সকল জাতীয় সংবাদ

0
22

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর
স্টাফ রিপোর্টার
ভারত আজ আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্ব-পাকিস্তানের স্বাধীনতাকামী বাংলাদেশ সরকারকে স্বীকৃতি দেয়। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ জানায়, ভারতীয় সেনারা দ্রæত পূর্ব-পাকিস্তানের অভ্যন্তরে অগ্রসর হচ্ছে, পাকিস্তানি লক্ষ্য বস্তুতে সফলভাবে তীব্র বিমান হামলা করা হচ্ছে। খুব দ্রæত বিজয়ের আশা করা হচ্ছে। ইউনাইটেড প্রেস ইন্টারন্যাশনালের খবর।
ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আরো জানায়, দক্ষিণ কাশ্মীরের যুদ্ধে ভারতীয় সেনারা পাকিস্তানি ট্যাংক বাহিনীকে পরাজিত করেছে। ধ্বংস করা হয়েছে ২৩টি পাকিস্তানের ট্যাংক । বিমান হামলা চালানো হয়েছে করাচির উপকূলে। সেখানে অবস্থানরত পাকিস্তানি নৌ-বাহিনীর ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়েছে। অপরদিকে পাকিস্তান রেডিও জানিয়েছে, পাকিস্তানি সেনারা সীমান্তবর্তী ২০ টি ভারতীয় পোস্ট দখল করেছে, ভারতীয় সামরিক লক্ষ্য বস্তুতে ব্যাপক বিমান হামলা চালানো হয়েছে এবং পশ্চিম কাশ্মীরের পুঞ্চ সেক্টরে পাকিস্তানি সেনারা বিজয় অর্জন করেছে।
ভারতীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পূর্ব-পাকিস্তানে পাকিস্তান অধিকৃত বন্দরগুলোতে ভারত বিমান হামলা চালিয়েছে। পূর্ব-পাকিস্তানকে পশ্চিম-পাকিস্তান হতে কার্যত বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে ভারতীয় সেনারা, পূর্ব-পাকিস্তানের রাজধানী ঢাকার রসদ সরবরাহের পথগুলো বর্তমানে ভারতীয় সেনাদের অধিকারে, রাজধানী ঢাকা বর্তমানে পাকিস্তানের অন্য অবস্থানগুলো হতে বিচ্ছিন্ন।
ভারতীয় বিমান সেনারা আজ ঢাকার আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে দুই দফা হামলা চালিয়েছে। সে সময় জাতিসংঘের তত্ত¡াবধানে ঢাকা ছেড়ে যাওয়ার জন্য অবস্থানরত ১০ জন ব্রিটিশ নারী-শিশু সেখানে অবস্থান করলেও তাদের কোন ক্ষতি হয়নি। প্রায় দুইশ ৫০ জন মার্কিনসহ অনেক উদ্বাস্তু ঢাকার ইন্টার-কন্টিনেন্টাল হোটেলে আশ্রয় নিয়েছেন। হোটেলের করিডোরেও আশ্রয় নিয়েছেন অনেকে। জাতিসংঘ দুই ঘন্টার যুদ্ধ বিরতির অনুরোধ জানিয়েছে, যাতে ব্যাংকক থেকে জাতিসংঘের দুটি বিমান এদের উদ্ধার করতে পারে।
স্বাধীনতাকামী বাংলাদেশ সরকারকে ভারতের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্তটি নয়াদিল্লিতে ভারতের সংসদে ঘোষণা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর এই সংক্রান্ত ভাষণ শেষ হওয়ার পূর্বেই সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়ে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।
এই বছরের (১৯৭১) মার্চে পূর্ব-পাকিস্তান তথা বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী আন্দোলনকে নস্যাত্ করার জন্য পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আগা মুহম্মদ ইয়াহিয়া খানের আদেশে পশ্চিম-পাকিস্তানের সেনারা পূর্ব-পাকিস্তানে প্রবেশ করে। এরপর বহু ঘটনার পরিক্রমায় ফলশ্রæতিতে ভারত-পাকিস্তানের এই যুদ্ধের সূচনা হয়েছে।
পূর্ব-পাকিস্তানের রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ গত বছরের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। কিন্তু ইয়াহিয়া খান লীগের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেননি। ফলশ্রুতিতে পূর্ব-পাকিস্তান তথা বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধ শুরু হয়। পাকিস্তানি আক্রমণের মুখে প্রায় এক কোটি শরণার্থী ভারতে আশ্রয় নেয়। ভারত এই শরণার্থী ইস্যুটিকে জাতীয় নিরাপত্তার বিষয় হিসেবে বিবেচনা করে এবং বাংলাদেশের প্রতি নৈতিক সমর্থন প্রকাশ করে।
সংসদে আজ ইন্দিরা গান্ধী বলেছেন, পাকিস্তানিরা আমাদের ওপর যুদ্ধ চাপিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়ে ভারতের বিবেচনার আর কোন কারণ নেই। এদিকে পাকিস্তান ভারতের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বন্ধ করে দিয়েছে। ভারতীয় সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল জে এফ আর জ্যাকব আজ কলকাতায় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ভারতীয় সেনারা পূর্ব-পাকিস্তানের অভ্যন্তরে দ্রæত অগ্রসর হচ্ছে। ভারতীয় বিমান বাহিনী পূর্ব-পাকিস্তানের আকাশ পথের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।
বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী সরকারের দুই জন নেতা অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ও প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ বাংলাদেশকে ভারতের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি প্রদানের বিষয়ে কথা বলতে আজ নয়াদিল্লিতে গিয়েছেন।
পত্রিকা পরিচিতি:‘দ্য আওয়ার’ যুক্তরাষ্ট্রের কননেক্টিকাট স্টেট হতে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা। হার্স্ট মিডিয়া সার্ভিসেস পত্রিকাটির প্রকাশক। ১৮৭১ সাল থেকে পত্রিকাটি প্রকাশিত হচ্ছে।

