালি মোদীকে। বালিকা দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশের মাসফিয়া আফরীন ও শ্রীলংকার সাজিদা রাজিক। ফাইনালে তারা ২-০ সেটে হারিয়েছে ভারতের খুশালি মোদী ও জয়নব পাতেল জুটিকে।

নোফেলের কাছেও হারে মোহামেডান
ক্রীড়া প্রতিবেদক
দলটির নাম নোফেল (নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষীপুর) স্পোর্টিং ক্লাব। এ তিন জেলার কয়েকজন ক্রীড়া সংগঠক মিলে গত বছর দল গঠন করে নাম লিখিয়েছিল বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ (বিসিএল) লিগে। রানার্সআপ হয়ে প্রিমিয়ার লিগে প্রথমবারের মতো খেলছে দেশের শীর্ষ ফুটবল আসরে।
ক্লাব টেন্ট নেই, মাঠ নেই, অবকাঠামোও নেই। বলতে গেলে চালচুলাহীন এক দল নোফেল। সেই অখ্যাত ক্লাবটিই কিনা হারিয়ে দিলো দেশের ঐতিহ্যবাহী দল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে। গতকাল বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে নবাগত দলটির কাছে ২-০ গোলে হেরে স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায়ের শঙ্কায় সাদা-কালোরা। এটা মোহামেডান-নোফেল প্রথম সাক্ষাত নয়। ফেডারেশন কাপেও ছিল এক গ্রুপে। মোহামেডান জিতেছিল ২-০ গোলে। এক মাস তিন দিনের ব্যবধানেই মোহামেডানের বিরুদ্ধে মধুর প্রতিশোধ নিলো নতুন দলটি।

রহমতগঞ্জকে হারিয়ে শেষ আটে চট্টগ্রাম আবাহনী
ক্রীড়া প্রতিবেদক
টানা দুই ম্যাচ জিতে স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে গতবারের রানার্স-আপ চট্টগ্রাম আবাহনী। গতকাল বৃহ্স্পতিবার গাম্বিয়ার মিডফিল্ডার মোমদু বাহর লক্ষ্যভেদে তারা ১-০ গোলে হারিয়েছে রহমতগঞ্জকে। দুই ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে চট্টগ্রাম আবাহনী। সমান ম্যাচে একটি করে হার ও ড্রয়ে ১ পয়েন্ট রহমতগঞ্জের।
বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের ম্যাচের শুরুতে কিন্তু দাপট ছিল রহমতগঞ্জের। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো তারা। রহমতগঞ্জ সুযোগ নষ্ট করলেও ভুল করেনি চট্টগ্রাম আবাহনী। ৩৬ মিনিটে পাওয়া সুযোগটা কাজে লাগিয়ে এগিয়ে যায় গতবারের রানার্স-আপ। মিডফিল্ডার কৌশিক বড়ুয়ার কর্নারে হেড করে লক্ষ্যভেদ করেন গাম্বিয়ার ফরোয়ার্ড মোমোদু। দুই ম্যাচে এটি তার তৃতীয় গোল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল চট্টগ্রাম আবাহনীর। কিন্তু ডিফেন্ডার কেষ্ট কুমারের শট বারের ওপর দিয়ে গেলে তা আর হয়নি। দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি টাইমে সমতায় ফেরার ভালো সুযোগ পেয়েছিল রহমতগঞ্জ, কিন্তু কংগোলিজ ফরোয়ার্ড সিও জুনাপিওর ক্রস সাব্বির আহমেদের হেড হয়ে নেহালের গ্রিপে জমা পড়লে হতাশ হতে হয় তাদের।

