রুদ্ধশ্বাস অভিযানে মুক্ত থাই গুহায় আটকা পড়া সবাই

0
16

খুলনাঞ্চল ডেস্ক
দীর্ঘ ১৮ দিনের উদ্বেগ, উৎকণ্ঠার সমাপ্তি ঘটল। থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে পড়া কিশোর ফুটবল দলের ১২ সদস্য ও তাদের কোচকে উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের অভিযান শেষে গুহার গভীরে আটকা পড়া ফুটবল দলের সবাইকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলো থাই ও আন্তর্জাতিক উদ্ধারকারী দল।
ডেইলি মেইলের এক খবর বলা হয়, স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সর্বশেষ চার কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নেয়া হয়। উদ্ধার করা কিশোরদের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ ১১ বছর বয়সী চ্যানিন উইবোনরানগুরুং আছে। তার ডাক নাম টাইটান।
থাই নেভি সিল দল এক বিবৃতিতে বলেছে, ১২ জন কিশোর এবং তাদের ফুটবল কোচকে বের করে করে আনা হয়েছে, এক অসাধারণ উদ্ধার অভিযান সম্পন্ন হয়েছে – যার দিকে পুরো বিশ্বের দৃষ্টি নিবদ্ধ ছিল।
নেভি সিল দল তাদের ফেসবুকে দেয়া বিবৃতিতে বলেছে, ‘১২ ওয়াইল্ড বোয়ারস ও তাদের কোচ গুহা থেকে বেরিয়ে এসেছে এবং তারা নিরাপদ আছে।’ গত দু’দিনের মত গতকাল মঙ্গলবারও উদ্ধারকৃতদের সবাইকেই হেলিকপ্টারে করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, গতকাল মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের মতো শিশুদের উদ্ধারকাজে ৯০ জন ডুবুরি থাম লুয়াং গুহায় প্রবেশ করেন। রবিবার ও গত সোমবার আটজনকে থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধার করা হয়। পুরো উদ্ধার প্রক্রিয়ায় ৯০ জনের একটি ডুবুরি দল কাজ করে। তাদের মধ্যে ৪০ জন থাইল্যান্ডের। অন্যরা বিদেশি।
গাঢ় অন্ধকারের মধ্যে হেঁটে, কাদা মাড়িয়ে, কখনো চড়াইয়ে উঠে, আবার কখনো পানির নিচ দিয়ে সাঁতরে ওই কিশোরদের বের করে আনা হয়। উদ্ধারকাজের জন্য বাইরে থেকে ওই ফুটবল দলের অবস্থানস্থল পর্যন্ত দড়ি বাঁধা হয়। উদ্ধারের সময় প্রত্যেক কিশোরকে অক্সিজেন মাস্ক পরানো হয়, দড়ি দিয়ে বাঁধা হয় সামনে থাকা ডুবুরির সঙ্গে। একজন গুহায় বাঁধা দড়ি এবং অক্সিজেনের বোতল নিয়ে যান খুদে ফুটবলারদের কাছে। কোনো সমস্যা হলে সহায়তার জন্য তাদের পেছনে ছিলেন আরেকজন ডুবুরি। গুহার সবচেয়ে বিপজ্জনক জায়গাটি ‘টি-জংশন’ নামে পরিচিত। এই এলাকা এতটাই সংকীর্ণ যে এখানে ডুবুরিদের অক্সিজেন ট্যাংকও খুলে ফেলতে হয়। এই এলাকার আগে ‘চেম্বার-থ্রি’ নামের প্রকোষ্ঠে বেস ক্যাম্প বানানো হয়েছে। সর্বশেষ ধাপটি অতিক্রমের আগে এখানে কিছু সময় বিশ্রামের ব্যবস্থা রাখা হয়। উদ্ধার করা শিশুরা ভালো আছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
মিয়ানমারের সীমান্তের কাছে ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ থাম লুয়াং গুহা থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহা। কম চওড়া আর অনেক প্রকোষ্ঠ থাকায় গুহার ভেতরে চলাচল করা কঠিন। ওই গুহায় ঢোকার পর গত ২৩ জুন নিখোঁজ হয় ১২ খুদে ফুটবলার ও তাদের কোচ। খুদে ফুটবলারদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। আর তাদের সহকারী কোচ এক্কাপোল জানথাওংয়ের বয়স ২৫ বছর। তারা মু পা নামের একটি ফুটবল দলের সদস্য। নয় দিন সেখানে আটকে থাকার পর ২ জুলাই ব্রিটিশ ডুবুরি রিচার্ড স্ট্যানটন ও জন ভলানথেন তাদের সন্ধান পান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here