‘হংসবলাকা’ পরিদর্শন প্রধানমন্ত্রীর
ঢাকা অফিস
ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দ্বিতীয় বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টারমাকে হংসবলাকা নামের এই বিমান পরিদর্শন ও এতে আরোহন করেন। তিনি ককপিটসহ বিমানটির বিভিন্ন অংশ ঘুরে ঘুরে দেখেন ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় জাতির অব্যাহত সুখ, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করা হয়।
বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামাল, মন্ত্রণালয়টির জাতীয় সংসদে স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মুহাম্মাদ ফারুক খান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও বিমানের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
নতুন এই বিমান পহেলা ডিসেম্বর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে এবং প্রধানমন্ত্রী এর নাম দেন হংসবলাকা। যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটেলের বোয়িং ফ্যাক্টরি থেকে টানা ১৫ ঘণ্টা উড্ডয়নের পর বিমানটি পহেলা ডিসেম্বর রাত ১১টা ৪০ মিনিটে শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছায়। এর আগে ২৯ নভেম্বর সিয়াটলে বোয়িং কর্তৃপক্ষ বিমানের পরিচালক (ফ্লাইট অপারেশন) ক্যাপ্টেন ফারহাত হাসান জামিলের কাছে নতুন এই বোয়িং ড্রিমলাইনারের স্বত্ব হস্তান্তর করে। এই নতুন বিমান ১০ ডিসেম্বর ঢাকা-লন্ডন রুটে প্রথম যাত্রা করবে। এর আগে আকাশ বীনা নামে প্রথম ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার ১৯ আগস্ট বাংলাদেশে পৌঁছায়। আধুনিক মডেলের এই বিমানের মাধ্যমে বিমান পরিবহনে নতুন যুগের সূচনা হয়। পহেলা সেপ্টেম্বর বিমানটির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
বিমান কর্মকর্তারা জানান, ১০ ডিসেম্বর থেকে এই দুই ড্রিমলাইনার সপ্তাহে ঢাকা-লন্ডন রুটে ৬টি, ঢাকা-দাম্মাম রুটে ৪টি এবং ঢাকা-ব্যাংকক রুটে ৩টি ফ্লাইট পরিচালনা করবে। অন্যান্য বিমানের চেয়ে ২০ শতাংশ জ্বালানি সাশ্রয়ী ২৭১ আসনের এই বোয়িং ঘণ্টায় ৬৫০ মাইল গতিতে একটানা ১৬ ঘণ্টা উড্ডয়ন করতে পারে। এতে ৪৩ হাজার ফুট উঁচুতেও ওয়াইফাইয়ের ব্যবস্থা রয়েছে।
২০০৮ সালে বাংলাদেশ ও বোয়িংয়ের মধ্যে ২.১ বিলিয়ন ডলারে ১০টি নতুন ড্রিম লাইনার কেনার চুক্তি হয়। এর মধ্যে ৭৭৭-৩০০ইআর-এর ৪টি, ৭৩৭-৮০০-এর দুটি হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আরো দু’টি ড্রিমলাইনার রাজহংস ও শঙ্খচিল আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিমান বহরে যুক্ত হবে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান। খবর বাসস

প্রার্থিতা ফেরত পেতে ৫৪৩টি আপিল আবেদন
আপিলকারীদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, চলচ্চিত্র তারকা সোহেল রানা, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের রেজা কিবরিয়া, বিএনপির মীর নাছির উদ্দিন, গোলাম মওলা রনি, গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারও রয়েছেন।
আসাদুজ্জামান ইমন,ঢাকা
একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে, তাদের বেশিরভাগই প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিলের আবেদন করেছেন ইসিতে।
আপিলকারীদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, চলচ্চিত্র তারকা সোহেল রানা, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের রেজা কিবরিয়া, বিএনপির মীর নাছির উদ্দিন, গোলাম মওলা রনি, গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারও রয়েছেন।
আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় এই নির্বাচনে অংশ নিতে মোট ৩ হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল। গত ২ নভেম্বর বাছাইয়ের পর নানা কারণে ৭৮৬টি বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।
রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ইসিতে আপিল করার সুযোগ ছিল তিন দিন। ঢাকার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে এসে এই আপিল করেন সংক্ষুব্ধরা। প্রথম দিন ৮৪ জন আপিল করেছিলেন। দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার ২৩৭ জন আপিল করেন, শেষ দিন বুধবার ২২২টি আপিল জমা পড়ে। সব মিলিয়ে আপিলকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৪৩টি। এখন এই আপিল আবেদন নিয়ে শুনানিতে বসবে ইসি; বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার এ তিন দিনে সব আপিল আবেদন শুনানি শেষে নিষ্পত্তি করা হবে।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এ আপিল শুনানি নেবেন। আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে ১১ তলায় এ লক্ষ্যে এজলাস তৈরির কাজও শেষ হয়েছে।
আপিল করার সময় শেষ হওয়ার পর বুধবার সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “৩-৫ ডিসেম্বর নির্ধারিত সময়ে ৫৪৩টি আপিল আবেদন আমরা পেয়েছি। পুরো কমিশন ৬-৮ ডিসেম্বর তা শুনবে। শুনানি শেষে আপিলের রায় সঙ্গে সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হবে।”
ইসি সচিব জানান, আপিল আবেদনের ক্রমিক ১-১৬০ নম্বর পর্যন্ত শুনানি চলবে বৃহস্পতিবার, ১৬১-৩১০ নম্বরের শুনানি শুক্রবার এবং ৩১১ থেকে ৫৪৩ নম্বরের শুনানি হবে শনিবার। সে হিসাবে খালেদা জিয়ার আপিল আবেদনের শুনানি শেষ দিন শনিবার হতে পারে।
দৈনিক সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত কর্মসময় হিসাব করলে তিন দিনে শুনানির সময় দাঁড়ায় ৩৬ ঘণ্টা; সেই হিসেবে প্রতিটি আপিল নিষ্পত্তিতে গড়ে ৪ মিনিটেরও কম সময় পাওয়া যাবে।
প্রথম দিনে ১৬০টি আপিল শুনানির জন্য রাখা হয়েছে, ওই দিন প্রতিটি শুনানি করতে গড়ে সাড়ে ৪ মিনিট করে সময় লাগবে। তবে ইসি সচিব বলেন, প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে সবার শুনানি শেষ করা হবে। যতক্ষণ লাগবে ততক্ষণ শুনানি চলবে।
এবার ৭৮৬টি বাতিল মনোনয়নপত্রের মধ্যে ৩৮৪টি স্বতন্ত্র প্রার্থীদের। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অধিকাংশই ১ শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর গড়মিলের কারণে বাদ পড়েছে; তাদের ক্ষেত্রে শুনানিতে সময় কম লাগবে বলে ইসি কর্মকর্তারা জানান।
রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের মধ্যে ঋণ খেলাপ, বিল খেলাপ ও স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি মিলিয়ে অন্তত ১৩০ জন আপিলকারী রয়েছেন। বাকিদের দলীয় প্রত্যয়ন না থাকা, হলফনামায় মিথ্যা তথ্য দেওয়াসহ হরেক রকমের আইনি ব্যত্যয় রয়েছে। সেক্ষেত্রে ৫৪৩টি আবেদন শুনতে তিন দিন পর্যাপ্ত বলে মনে করেন ইসি কর্মকর্তারা। ৫৪৩টি আবেদনের মধ্যে অধিকাংশই মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে। তবে প্রার্থিতা বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে কতজন এবং দলভিত্তিক তথ্য জানাতে পারেনি ইসি।
রায়ে সার্টিফাইড কপি সরবরাহের বিষয়ে ইসি সচিব বলেন, যাদের আপিল আবেদন নামঞ্জুর হবে (অর্থাৎ রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে) তাদের রায়ের নকল কপি যেন দ্রæত দেওয়া হয় সে ব্যবস্থা থাকবে।
আপিল নিষ্পত্তির পর ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় নির্ধারিত রয়েছে। এরপর প্রতীক বরাদ্দ শেষে শুরু হবে ভোটের প্রচার। ৩০ ডিসেম্বর হবে ভোটগ্রহণ। দশম সংসদ নির্বাচন অধিকাংশ দল বর্জন করলেও একাদশ সংসদ নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলই অংশ নিচ্ছে।

অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছে ক্ষমতাসীনরা: ড.কামাল
ঢাকা অফিস
বিরোধী দলগুলো নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখা নিয়ে ‘অনিশ্চয়তায়’ পড়েছে বলে মনে করেছেন কামাল হোসেন। নির্বাচনে কারচুপির শঙ্কা প্রকাশ করে তা ঠেকাতে জনগণকে সজাগ থাকার আহŸান জানিয়েছেন তিনি।
বিএনপিসহ বিরোধী জোটের নির্বাচন বর্জনের মধ্য দিয়ে পাঁচ বছর আগের দশম সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করেছিল আওয়ামী লীগ। ওই নির্বাচনে দেড়শ’র বেশি আসনে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগ ও তাদের জোট শরিক দলগুলোর নেতারা। এবারও নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি পূরণ না হলেও কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দল। এতেই আওয়ামী লীগ ও তার জোট শরিকরা সমস্যায় পড়ে গেছে বলে মনে করছেন কামাল হোসেন।
গতকাল বুধবার বিকালে পুরানা পল্টনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অস্থায়ী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আমরা এটা অনুভব করছি, সরকার অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেছে। তাদের প্রথম তো ধারণা ছিল যে, ২০১৪ সালের মতো যেনতেনভাবে একটা নির্বাচন করে কাটিয়ে দিল। এবারও আমরা অপ্রস্তত, আমরা কেউ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব না তারা আরো পাঁচবছর এভাবে পেয়ে যাবে। যখনই আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম, না আমরা নির্বাচনে সবাই মিলে আসছি। তখন থেকে দেখছি যে, তাদের মধ্যে একটা অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে।
সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সংবাদমাধ্যমের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রত্যাশা করে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা কামাল বলেন, আপনারা জনগণের যে ভোটাধিকার সেই ভোটাধিকার পাহারা দেবেন। স্বাধীন নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক এটা আপনারা পাহারা দিলে আমরা আশা করি, সরকারের যত রকমের অপচেষ্টা হয়, সেটাকে মোকাবিলা করে মানুষের যেটা প্রাপ্য অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন সেটা আদায় করা যাবে।
সেটা ঐতিহাসিক ঘটনা ঘটবে যে, দেশের মানুষ আবার তার অধিকার ও ক্ষমতা ফিরে পেয়েছে। এই কারণে আমি আপনাদের কাছে এই আবেদনটা রাখছি।
বর্তমান বাংলাদেশ জনগণের ‘নিয়ন্ত্রণে নেই’ মন্তব্য করে প্রবীণ এই আইনজীবী বলেন, নাগরিকরা, যেভাবে তাদেরকে সরিয়ে রাখা হয়েছে, এই যে সংসদ বলা হয় এটা কোনোভাবে সংসদ নয়। এটা অনির্বাচিত ঘোষিত সংসদ। এখন এসব থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য অনেক দিন ধরে আমরা এটার অপেক্ষায় আছি। এবার সুযোগ এসেছে, এটা থেকে মুক্ত হতে পারব। সারা দেশের মানুষ জাগ্রত। জাগ্রত জনতা দাঁড়িয়ে নিজের ভোটাধিকারের মধ্য দিয়ে মালিকানা আবার পুনরুদ্ধার করবে- এটা আমরা বিশ্বাস করি।
মানুষ ভোট দেওয়ার জন্য আগ্রহী হয়ে আছে মন্তব্য করে কামাল হোসেন বলেন, সেই ভোটটা যেন দিতে পারে, স্বাধীনভাবে দিতে পারে-এটা সকলের আকাঙ্ক্ষা। যেখানে দেখবেন যে, সরকারের লোকজন আইন লংঘন করছে, পক্ষপাতিত্ব করছে- এটা সঙ্গে সঙ্গে জনগণের সামনে তুলে ধরা। স্বাধীন নিরপেক্ষ নির্বাচনকে হস্তক্ষেপের অপচেষ্টা চলছে। আপনারা যদি সতর্ক থাকেন, আপনারা যদি সক্রিয়ভাবে ভূমিকা পালন করেন অনেকাংশে এসব চেষ্টা ঠেকানো যাবে, সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন তিনি।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের কার্যক্রমের ওপর নজর রাখার জন্যও সংবাদমাধ্যমের প্রতি অনুরোধ রাখেন তিনি।
পুরানা পল্টনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অস্থায়ী কার্যালয়ে কার্যক্রম শুরুর পর এই প্রথম এলেন কামাল হোসেন। এ সময় জেএসডির আ স ম আবদুর রব, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, রেজা কিবরিয়া, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মো. মনসুর আহমেদ, বিএনপির বরকত উল্লাহ বুলু, আবদুস সালামসহ অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

মিথ্যা তথ্য দিলে অভিযোগকারীর বিচার হবে: সিইসি
ঢাকা অফিস
নির্বাচনসংক্রান্ত মিথ্যা তথ্য দিয়ে অভিযোগ দিলে সংশ্লিষ্ট অভিযোগকারীর বিচার হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি)। গতকাল বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নির্বাচন তদন্ত কমিটির (ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটি) বিচারকদের ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।
সিইসি বলেন, যিনি আপনাদের কথা শুনবেন না পেনাল কোডের ১৯৩ ধারা মতে তাদের ৭ বছরের জেল হবে, যদি মিথ্যা তথ্য দেয় এবং আপনাদের আদেশ না মানে, পেনাল কোডের ২২৮ ধারা অনুসারে তাদের বিচার হবে। তার মানে হলো, কোড অব সিভিল প্রসিডিউরের ১৯০৮-এর সম্পূর্ণ শক্তি নিয়ে আপনারা মাঠে অবস্থান করবেন।
ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটির সদস্য ২৪৪ জন যুগ্ম জেলা জজ ও দায়রা জজ এবং সহকারী জজ ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন।
কে এম নুরুল হুদা বলেন, আপনাদেরকে ভিজিবল (দৃশ্যমান) হতে হবে। তার মানে আপনারা এখন পর্যন্ত কিন্তু ভিজিবল হননি। বাস্তবতা হলো সেটা। ভিজিবল যখন হবেন, আপনাদের কাজের মাধ্যমে যখন আস্থা রাখবে, আপনাদেরকে যখন চিনবে, তখন থেকে আপনাদের ওপর দায়িত্ব আসবে। তখন আর নির্বাচন কমিশনে শত শত অভিযোগ আসবে না। আমরা প্রত্যেক দিন শত শত অভিযোগ পাই। কিন্তু অভিযোগগুলো আমাদের কাছে আসার কথা না। কারণ আপনারা সেখানে (মাঠ পর্যায়ে) রয়েছেন। আমরা কী করব? অভিযোগগুলো আপনাদের কাছে পাঠিয়ে দেব। প্রজাতন্ত্রের যাঁরা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী তাঁদের প্রত্যেকের ওপর কোনো না কোনোভাবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। এটা ২০০৮ সাল থেকে শুরু হয়েছে।’
কমিটির সদস্যদের প্রো-অ্যাকটিভ ও ভাইব্রেন্ট হওয়ার নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, ‘ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটিকে প্রো-অ্যাকটিভ হতে হবে, ভাইব্রেন্ট হতে হবে এবং আপনাদেরকে জানাতে হবে, তাঁদের সাহায্য সহযোগিতা করার জন্য আপনারা আছেন। ৩০০টি আসনের মধ্যে ১২২টি জায়গায় আপনারা তাদের কাছাকাছি আছেন। তারা যেন সমস্যার সমাধান পায় এটা আপনাদেরকে দেখতে হবে।
ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটির বিচারকদের সম্পূর্ণ শক্তি নিয়োগের নির্দেশ দিয়ে সিইসি বলেন, বিচারকদের সমন্বয়ে প্রতি জেলায় নির্বাচন কমিশন নির্বাচনী তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিকে নির্বাচন আচরণবিধি প্রতিপালনসহ অপরাধ আমলে নিয়ে বিচারকাজ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সেই দায়িত্ব সুন্দরভাবে পালন করতে হবে। প্রার্থীর অভিযোগ আমলে নিয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে। এ জন্য বিচারকদের আরও সক্রিয় হতে হবে।
সিইসি বলেন, আপনারা আপনাদের করণীয় যথাযথভাবে পালনের মাধ্যমে মানুষের অভিযোগ শুনবেন, আমলে নেবেন। যেন অভিযোগ ঢাকা পর্যন্ত না আসে, এলাকায় বসে সমাধান পেতে হবে।