মাঠে ফিরেই ঝড়ো সেঞ্চুরি তামিমের
ক্রীড়া প্রতিবেদক
সাভারের বিকেএসপিতে তিন নম্বর মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আগে ব্যাট করে দাঁড় করিয়েছিলে ৩৩১ রানের বিশাল সংগ্রহ। মনে হচ্ছিলো এতো রান করা হয়তো কঠিন হবে বিসিবি একাদশের জন্য।
কিন্তু বিসিবি একাদশে যে খেলছেন তামিম ইকবাল! তা হয়তো বুঝতে পারেনি ক্যারিবীয় বোলাররা। সফরকারী বোলারদের পিটিয়ে ছাতু বানিয়ে মাত্র ৭৩ বলে ১০৭ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেছেন তামিম। মাত্র ৩৪ বলে হাফসেঞ্চুরি পূরণ করার পরে সেঞ্চুরিতে যেতে তামিম খেলেছেন ৭০ বল। সেঞ্চুরির পরে ১টি ছক্কা হাঁকিয়ে রস্টন চেজের বোলিংয়ে স্টাম্পিং হন দেশসেরা এ ওপেনার। এর আগে হাফসেঞ্চুরিতে পৌঁছতে তামিম ৮টি বাউন্ডারির পাশাপাশি হাঁকান ১টি ছক্কা। পরে সেঞ্চুরি করতে যোগ করেন আরও পাঁচটি চার ও দুই ছক্কার মার। সবমিলিয়ে ১৩ চার ও ২ ছক্কার মারে ৭৩ বলে ১০৭ রান করেই থামেন তিনি।

বিজয় দিবস ভলিবল টুর্নামেন্ট শুরু রবিবার
ক্রীড়া প্রতিবেদক
বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় রবিবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ‘ওয়ালটন বিজয় দিবস ভলিবল টুর্নামেন্ট-২০১৮’। পল্টনস্থ শহীদ নূর হোসেন জাতীয় ভলিবল স্টেডিয়ামে ৯দিন ব্যাপী এই প্রতিযোগিতা চলবে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত।
প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত জানানোর জন্য আজ গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এবারের এই প্রতিযোগিতায় আটটি দল দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবে। প্রতিযোগিতার ‘ক’ গ্রুপে রয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ নৌবাহিনী, বাংলাদেশ পুলিশ এবং বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স। ‘খ’ গ্রুপে রয়েছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, তিতাস ক্লাব, বাংলাদেশ বিমানবাহিনী, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী ও বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)।

ইয়াসির শাহ’র বিশ্বরেকর্ড
ক্রীড়া প্রতিবেদক
বিশ্বরেকর্ড গড়তে পারতেন প্রথম ইনিংসেই। কিন্তু তাকে সুযোগ না দিয়ে বিলাস আসিফ পাঁচ উইকেট নিয়ে নেয়ায় অপেক্ষা বাড়ে মাইলফলকের। তবে খুব বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি পাকিস্তানের লেগস্পিনার ইয়াসির শাহকে। ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসেই করে ফেলেছেন বিশ্বরেকর্ড।
তৃতীয় দিন শেষ বিকেলে টম লাথামকে আউট করে থেমেছিলেন ১৯৯’তে। পরদিন সকালে এসেই অভিষিক্ত উইলি সমারভিলকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন ইয়াসির শাহ। পূরণ করেন নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের ২০০ উইকেট। তাও কি-না মাত্র ৩৩ ম্যাচে। দ্রæততম ২০০ উইকেট নেয়ার বিশ্বরেকর্ড এটিই। বিশ্বরেকর্ড গড়ার পথে ইয়াসির শাহ ভেঙেছেন ক্ল্যারি গ্রিমেটের ৮২ বছর পুরনো রেকর্ড। অস্ট্রেলিয়ার এ লেগস্পিনার ১৯৩৬ সালে মাত্র ৩৬ টেস্ট খেলে নিয়েছিলেন ২০০ উইকেট। যে রেকর্ড টিকে ছিলো পুরো ৮২ বছর। পাকিস্তানি লেগস্পিনার তিন ম্যাচ কম খেলেই ভেঙে দিলেন সে রেকর্ড।

