নগর আ’লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা মন্নুজান এমপি আজ আর কোন শ্রমিক বেকার নেই

0
16

খবর বিজ্ঞপ্তি
সাবেক শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রিয় নেত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি বলেছেন, আমি আপনাদেরই সন্তান। আপনাদের সাথেই খুলনার মাটি মানুষের সুখ-দুঃখের অংশীদার হয়ে আজীবন কাজ করে এসেছি। আমার ব্যক্তি জীবনের কোন চাওয়া পাওয়া নেই। এ পর্যন্ত যা কিছু করেছি তার সবই প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে খুলনার মানুষের উন্নয়নে করেছি। আমি রাজনীতি করি এ অঞ্চলের অবহেলিত, বঞ্ছিত শ্রমজীবী মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য। আমি শুধু ভোটের সময়ই আপনাদের কাছে আসি না, আপনাদের সুখে-দুঃখে আমি এবং আমার দল সব সময়ই পাশে থেকেছি। তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য সারা জীবন রাজনীতি করেছেন। আমি তাঁর আদর্শে বাস্তবায়নে গরীব দুখী শ্রমজীবী এবং সমস্যা পীড়িত মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, গরীব অসহায় শ্রমিকদের কথা বিবেচনা করেই আমরা খুলনার বন্ধ জুট মিল চালু করেছি। হাজার হাজার শ্রমজীবী মানুষের বকেয়া মুজুরী পরিশোধ করেছি। প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়া জুট সেক্টরকে সচল করছি। আজ আর কোন শ্রমিক বেকার নেই। না খেয়ে থাকতে হয়না শ্রমিকদের। অর্থের অভাবে শ্রমিক সন্তানদের পড়ালেখা বন্ধ হয় না। এসবই দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনার অবদান। আমরা তাঁর কর্মী হিসেবে এ সব কিছুই বাস্তবায়ন করতে সমর্থ হয়েছি। ইনশাল্লাহ আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার গঠন করে খুলনার শ্রমিকদের বকেয়া মুজুরী পরিশোধ করা হবে। দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে আমি আপনাদের দোয়া ও সহযোগিতা চাই। তিনি দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ঘরে ঘরে যেয়ে শেখ হাসিনার উন্নয়নকে ছড়িয়ে দিয়ে ভোট প্রার্থনা করে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে।
গতকাল বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টায় দৌলতপুরস্থ মতিউর রহমান মিলনায়তনে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় (খালিশপুর, দৌলতপুর ও খানজাহান আলী থানা) বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম বন্দ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আশরাফুল ইসলাম। মহানগর আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা শেখ সৈয়দ আলী, এ কে এম সানাউল্লাহ নান্নু, শেখ আবিদ হোসেন, মনিরুল ইসলাম বাশার, মো. শহিদুল ইসলাম বন্দ, এস এম আনিছুর রহমান, মাকসুদ আলম খাজা, কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ আলী, হাজী নুরুজ্জামান, লুৎফন নেছা লুৎফা, কাউন্সিলর মুন্সি আব্দুল ওয়াদুদ, কাউন্সিলর পারভীন আক্তার, শারমিন রহমান শিখা, মিতা বাগচী, মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুর রহমান হাফিজ, কাজী এনায়েত আলী আলো, সাকিল আহমেদ, কাউন্সিলর মাহফুজুর রহমান লিটন, কাউন্সিলর তালাত হোসেন কাউট, ওয়াজেদ আলী মজনু, মাকসুদ হাসান পিকু, হারুনুর রশীদ হাওলাদার, সাফায়াত হোসেন প্যারেট, সাবেক কাউন্সিলর মো. সাহিদুর রহমান, বিজিএ’র সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সোবাহান শরীফ, সিবিএ’র সাবেক সভাপতি সাহানা শারমিন, সিবিএ’র সাবেক সভাপতি শেখ মুরাদ আহমেদ, সিবিএ’র সাবেক সহ সভাপতিতরিকুল ইসলাম, সিবিএ’র সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ আবু হানিফ, শ্রমিক নেতা কাজী আব্দুল কাদের মাষ্টার, যুবলীগ নেতা রানা পারভেজ সোহেল, আব্দুল্লাহ আলম মামুন মিলন।
এসময়ে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা শেখ ইউনুচ আলী, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, মনিরুজ্জামান খান খোকন, শাহীন জামাল পন বেগ আনিসুর রহমান, মাষ্টার দেলোয়ার হোসেন, হাসান হাফিজুর রহমান, জাকির হোসেন, মাসুদ বন্দ, বিউটি ইসলাম, ফারহানা ইসলাম নিপু, তসলিমা আহমেদ লিমা, মাসুদ বন্দ, বাচ্চু মোড়ল সহ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সাধারণ সম্পাদক, সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।
সভায় খালিশপুরে এ কে এম সানাউল্লাহ নান্নুকে আহবায়ক এবং মনিরুল ইসলাম বাশারকে সদস্য সচিব, দৌলতপুর থানায় শেখ সৈয়দ আলীকে আহবায়ক ও শহিদুল ইসলাম বন্দকে সদস্য সচিব এবং খানজাহান আলী থানায় শেখ আবিদ হোসেনকে আহবায়ক ও এস এম আনিছুর রহমানকে সদস্য সচিব করে তিনটি নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটিতে স্ব স্ব থানায় বসবাসরত মহানগর আওয়ামী লীগ এবং ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ, প্রস্তাবিত থানা কমিটির সদস্যবন্দ, সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, নির্বাচিত দলীয় কাউন্সিলর, সিবিএ/নন সিবিএ এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক সদস্য হিসেবে কমিটিতে রাখার সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া নির্বাচনকে সমন্বয় করার জন্য খালিশপুরে শেখ মো. ফারুক আহমেদ ও মো. আশরাফুল ইসলাম, দৌলতপুরে নুর ইসলাম বন্দ ও মোজাম্মেল হক হাওলাদার এবং খানজাহান আলী থানায় বেগ লিয়াকত আলী, মো. ইউনুচ আলী ও স. ম রেজওয়ানকে সমন্বয়ক করা হয়।
সভায় ২নং ওয়ার্ডের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়।
পরে বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি ১১নং ওয়ার্ডে কর্মী সভায় অংশ গ্রহণ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here