ইসি পুনর্গঠনের অবস্থা এখন আর নেই : কাদের
ঢাকা অফিস
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে কমিশন পুনর্গঠনের বাস্তবসম্মত অবস্থা নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘এখন যারা নির্বাচন কমিশনকে পুনর্গঠনের কথা বললেন। তারা নির্বাচন বানচালেরই চেষ্টা করছে। কমিশন পুনর্গঠনের কোন বাস্তব সম্মত অবস্থা নেই। গতকাল বুধবার সকালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন নেতার মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন।
বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মনোনয়ন বাতিল করে সরকার পুতুল নাচের খেলা আয়োজন করেছে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের মনোনয়ন প্রক্রিয়াটাই একটা পুতুল নাচের খেলা। সরকার কেন করবে, নির্বাচন কমিশন কি সরকার?
তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন স্বাধীন আচরণ করে যাচ্ছে। পুতুল নাচের খেলা, যেমনি নাচাও তেমনি নাচে। কামাল হোসেন তো নামকাওয়াস্তে নেতা, অনেক দুঃখে কষ্টে নির্বাচনটাই করছেন না। নেতাও নেই মাথাও নেই এই দলকে কে ভোট দেবে। মানুষ জিজ্ঞেস করবে কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? কি জবাব দেবেন মির্জা ফখরুল সাহেব! যখন নির্বাচন কমিশন তাদের পক্ষে না থাকে তখন তো নির্বাচন কমিশন সৎ মা হয়ে যায়।
সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে নির্বাচন কমিশন ধানের শীষের মনোনয়ন বাতিল করেছে বিএনপির এমন অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করেন সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘তথ্যপ্রমাণ দিয়ে তাদেরকে এটা বলতে হবে যে, এই প্রার্থীকে সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে নির্বাচন কমিশন প্রার্থিতা করেছে, প্রমাণ কী? তথ্যপ্রমাণ দিতে হবে। অন্ধকারে ঢিল ছুঁড়লে কী হবে।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ২৭৮ জনের মনোনয়ন টিকেছে আর বিএনপির টিকেছে ৫৫৫ জন। তাহলে মনোনয়ন কার বেশি টিকেছে। নির্বাচনে তো অংশগ্রহণ করবে ৩০০ জন। এখন যারা নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের কথা বলবেন তারা নির্বাচন বানচালের চেষ্টা করছেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা গণতন্ত্রের যাত্রা শুরু করেছি। আজকে আমরা এই অঙ্গীকারই করবো, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার সংগ্রাম অব্যাহত রাখব।

ইসির চেহারা উন্মোচিত হচ্ছে: রিজভী
ঢাকা অফিস
নির্বাচনের সময় যতো ঘনিয়ে আসছে কমিশনের আওয়ামী চেহারা ততো উন্মোচিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি অভিযোগ করেন, নুরুল হুদার কমিশন আওয়ামী লীগ নেতার মতো কাজ করছে। গতকাল বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
রিজভী বলেন, এইচটি ইমাম সরকারের সকল অপকর্মের হোতা। ছেলে তানভীর ইমামকে দিয়ে উল্লাহপাড়ায় তাÐব চালাচ্ছে। নুরুল হুদা কমিশন আওয়ামী লীগ নেতার ন্যায় কাজ করছেন। নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড করছে না। রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্র ৫ হাজার টাকার জন্য বাতিল হলেও এককোটি টাকা ঋণ থাকলেও মাহি বি চৌধুরির মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। ইসি সচিব নিজের নিরাপত্তা দাবি করলেও জনগণের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবছেন কিনা প্রশ্ন।
তিনি বলেন, ইসি সচিব নিজের নিরাপত্তা দাবি করলেও জনগণের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবছেন কিনা প্রশ্ন। জনপ্রশাসন ও পুলিশে নৈতিক কাÐজ্ঞান সম্পন্ন মানুষ এখনও আছে আশা প্রকাশ। তরুণ ভোটাররা ভোট দিয়ে জালিম শাহীর পতন ঘটাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০১৪ সালের মতো একতরফা নির্বাচন করতে ও বিএনপিকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে দিতে পুলিশকে ব্যবহার করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের কোমরে সরকারি তাÐবে বাধা দেয়ার জোড় নেই বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের ৬ মাসের জামিন, মামলা স্থগিত
ঢাকা অফিস
রংপুর ও জামালপুরে দায়ের করা মানহানির মামলায় ছয় মাসের জামিন পেয়েছেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। একইসঙ্গে দুই মামলার কার্যক্রম ছয় মাস স্থগিত করে সেগুলোর নথি তলব করেছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি রেজাউল করিম ও বিচারপতি জাফর আহমেদের বেঞ্চ গতকাল বুধবার এই আদেশ দিয়েছেন। আদালতে মইনুল হোসেনের পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মাসুদ রানা। টেলিভিশন টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে কটূক্তি করার অভিযোগে দেশের বিভিন্ন জেলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়।
উল্লেখ্য, গত ১৬ই অক্টোবর রাতে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে উদ্দেশ্য করে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন ‘চরিত্রহীন’ মন্তব্য করেছিলেন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনা- সমালোচনার ঝড় ওঠে।
পরে ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে ঢাকার মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে মানহানির মামলা করেন মাসুদা ভাট্টি। একই অভিযোগ এনে জামালপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে আরেকটি মামলা হয়। যদিও মামলা দু’টিতে হাইকোর্ট থেকে জামিন নেন ব্যারিস্টার মইনুল। ওই দুই মামলা ছাড়া তার বিরুদ্ধে রংপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, ভোলা ও কুড়িগ্রামেও মামলা হয়। এরমধ্যে একাধিক মামলায় পরোয়ানা জারি করেন বিচারিক আদালত।
গত ২২শে অক্টোবর রাত ১০টার দিকে রাজধানীর উত্তরায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রবের বাসা থেকে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নির্বাচনে ১১টি দলের প্রতীক হবে ‘ধানের শীষ’
ঢাকা অফিস
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ১১টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল বিএনপির দলীয় প্রতীক ‘ধানের শীষ’ নিয়ে লড়বে। গতকাল বুধবার বিকেলে নির্বাচন কমিশনকে এ বিষয়ে চিঠি দিয়েছে বিএনপি। খবর ইউএনবির।
নিবন্ধিত দলগুলো হলো বিএনপি, গণফোরাম, এলডিপি (কর্নেল অলি আহমেদ), জেএসডি (আবদুর রব), বিজেপি(পার্থ), কৃষক শ্রমিক জনতা লিগ (কাদের সিদ্দিকী), খেলাফত মসলিস, জাগপা, কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ মুসলিম লিগ এবং জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। নির্বাচন কমিশনকে দেয়া চিঠিতে উপরোক্ত ১১ টি দলের নাম উল্লেখ করেছে বিএনপি। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাক্ষরিত চিঠিটি নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদের কাছে হস্তান্তর করেন বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