পূজারা একাই টেনে নিলেন ভারতকে
ক্রীড়া প্রতিবেদক
চেতেশ্বর পূজারা একাই লড়লেন, ভারতকে টেনে তুলতে যথাসাধ্য চেষ্টা করলেন। সেই লড়াইয়ে অনেকটাই সফল ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। তার দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ভর করেই বিপর্যয়ে পড়া ভারত অ্যাডিলেড টেস্টের প্রথম দিন শেষ করেছে ৯ উইকেটে ২৫০ রান নিয়ে।
টস ভাগ্যটা ভারতের পক্ষেই ছিল। অ্যাডিলেডের পিচ সাধারণত ব্যাটিং বান্ধব হয়, সে ভাবনা থেকেই হয়তো আগে ব্যাট করা। তবে অধিনায়ক কোহলির সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা দেখাতে পারেননি ভারতের ব্যাটসম্যানরা। অজি বোলারদের তোপে ১৩ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে সফরকারি দল, একটা সময় ১২৭ রানের মধ্যে ৬ ব্যাটসম্যান হারিয়ে দেড়শোর আগেই অলআউট হওয়ার শঙ্কায় ছিল সফরকারিরা।

অধিনায়কের সেঞ্চুরিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে কিউইরা
ক্রীড়া প্রতিবেদক
আবুধাবি টেস্টের চতুর্থ দিনে ম্যাচের দখল পুরোপুরি নিজেদের হাতে নিয়ে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। তৃতীয় দিন শেষে মনে হচ্ছিলো কিউইদের ব্যাটিং অর্ডার গুঁড়িয়ে দেবে পাকিস্তান। কিন্তু তা হতে দেননি কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং হেনরি নিকলস।
চতুর্থ দিন শেষে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২৭২ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে তাদের লিড গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৯৮ রানে। অধিনায়ক উইলিয়ামসন ১৩৯ ও নিকলস ৯০ রানে অপরাজিত রয়েছেন।
দিনের শুরুতেই নাইটওয়াচম্যান উইলি সমারভিলকে সাজঘরে পাঠিয়ে দ্রæততম দুইশ উইকেট শিকারের বিশ্বরেকর্ড গড়েন পাকিস্তানের লেগস্পিনার ইয়াসির শাহ। দলীয় ৬০ রানের মাথায় রস টেলরকে ফেরান অভিষিক্ত শাহীন শাহ আফ্রিদি। এরপরের গল্পটা পুরোটাই উইলিয়ামসন ও নিকলসের ব্যাটে লেখা। প্রথম সেশন থেকে শুরু করে দুজন অবিচ্ছিন্নভাবে খেলেছেন একদম দিনের শেষপর্যন্ত। দুজনের জুটিতে ২১২ রান এসেছে প্রায় ৮০ ওভার ব্যাটিং করে।
ক্যারিয়ারের ১৯তম টেস্ট সেঞ্চুরি করে উইলিয়ামসন অপরাজিত রয়েছেন ১৩৯ রান করে। ২৮২ বলের এ ইনিংসে ১৩টি চার মেরেছেন তিনি। অন্যদিকে ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরির অপেক্ষায় থাকা নিকলস ৯০ রান করতেই খেলেছেন ২৪৩টি বল।

দক্ষিণ আফ্রিকা দলে নতুন মুখ জুবায়ের হামজা
ক্রীড়া প্রতিবেদক
পাকিস্তানের বিপক্ষে আসন্ন তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের জন্য ১৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন ২৩ বছর বয়সী ডানহাতি ব্যাটসম্যান জুবায়ের হামজা। এছাড়া ফেরানো হয়েছে ডুয়েন অলিভিয়েরকে। সেঞ্চুরিয়নের সুপার স্পোর্ট পার্কে বক্সিং ডে’তে ২৬ ডিসেম্বর প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকা। সে ম্যাচেই অভিষেক হওয়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে হামজার। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে সবশেষ মৌসুমে ৬৯ গড়ে ৮২৩ রান করেছেন তিনি।
দক্ষিণ আফ্রিকা স্কোয়াড : ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), হাশিম আমলা, টেম্বা বাভুমা, থিউনিস ডি ব্রাউন, কুইন্টন ডি কক, ডিন এলগার, জুবায়ের হামজা, কেশভ মহারাজ, এইডেন মারক্রাম, ডুয়েন অলিভিয়ের, ভারনন ফিল্যান্ডার, কাগিসো রাবাদা ও ডেল স্টেইন।

চেলসির বিপক্ষে উলভসের দুর্দান্ত জয়
ক্রীড়া প্রতিবেদক
পচা শামুকে পা কাঁটা বুঝি একেই বলে। উড়তে থাকা চেলসি হঠাৎ করেই যেন খেই হারিয়ে ফেলল প্রিমিয়ার লিগে। উলভারহ্যাম্পটনের বিপক্ষে তাদের মাঠেই ২-১ ব্যবধানের হার বরণ করে নিল সারির দল। প্রিমিয়ার লিগে এটি চেলসির দ্বিতীয় পরাজয়।
অথচ ম্যাচের শুরুতেই লফটাস চেকের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল চেলসি। এডিন হ্যাজার্ডের কাছ থেকে বল পেয়ে ডি বক্সের বাইরে থেকে দূর পাল্লার জোরালো শটে গোল করে চেলসিকে ০-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন এই ইংলিশ মিডফিল্ডার। প্রথমার্ধে দু’দল গোলের চেষ্টা করলেও কোন গোল করতে পারেনি।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই ঘরের মাঠের সুবিধা নিয়ে দারুণ খেলতে থাকে উলভস। ৫৯ মিনিটে উলভস স্ট্রাইকার রাউল হেমিনেজ দুর্দান্ত শটে চেলসি গোলরক্ষক কেপাকে পরাস্ত করেন। সমতায় ফিরে যেন আরো বেশি উজ্জীবিত উলভস। ৬৩ মিনিটে ডান পাশ থেকে দোহার্টির ক্রস সবাইকে ফাঁকি দিয়ে ডিয়েগো জোতার পায়ে আসলে সেটিকে গোলে পরিণত করেন এই ফুটবলার। ম্যাচের বাকিটা সময় গোলের আপ্রাণ চেষ্টা করলেও কোন গোল করতে পারেনি হাজার্ড-মোরাতারা। এই হারে টেবিলের ৪ নম্বরে নেমে গেল সারির দল।

কোপা দেলরের শেষ ষোলোতে বার্সেলোনা
ক্রীড়া প্রতিবেদক
দলের মূল তারকাদের বিশ্রামে রেখে খুব সহজেই তৃতীয় বিভাগের ক্লাব লেওয়ানেসেকে ৪-১ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে কোপা দেলরের শেষ ষোলোতে উঠে গেল বার্সেলোনা। দলের হয়ে জোড়া গোল করেছেন ডেনিস সুয়ারেজ। তাছাড়া একটি করে গোল করেন ম্যালকম এবং মুনির। মেসি, সুয়ারেজ, পিকে, কৌতিনহো, ডেম্বলেসহ দলের মূল খেলোয়াড়দের এদিন বিশ্রামে রাখেন কোচ ভালভার্দে। ইনজুরির দরুণ দলে ছিলেন না ভিদাল, আর্থার, উমতিতিরা। তবুও ঘরের মাঠে জয় পেতে তেমন অসুবিধা হয়নি বার্সেলোনার।
প্রথম লেগে লেওয়ানেসের মাঠে ০-১ ব্যবধানের জয়ে শেষ ষোলোতে এক পা দিয়ে রেখেছিল বার্সা। এই ম্যাচে মাঠের নামার ১৮ মিনিটের মাথাতেই গোলের সূচনা করে বার্সেলোনা। ডি বক্সের বাইরে থেকে রাকিতিচের কাছ থেকে বল পেয়ে মুনির আল হাদ্দাদি ডান পায়ের কোণাকুণি শটে বার্সাকে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন। ২৬ মিনিটে বার্সাকে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন ডেনিস সুয়ারেজ। এবার ডি বক্সের বাইরে থেকে দূরপাল্লার বাকানো শটে গোল করেন এই স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার মিনিট দুয়েক আগে বার্সাকে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ম্যালকম। এবারও বলের যোগানদাতা সেই রাকিতিচ। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে অবশ্য গোল খেয়ে বসে বার্সা। ৫৪ মিনিটে এক গোল শোধ দেয় লেওয়ানেসের সেনে। কিন্তু ৭০ মিনিটে ডেনিস সুয়ারেজ আরো একটি গোল করে লেওয়ানেসকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেন। ৪-১ গোলের বিশাল জয়ে শেষ ষোলোতে পা রাখলো ভালভার্দের দল।