অরিত্রির আত্মহত্যা
অধ্যক্ষসহ ৩ শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে র‌্যাব-পুলিশকে চিঠি
ঢাকা অফিস
রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যায় প্ররোচণায় অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, শাখা প্রধান এবং এক শ্রেণিশিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে র‌্যাব ও পুলিশকে চিঠি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। গতকাল বুধবার বিকেলে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ র‌্যাবের মহাপরিচালক ও ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনারকে ওই বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানিয়ে এ চিঠি দেয়।
চিঠিতে বলা হয়, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লিখিত নাজনীন ফেরদৌস, জিনাত আখতার এবং হাসনা হেনার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ কর হল। এছাড়া ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে চিঠি পাঠানো এক চিঠিতে এই তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করাসহ তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
গত গত রবিবার পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিল নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারী (১৫)। ফোনে নকল থাকার অভিযোগ তুলে তাকে পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়। এরপর ওই ছাত্রীর বাবা-মাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। গত সোমবার সকালে তারা স্কুলে যান এবং মেয়ের হয়ে দফায় দফায় ক্ষমা চান। কিন্তু এরপরও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তাদের অপমান করেন এবং স্কুল থেকে অরিত্রি অধিকারীকে ছাড়পত্র দেওয়ার ঘোষণা দেন।
নিজের সামনে বাবা-মায়ের এমন অপমান সইতে না পেরে ওইদিন দুপুরে শান্তিনগরের বাসায় ফিরে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে ওই ছাত্রী। ওই ঘটনার জেরে মঙ্গলবার শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠে বেইলি রোডে ভিকারুননিসার ক্যাম্পাস। গতকাল বুধবারও চলেছে কর্মসূচি। পরে বিকেলে আন্দোলনকারীদের পক্ষে জানানো হয়, কর্মসূচি বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত স্থগিত। সকাল ৯টায় আবার শুরু হবে।
অরিত্রি রায়ের আত্মহত্যাকে আত্মহত্যা বলতে চায় না তার সহপাঠীরা। তাদের দাবি, ছোট্ট অপরাধে অরিত্রিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছেন শিক্ষকরা।
পল্টন থানার ওসি মাহমুদুল হাসান জানিয়েছেন, গত মঙ্গলবার রাতে অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় থানায় একটি মামলা করেছেন তার বাবা। এই মামলায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ আনা হয়েছে। এতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতি শাখার প্রধান জিন্নাত আরা এবং অরিত্রির শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়েছে।
সার্বিক ঘটনায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের বিক্ষোভের মুখে প্রতিষ্ঠানটি সব ক্লাস ও পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। গত বুধবার ভিকারুননিসার গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারী সুলতানা সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান।

মিয়ানমারে আটক ১৭ বাংলাদেশিকে ফেরত
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
মিয়ানমারে বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক শেষে বিভিন্ন মেয়াদের সাজা ভোগকারী ১৭ বাংলাদেশিকে ফেরত দেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে মিয়ানমারের মন্ডু অভ্যন্তরে ১নং এন্ট্রি/এক্সিট পয়েন্টে টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. আছাদুদ-জামান চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৩ সদস্য প্রতিনিধি দল এবং বিজিপির টিং লিনের নেতৃত্বে ৯ সদস্য প্রতিনিধি দলের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
পতাকা বেঠকে উভয় দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট আলোচনা শেষে মিয়ানমার ইমিগ্রেশন অ্যান্ড ন্যাশনাল রেজিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট সেদেশে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ভোগকারী চট্টগ্রামের বাঁশখালীর বাশিরা বাড়ির লেদু মিয়ার পুত্র বদিউল আলম, টেকনাফের উত্তর শীলখালীর আব্দুস শুক্কুরের পুত্র রহিম উল্লাহ, নুরুল কবিরের পুত্র মুফিজুর রহমান, আজিজুল ইসলামের পুত্র আনোয়ারুল ইসলাম, কক্সবাজারের রামু থানার দক্ষিণ কলাতলীর মো. শফিকের পুত্র মো. সামির, টেকনাফ সদরের গোদারবিলের মো. সাব্বিরের পুত্র মো. শাকের আহমদ, কক্সবাজারের ঘোনা পাড়ার আসগর আলীর পুত্র মো. জালাল উদ্দিন, সাবরাং হারিয়াখালীর আব্দুল আমিনের পুত্র মিজানুর রহমান, লাফারঘোনার মৃত কালু মিয়ার পুত্র নুরুল আলম, হারিয়াখালীর আব্দুর রশিদের পুত্র আজিজ উল্লাহ, আব্দুল মজিদের পুত্র আব্দুস সালাম, চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার নেংটা ফকির পাড়ার ওয়াশিউর রহমানের পুত্র মো. হেলাল, শাহপরীর দ্বীপের মৃত আব্দুল কাদেরের পুত্র মোহাম্মদ জালাল, মৃত সেতাব্বরের পুত্র আবু তাহের, খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলার বড়লোনা কুঞ্জুরীপাড়ার অং জো মারমার পুত্র সে থো অং মারমা, মংপ্রু মারমার পুত্র ইউ সাথোই মারমা ও চট্টগ্রামের বাশঁখালী উপজেলার সরল বাজারের আইয়ুব আলীর পুত্র জামাল উদ্দিনকে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।
এদিকে ফেরত আসা ১৭ জনের মধ্যে ৫ বছর ৯ মাস সাজাভোগী জামাল উদ্দিন বলেন, সাগরে মাছ শিকারে গিয়েই ওপারের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর হাতে আটক হন। এদিকে চাকমা ছেলেদ্বয় চোরাইপথে ওপারে বেড়াতে গিয়ে আটক হয়। অন্যরা দালালের মাধ্যমে সাগর পথে মালয়েশিয়া যেতে গিয়ে আটক হয়ে হাজত বাসের পর অবশেষে দেশে ফিরলেন।

সিলেটে লাঠির আঘাতে কলেজ ছাত্র নিহত
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
সিলেটে প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে হোসাইন আহমদ (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্র নিহত হয়েছে। গতকাল বুধবার ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত হোসাইন আহমদ পৌর এলাকার মধ্য নিদনপুর গ্রামের ছমির উদ্দিনের ছেলে ও বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শিশুদের ঝগড়ার জের ধরে হোসাইনের মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে একই এলাকার মুহিব আলীর ছেলে ঘাতক সুমন আহমদ (১৬)। তাকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।
বিয়ানীবাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাহিদুল ইসলাম বলেন, হামলাকারী পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

‘মুক্ত খালেদাকে নিয়েই নির্বাচন করবে বিএনপি’
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেই বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে। বেগম খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা ফিরে পেতে আমরা সর্বশেষ সময় পর্যন্ত আশাবাদী। নির্বাচন কমিশন সচিবের কাছে চারটি বিষয় অবহিত করে চিঠি দেয়ার পর বুধবার (৫ ডিসেম্বর) বিকেলে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। আলাল বলেন, ‘মনোনয়ন বাতিলের আপিলের শুনানি ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে। আমরা বলেছি এটা ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত না নিয়ে ৬-৭ তারিখের মধ্যে শেষ করা হোক। অতিদ্রæত শেষ করলে প্রার্থীদের জন্য মঙ্গল হবে। কারণ ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন।’
তিনি বলেন, ‘গ্রেফতার ও হয়রানি এখনও চলছে। বাম্পার ফলন যেভাবে হয়, সেভাবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকেও গ্রেফতারের বাম্পার ফলন শুরু হয়েছে। গতকালও একজন মহিলা কমিশনারসহ ও কয়েকজন প্রার্থীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একই সঙ্গে কোম্পানীগঞ্জে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের গাড়িতে সশস্ত্র হামলা হয়েছে। সেটিও অবহিত করেছি এবং এ গ্রেফতার বাণিজ্য বন্ধে নির্বাচন কমিশনকে দ্রæত এবং জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলেছি।’
আলাল বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে নিবন্ধিত আটটি দল ছিল। পরবর্তীতে সেখানে ১১টি দল হয়েছে। এরা ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবে। সে সম্পর্কিত একটি চিঠি ওনাদেরকে আমরা আগেই দিয়েছিলাম। সেই চিঠি পুনরায় দিয়ে মনে করিয়ে দিয়েছি।’ এ পর্যন্ত যতগুলো চিঠি দিয়েছেন তার কতগুলোর প্রতিকার পেয়েছেন বা আপনারা নির্বাচন কমিশনের প্রতি আস্থাশীল কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যাবো কোথায়? আমাদের তো এখানেই আসতে হবে। সেজন্যই আসা।’

পাইলটের আসনে শেখ হাসিনা
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া দ্বিতীয় ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ ‘হংসবলাকা’ পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার দুপুরে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে ভিভিআইপি টার্মিনালের টারমার্কে জাতীয় পতাকাবাহী বোয়িং ৭৮৭-৮ মডেলের উড়োজাহাজটি পরিদর্শন করেন তিনি। শেখ হাসিনা ২৭১ আসনের এ উড়োজাহাজটিতে উঠে ককপিটসহ বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন। এক পর্যায়ে তিনি বিমানের ককপিটে পাইলটের আসনে বসেন। বিমানটির হংসবলাকার নামকরণও করেছেন প্রধানমন্ত্রী।
জানা গেছে, আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু করবে হংসবলাকা। রেজিস্ট্রেশন ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সব প্রক্রিয়া শেষ হতে প্রায় সপ্তাহখানেক সময় লাগবে। ঢাকা-লন্ডন ফ্লাইটের মধ্য দিয়ে এটি প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইট চলাচল শুরু করবে। উড়োজাহাজটির ইঞ্জিন প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান জেনারেল ইলেকট্রিক (জিই)। উড়োজাহাজটির শব্দ কমাতে ইঞ্জিনের সঙ্গে শেভরন প্রযুক্তি যুক্ত রয়েছে।
উড়োজাহাজের নিয়ন্ত্রণ হবে ইলেকট্রিক ফ্লাইট সিস্টেমের মাধ্যমে। কম্পোজিট ম্যাটেরিয়াল দিয়ে তৈরি হওয়ায় এই উড়োজাহাজটি ওজনে হালকা। ভূমি থেকে উড়োজাহাজটির উচ্চতা ৫৬ ফুট। দুটি পাখার আয়তন ১৯৭ ফুট। এর মোট ওজন ১ লাখ ১৭ হাজার ৬১৭ কিলোগ্রাম, যা ২৯টি হাতির সমান! এর ককপিট থেকে টেল (লেজ) পর্যন্ত ২৩ লাখ যন্ত্রাংশ রয়েছে। হংসবলাকা দিয়ে লন্ডন, দাম্মাম ও ব্যাংকক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। টানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম উড়োজাহাজটি চালাতে অন্যান্য বিমানের তুলনায় শতকরা ২০ ভাগ কম জ্বালানি খরচ হবে। ঘণ্টায় ৬৫০ কিলোমিটার বেগে উড়তে পারবে। এর আসন রয়েছে ২৭১টি। এর মধ্যে বিজনেস ক্লাস ২৪টি আর ২৪৭টি ইকোনমি ক্লাস।
বিজনেস ক্লাসের আসনগুলো বানিয়েছে অ্যাসটেলা। আর ইকোনমি ক্লাসের আসনগুলো হেইকোর বানানো। বিজনেস ক্লাসের আসনগুলো ৬৫ ইঞ্চি পিচ, ইকোনমি ক্লাসের আসন৩১ ইঞ্চি পিচ। বিজনেস ক্লাসে ২৪টি আসন ১৮০ডিগ্রি পর্যন্ত সম্পূর্ণ ফ্ল্যাটবেড হওয়ায় যাত্রীরা আরমদায়কভাবে বিশ্রাম নিতে পারবেন। দুপাশের প্রত্যেক আসনের পাশে রয়েছে বড় আকারের জানালা। একসঙ্গে জানালার শাটার বন্ধ করা ও খোলা যাবে বোতাম টিপে। জানালা থেকে শুরু করে কেবিনেও রয়েছে মুড লাইট সিস্টেম। ফলে যাত্রীরা সহজেই পরিবর্তন করতে পারবেন লাইটিং মুড। দীর্ঘ সময় ভ্রমণেও যাত্রীরা যেন ক্লান্তি অনুভব না করেন সেজন্য এর ভেতরে এয়ার কমপ্রেসর সিস্টেম অন্যান্য উড়োজাহাজের তুলনায় উন্নত।
প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স যুক্তরাষ্ট্রের বিমান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং কোম্পানির ১০টি নতুন বিমান ক্রয়ের জন্য দুই দশমিক এক বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করে। হংসবলাকা যোগ হওয়ার মধ্য দিয়ে বিমানবহরে উড়োজাহাজের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫টি।

১৫০ আসনে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে বিএনপি
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৫০ আসনে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। গত ৩ ডিসেম্বর, সোমবার রাতে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ভিডিও কনফারেন্সে রেখে এসব প্রার্থী চূড়ান্ত করেন স্থায়ী কমিটির নেতারা। এরই মধ্যে প্রার্থী হিসেবে যাদের চূড়ান্ত করা হয়েছে তাদের ফোনে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটের সঙ্গে যেসব আসন নিয়ে দরকষাকষি হচ্ছে অথবা ক্রটির কারণে যেসব আসনে মূল প্রার্থী বাদ পড়েছেন, সেখানে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ ছাড়া নির্বাচন পরিচালনাসহ সার্বিক বিষয় দেখভাল করতে ১২টি উপকমিটি গঠনেরও সিদ্ধান্ত হয়েছে। এদিকে ৫ ডিসেম্বর, বুধবার বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট নেতাদের নিয়ে বৈঠকে আসন বণ্টন চূড়ান্ত করা হবে বলে জোট সূত্রে জানা গেছে। প্রাপ্ত তালিকা অনুযায়ী, একক প্রার্থী হিসেবে যাদের চূড়ান্ত করা হয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হচ্ছে, নোয়াখালী-১ আসনে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, নোয়াখালী-২ জয়নুল আবদীন ফারুক, নোয়াখালী-৩ বরকত উল্লাহ বুলু, নোয়াখালী-৪ মো. শাহজাহান, নোয়াখালী-৫ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, নোয়াখালী-৬ ফজলুল আজিম, ল²ীপুর-২ আবুল খায়ের ভূঁইয়া, ল²ীপুর-৩ শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, ফেনী-১ রফিকুল আলম মজনু, ফেনী-২ জয়নুল আবেদীন, চট্টগ্রাম-১০ আবদুল্লাহ আল নোমান, চট্টগ্রাম-১১ আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৬ জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, কক্সবাজার-১ হাসিনা আহমেদ, কক্সবাজার-৩ লুৎফুর রহমান কাজল, কক্সবাজার-৪ শাহজাহান চৌধুরী, মৌলভীবাজার-৩ নাসের রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামল, কুমিল্লা-১ খন্দকার মোশাররফ হোসেন, কুমিল্লা-৬ আমিনুর রশীদ ইয়াসিন, চাঁদপুর-৪ এমএ হান্নান, চাঁদপুর-৫ ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক, মাদারীপুর-৩ আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, শরীয়তপুর-২ শফিকুর রহমান কিরণ, শরীয়তপুর-৩ মিয়া নুরুদ্দিন অপু, সিলেট-২ তাহমিনা রুশদীর লুনা, পঞ্চগড়-১ ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, ঠাকুরগাঁও-১ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, লালমনিরহাট-৩ আসাদুল হাবিব দুলু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ অধ্যাপক শাহজাহান, রাজশাহী-২ মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী-৩ শফিকুল হক মিলন, রাজশাহী-৪ আবু হেনা, নাটোর-২ সাবিনা ইয়াসমিন ছবি, ঝালকাঠি-১ ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, টাঙ্গাইল-৬ গৌতম চক্রবর্তী, জামালপুর-৩ মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, ময়মনসিংহ-১ এমরান সালেহ প্রিন্স, সিরাজগঞ্জ-২ রুমানা মাহমুদ, মেহেরপুর-১ মাসুদ অরুণ, কুষ্টিয়া-৩ সোহরাব উদ্দিন, কুষ্টিয়া-৪ মেহেদী আহমেদ রুমী, চুয়াডাঙ্গা-১ শামসুজ্জামান দুদু, যশোর-৩ অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, মাগুরা-২ নিতাই রায় চৌধুরী, নেত্রকোনা-৪ তাহমিনা জামান, কিশোরগঞ্জ-১ রেজাউল করিম খান চুন্নু, কিশোরগঞ্জ-৬ শরীফুল আলম, মুন্সীগঞ্জ-১ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, মুন্সীগঞ্জ-২ মিজানুর রহমান সিনহা, ঢাকা-৩ গয়েশ্বরচন্দ্র রায়, ঢাকা-৪ সালাহউদ্দিন আহমেদ, খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি, নির্বাচন কমিশন, মিডিয়া কমিটি, সোশ্যাল মিডিয়া কমিটি, অর্থ কমিটি, প্রচার কমিটি ইত্যাদি।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘দুই-তিন দিনের মধ্যে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। তা ছাড়া আমরা মনোনয়নের চিঠি দেওয়ার সময় একজনকে চূড়ান্ত করে বাকিদের বিকল্প প্রার্থী হিসেবে দিয়েছি।’ ‘কিছু জায়গায় মূল প্রার্থী সরকারের কৌশলে যাচাই-বাছাইয়ে বাদ পড়েছে। এর মধ্যে আমাদের জনপ্রিয় নেতা খালেদা জিয়াও রয়েছেন। আশা করি, সবাই তাদের প্রার্থিতা ফিরে পাবেন।’ বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৯ ডিসেম্বরের আগে ৩০০ আসনে বিএনপি তার একক প্রার্থী চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থী চূড়ান্তকরণের কাজ করেন দলটির সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা। তারেক রহমান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ প্রক্রিয়ার নেতৃত্ব দেন।
বৈঠকের শুরুতে দেখা হয়, যাচাই-বাছাইয়ে কোনো কোনো আসনে মূল প্রার্থী বাদ পড়েছেন এবং তাদের প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা আছে কি না। নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, বিভিন্ন আসনে ১৪১ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। তবে বিএনপির নেতারা বলছেন, এর মধ্যে তাদের মূল প্রার্থী রয়েছেন ৭৫-৮০ জন। বিশেষ করে বগুড়া-৭, ঢাকা-১, মানিকগঞ্জ-২, জামালপুর-৪, শরীয়তপুর-১ এবং রংপুর-৫ আসনে এখন তাদের কোনো প্রার্থীই নেই।
এ প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, টার্গেট করে বিএনপির ৫০ জনের বেশি জনপ্রিয় সাবেক এমপির মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। রাজশাহী-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার আমিনুল হক ও রাজশাহী-৫ আসনে নাদিম মোস্তফার মনোনয়নপত্র বাতিলের সার্টিফায়েড কপি এখনো দেওয়া হয়নি। অথচ আপিলের জন্য আজই বুধবার শেষ দিন। এর অর্থ হচ্ছে, সরকারের নির্দেশনায় পরিকল্পিতভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তারা বিএনপির হেভিওয়েট নেতাদের নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য এ পাঁয়তারা করছেন।

বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা জানান, যাচাই-বাছাইয়ে মূল প্রার্থী বাতিল হওয়ায় তারা কিছুটা জটিলতায় পড়েছেন। তারা মনে করছেন, সরকার যতই কৌশল করুক, লাভ হবে না। শেষ পর্যন্ত আইনি প্রক্রিয়ায় তারা মূল প্রার্থীদের হাতে ধানের শীষ প্রতীক তুলে দিতে সক্ষম হবেন। বিএনপির একাধিক নেতা জানান, এরই মধ্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে সমন্বয়ক করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়াও আরও ১১টি উপকমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। মিডিয়া কমিটির প্রধান করা হয়েছে সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, সোশ্যাল মিডিয়া বিভাগের প্রধান তাবিথ আউয়াল। বাকি কমিটিগুলো তৈরির কাজ চলছে।