পিএসজির টানা ড্র
ক্রীড়া প্রতিবেদক
নতুন মৌসুমে অবিস্মরণীয় শুরুর পর পিএসজি রবিবার ২-২ গোলে ড্র করে বোর্দোয়ার বিপক্ষে। আবারও তারা হোঁচট খেল স্ট্রাসবোর্গের কাছে, যারা কিনা আগের পাঁচ ম্যাচে জিতেছে মাত্র একবার।
আক্রমণভাগে নেইমার, কাইলিয়ান এমবাপে ও আনহেল দি মারিয়াকে ছাড়া এদিন মাঠে নামে পিএসজি। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার চার মিনিট আগেই পিছিয়ে পড়ে তারা। বক্সের মধ্যে বল হাতে লাগলে ভিডিও দেখে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। স্বাগতিক রাইট ব্যাক কেনি লালা পিএসজি গোলরক্ষককে ভুল দিকে পাঠিয়ে গোলমুখ খোলেন। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে পিএসজি মাঠে আনে এমবাপেকে। এই ফরাসি ফরোয়ার্ড ব্রেকথ্রু আনেন। ৭১ মিনিটে তাকে বক্সের মধ্যে ফেলে দেন লালা। এদিনসন কাভানি পেনাল্টি শট নেন এবং সমতা ফিরিয়ে স্বস্তি আনেন সফরকারী দর্শকদের মনে। আদ্রিয়েন থোমাসনের হেডে ইনজুরি সময়ে পিএসজির জালে বল ঢুকিয়ে স্ট্রাসবোর্গ উল্লাসে মাতার আগেই লাইন্সম্যান অফসাইডের বাঁশি বাজান।

চৌগাছায় প্রীতি ব্যাডমিন্টন খেলা
যশোর অফিস
যশোরের চৌগাছায় অফিসার্স ক্লাবের উদ্যোগে প্রীতি ব্যাডমিন্টন প্রতিযেগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাহী কর্মকর্তার সার্বিক সহযোগীতায় বুধবার রাতে উপজেলা চত্ত¡রে এই টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাগন ৬টি গ্রæপে ভাগ হয়ে প্রতিযোগীতায় অংশ নেয়। খেলায় বিআরডিবি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ ও যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার গঠিত ডি গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। আর রানারআপ হয় উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কামাল আহমেদ গঠিত সি গ্রæপ। খেলাটি পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মারুফুল আলম। খেলা শেষে বিজয়ী ও রানারআপ দলের হাতে পুরস্কার হিসাবে বই তুলে দেন নির্বাহী কর্মকর্তা। উল্লেখ্য, বছরের পর বছর অফিসার্স ক্লাব ব্যবহার না করায় প্রায় পরিত্যাক্ত হয়ে যায়। নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা মরুফুল আলম এখানে যোগদানের পর অফিসার্স ক্লাবকে আগের দিনে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছেন। তারই ধারাবাহিকতায় ক্লাবের নামে বুধবার সকল অফিসারদের সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত হলো প্রীতি ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগীতা। ক্লাবকে ঘিরে এ ধরনের খেলাধুলাসহ নানা ধরনের সামাজিক কাজ অব্যহত থাকবে বলে জানান নির্বাহী অফিসার মারুফুল আলম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here