জাপা’য় এরশাদ এখন কার্যত ‘জিরো’
ঢাকা অফিস
জাতীয় পার্টিতে কার্যত জিরো হয়ে পড়েছেন দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। দলের কার্যক্রমে অনেকাংশেই তাকে এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর মূল ভার এখন চলে এসেছে তার স্ত্রী ও দলের সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদের হাতে। তার সঙ্গে রয়েছেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও নতুন মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ। দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানাচ্ছে দলের মহাসচিব পদে পরিবর্তনের পর থেকেই এই নতুন মেরুকরণ শুরু হয়। যা ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে। দলের একজন সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, এরশাদ এখন কার্যত জিরো হয়ে পড়েছেন। দলে তার ভূমিকা এখন নেই বললেই চলে।
অন্য সূত্রগুলো জানাচ্ছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের পক্ষ থেকে প্রার্থীরা এখন তাদের সকল নির্দেশনা পেতে রওশন এরশাদের গুলশানের বাড়ি, আনিসুল ইসলাম মাহমুদের বাড়িতে কিংবা বনানিতে পার্টি অফিসে বেশি আসছেন। দলের নতুন মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ পার্টি অফিসে সময় দিতে শুরু করেছেন। তার ঘনিষ্ঠ জনেরা জানিয়েছেন, সকালে বারিধারায় দলীয় চেয়ারম্যানের বাসায় তিনি একবার করে যাচ্ছেন বটে, তবে দলের অধিকাংশ কাজ নিজের মতো করেই করতে শুরু করেছেন তিনি। এ বিষয়ে মশিউর রহমান রাঙ্গাঁর সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি ফোন না ধরেন নি। তবে অন্য একজন তার পাশে থেকে জানিয়েছেন, দলের মহাসচিব হিসেবে চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ রাখছেন। দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম জহির জানান, দলের কাজগুলো পরিচালনায় তারা এখন অনেকাংশেই রওশন এরশাদ, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও মশিউর রহমান রাঙার ওপর নির্ভরশীল। তার ভাষায়, ‘চেয়ারম্যান হিসাবে থাকলেও এইচএম এরশাদ এখন কার্যত জিরো হয়ে পড়েছেন।’
এদিকে দলের সঙ্গে মহাজোটের নতুন টানাপড়েন শুরু হয়েছে বলেও জানিয়েছেন এই সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতীয় পার্টিকে সেইসব আসনই দেওয়া হচ্ছে- যেগুলোতে বিএনপি’র শক্ত প্রার্থী রয়েছে। এ ক্ষেত্রে নতুন করে আওয়ামী লীগের সঙ্গে দেন-দরবার শুরু হয়েছে। সরকারের সঙ্গে এসব যোগাযোগ রওশন এরশাদের সঙ্গে সরাসরি হচ্ছে বলেও জানান জহিরুল ইসলাম।

ঐক্যফ্রন্টের যৌথ ইশতেহার ৮ ডিসেম্বর: ড. কামাল
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আগামী ৮ ডিসেম্বর যৌথ ইশতেহার ঘোষণা করবে ঐক্যফ্রন্ট। বুধবার (৫ ডিসেম্বর) বিকেলে নয়াপল্টনের জামান টাওয়ারে ঐক্যফ্রন্টের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন শেষে এ কথা জানান ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, আগামী ৮ তারিখে ঐক্যফ্রন্টের যৌথ ইশতেহার ঘোষণা করা হবে। আর ইশতেহার হবে একটাই এবং সব দলের সমন্বয়ে। ড. কামাল বলেন, দেশে গণতন্ত্রহীন অবস্থা বিরাজ করছে। সামনে নির্বাচন হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ নির্বাচনের মাধমে দেশের জনগণ তাদের মালিকানা ফিরে পাবে।
ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ এ নেতা বলেন, সবাইকে ভোট কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে। আর জন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে, সরকার যাতে ২০১৪ সালের মত আরেকটা যেনতেন নির্বাচন করতে না পারে। তিনি আরও বলেন, একদিকে সরকার দলীয় প্রার্থীরা নিবাচনী মাঠ অত্যন্ত দাপটের সাথে চষে বেড়াচ্ছে অন্যদিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা এলাকায় যেতে পারছে না।
ড. কামাল বলেন, ছোট ছোট অজুহাতে আমাদের ১৪১ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে অথচ সরকার দলীয় বিভিন্ন প্রার্থীরা বড় বড় ঋণখেলাপি হলেও তাদের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের আপিল নিস্পত্তির ক্ষেত্রে সময়ক্ষেপন আমাদের উদ্বেগের বড় কারণ হয়ে দাড়িয়েছে।

মন্ত্রিত্ব গেলে ফের সাংবাদিকতায় ফিরবো: কাদের
খুলনাঞ্চল রিপোর্ট
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমি সাংবাদিক ছিলাম, ভালো সাংবাদিকতার সঙ্গে ছিলাম। মন্ত্রিত্ব গেলে আবারও সাংবাদিকতাতেই ফিরবো। বুধবার (৫ নভেম্বর) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এ কথা বলেন তিনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রিত্ব তো আর সারা জীবন থাকবে না, মন্ত্রিত্ব সব সময় থাকবে এমন তো কোনো কথা না, মন্ত্রিত্ব সব সময় থাকবে এই অহংকারও আমি করি না। অনেক বাঘা বাঘা মন্ত্রিরা এখন আর নেই। মন্ত্রিত্ব চলে গেলে আবার সাংবাদিক হয়ে যাব। সেতুমন্ত্রি বলেন, সাংবাদিকরা তো স্মার্ট। যে কোনো ইনফরমেশন খুব তাড়াতাড়ি কালেক্ট করে ফেলে। মন্ত্রিত্ব গেলে আবার সাংবাদিকতা হব। সবসময় কী আর মন্ত্রিত্ব থাকবে? যে কোনো সময় ক্ষমতা চলে যেতে পারে। ক্ষমতায় আবার ফিরে আসব এরকম নিশ্চয়তা আর দিতে পারি না।
উল্লেখ্য, রাজনীতিতে আসার আগে দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করেছেন ওবায়দুল কাদের। যুক্ত ছিলেন বাংলার বাণী পত্রিকার সঙ্গে। এ পর্যন্ত তার লেখা নয়টি বইও প্রকাশিত হয়েছে। এখনও রাজনীতির পাশাপাশি লেখালেখিও করেন তিনি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের হলফনামায় তিনি উল্লেখ করেছেন লেখালেখি থেকে গড়ে মাসে ৪০ হাজার টাকা আয় করেন।
নোয়াখালী জেলার কোম্পানিগঞ্জের বড় রাজাপুরে জন্ম নেওয়া ওবায়দুল কাদের স্কুল-কলেজের গÐি পেরিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক সম্পন্ন করেন। বর্তমানে তিনি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদের পাশাপাশি সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও সামলাচ্ছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here